পাখিদের চঞ্চুর তুলনা, বিভিন্ন ধরনের খাদ্য গ্রহণের পদ্ধতির বিভিন্ন আকার প্রদর্শন।

চঞ্চু বা ঠোট হচ্ছে পাখিদের মুখের বাহ্যিক শারীরিক গঠন যেটা তারা খাবার খাওয়া, সাজানো গোছানো, বস্তু নড়াচড়া করানো, শিকার করা, লড়াই, খাদ্য খোঁজা, প্রজনন এবং বাচ্চাদের খাওয়ানোর জন্য ব্যবহার করে। চঞ্চু দ্বারা শুধুমাত্র পাখির ঠোঁট ছাড়াও আরো কিছু পাখি প্রজাতি, কচ্ছপ, ডাইনোসর, সেফালোকর্ডাটা পর্বের প্রাণী, মাছ ইত্যাদির মুখের অংশ বিশেষকে বোঝায়। বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতি যেমন প্লাটিপাস, লিমুলাস ইত্যাদির মুখের অংশকেও চঞ্চু বলা হয়।

যদিও ঠোঁটগুলো আকার, আকৃতি, রঙ এবং গঠনবিন্যাসে উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়, তারা একই অনুরূপ অন্তর্নিহিত কাঠামোতে গঠিত। দুইটি অস্থিময় অভিক্ষেপ এপিডার্মিসের একটি পাতলা কেরাটিনাইজড স্তর দিয়ে আচ্ছাদিত যেটি উপরের ও নিম্ন চোয়াল-র্যামফোথেকা নামে পরিচিত। অধিকাংশ প্রজাতিতে নেয়ার নামে পরিচিত দুটি গর্ত শ্বাসযন্ত্রে ভুমিকা রাখে।

ব্যুৎপত্তিগত অর্থসম্পাদনা

চঞ্চু শব্দটি বিশেষ্য পদ। অর্থ পাখির ঠোট। ধ্বনিতত্বমতে /চঞ্চ্‌+উ/। চ বর্গের অন্তর্ভুক্ত চ বর্ণ এবং ঞ বর্ণ দ্বারা চঞ্চু শব্দটি গঠিত। চঞ্চু = চ+ঞ+্+চ+উ ব্যকরণ মতে।

শারীরিক গঠনসম্পাদনা

 
প্যাঁচার ঠোটের কঙ্কালের অস্থিময় গঠন

যদিও চঞ্চু বিভিন্ন প্রজাতিতে আকার-আকৃতিতে বিভিন্নতা দেখায় তবুও এদের আদর্শ একটি গঠন আছে। প্রতিটি চঞ্চু দুটি চোয়াল নিয়ে গঠিত ; সাধারনত উপরের চোয়াল (বা ম্যাক্সিলা) এবং নিচের চোয়াল (বা ম্যান্ডিবল) [১] নামে পরিচিত। উপরের চোয়াল এবং কিছুক্ষেত্রে নিচের চোয়াল সংযোগকারী টিস্যু বা কলার ত্রিমাত্রিক কাঠামো এবং বাহিরে শক্ত আবরন [২][৩] দিয়ে গঠিত। পাখির চোয়াল দুটি একক নিয়ে গঠিত হয়; এক চারের সংযোগ এবং এক পাঁচের সংযোগ পদ্ধতি। [৪]

চোয়ালসম্পাদনা

 
একটি জলকুক্কুটের উপরের চোয়াল যেটা ছোট হাড় দিয়ে গঠিত এবং সামনের দিকে এবং পিছন দিকে নড়াচড়া করানো যায়

উপরের চোয়ালটি একটি তিন-কাঁটাওয়ালা হাড় দ্বারা গঠিত যাকে আন্তঃচোয়াল বলা হয়। এই হাড়ের উপরের কাঁটা কপালের মধ্যে সংযুক্ত হয়, যেখানে দুটি নিম্ন কাঁটা খুলিগুলোর পাশে সংযুক্ত। উপরের উপরের চোয়ালের ভিতর অনুনাসা হাড়ের একটি পাতলা শীট সম্মুখ অনুনাসা কব্জাতে কঙ্কালের সঙ্গে সংযুক্ত হয়, যা উপরের চোয়ালের এর চলনক্ষমতা দেয়, এটি উপরে এবং নিচে নিচে সরাতে সাহায্য করে। [৫]

 
ভোমারের অবস্থান (লালছায়া যুক্ত) নিয়োগন্যাথি (বামে) এবং প্যালিওগন্যাথি (ডানে)

মুখ থেকে দেখা উপরের চোয়ালের নিন্মাংশ বা উপরাংশ যা কাঠামোতে ব্যাপকভাবে পৃথক হয়। এখানে, ভোমার হলো বড় এবং একটি অবস্থার মধ্যে প্রিম্যাক্সিলা এবং ম্যাক্সিলোপ্রোপাল্যাটাইন হাড় সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করে যা "প্যালিওগন্যাথাস তালু" হিসেবে আখ্যায়িত। অন্য সকল পাখিদের একটি সংকীর্ণ কাঁটাকৃতির ভোমার আছে যে অন্যান্য হাড়ের সঙ্গে সংযোগ হয়না এবং এটাকে নিওগন্যাথাস বলা হয়। এই হাড়ের আকার পাখি পরিবার জুড়ে পরিবর্তিত হয়। নিচের চোয়াল একটি হাড় দ্বারা যুক্ত থাকে যেটি অধঃ ম্যাক্সিলারি হাড়-(একটি যৌগিক হাড় যা দুটি স্বতন্ত্র শক্তিশালী হাড়ে গঠিত) হিসেবে পরিচিত। এই শক্তিশালী ফলক বা চোয়ালের শাখা ইউ আকৃতির অথবা ভি আকৃতির [১] হতে পারে যা মিলিত ভাবে সংযুক্ত হয় (সংযোগের প্রকৃত অবস্থান প্রজাতি ভেদে পার্থক্য হয়) কিন্তু আলাদাভাবে পৃথক হয়, যা মাথার হাড়ের দিকে উভয় পাশে সংযুক্ত হয়। চোয়ালের পেশি চঞ্চু বন্ধ করতে সাহায্য করে যা নিচের চোয়ালের এবং পাখির কঙ্কালের নিকটবর্তি অঞ্চলে যুক্ত হয়। [৬] নিন্ম চোয়ালকে অবনমিত করে যে পেশি তা সাধারণত দুর্বল হয়, কিছু পাখিদের ক্ষেত্রে ব্যাতিক্রম হয় যেমন স্টারলিং এবং বিলুপ্ত হুইয়া, যাদের উন্নত ডাইগ্যাস্ট্রিক পেশি রয়েছে যা প্রস্ফুটনে খোজাঁর কাজে সাহায্য করে। [৭] অধিকাংশ পাখিদের এই পেশিগুলো অনুরূপ স্তন্যপায়ীদের চোয়ালের পেশির তুলনায় ছোট হয়। [৮]

হাম্ফোথেকাসম্পাদনা

ঠোঁটের বাইরের পৃষ্ঠে কেরাটিনের একটি পাতলা শৃঙ্গাকার খাপ রয়েছে যা হাম্ফোথেকা নামে পরিচিত,[৫][৬] যা দুইভাগে বিভক্ত হতে পারে ; উপরের চোয়ালের রাইনোথেকা এবং নিচের চোয়ালের ন্যাথোথেকা [৯] এই আচ্ছাদনটি পাখির এপিডার্মিসের ম্যালপিজিয়ান স্তর থেকে উত্থাপিত হয [৯] যা প্রতিটা চোয়ালের ফলক থেকে বৃদ্ধি পায় । [১০] র্যামফোথেকা এবং ডার্মিসের গভীর স্তরের মধ্যে একটি ভাস্কুলার স্তর রয়েছে যা চঞ্চুর হাড়ের পেরিঅস্টিয়ামের সাথে সরাসরি সংযুক্ত থাকে। [১১] কিছু প্রজাতির পাখির মধ্যে র্যাম্ফোথেকা ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধি পায়, এবং ঋতুভেদে বিভিন্ন রঙের হয়। [১২] কিছু দীর্ঘ চঞ্চু বিশিষ্ট পাখির ক্ষেত্রে, র্যাম্ফোথেকার অংশ প্রতি বছর প্রজনন ঋতুর পরে আচ্ছাদিত হয়, কিছু বৃহদাকার জলচর পক্ষীদের ঠোঁটের একটি অংশকে "শৃঙ্গ শিং" বলা হয় যা প্রজনন ঋতুর মধ্যে বিকাশ ঘটে। [১৩][১৪][১৫]

যদিও বেশিরভাগ পাখি প্রজাতির গোত্রের একটি একক র্যাম্ফোথেকা রয়েছে , যেমন অ্যালবাট্রস [৯] এবং এমু, এদের যৌগিক র্যামফোথেকা রয়েছে যা কয়েকটি খন্ড দ্বারা আলাদা এবং পাতলা কেরাটিনময় খাঁজে গঠিত। [১৬] গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে এটা র্যাম্ফোথেকার আদিম অবস্থা ছিল এবং বিবর্তনের মাধ্যমে ধীরে ধীরে ক্ষয় হয়ে আধুনিক র্যাম্ফোথেকা তৈরী হয়েছে। [১৭]

টোমিয়াসম্পাদনা

 
একটি সাধারণ মার্জেনসারের ঠোঁটের উপর করাতসদৃশ দাঁত তার মাছ শিকারকে আঁকড়ে ধরে রাখতে সাহায্য করে

