তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত

তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত (টিএনটিজে, তামিল: தமிழ்நாடு தவ்ஹீத் ஜமாஅத்) তামিলনাড়ুভিত্তিক একটি অরাজনৈতিক ইসলামি সংগঠন। এটি ২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি ইসলাম প্রচারের পাশাপাশি সামাজিক কর্মকাণ্ডে অবদান রেখে থাকে।

তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত
தமிழ்நாடு தவ்ஹீத் ஜமாஅத்
TNTJ Flag.png
তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাতের পতাকা
সংক্ষেপেটিএনটিজে
প্রতিষ্ঠাকাল১৬ মে ২০০৪ (2004-05-16)
প্রতিষ্ঠাতাপি. জয়নুলআবেদিন
আলোকপাতইসলাম প্রচার
অবস্থান
এলাকাগত সেবা
ভারত, শ্রীলঙ্কা, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, সৌদি আরব, কুয়েত, মালয়েশিয়া, বাহরাইন, ব্রুনেই, ওমান, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া,সিঙ্গাপুর
পরিষেবারক্তদান
এতিমখানা
বৃদ্ধাশ্রম
জীবনযাত্রায় সহায়তা
শিক্ষায় সহায়তা
স্বাস্থ্য সচেতনতা
দুর্যোগে আর্তমানবতার সেবা
সদস্য
৩০০,৯৯৯
দাপ্তরিক ভাষা
প্রধান ভাষা
তামিল
অন্যান্য ভাষা
মালয়ালাম
উর্দু
সিংহলি
ইংরেজি
প্রকাশনাউনার্ভু
এগাথুভাম
ওয়েবসাইটwww.tntj.net
www.onlinepj.com
www.jesusinvites.com

কার্যক্রমসম্পাদনা

তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত সংগঠনের কর্মীদের মাঝে রক্তদানে উৎসাহ প্রদান করে থাকে।[১] এটি টানা দশ বার তামিলনাড়ুতে সর্বোচ্চ পরিমাণের রক্তদানের জন্য রাষ্ট্রীয় পুরস্কার জিতেছে। সংগঠনটি বিভিন্ন মানবিক বিপর্যয়ে আর্তমানবতার সেবা করে থাকে। সংগঠনটি ২০১৫ সালে তামিলনাড়ুর বন্যায় প্রায় ২৫ কোটি রুপির ত্রাণ প্রদান করেছিল। সংগঠনটি ডেঙ্গু জ্বর সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে থাকে।[২]

তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত তামিলনাড়ুতে বিভিন্ন ইস্যুতে সরব ছিল। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল : বাবরি মসজিদ ইস্যু, মদের দোকান উচ্ছেদকরণ ও লোড শেডিং ইস্যু।[৩][৪][৫] সংগঠনটির নেতা পি জয়নুলআবেদিন সংগঠনটির কর্মীদের অহিংস প্রতিবাদে অংশ নেবার জন্য উপদেশ দিয়ে থাকেন।[৬] ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে মার্কিন কনস্যুলেট দেশটির নাগরিকদের চেন্নাই ভ্রমণের ক্ষেত্রে সতর্কতা জারি করেছিল, কেননা তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত তখন রাজ্যটিতে একটি ইসলামবিরোধী চলচ্চিত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে লিপ্ত ছিল।[৭][৮] ২০১৪ সালের ২৮ জানুয়ারি সংগঠনটি রাজ্যটিতে মুসলমানদের জন্য সংরক্ষিত আসন বৃদ্ধির দাবি জানায়।[৯]

সাময়িকীসম্পাদনা

ক্রমিক নং নাম প্রকারভেদ
১. উনারভু সাপ্তাহিক
২. এগাথুভাম মাসিক

সাংগঠনিক কাঠামোসম্পাদনা

 
সালেমে তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত পরিচালিত একটি মসজিদ
ধাপ সংগঠন
রাজ্য রাজ্য কার্যনির্বাহী কমিটি
রাজ্য পরিচালনা কমিটি
রাজ্য অডিট কমিটি
জেলা জেলা প্রশাসনিক কমিটি
ব্রাঞ্চ ব্রাঞ্চ প্রশাসনিক কমিটি
ছাত্র বিভাগ
চিকিৎসাসেবা কমিটি

সংগঠনটির দেশভিত্তিক শাখাগুলো হল:

  • নিখিল ভারত তৌহিদ জামাত
  • শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাত
  • কাতার ভারত তৌহিদ কেন্দ্র
  • সংযুক্ত আরব আমিরাত তৌহিদ জামাত
  • যুক্তরাষ্ট্র তৌহিদ জামাত
  • যুক্তরাজ্য তৌহিদ জামাত
  • ফ্রান্স তৌহিদ জামাত
  • অস্ট্রেলিয়া তৌহিদ জামাত

সমালোচনাসম্পাদনা

শ্রীলঙ্কান মুসলমানদের কর্তৃক বিরোধিতাসম্পাদনা

তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাতের শ্রীলঙ্কা শাখা 'শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাত' শ্রীলঙ্কার স্থানীয় মুসলমানদের কর্তৃক বিরোধিতার সম্মুখীন হয়। তাদের বিরুদ্ধে সৌদি অর্থে ওহাবি মতবাদ প্রচারের অভিযোগ তোলে তারা। ২০১৫ সালে সংগঠনটি সিংহলী ভাষায় কুরআন অনুবাদ করে তার মোড়ক উন্মোচনের চেষ্টা করলে দেশটির মুসলিম সম্প্রদায় সেই অনুবাদকে খুঁতযুক্ত বলে অভিহিত করে। শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাত ,দলটির মূল শাখার প্রতিষ্ঠাতা পি. জয়নুলআবেদিনকে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আমন্ত্রণ জানালে দেশটির মুসলমান সম্প্রদায় প্রতিবাদ জানায় ও তাকে দেশে ঢুকতে না দিতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানায়। সরকার তাদের আবেদনে সাড়া দেয়। শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাতের সাধারণ সম্পাদক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে জানান যে, তামিলনাড়ু তৌহিদ জামাত ও শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাত একসাথে অনৈসলামিক প্রভাবমুক্ত আসল ইসলাম প্রচার করছে।[১০]

বৌদ্ধধর্ম ও গৌতম বুদ্ধ সম্পর্কে অপমানকর মন্তব্যসম্পাদনা

২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাতের সাধারণ সম্পাদক আর. আবদুল রাজিক গৌতম বুদ্ধবৌদ্ধধর্ম সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্যের জন্য ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন। দেশটির বৌদ্ধ ধর্ম বিষয়ক বিভাগ দেশটির আদালতে আবদুল রাজিকের বিরুদ্ধে ধর্মীয় সম্প্রীতিতে ফাটল ধরানোর অভিযোগ করে। ২০১৬ সালের নভেম্বরে আবদুল রাজিককে গ্রেফতার করা হয় এবং ডিসেম্বর মাসে তাকে শর্তসাপেক্ষে জামিন দেওয়া হয়। ২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কা তৌহিদ জামাত আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থনার জন্য সম্মতি জানায়। কিন্তু, সিসিডি দেখতে পায় যে, বৌদ্ধ ভিক্ষুদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করার মাধ্যমে আবদুল রাজিক জামিনের শর্ত ভেঙেছেন।[১১][১১][১২][১৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "EP expats donate blood for pilgrims"Arab News। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২১ 
  2. "Thowheedh Jamath activists create awareness of dengue"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২১ 
  3. "Demonstrations for reconstruction of mosque"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২০ 
  4. "Spirited stir against liquor shop"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২০ 
  5. "Cadres flay "preferential treatment" to Chennai in load-shedding"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২০ 
  6. "Exercise restraint during agitations"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২০ 
  7. "Muslim group protests anti-Islam film near Chennai US Consulate"First Post। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২০ 
  8. "Security Message for U.S. Citizens – Possible Anti-American Demonstrations"। U.S. Consulate General Chennai। ২০১২-১১-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২১ 
  9. "TNTJ Announces 'Fill Jails' Protest"Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৪-২১ 
  10. "Stiff opposition to TN muslim preacher Jainul Abideen's visit to Lanka"www.dailymirror.lk (English ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-২৩ 
  11. "CCD Seeks AG's Advise On Radical Muslim Group Over Derogatory Comments On Buddha"asianmirror.lk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-২৩ 
  12. "SLTJ Secretary Abdul Razik released on bail"Daily News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-২৩ 
  13. Sooriyagoda, Lakmal। "Tawheed Jamath apologises"Daily News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-২৩