টমিয়া (একবচন টমিয়াম) দুটি চোয়ালের কাটা প্রান্ত।[১৮] অধিকাংশ পাখির মধ্যে, এই পরিসীমা বৃত্তাকার সামান্য ধারালো থাকে, কিন্তু কিছু প্রজাতি কাঠামোগত পরিবর্তনগুলো যা তাদের সাধারণ খাদ্য উত্সগুলো আরও ভালভাবে পরিচালনা করতে সাহায্য করে। [১৯] উদাহরণস্বরূপ, গ্রামীণ (বীজ-খাওয়ানো) পাখির টমিয়া ঢালু, যা পাখিকে বীজ এর বাইরের স্তর টুকরো করতে সাহায্য করে। [২০] বেশিরভাগ বাজপাখির উপরে চোয়ালের সাথে একটি ধারালো অভিক্ষেপ এবং নিচের চোয়ালের সাথে সংশ্লিষ্ট খাঁজ রয়েছে। তারা এই "দাঁত" ব্যবহার করে তাদের শিকারদের মেরুদন্ডের ভার্টিব্রা আলাদা করতে বা পোকামাকড়কে খন্ডিত করতে। কিছু চিল এবং চিল জাতীয় পাখি [২১] মূলত পোকামাকড় বা টিকটিকি শিকার করে, এতে এক বা একাধিক ধারালো অভিক্ষেপ আছে। [২২] কিছু মাছ-ভক্ষক প্রজাতি, যেমন, মার্জেন্সার, তাদের টমিয়া বরাবর করাতসদৃশ দাঁত রয়েছে, যা তাদের ফাঁদে শিকার রাখতে সাহায্য করে। [২৩] প্রায় ৩০ টি গোত্রের পাখি তাদের সম্পূর্ণ দৈর্ঘ্যের সাথে খুব ছোট শক্ত গুচ্ছের সঙ্গে রেখাযুক্ত আছে। এই প্রজাতির বেশিরভাগই শক্ত-আবরনের শিকার বা শামুক ভোজনকারী, এবং ব্রাশের মত ফলকগুলো চোয়ালের মধ্যে ঘর্ষণ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করতে পারে, যার ফলে পাখি দীর্ঘস্থায়ী শক্ত আবরন ধরে রাখার ক্ষমতা অর্জন করে। [২৪] সব হামিংবার্ড প্রজাতির ২৩% এর ঠোঁট কার্যকরীভাবে পোকা শিকার বা সমজাতীয় কাজ সম্পন্ন করতে পারে। এটি ছোট ঠোঁট বিশিষ্ট হামিংবার্ডের ক্ষেত্রে ফুলের মধু সংগ্রাহক হিসাবে কাজ করতে পারে, এবং কার্যকরভাবে দীর্ঘ বা মোম ফুল কাটায় সহায়তা করে। [২৫] কিছু ক্ষেত্রে, একটি পাখির টমিয়ার রঙ প্রজাতিভেদে পার্থক্য করতে সাহায্য করে। উদাহরণস্বরূপ, তুষার হাঁসের, কালো টমিয়ার সঙ্গে একটি লালচে গোলাপি ঠোঁট আছে। [২৬]

কালমেনসম্পাদনা

 
একটি গায়কপক্ষী এর কালমেন ঠোঁটের চূড়া থেকে একটি সোজা লাইন পরিমাপ করা হয় - যেখানে পাখির কপাল উপর পক্ষোদগম শুরু হয়।

কালমেন হচ্ছে উপরের চোয়ালের ডরসাল রিজ। [২৭] পক্ষীবিজ্ঞানী এলিয়ট কয়েজ দ্বারা উপমিত যে রিজ লাইন যেটি "ঠোঁটের সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্যের মধ্য লাইন" এবং পয়েন্ট থেকে বিস্তৃত হয় যেখানে কপাল থেকে উপরের চোয়ালের পালক উত্থিত হয়। [২৮] কালমেন বরাবর ঠোঁটের দৈর্ঘ্য হলো নিয়মিতভাবে পরিমাপ যা পাখির আওয়াজ দ্বারা প্রস্তুত হয়।[২৯] এবং এটা সাধারণত খাদ্যগ্রহণ গবেষণায় ব্যবহার হয়। [৩০] এমন কয়েকটি আদর্শ পরিমাপ রয়েছে, যা ঠোঁটের প্রান্ত থেকে শুরু হয়ে কপালের পালক পর্যন্ত, ঠোঁটের প্রান্ত থেকে নাকের কাছ পর্যন্ত, ঠোঁটের প্রান্ত থেকে কঙ্কাল পর্যন্ত অথবা ঠোঁটের প্রান্ত থেকে সিরি (হিংস্র পাখি বা প্যাঁচার ক্ষেত্রে) পর্যন্ত [৩১] এবং পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের বিজ্ঞানীরা সাধারণত একটি পদ্ধতিতে অন্য একটি পদ্ধতির সাহায্য নেয়। [৩০] সব ক্ষেত্রে, এই পরিমাপটি হচ্ছে ক্যালিপারদের থেকে নেওয়া কোন বক্ররেখা উপেক্ষা করে বিন্দু থেকে বিন্দুতে জ্যা এর মাপ। [২৯]

কালমেন এর আকৃতি বা রঙ ক্ষেত্রবিশেষে পাখি সনাক্তকরণে সাহায্য করে। উদাহরণস্বরূপ, টিয়াপাখির ঠোঁটের কালমেন দৃঢ়ভাবে বাঁকা হয়, যেখানে অনুরূপ তুলনায় লাল পাখির ঠোঁট আরো বেশি বাঁকানো হয়। [৩২] একটি কবিতার সাধারণ কুলের সবুজ, সব একইভাবে pulled jaelvile হলুদ-বিল লোহন টিপ জন্য প্যালেঞ্জ। [৩৩]

গনিসম্পাদনা

গনি হচ্ছে দুটি ছদ্মবেশী প্লেটের জাংশন দ্বারা নির্মিত নিম্ন চোয়ালের ভেন্ট্রাল রিজ। [৩৪] সেই জংশনের নিকটবর্তী প্রান্তে যেখানে দুটি পৃথক প্লেটগুলো গনিডিল কোণ বা গনিডিল সম্প্রসারণ হিসাবে পরিচিত। কিছু গল প্রজাতির মধ্যে, প্লেটগুলো সামান্য প্রসারিত থাকে, একটি লক্ষণীয় স্ফীতি তৈরি করে; গনিডিল কোণের আকার এবং আকৃতি একই ধরনের প্রজাতির মধ্যে সনাক্তকরণের জন্য ব্যবহৃত হতে পারে। অনেক প্রাপ্তবয়স্ক বড় প্রজাতির গলের গনিডিল সম্প্রসারণের কাছাকাছি একটি লালচে বা কমলাটে গনিডিল অঞ্চল আছে। [৩৫] এই অঞ্চল গুলো শাবক গলদের ভিক্ষা আচরণ নিয়ন্ত্রণ করে। তাদের পিতামাতার ঠোঁটের চূড়ার অঞ্চল হতে বাচ্চা শাবক খাদ্য গ্রহণ করে। [৩৬]

কমিজারসম্পাদনা

এর ব্যবহারের উপর নির্ভর করে কমিজার উপরের এবং নিচের চোয়ালের সন্ধি নির্দেশ করে,[৩৭] বা বিকল্পভাবে, মুখের কোণ থেকে ঠোঁটের অগ্রভাগ পর্যন্ত বন্ধ চোয়ালের পূর্ণ-দৈর্ঘ্যের অবস্থান নির্দেশ করে। [৩৮]

মুখগহ্বরসম্পাদনা

 
একটি তরুণ স্টার্লিং পাখির উজ্জ্বল হলুদ মুখগহ্বর

পাখি শারীরতত্বে, মুখগহ্বর হলো একটি পাখির খোলা মুখের অভ্যন্তর, এবং মুখগহ্বর ফ্লেন্জ হলো এমন অঞ্চল যেখানে ঠোঁটে দুটি চোয়াল এর তল একসঙ্গে সংযুক্ত হয়। [৩৯] মুখগহ্বরের প্রস্থ খাদ্য পছন্দের একটি কারণ হতে পারে। [৪০]

 
তরুন চড়ুইে এই মুখগহ্বর এর পার্শ্ব ঠোঁটের চূড়ার হলুদাভ অঞ্চলে অবস্থিত।

তরুন পাখিগুলোর মুখগহ্বরগুলো প্রায়ই উজ্জ্বল রঙিন হয়, কখনও কখনও বিপরীত অঞ্চল বা অন্যান্য নিদর্শন, এবং এইগুলো তাদের স্বাস্থ্য, যোগ্যতা এবং প্রতিযোগিতামূলক ক্ষমতাগুলোর একটি ইঙ্গিত বলে মনে করা হয়। এইগুলোর উপর ভিত্তি করে, বাবা-মা সিদ্ধান্ত নেয় কিভাবে বাচ্চাদের মধ্যে খাদ্য সরবরাহ করবে। [৪১] কিছু প্রজাতি, বিশেষ করে ভিডিডা এবং এস্ট্রিডিডা গোত্রের মধ্যে, মুখগহ্বর টিউবার্কল বা প্যাপিল্লা নামে পরিচিত মুখগহ্বর উপর উজ্জ্বল অঞ্চল আছে। এই ক্ষুদ্র স্ফীতিসংক্রান্ত অঞ্চল সুস্পষ্ট এমনকি কম আলোতেও। [৪২] আট প্রজাতির প্যাসারিন পাখির ছানার মুখগহ্বর পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে অতিবেগুনী মধ্যে এটি সুস্পষ্ট (মানুষের কাছে দৃশ্যমান নয় কিন্তু পাখির কাছে দৃশ্যমান)। [৪৩] তবে বাবা-মায়েরা শুধুমাত্র মুখগহ্বর এর রঙ নির্ধারণেই নির্ভর করে না, তাদের সিদ্ধান্তের প্রভাব ফেলে এমন অন্যান্য কারণগুলো অজানা। [৪৪] মুখগহ্বর এর লাল রঙ খাওয়ানো প্ররোচিত করার জন্য ব্যবহৃত হয় তা বিভিন্ন পরীক্ষায় দেখানো হয়েছে। [৪৫][৪৬][৪৭]

জন্মের সময়, বাচ্চার মুখগহ্বর অংশটি মাংসপূর্ণ থাকে। এটি বৃদ্ধি পেয়ে একটি নির্দিষ্ট পাখির তরুণ হওয়া চিহ্নিত করে।[৪৮]

নেয়ারসম্পাদনা

 
ফ্যালকন প্রতিটি নেয়ারের মধ্যে একটি ছোট টিউবার্কল আছে।

বেশিরভাগ প্রজাতির পাখির ঠোঁটের কোন এক জায়গায় বাহ্যিক 'নেয়ার' অবস্থিত। নেয়ার দুটি বৃত্তাকার ডিম্বাকৃতি বা চক্রের মত আকৃতির গর্ত,- যা নাসাগহ্বর় এবং এইভাবে শ্বাসযন্ত্রের সিস্টেমে বিস্তৃত। [৪৯] অধিকাংশ পাখি প্রজাতির মধ্যে, নেয়ারগুলো উপরের চোয়ালের এর তৃতীয় অংশে অবস্থিত। কিউই এ উল্লেখযোগ্য ব্যতিক্রম লক্ষণীয়; তাদের নেয়ার তাদের ঠোঁটের চুড়ায় অবস্থিত। [১৯]

মুষ্টিমেয় প্রজাতির কোনও বাহ্যিক নেয়ার নেই। সহকারী এবং প্রহরীদের ছানা হিসাবে আধ্যাত্মিক বাহ্যিক নেয়ার রয়েছে তবে পাখিদের শত্রু তৈরী হওয়ার পরেই এগুলি বন্ধ হয়ে যায়; এই প্রজাতির প্রাপ্তবয়স্করা (এবং সকল বয়সের বড় একধরনের সামুদ্রিক পাখি এবং একজাতীয় সামুদ্রিক হাঁস, যার মধ্যে বাহ্যিক নাকের অভাবও রয়েছে) তাদের মুখ দিয়ে শ্বাস নেয়। [৯] সাধারণত হাড় বা কারটিলেজ দিয়ে তৈরি একটি সেপটাম থাকে যা দুটি নেয়ারকে পৃথক করে, তবে কিছু গোত্রের (গল, ক্রেন এবং নিউ ওয়ার্ল্ড শকুনিসহ) সেপটামটি অনুপস্থিত [৯] যদিও বেশিরভাগ প্রজাতির মধ্যে এই নেয়ারগুলি অনাচ্ছাদিত হয়, তবে তারা কয়েকটি গোত্রের পাখির পালক দ্বারা আবৃত থাকে, যার মধ্যে গ্রুয়েজ এবং পিটারমিগান, কাক এবং কিছু কাঠঠোকড়া রয়েছে। [৪৯] পিটারমিগানের নাকের উপরের পালকগুলি শ্বাসপ্রশ্বাসে বাতাসকে গরম করতে সহায়তা করে [৫০] যেখানে কাঠঠোকড়ার নেয়ারের উপরের অংশগুলি কাঠের কণাকে তার অনুনাসিক আবরণগুলি আটকে রাখতে সহায়তা করে। [৫১]

পাখির গোত্রের প্রজাতি প্রসেলারিফোর্মগুলিতে নাকের দ্বিত্ব নলগুলিতে আবদ্ধ থাকে যা উপরে বা উপরের চোয়ালের পাশে স্থাপিত থাকে। [৪৯] এই প্রজাতিগুলিতে বৃহদাকার সামুদ্রিক পক্ষিবিশেষ, ক্ষুদ্র সামুদ্রিক পক্ষিবিশেষ, ডুবুরি পক্ষিবিশেষ, ঝড়ের সময়কার পক্ষিবিশেষ, ফুলমার্স এবং শেয়ারওয়াটারস অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, যারা ব্যাপকভাবে "টিউবেনোসেস" নামে পরিচিত।[৫২] ফ্যালকন সহ বেশ কয়েকটি প্রজাতির একটি ছোট হাড়ের ন্যায় টিউবার্কল রয়েছে যা তাদের নেয়ার থেকে উদ্ভূত হয়। এই টিউবার্কলের কাজ অজানা। কিছু বিজ্ঞানী পরামর্শ দিয়েছেন যে এটি উচ্চ গতিতে ডুব দেয়ার সময় বাতাসকে ধীরে ধীরে প্রবাহিত করতে (এবং এভাবে পাখিটিকে তার শ্বাসযন্ত্রের ক্ষতি না করে শ্বাস অব্যাহত রাখতে দেয়) বা উচ্চ গতিতে ডুব দেয়ার সময় কাজ করতে পারে, তবে এই তত্ত্বটি পরীক্ষামূলকভাবে প্রমাণিত হয়নি। উচ্চ গতিতে ওড়ে এমন সব প্রজাতির এই জাতীয় টিউবার্কল থাকে না, আবার কিছু প্রজাতি যা কম গতিতে উড়ে যায় তাদের থাকতে পারে। [৫৩]

অপারকুলামসম্পাদনা

 
ঠোঁটের চূড়ায় ঘুঘু পাখির অপারকুলাম

কিছু কিছু পাখির নেয়ার একটি অপারকুলাম (বহুবচনে অপারকুলা) দ্বারা আবৃত থাকে যা ঝিল্লিময়, শৃঙ্গাকার মাংস ছিলকাচ্ছাদিত। [৫৪][৫৫] পানিতে ডুব দেয়া পাখির অপারকুলাম অনুনাসিক গহ্বর থেকে পানি রাখে;[৫৪] যখন পাখি ডুব দেয়, পানির চাপে অপারকুলাম বন্ধ হয়ে যায়। [৫৬] কিছু প্রজাতি যারা ফুল থেকে খাদ্য সংগ্রহ করে তাদের অপারকুলাম অনুনাসিক অনুচ্ছেদে চলাচল করতে সাহায্য করে,[৫৪] যেখানে দুটি প্রজাতির অপারকুলাম ধুলো পরিষ্কারে সাহায্য করে। [৫৭] বাসা বেঁধে থাকা ফ্রগমাথগুলির নেয়ারগুলি খুব বড় গম্বুজ আকারের অপারকুলা দিয়ে আচ্ছাদিত, যা জলীয় বাষ্পের দ্রুত বাষ্পীভবন হ্রাস করতে সহায়তা করে এবং নাকের মধ্যেও ঘনত্ব বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করতে পারে - উভয় সংকটপূর্ণ কাজ, যেহেতু কাখির ছানাগুলো শুধুমাত্র তরল পান করে তাদের বাবা-মা তাদের খাবার সংগ্রহ করে দেয়। এই অপারকুলা পাখির বয়স হিসাবে সঙ্কুচিত হয়, প্রাপ্তবয়সে পৌঁছানোর পরে পুরোপুরি অদৃশ্য হয়ে যায় [৫৮] কবুতরে, অপারকুলাম একটি নরম ফোলা ভরে বিবর্তিত হয়েছে যা ঠোঁটের গোড়ায় নিকটে নেয়ারের উপরে স্থাপিত;[৫৯] যদিও এটি কখনও কখনও সিরি হিসাবে উল্লেখ করা হয়, এটি একটি আলাদা কাঠামো। [৬০] টেপাকুলো একমাত্র পাখি যারা তাদের অপারকুলা স্থানান্তর করতে সক্ষম। [৪৯]

রোজেটসম্পাদনা

কিছু প্রজাতি যেমন, দীর্ঘচঞ্চুবিশিষ্ট সামুদ্রিক পক্ষির,ঠোঁটের কোণে একটি মাংসপূর্ন রোজেট আছে, কখনও কখনও একে "গ্যাপ রোজেট" বলা হয়,[৬১] দীর্ঘচঞ্চুবিশিষ্ট সামুদ্রিক পক্ষিতে, এটি তার পালক প্রদর্শন অংশ হিসাবে উত্থিত হয়।[৬২]

সিরিসম্পাদনা

একটি মুষ্টিমেয় গোত্রের পাখিদের-র্যাপটর, প্যাঁচা, স্কুয়া, টিয়া এবং টার্কি সহ- একটি লোমশ কাঠামো রয়েছে যাকে "সিরি" (ল্যাটিন cera থেকে অর্থ, "মোম") বা সেরোমা [৬৩][৬৪] যা তাদের ঠোঁটের ভিত্তি অন্তর্ভুক্ত করে। এই কাঠামো সাধারণত নেয়ার অন্তর্ভুক্ত করে (ব্যতিক্রমঃ প্যাঁচা) যেখানে নেয়ার সিরির দূরবর্তী অবস্থিত। যদিও এটি কখনও কখনও টিয়াপাখির ক্ষেত্রে এটি পালকাবৃত হয়,[৬৫] সিরি সাধারণত নগ্ন এবং প্রায়ই উজ্জ্বল রঙিন। [১৯]

নখসম্পাদনা

 
হাঁসের ঠোঁটের কালো নখ

অ্যানটিডা গোত্রের সমস্ত পাখির (পাতিহাঁস এবং রাজহাঁস) ঠোঁটের চূড়ার শক্ত, শৃঙ্গাকার টিস্যু দ্বারা গঠিত একটি প্লেটের তৈরী নখ আছে,। [৬৬] এই ঢাল-আকৃতির কাঠামোটি কখনও কখনও ঠোঁটের পুরো প্রস্থ আবৃত করে, প্রায়ই একটি হুক গঠন করার জন্য চূড়ায় অবস্থান করে। [৬৭] এটি পাখির প্রাথমিক খাদ্য উৎসের উপর নির্ভর করে বিভিন্ন উদ্দেশ্যে কাজ করে। অধিকাংশ প্রজাতি কাদা থেকে এবং উদ্ভিদ থেকে বীজ খনন করার জন্য তাদের নখ ব্যবহার করে,[৬৮] যেখানে ডুবুরি পাখিগুলো পাথর থেকে মলাস্কা প্রাণী সংগ্রহে নখ ব্যবহার করে। [৬৯] প্রমাণ রয়েছে যে, পাখির নখ বস্তু খন্ডন করতে সাহায্য করে; কিছু প্রজাতির প্রশস্ত নখ রয়েছে যা তাদের খাদ্য নিরাপদ করার জন্য দৃঢ় গতির ব্যবহৃত হয় যেমন ( একটি বড় ব্যাঙ সম্মুখের দিকে ধরা) । [৭০] কিছু ধরনের মেকানোরিসেপ্টর, স্নায়ু কোষ যা চাপে সংবেদনশীল, কম্পন বা স্পর্শ নখের নিচে অবস্থিত। [৭১]

নখের আকার বা রঙ কখনও কখনও অনুরূপ বিভিন্ন প্রজাতির বয়সের মধ্যে পার্থক্য করতে ব্যবহৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, বৃহত্তর স্কর্পের ক্ষুদ্র স্কর্পের চেয়ে বড় নখ আছে। [৭২] তরুন "বাদামী রাজহাঁসের" কালো নখ রয়েছে, যেখানে বেশিরভাগ প্রাপ্তবয়স্কদের ফ্যাকাশে নখ আছে। [৬৭][৭৩]

রিক্টাল ব্রিজলসম্পাদনা

রিক্টাল ব্রিজল হলো শক্ত চুলের মত পালক যা ঠোঁটের গোড়ার কাছাকাছি উঠে। [৭৪] এটি পতঙ্গভুক পাখিদের মধ্যে সাধারণ, কিন্তু কিছু পতঙ্গভুক নয় এমন প্রজাতির মধ্যেও পাওয়া যায়। [৭৫] এদের কার্যকারিতা অনিশ্চিত, যদিও বেশ কয়েকটি সম্ভাব্য কাজ প্রস্তাবিত হয়েছে। [৭৪] উড়ন্ত শিকারের ধরার ক্ষেত্রে তারা একটি "জাল" হিসাবে কাজ করতে পারে, যদিও এই ধারণার কোন সমর্থিত প্রমাণ নেই। [৭৬] কিছুটা পরীক্ষামূলক প্রমাণ রয়েছে যে, তারা চোখেকে আঘাত থেকে রক্ষা করার জন্য কণা প্রতিরোধ করতে পারে, উদাহরণস্বরূপ, একটি শিকার বিভক্ত করার সময়। [৭৫] তারা উড়ন্ত অবস্থায় মুখোমুখি কণা থেকে বাধা এবং গাছপালার কণা থেকে চোখকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। [৭৬] কিছু প্রমাণ রয়েছে যে কিছু প্রজাতির রিক্টাল ব্রিজল স্পর্শানুভূুিতির অনুরূপভাবে কাজ করে। গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, হার্বস্ট করপাসলের মেকানোরিসেপ্টর যা চাপ এবং কম্পন সংবেদনশীল, রিক্টাল ব্রিজলের সাথে পাওয়া যায়। [৭৬]

ডিম্ব দাঁতসম্পাদনা

 
আর্কটিক টান পাখির বাচ্চার উপরের চোয়ালের চূড়ার কাছাকাছি ছোট সাদা অভিক্ষেপ সহ ডিম্ব দাঁত আছে।

অধিকাংশ পাখি প্রজাতির বাচ্চার চঞ্চুতে ছোট, ধারালো, ক্যালসিফাইড অংশ থাকে যেটি তারা ডিম থেকে বাহিরে বের হবার জন্য [৭৭] ব্যবহার করে থাকে। সাধারণত একে ডিম্ব দাঁত বলা হয়। এই সাদা অংশটি সাধারনত উপরের চোয়ালে সংযুক্ত থাকে। যদিও কিছু প্রজাতির নিচের চোয়ালে এবং উভয় চোয়ালে একটি করে থাকতে পারে। [৭৮] এটির নাম ডিম্ব দাঁত হওয়া সত্বেও এটি মূলত প্রকৃত দাঁত নয়; যেমনটি কিছু কিছু সরিসৃপের ক্ষেত্রে আঁইশ হিসেবে দেখা যায়। [৭৯] পরিস্ফুটনরত বাচ্চা ডিমের বাইরের বায়ুস্তর ভেদ করে বের হওয়ার জন্য ডিম্ব দাঁত ব্যবহার করে। তারপর ধীরে ধীরে কয়েকঘণ্টা বা দিনে ডিমের আবরণে গোলাকার ছোট ছিদ্র তৈরী করে। [৮০] একবার এটি ডিমলর আবরণে ছিদ্র করে ফেলার পর ছিদ্রটিকে বড় করে বাহিরে বের হওয়ার উপোযোগী করে তোলে। পাখির নড়াচড়ার চাপে ছিদ্রযুক্ত ডিমটি ভঙ্গুর [৮১] হয়ে পড়ে। ডিম্ব দাঁত পাখির বাচ্চাকে ডিম থেকে বের করার জন্য খুবই সহায়ক যেখানে কিছু প্রজাতির বাচ্চা ডিম না ভাঙতে পারার [৭৮] কারণে মারা যায়। যাইহোক, কিছু কিছু প্রজাতি আছে যাদের ডিম্ব দাঁত নেই। মেগাপড প্রজাতির ডিম্ব দাঁত আছে কিন্তু এটি পরিস্ফুটনের [৮০] পূর্বেই এটি নষ্ট হয়ে যায়। কিউই প্রজাতি কখনই তাদের অপত্যকে বিকাশ করে না। মেগাপড এবং কিউই উভয় প্রজাতি তাদের ডিম পাড়ার পর ফেলে রেখে চলে যায়।[৮২] অধিকাংশ বাচ্চা পরিস্ফুটনের পর তাদের ডিম্ব দাঁত হারায় [৭৭] যদিও পেট্রেল প্রজাতি তাদের ডিম্ব দাঁত প্রায় তিন সপ্তাহ [৮১] পর হারায় এবং মার্বেল প্রজাতিী মুরগী একমাস পর [৮৩] তাদের ডিম্ব দাঁত হারায়। কিচিরমিচির করার ফলে শব্দের কম্পাংকের কারণে ডিম্ব দাঁত ভেঙ্গে যায়। [৮১]

রংসম্পাদনা

এপিডার্মাল স্তরে পিগমেন্ট প্রাথমিকভাবে মেলানিন এবং ক্যারোটিনয়েড এর সংমিশ্রন পাখির চঞ্চুকে রঙ্গীন করে। [৮৪] ইউমেলানিন যেটা অনেক প্রজাতির পাখির অনাবৃত অংশে পাওয়া যায়, ধুসর এবং কালো রঙের জন্য দায়ী। এপিডার্মিস এ রঙের ঘনত্ব যত বেশি হয়, ঐ রঙ তত কম দৃশ্যমান হয়। ফিওমেলানিন হলুদ এবং বাদামী রঙ প্রদান করে। [৮৫]

যদিও এটা ভাবা হয় যে ঠোঁটে ইউমেলানিনের সংমিশ্রণে ঘটে যা তান, বা শিং-রঙের সাথে সংশ্লিষ্ট, গবেষকেরা যে কোন ঠোঁটের কাঠামো থেকে ফিওমেলানিন সংশ্লেষ করেছেন। [৮৬] বেশিরভাগ লাল, কমলা এবং হলুদ ঠোঁটের রঙের জন্য ডজন ডজন ধরনের ক্যারোটিনয়েড দায়ী। [৮৭] লাল এবং হলুদ বর্ণের যথাযথ মিশ্রণ দ্বারা রঙ নির্ধারিত হয়, যেখানে এটির সম্পৃক্ততা নির্ধারিত হয় এর সঞ্চয়কৃত পিগমেন্টের ঘনত্বের উপর। উদাহরণস্বরূপ, উজ্জ্বল লাল রঙ অধিক লাল পিগমেন্টের সঞ্চয়ে তৈরি হয় যেখানে ঢিমে হলুদ রঙ তৈরী হয় অধিক হলুদ পিগমেন্টের ব্যাপিত সঞ্চয়ের কারণে। লাল এবং হলুদ উভয় পিগমেন্টের সমান ঘনত্বের সঞ্চয়ে উজ্জ্বল কমলা রঙ তৈরী হয় [৮৮] ঠোঁটের বর্ণ ঠোঁটে সুস্পষ্ট রঙ প্রদানে সাহায্য করে। [৮৯]

অতিবেগুনী রশ্মি সীমায় পাখিরা রঙ দেখতে সক্ষম এবং কিছু প্রজাতিতে প্রতিফলিত অতিবেগুনী রশ্মি দেখা যায় যা তাদের ঠোঁটে অতিবেগুনী রশ্মির উপস্থিতি নির্দেশ করে। [৯০] এই চূড়ার উপস্থিতি এবং তীব্রতা একটি পাখির পরিপূর্ণতা [৯১] এবং যৌন পরিপক্বতা [৯০] নির্দেশ করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ রাজা এবং অধিরাজ পেঙ্গুইন প্রাপ্তবয়স্ক হিসাবে শুধুমাত্র অতিবেগুনী রশ্মি প্রতিফলিত প্রদর্শন করে। এই অঞ্চলগুলো অন্যান্য পাখির চেয়ে জোড়া পাখিতে বেশি উজ্জ্বল। পাখি এই ধরনের অঞ্চলের অবস্থান প্রজাতি শনাক্ত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে থাকে। উদাহরণস্বরূপ, রাজা এবং সম্রাট পেঙ্গুইনদের ঠোঁটগুলোতে বিভিন্ন অতিবেগুনী-প্রতিক্ষেপক অঞ্চল আছে। [৯০]

সাধারণভাবে, ঠোঁটের রঙ পাখির হরমোন এবং খাদ্যের সংমিশ্রণের উপর নির্ভর করে। রং সাধারণত প্রজনন ঋতুতে উজ্জ্বল হয়, এবং প্রজননের পরে ফ্যাকাশে হয়ে যায়। [৩৫]

দ্বিরুপতাসম্পাদনা

 
বর্তমানে বিলুপ্তপ্রায় হুইয়ার ঠোঁট (উপরে স্ত্রী, নিচে পুরুষ) লিঙ্গভিত্তিক দ্বিরুপতা দেখায়

চঞ্চুর আকার এবং আকৃতি প্রজাতিভেদে তাদের মধ্যে পরিবর্তিত হতে পারে; কিছু প্রজাতির মধ্যে, চঞ্চুর আকার এবং অনুপাত পুরুষ ও স্ত্রীদের মধ্যে পরিবর্তিত হয়। এইগুলো বিভিন্ন পরিবেশগত যথার্থ স্থান উপলব্ধি করে যার ফলে অন্তর্বর্তী প্রতিযোগিতা হ্রাস পায়। [৯২] উদাহরণস্বরূপ, প্রায় সব উপকূলীয় স্ত্রী-পাখিদের একই প্রজাতির পুরুষদের তুলনায় দীর্ঘ ঠোঁট আছে,[৯৩] এবং স্ত্রী আমেরিকান এভোকেটগুলোর এমন এমন চঞ্চু রয়েছে যা পুরুষদের তুলনায় সামান্য বেশি উল্টানো হয়। [৯৪] বড় গল প্রজাতির পুরুষদের একই প্রজাতির স্ত্রীদের তুলনায় বড়, স্থুলকায় চঞ্চু আছে, এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষুদ্র, সরু চঞ্চু থাকতে পারে। [৯৫] অনেক শিংবিশিষ্ট ঠোঁটী পাখির উভয় চঞ্চু এবং শিরস্ত্রান আকার এবং আকৃতিতে যৌন দ্বিরুপতা প্রদর্শন করে, এবং স্ত্রী হুইয়া এর চিকন এবং বাকানো ঠোঁট দ্বিগুণ হয় যেমনটা পুরুষের সোজা এবং মোটা ঠোঁট। [৯৬]

রঙ একটি প্রজাতির লিঙ্গ বা বয়সের মধ্যে পার্থক্য করতে পারে। সাধারণত, এই ধরনের রঙ পার্থক্য অ্যান্ড্রোজেনের উপস্থিতি কারণে হয়। উদাহরণস্বরূপ, চড়ুইতে, মেলানিন শুধুমাত্র টেসটোস্টেরনের উপস্থিতিতে উত্পাদিত হয়; খোজা চড়ুইতে স্ত্রী চড়ুইর মত বাদামী চঞ্চু থাকে। খোজা করন পুরুষ কালো মাথার গলে স্বাভাবিক ঋতুভিত্তিক রঙ পরিবর্তন প্রতিরোধ করে। [৯৭]

কাজসম্পাদনা

তিনটি বার্ণ প্যাঁচার অনধিকারপ্রবেশকারীকে ভয় প্রদর্শন
 
পানির নিচে সাঁতার কাটার সময়,খাদ্য শনাক্ত করতে এবং খনন করতে প্লাটিপ্লাস তার ঠোঁট ব্যবহার করে।

পাখিরা তাদের নিজেদেরকে প্রতিরোধ করতে ঠোঁট দ্বারা কামড় বা আঘাত করতে পারে। [৯৮] কিছু প্রজাতি নিজেদেরকে বিভিন্ন ভাবে সাজিয়ে প্রদর্শন করার জন্য তাদের ঠোঁট ব্যবহার করে, তাদের প্রজননের অংশ হিসেবে যেমন পুরুষ গার্গেনি প্রজনন প্রদর্শনের জন্য তার পাখার নীল মুকুর পালকে ঠোঁট স্পর্শ করে এবং পুরুষ মান্দারিন হাঁসও তার কমলা পালক ব্যবহার করে একই কাজ করে। [৯৯] অধিকাংশ প্রজাতি খোলা ঠোঁট ভয় বা হুমকি প্রদর্শনের জন্য ব্যবহার করে। কিছু কিছু তার অতিরিক্ত শ্বাস বৃদ্ধি দ্বারা বা হিস শব্দ দ্বারা, অন্যরা তাদের ঠোঁট নাড়ানোর দ্বারা ভয় প্রদর্শন করে। প্লাটিপ্লাস তার ঠোঁট ব্যবহার করে জলের নিচে চলাচল, খাদ্য সনাক্ত এবং খনন করার কাজে। ঠোঁটটি ইলেকট্রোগ্রাহক এবং মেকানোগ্রাহক ধারণ করে, যা পেশী সংকোচন সৃষ্টি করে ভূমি শণাক্ত করতে সাহায্য করে। এটি স্তন্যপায়ী কয়েকটি প্রজাতির মধ্যে ইলেকট্রিকেশনেশনে ব্যবহার হয়। [১০০][১০১]

পরিপাটি করাসম্পাদনা

পাখিদের ঠোঁট এদের ত্বকের পরজীবি যেমনঃ উকুন অপসারণে ভূমিকা পালন করে। প্রধানত ঠোঁটের চূড়া বা প্রান্ত এই কাজ করে। এই গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, অত্যধিক পরজীবি দেখা গেলে কবুতরেরা তাদের ঠোঁটের চূড়া ব্যবহার করতে বাধাপ্রাপ্ত হয়। [১০২] এটাও লক্ষ্য করা হয়েছে যে পরজীবির অতিরিক্ত আধিক্যতায় পাখির ঠোঁট স্বাভাবিকভাবে বিকৃত হয়ে যায়। [১০৩][১০৪][১০৫][১০৬] এটি মনে করা হয় যে, ঠোঁটের উপরের অংশ পরজীবি দমনে নিচের ঠোঁটের চেয়ে অতিরিক্ত ঝুলে যায় (যে অংশটি নিচের দিকে বাঁকানো হয়) [১০২]

ঠোঁটের এই অতিরিক্ত ঝুলন্ত অবস্থা স্থিরকারী প্রাকৃতিক নির্বাচনের অধীনে বিবেচনা করা হয়। অনেক লম্বা ঠোঁট বিপরীতে নির্বাচন করা হয় কারণ তাদের অধিকাংশ ঠোঁট থাকার প্রবণতা দেখা যায় যেমনটি রক কবুতরের বেলায় অধমূখী হয়ে থাকে। [১০৭] অতিরিক্ত ঝুলন্ত অবস্থা বিহীন ঠোঁট কার্যকরীভাবে পরজীবি এবং বাহ্য পরজীবি হত্যা করতে পারেনা যেমনটা উপরে উল্লেখ্য করা হয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে ঠোঁটের অতিরিক্ত ঝুলনে নির্বাচন চাপ প্রয়োগ হয়। ওয়েস্টার্ন স্ক্রাব জ্যায় যিনি সমতলীয় ঠোঁটের (যেগুলো অতিরিক্ত ঝুলন্ত নয়) পরীক্ষা করার সময় অধিক পরিমাণে উকুন দেখতে পান। [১০৮] একই নমুনা পেরুভিয়ান পাখিদের জরিপসমূহে দেখা গেছে। [১০৯]

উপরন্তু, বাঁকানো ঠোঁট পরিপাটি করা বিবর্তনের এবং পরজীবির অংগসংস্থানবিদ্যার প্রমাণ। উকুন পাখিদের প্রজনন করার ক্ষমতা অপসারণ করে, যেটি কৃত্রিমভাবে উকুনের আকার পরিবর্তন করার দ্বারা পুনর্বিন্যাশ করে দেওয়া হয়। একবার পাখিদের ক্ষমতা পুনর্বিন্যাস করা হয়ে গেলে, উকুনের শরীরের আকারের হ্রাস ঘটতে পারে। তা পাখির চাপের [১০২] উপর প্রতিক্রিয়া করতে পারে যা অঙ্গসংস্থানবিদ্যার পরিবর্তনে সাড়া দেয়।

যোগাযোগসম্পাদনা

স্টোর্ক, কিছু প্যাঁচা, ফ্রগমাউথ এবং শব্দকারী খোঁড়ক সহ অধিকাংশ প্রজাতি তাদের ঠোঁটে শব্দ করার মাধ্যমে [১০২] যোগাযোগ করে। [১১০]

তাপ বিনিময়সম্পাদনা

গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে কিছু পাখি তীব্র তাপ থেকে পরিত্রাণের জন্য তাদের ঠোঁট ব্যবহার করে। টোকো টাউকান, যেটির পাখি প্রজাতির মধ্যে শরীরের আকারের তুলনায় বৃহত্তম ঠোঁট রয়েছে, তার শরীরে রক্ত প্রবাহ পরিবর্তনে সক্ষম। এই প্রক্রিয়াটি "অস্থায়ী তাপীয় বিকিরণকারী" হিসাবে কাজ করে। [১১১] উত্তর আমেরিকার উপকূলভূমি সহ লবণ মৃত্তিকা পাওয়া এলাকায় যেখানে চড়ুই পাখিদের বংশবিস্তার হয়, সেখানে বিভিন্ন প্রজাতির চড়ুই পাখির ঠোঁটের আকার পরিমাপ করে গৃষ্ম তাপমাত্রার সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া গিয়েছে এবং অক্ষাংশে তুলনামূলকভাবে কম সম্পর্ক পাওয়া গিয়েছে। চড়ুইপাখিগুলো তাদের ঠোঁটের মাধ্যমে অতিরিক্ত তাপ বর্জন করে পানিশূন্যতা এড়াতে সক্ষম হয় যেখানে বাষ্পীভবন শীতলতা প্রয়োজন। একটি বাতাসময় বাসস্থানে ঠোঁটের গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা আছে যেখানে পরিষ্কার পানিয় জল অপ্রত্যাশিত। [১১২] সাধারণ উটপাখি, এমু এবং দক্ষিণ ক্যাসোওরি সহ বিভিন্ন প্রজাতি তাদের দেহের নগ্ন অংশগুলো (ঠোঁট অন্তর্ভুক্ত) মৃতদেহের তাপমাত্রা ৪০% হিসাবে কমাতে সাহায্য করে। [১১৩] বিকল্পভাবে, গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে ঠান্ডা জলবায়ুর (উচ্চতর টিলা বা অক্ষাংশ বা নিম্নপরিবেশীয় তাপমাত্রা) পাখিগুলোর ঐ পরিস্থিতিতে তাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য তুলনামূলক ছোট ঠোঁট আছে। [১১৪]

জোড়াসম্পাদনা

 
চুম্বনের সময় উত্তরীয় গ্যনেট তাদের ঠোঁট উচু করে এবং পরষ্পর ঝংকার আওয়াজ করে

সঙ্গমের সময়, অনেক পাখির প্রজাতির জোড়া সংখ্যক একে অপরের চঞ্চু স্পর্শ বা বিচ্ছিন্ন করে। এটি বিলিং হিসেবে পরিচিত [১১৫] এই আচরণটি জোড়া বন্ধনকে শক্তিশালী করার জন্য প্রদর্শিত হয়। [১১৬] এ সম্পর্কের পরিমাণ প্রজাতির মধ্যে পরিবর্তিত হয়। কিছু কিছু প্রজাতি তাদের অংশীদারদের চঞ্চুর একটি অংশ আলতো করে স্পর্শ করে যখন অন্যরা তাদের চঞ্চু একসঙ্গে সবলে একত্র করে। [১১৭]

গ্যানেট রা তাদের চঞ্চুর উচ্চতা বাড়িয়ে দেয় এবং বারবার তাদের একত্রিত করে, পুরুষ তার চঞ্চু স্ত্রী মুখের মধ্যে চঞ্চু রাখে এবং র্যাভেনরা একটি দীর্ঘায়িত "চুম্বনে" একে অপরের চঞ্চু রাখে। [১১৮] বিলিং একটি স্বতন্ত্র বা অধস্তন অঙ্গভঙ্গি হিসাবে ব্যবহার হতে পারে। অধীনস্থ কানাডা জুন নিয়মিতভাবে আরো প্রভাবশালী পাখিদের, এবং খাদ্য সংগ্রাহী ছোট পাখির স্বভাবে তাদের শরীর নিক্ষেপ করে তাদের পাখা চতুস্কোন করে।[১১৯] রাইনোনিসিড এবং ট্রিকোমোনাস গ্যালিনা সহ অসংখ্য পরজীবি চুম্বনের সময় পাখিদের মধ্যে স্থানান্তরিত হয়। [১২০][১২১]

শেক্সপীয়ারের সময় থেকে বিলিং শব্দটির ব্যবহার ছড়িয়ে পড়ে; বিলিং মূলত মানুষের সঙ্গম পদ্ধতি (বিশেষ করে চুম্বন) হিসেবে ব্যবহার হয়,[১২২] এবং ঘুঘুর সঙ্গম থেকে উৎপত্তি লাভ করে। [১২৩]

চঞ্চু ভাঙনসম্পাদনা

চঞ্চু অনেক সংবেদী স্নায়ুর সমন্বয়ে সংবেদনশীল অঙ্গ। চঞ্চু ভাঙন (কখনও কখনও 'ঠোঁট ভাঙন' হিসাবে উল্লেখিত হয়) পাখিদের জন্য "তীব্র বেদনাদায়ক"। [১২৪] এটি অপরিবর্তনীয়ভাবে নিয়মিত ঘটে নিবিড়ভাবে পোল্ট্রি ঝাঁকে, বিশেষ করে ব্রয়লার এবং লেয়ারের ক্ষেত্রে ঘটে। কারণ এটি ক্যানিবেলিজম, ভেন্ট প্যাকিং এবং পালক প্যাকিং পদ্ধতিতে ক্ষতি হ্রাস করতে সাহায্য করে। একটি উত্তপ্ত ফলক বা ইনফ্রারেড বীম উপরের অর্ধেক এবং নিচের ঠোঁটে এক তৃতীয়াংশ কাটার জন্য ব্যবহার করা হয়। ব্যথা এবং সংবেদনশীলতা সপ্তাহের পর সপ্তাহ বা মাসের পর মাস হতে পারে, এবং কাটা কাটা প্রান্ত বরাবর নিউরোমা গঠন করতে পারে। ঠোঁট ভেঙ্গে গেলে খাদ্য গ্রহণ সাধারণত কিছু সময়ের জন্য হ্রাস পায়। যাইহোক গবেষণায় দেখা যায় যে ছাঁটাই পোল্ট্রির অ্যাড্রেনাল গ্রন্থিগুলোর ওজন কম, এবং তাদের রক্তের প্লাজমা কর্টিকোস্টেরন স্তরগুলো অছাঁটাই পোল্ট্রিতে পাওয়া যায়, যা নির্দেশ করে যে তারা সামগ্রিকভাবে পীড়িত। [১২৪]

একটি অনুরূপ কিন্তু পৃথক অনুশীলন, সাধারণত পশু-পাখির বিশেষজ্ঞ বা অভিজ্ঞ পাখি রক্ষক দ্বারা সম্পাদিত, স্বাস্থ্যের উদ্দেশ্যে বন্দী পাখি কর্তন, চঞ্চু ভরাট বা বালুকা জড়িত করা হয়, অস্থায়ীভাবে অতিরিক্ত বৃদ্ধি বা বিকৃত এবং পাখির স্বাভাবিক খাওয়ানো এবং প্রণীত কার্যক্রম সম্পর্কে যাওয়া পর্যন্ত সম্পন্ন করা হয়। [১২৫] পাখি রক্ষকের এই অনুশীলন সাধারণত "কপিং" হিসাবে পরিচিত। [১২৬]

ঠোঁটের অগ্রভাগের অঙ্গসম্পাদনা

 
কিউইয়ের গতি সনাক্ত করার জন্য অনুসন্ধান ঠোঁট রয়েছে।

ঠোঁটের অগ্রভাগের অঙ্গ পাখি ঠোঁটের চূড়ার কাছাকাছি একটি বিশেষ অঞ্চলে পাওয়া যায় যা বিশেষ করে খাদ্য অনুসন্ধানে ব্যবহার হয়। এই অঞ্চলে স্নায়ুর উচ্চ ঘনত্ব রয়েছে যা হার্বস্ট করপাসল নামে পরিচিত । ঠোঁটের পৃষ্ঠের মধ্যে অসংখ্য কূপ রয়েছে যা কোষীয় চাপ পরিবর্তনে সাড়া দেয়। এটা পাখিকে 'দূরবর্তী স্পর্শ' করার অনুমতি দেয়, যার অর্থ এটি প্রাণীর নড়াচড়া সনাক্ত করতে পারে যা পাখি সরাসরি স্পর্শ করে না। স্কলোপাসিডা গোত্রের উপকূলীয় পাখি, ইবিস, এবং কিউই প্রজাতির সদস্যদের ঠোঁটের অগ্রভাগের অঙ্গ আছে বলে জানা যায়। [১২৭]

এই প্রজাতির জুড়ে অভিভাব রয়েছে যে, ঠোঁটের অগ্রভাগের অঙ্গ আর্দ্র বাসস্থানের (জল কলাম বা নরম কাদা) পাখি প্রজাতির মধ্যে আরো ভাল উন্নত। এছাড়াও, স্থলজ পাখিদের ক্ষেত্রেও এটি বর্ণিত হয়েছে যাতে টিয়াপাখি অন্তর্ভুক্ত যারা তাদের দক্ষতার নির্যাস কৌশল ব্যাবহারের জন্য পরিচিত। পশুখাদ্য গ্রহণের বিসদৃশে টিয়াপাখিতে স্পৃশ্য কূপ বিদ্যমান যা হাড়ের পরিবর্তে কঠিন কেরাটিন অথবা ঠোঁটের র্যামফোথেকা দ্বারা অনুবিদ্ধ । [১২৮]

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসুত্রসম্পাদনা

  1. Coues (1890), p. 147.
  2. Gill (1995), p. 149.
  3. Seki, Yasuaki; Bodde, Sara G; Meyers, Marc A; Meyers (২০০৯)। "Toucan and hornbill beaks: A comparative study" (PDF)Acta Biomaterialia6 (2): 331–343। doi:10.1016/j.actbio.2009.08.026PMID 19699818। ২০১২-০৪-০২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. Beyond the Beak: Modeling avian cranial kinesis and the evolution of bird skull shapes
  5. Proctor and Lynch (1998), p. 66.
  6. Gill (1995), p. 148.
  7. Mayr, Gerald (২০০৫)। "A new eocene Chascacocolius-like mousebird (Aves: Coliiformes) with a remarkable gaping adaptation" (PDF)Organisms, Diversity & Evolution5 (3): 167–171। doi:10.1016/j.ode.2004.10.013 
  8. Kaiser, Gary W. (২০০৭)। The Inner Bird: Anatomy and Evolution। Vancouver, BC: UBC Press। পৃষ্ঠা 19। আইএসবিএন 978-0-7748-1343-3 
  9. Campbell and Lack (1995), p. 47.
  10. Girling (2003), p. 4.
  11. Samour (2000), p. 296.
  12. Bonser RH & Mark S Witter (১৯৯৩)। "Indentation hardness of the bill keratin of the European Starling" (PDF)The Condor95 (3): 736–738। doi:10.2307/1369622জেস্টোর 1369622 
  13. Beddard, Frank E. (১৮৯৮)। The structure and classification of birds। London: Longmans, Green and Co.। পৃষ্ঠা 5। 
  14. Pitocchelli, Jay; John F. Piatt; Harry R. Carter (২০০৩)। "Variation in plumage, molt, and morphology of the Whiskered Auklet (Aethia pygmaea) in Alaska"। Journal of Field Ornithology74 (1): 90–98। doi:10.1648/0273-8570-74.1.90 
  15. Knopf, F. L. (১৯৭৪)। "Schedule of presupplemental molt of white pelicans with notes on the bill horn" (PDF)Condor77 (3): 356–359। doi:10.2307/1366249জেস্টোর 1366249 
  16. Chernova, O. F.; Fadeeva, E. O. (২০০৯)। "The peculiar architectonics of contour feathers of the emu (Dromaius novaehollandiae, Struthioniformes)"। Doklady Biological Sciences425: 175–179। doi:10.1134/S0012496609020264 
  17. Hieronymus, Tobin L.; Witmer, Lawrence M. (২০১০)। "Homology and Evolution of Avian Compound Rhamphothecae"। The Auk127 (3): 590–604। doi:10.1525/auk.2010.09122 
  18. Campbell and Lack (1985), p. 598.
  19. Stettenheim, Peter R. (২০০০)। "The Integumentary Morphology of Modern Birds—An Overview"Integrative and Comparative Biology40 (4): 461–477। doi:10.1093/icb/40.4.461। ২০১২-০৪-২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  20. Klasing, Kirk C. (১৯৯৯)। "Avian gastrointestinal anatomy and physiology"। Seminars in Avian and Exotic Pet Medicine8 (2): 42–50। doi:10.1016/S1055-937X(99)80036-X 
  21. Harris, Tony; Franklin, Kim (২০০০)। Shrikes and Bush-Shrikes। London: Christopher Helm। পৃষ্ঠা 15। আইএসবিএন 978-0-7136-3861-5 
  22. Ferguson-Lees, James; Christie, David A. (২০০১-০১-০১)। Raptors of the World। London: Christopher Helm। পৃষ্ঠা 66। আইএসবিএন 978-0-7136-8026-3 
  23. Campbell and Lack (1985), p. 48.
  24. Gosner, Kenneth L. (জুন ১৯৯৩)। "Scopate Tomia: An Adaptation for Handling Hard-shelled Prey?" (PDF)The Wilson Bulletin105 (2): 316–324। 
  25. Ornelas, Juan Francisco। "Serrate Tomia: An Adaptation for Nectar Robbing in Hummingbirds?" (PDF)The Auk111 (3): 703–710। 
  26. Madge, Steve; Burn, Hilary (১৯৮৮)। Wildfowl। London: Christopher Helm। পৃষ্ঠা 143–144। আইএসবিএন 978-0-7470-2201-5 
  27. Campbell and Lack (1995), p. 127.
  28. Coues (1890), p. 152.
  29. Pyle, Peter; Howell, Steve N. G.; Yunick, Robert P.; DeSante, David F. (১৯৮৭)। Identification Guide to North America Passerines। Bolinas, CA: Slate Creek Press। পৃষ্ঠা 6–7। আইএসবিএন 978-0-9618940-0-9 
  30. Borras, A.; Pascual, J.; Senar, J. C. (Autumn ২০০০)। "What Do Different Bill Measures Measure and What Is the Best Method to Use in Granivorous Birds?" (PDF)Journal of Field Ornithology71 (4): 606–611। doi:10.1648/0273-8570-71.4.606জেস্টোর 4514529 
  31. Campbell and Lack (1995), p. 342.
  32. Mullarney, Svensson, Zetterström and Grant (1999), p. 357.
  33. Mullarney, Svensson, Zetterström and Grant (1999), p. 15.
  34. Campbell and Lack (1985), p. 254.
  35. Howell (2007), p. 23.
  36. Russell, Peter J.; Wolfe, Stephen L.; Hertz, Paul E.; Starr, Cecie (২০০৮)। Biology: The Dynamic Science। Vol. 2। Belmont, CA: Thomson Brooks/Cole। পৃষ্ঠা 1255। আইএসবিএন 978-0-495-01033-3 
  37. Coues (1890), p. 155.
  38. Campbell & Lack (1985), p. 105.
  39. Newman, Kenneth B. (২০০০)। Newman's birds by colour। Struik। পৃষ্ঠা 14। আইএসবিএন 978-1-86872-448-2 
  40. Wheelwright, NT (১৯৮৫)। "Fruit size, gape width and the diets of fruit-eating birds" (PDF)Ecology66 (3): 808–818। doi:10.2307/1940542জেস্টোর 1940542। ২০১৬-০৪-০৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-১০-৩১ 
  41. Soler, J. J.; Avilés, J. M. (২০১০)। Halsey, Lewis George, সম্পাদক। "Sibling Competition and Conspicuousness of Nestling Gapes in Altricial Birds: A Comparative Study"PLoS ONE5 (5): e10509। doi:10.1371/journal.pone.0010509PMID 20463902পিএমসি 2865545  
  42. Hauber, Mark & Rebecca M. Kilner (২০০৭)। "Coevolution, communication, and host-chick mimicry in parasitic finches: who mimics whom?" (PDF)Behav. Ecol. Sociobiol.61 (4): 497–503। doi:10.1007/s00265-006-0291-0। ২০১২-০৩-২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  43. Sarah Hunt; Rebecca M. Kilner; Naomi E. Langmore; Andrew T. D. Bennett (২০০৩)। "Conspicuous, ultravioletrich mouth colours in begging chicks" (PDF)Biology Letters270: S25–8। doi:10.1098/rsbl.2003.0009PMID 12952627পিএমসি 1698012 । সংগ্রহের তারিখ জুন ২৭, ২০১০ 
  44. Schuetz, Justin G. (অক্টোবর ২০০৫)। "Reduced growth but not survival of chicks with altered gape patterns"Animal Behaviour70 (4): 839–848। doi:10.1016/j.anbehav.2005.01.007আইএসএসএন 0003-3472 
  45. Saino, Nicola; Ambrosini, Roberto; Martinelli, Roberta; Ninni, Paola;; Møller, Anders Pape (২০০৩)। "Gape coloration reliably reflects immunocompetence of barn swallow (Hirundo rustica) nestlings" (PDF)Behavioral Ecology14 (1): 16–22। doi:10.1093/beheco/14.1.16। ১১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১০ 
  46. Noble, D. G.; Davies, N.B.; Hartley, I. R.; McRae, S. B. (জুলাই ১৯৯৯)। "The Red Gape of the Nestling Cuckoo (Cuculus canorus) Is Not a Supernormal Stimulus for Three Common Hosts"। Behaviour136 (9): 759–777। doi:10.1163/156853999501559জেস্টোর 4535638 
  47. Tanaka, Keita D.; Morimoto, Gen; Ueda, Keisuke (২০০৫)। "Yellow wing-patch of a nestling Horsfield's hawk cuckoo Cuculus fugax induces miscognition by hosts: mimicking a gape?"Journal of Avian Biology36 (5): 461–64। doi:10.1111/j.2005.0908-8857.03439.x। ২০১২-১০-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  48. Zickefoose, Julie। "Backyard Mystery Birds"। Bird Watcher's Digest। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৬-২৫ 
  49. Campbell and Lack (1985), p. 375.
  50. Gellhorn, Joyce (২০০৭)। White-tailed Ptarmigan: Ghosts of the Alpine Tundra। Boulder, CO: Johnson Books। পৃষ্ঠা 110। আইএসবিএন 978-1-55566-397-1 
  51. Ehrlich, Paul R.; Dobkin, David S.; Wheye, Darryl (১৯৯৮)। The Birder's Handbook: A Field Guide to the Natural History of North American Birds। New York, NY: Simon and Schuster। পৃষ্ঠা 209। আইএসবিএন 978-0-671-65989-9 
  52. Carboneras, Carlos (১৯৯২)। "Family Diomedeidae (Albatrosses)"। del Hoyo, Josep; Elliott, Andrew; Sargatal, Jordi। Handbook of Birds of the World, Volume 1: Ostrich to Ducks। Barcelona: Lynx Edicions। পৃষ্ঠা 199। আইএসবিএন 978-84-87334-10-8 
  53. Capainolo, Peter; Butler, Carol (২০১০)। How Fast Can a Falcon Dive?। New Brunswick, NJ: Rutgers University Press। পৃষ্ঠা 51। আইএসবিএন 978-0-8135-4790-9 
  54. Gill (1995), p. 117.
  55. Whitney, William Dwight; Smith, Benjamin Eli (১৯১১)। The Century Dictionary and Cyclopedia, volume 6। New York: The Century Company। পৃষ্ঠা 4123। এলসিসিএন 11031934 
  56. Bock, Walter J. (১৯৮৯)। "Organisms as Functional Machines: A Connectivity Explanation"। American Zoologist29 (3): 1119–1132। doi:10.1093/icb/29.3.1119জেস্টোর 3883510 
  57. Tudge, Colin (২০০৯)। The Bird: A Natural History of Who Birds Are, Where They Came From, and How They Live। New York, NY: Crown Publishers। পৃষ্ঠা 140। আইএসবিএন 978-0-307-34204-1 
  58. Kaplan, Gisela T. (২০০৭)। Tawny Frogmouth। Collingwood, Victoria: Csiro Publishing। পৃষ্ঠা 40–41। আইএসবিএন 978-0-643-09239-6 
  59. Campbell and Lack (1985), p. 84
  60. Coues (1898), p. 151.
  61. Mike P. Harris (২০১৪)। "Aging Atlantic Puffins Fratercula arctica in summer and winter" (PDF)Seabird। Centre for Ecology & Hydrology। 27: 22–40। জুন ১১, ২০১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  62. "Skomer Island Puffin Factsheet" (PDF)। মে ২০১১। 
  63. Webster's Unabridged Dictionary of the English Language
  64. Eleanor Lawrence (২০০৮)। Henderson's Dictionary of Biology (14th সংস্করণ)। Pearson Benjamin Cummings Prentice Hall। পৃষ্ঠা 111। আইএসবিএন 978-0-321-50579-8 
  65. Jupiter, Tony; Parr, Mike (২০১০)। Parrots: A Guide to Parrots of the World। A&C Black। পৃষ্ঠা 17। আইএসবিএন 978-1-4081-3575-4 
  66. King and McLelland (1985), p. 376.
  67. Elliot, Daniel Giraud (১৮৯৮)। The Wild Fowl of the United States and British Possessions। New York, NY: F. P. Harper। পৃষ্ঠা xviii। এলসিসিএন 98001121 
  68. Perrins, Christopher M. (১৯৭৪)। Birds। London, UK: Collins। পৃষ্ঠা 24। আইএসবিএন 978-0-00-212173-6 
  69. Petrie, Chuck (২০০৬)। Why Ducks Do That: 40 Distinctive Duck Behaviors Explained and Photographed। Minocqua, WI: Willow Creek Press। পৃষ্ঠা 31। আইএসবিএন 978-1-59543-050-2 
  70. Goodman, Donald Charles; Fisher, Harvey I. (১৯৬২)। Functional Anatomy of the Feeding Apparatus in Waterfowl (Aves:Anatidae)। Carbondale, IL: Southern Illinois University Press। পৃষ্ঠা 179। ওসিএলসি 646859135 
  71. King and McLelland (1985), p. 421.
  72. Dunn, Jon L.; Alderfer, Jonathan, সম্পাদকগণ (২০০৬)। Field Guide to the Birds of North America (5 সংস্করণ)। Washington, DC: National Geographic। পৃষ্ঠা 40। আইএসবিএন 978-0-7922-5314-3 
  73. Mullarney, Svensson, Zetterström and Grant (1999), p. 40.
  74. Lederer, Roger J। "The Role of Avian Rictal Bristles" (PDF)The Wilson Bulletin84 (2): 193–197। 
  75. Conover, Michael R.; Miller, Don E. (নভেম্বর ১৯৮০)। "Rictal Bristle Function in Willow Flycatcher" (PDF)The Condor82 (4): 469–471। doi:10.2307/1367580জেস্টোর 1367580 
  76. Cunningham, Susan J.; Alley, Maurice R.; Castro, Isabel (জানুয়ারি ২০১১)। "Facial Bristle Feather Histology and Morphology in New Zealand Birds: Implications for Function"। Journal of Morphology (PDF)। 272 (1): 118–128। doi:10.1002/jmor.10908 
  77. Campbell and Lack (1985), p. 178.
  78. Perrins, Christopher M.; Attenborough, David; Arlott, Norman (১৯৮৭)। New Generation Guide to the Birds of Britain and Europe। Austin, TX: University of Texas Press। পৃষ্ঠা 205। আইএসবিএন 978-0-292-75532-1 
  79. Clark, Jr., George A. (সেপ্টেম্বর ১৯৬১)। "Occurrence and Timing of Egg Teeth in Birds" (PDF)The Wilson Bulletin73 (3): 268–278। 
  80. Gill (1995), p. 427.
  81. Gill (1995), p. 428.
  82. Harris, Tim, সম্পাদক (২০০৯)। National Geographic Complete Birds of the World। Washington, DC: National Geographic। পৃষ্ঠা 23। আইএসবিএন 978-1-4262-0403-6 
  83. Kaiser, Gary W. (২০০৭)। The Inner Bird: Anatomy and Evolution। Vancouver, BC: University of Washington Press। পৃষ্ঠা 26। আইএসবিএন 978-0-7748-1344-0 
  84. Ralph, Charles L. (মে ১৯৬৯)। "The Control of Color in Birds"। American Zoologist9 (2): 521–530। doi:10.1093/icb/9.2.521জেস্টোর 3881820 
  85. Hill (2010), p. 62.
  86. Hill (2010), p. 63.
  87. Hill (2010), p. 64.
  88. Hill (2010), p. 66
  89. Rogers and Kaplan (2000), p. 155.
  90. Jouventin, Pierre; Nolan, Paul M.; Örnborg, Jonas; Dobson, F. Stephen (ফেব্রুয়ারি ২০০৫)। "Ultraviolet Spots in King and Emperor Penguins"। The Condor113 (3): 144–150। doi:10.1650/7512 
  91. Mougeo, François; Arroyo, Beatriz E. (২২ জুন ২০০৬)। "Ultraviolet reflectance by the cere of raptors" (PDF)Biology Letters2 (2): 173–176। doi:10.1098/rsbl.2005.0434PMID 17148356পিএমসি 1618910  
  92. Campbell, Bernard Grant, সম্পাদক (১৯৭২)। Sexual Selection and the Descent of Man: The Darwinian Pivot। New Brunswick, NJ: Transaction Publishers। পৃষ্ঠা 186। আইএসবিএন 978-0-202-02005-1 
  93. Thompson, Bill; Blom, Eirik A. T.; Gordon, Jeffrey A. (২০০৫)। Identify Yourself: The 50 Most Common Birding Identification Challenges। New York: Houghton Mifflin Harcourt। পৃষ্ঠা 128। আইএসবিএন 978-0-618-51469-4 
  94. O'Brien, Michael; Crossley, Richard; Karlson, Kevin (২০০৬)। The Shorebird Guide। New York: Houghton Mifflin। পৃষ্ঠা 76। আইএসবিএন 978-0-618-43294-3 
  95. Howell (2007), p. 21.
  96. Campbell and Lack (1995), p. 48.
  97. Parkes, A. S.; Emmens, C. W. (১৯৪৪)। "Effect of Androgens and Estrogens on Birds"। Harris, Richard S.; Thimann, Kenneth Vivian। Vitamins and hormones, volume 2। New York, NY: Academic Press। পৃষ্ঠা 371। আইএসবিএন 978-0-12-709802-9 
  98. Samour (2000), p. 7.
  99. Rogers and Kaplan (2000), p. 20.
  100. https://www.reed.edu/biology/professors/srenn/pages/teaching/web_2007/myp_site/
  101. http://www.livescience.com/27572-platypus.html
  102. Clayton, null; Lee, null; Tompkins, null; Brodie, null (সেপ্টেম্বর ১৯৯৯)। "Reciprocal Natural Selection on Host-Parasite Phenotypes"। The American Naturalist154 (3): 261–270। doi:10.1086/303237PMID 10506542আইএসএসএন 1537-5323 
  103. Pomeroy, D.E (ফেব্রুয়ারি ১৯৬২)। "Birds with abnormal bills" (PDF)British Birds55 
  104. Boyd (১৯৫১)। "A survey of parasitism of the Staling Sturnus Vulgaris L. in North America"। Journal of Parasitology37 (1): 56–84। doi:10.2307/3273522জেস্টোর 3273522 
  105. Worth (১৯৪০)। "A note on the Dissemination of Mallophage"। Bird Banding11: 23, 24। 
  106. Ash (১৯৬০)। "A study of the mallophaga of birds with particular reference to their ecology"। Ibis102: 93–110। doi:10.1111/j.1474-919X.1960.tb05095.x 
  107. Clayton, Dale H.; Moyer, Brett R.; Bush, Sarah E.; Jones, Tony G.; Gardiner, David W.; Rhodes, Barry B.; Goller, Franz (২০০৫-০৪-২২)। "Adaptive significance of avian beak morphology for ectoparasite control"Proceedings of the Royal Society of London B: Biological Sciences (ইংরেজি ভাষায়)। 272 (1565): 811–817। doi:10.1098/rspb.2004.3036PMID 15888414আইএসএসএন 0962-8452পিএমসি 1599863  
  108. Moyer, Brett R.; Peterson, A. Townsend; Clayton, Dale H. (২০০২)। "Influence of bill shape on ectoparasite load in western scrub-jays"। The Condor104 (3): 675–678। doi:10.1650/0010-5422(2002)104[0675:iobsoe]2.0.co;2আইএসএসএন 0010-5422 
  109. Clayton, D. H.; Walther, B. A. (২০০১-০৯-০১)। "Influence of host ecology and morphology on the diversity of Neotropical bird lice"। Oikos (ইংরেজি ভাষায়)। 94 (3): 455–467। doi:10.1034/j.1600-0706.2001.940308.xআইএসএসএন 1600-0706 
  110. Rogers and Kaplan (2000), p. 83.
  111. Tattersall, Glenn J.; Andrade, Denis V.; Abe, Augusto S. (২৪ জুলাই ২০০৯)। "Heat Exchange from the Toucan Bill Reveals a Controllable Vascular Thermal Radiator"। Science325 (5949): 468–470। doi:10.1126/science.1175553PMID 19628866 
  112. Greenbert, Russell; Danner, Raymond; Olsen, Brian; Luther, David (১৪ জুলাই ২০১১)। "High summer temperature explains bill size variation in salt marsh sparrows"। Ecography। online first (2): 146–152। doi:10.1111/j.1600-0587.2011.07002.x 
  113. Phillips, Polly K.; Sanborn, Allen F. (ডিসেম্বর ১৯৯৪)। "An infrared, thermographic study of surface temperature in three ratites: ostrich, emu and double-wattled cassowary"। Journal of Thermal Biology19 (6): 423–430। doi:10.1016/0306-4565(94)90042-6 
  114. "Evolution of Bird Bills: Birds Reduce Their 'Heating Bills' in Cold Climates"। Science Daily। ২৩ জুন ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১২ 
  115. Bierma, Nathan (১২ আগস্ট ২০০৪)। "Add this to life list: `Birding' has inspired flock of words"। Chicago Tribune। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুন ২০১১ 
  116. Terres, John K. (১৯৮০)। The Audubon Society Encyclopedia of North American Birds। New York: Alfred A. Knopf। আইএসবিএন 978-0-394-46651-4 
  117. Schreiber, Elizabeth Anne; Burger, Joanna, সম্পাদকগণ (২০০২)। Biology of Marine Birds। Boca Raton, FL: CRC Press। পৃষ্ঠা 325। আইএসবিএন 978-0-8493-9882-7 
  118. Armstrong 1965, p. 7.
  119. Wilson, Edward O. (১৯৮০)। Sociobiology। Boston, MA: Harvard University Press। পৃষ্ঠা 227। আইএসবিএন 978-0-674-81624-4 
  120. Amerson, A. Binion (মে ১৯৬৭)। "Incidence and Transfer of Rhinonyssidae (Acarina: Mesostigmata) in Sooty Terns (Sterna fuscata)"। Journal of Medical Entomology4 (2): 197–9। doi:10.1093/jmedent/4.2.197PMID 6052126 
  121. Park, F. J. (মার্চ ২০১১)। "Avian trichomoniasis: A study of lesions and relative prevalence in a variety of captive and free-living bird species as seen in an Australian avian practice"। The Journal of the Australia Veterinary Association Ltd.89 (3): 82–88। doi:10.1111/j.1751-0813.2010.00681.xPMID 21323655 
  122. Partridge, Eric (২০০১)। Shakespeare's Bawdy (4 সংস্করণ)। London: Routledge Classics 2001। পৃষ্ঠা 82। আইএসবিএন 978-0-415-25553-0 
  123. Burton, Maurice; Burton, Robert (১৯৮০)। The International Wildlife Encyclopedia, volume 12। New York: Marshall Cavendish Corp। পৃষ্ঠা 1680। 
  124. Grandin, Temple (২০১০)। Improving Animal Welfare: A Practical Approach। Oxfordshire, UK: CABI। পৃষ্ঠা 110। আইএসবিএন 978-1-84593-541-2 
  125. "Bird Beaks: Anatomy, Care, and Diseases"। Veterinary & Aquatic Services Department, Drs. Foster & Smith। ৪ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১২ 
  126. Ash, Lydia। "Coping your Raptor"। The Modern Apprentice। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১২ 
  127. Cunningham, Susan J.; Alley, M. R.; Castro, I.; Potter, M. A.; Cunningham, M.; Pyne, M. J. (২০১০)। "Bill morphology or Ibises suggests a remote-tactile sensory system for prey detection"। The Auk127 (2): 308–316। doi:10.1525/auk.2009.09117 
  128. Demery, Zoe P.; Chappell, J.; Martin, G. R. (২০১১)। "Vision, touch and object manipulation in Senegal parrots Poicephalus senegalus"Proceedings of the Royal Society B278 (1725): 3687–3693। doi:10.1098/rspb.2011.0374PMID 21525059পিএমসি 3203496  

উৎসসম্পাদনা