প্রধান মেনু খুলুন

কোচি বন্দর হল ভারতের প্রধান ১৩ টি বন্দর মধ্যে অন্যতম। এটি দক্ষিণ ভারত-এর কেরালা রাজ্যের প্রধান ও বৃহত্তম বন্দর। এই বন্দরটি ভারত সরকার-এর জাহাজ মন্ত্রকের অধীনস্ত। বন্দরটির কন্টেইনার টার্মিনালটি নির্মাণের সাহায্য করেছে দুবাই পোর্ট ওয়াল্ড।এই টার্মিনালটি পরিচালানাও দুবাই পোর্ট ওয়াল্ড করে। বন্দরটির কন্টেইনার পরিবহন ক্ষমতা ১ মিলিওন টন। বন্দরটি ২০১৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে ১৭.৪৩ মিলিওন টন পণ্য পরিবহন করেছে।

কোচি বন্দর
Kochi City-sizzling port-W.ISLAND, that's created by Lord Bristow.jpg
কোচি বন্দরের দৃশ্য
অবস্থান
দেশ ভারত
অবস্থানকোচি, কেরালা, দক্ষিণ ভারত
বিস্তারিত
চালু১৯২৮
পরিচালনা করেকোচি বন্দর কর্তিপক্ষ[১]
দুবাাই পোর্ট ওয়াল্ড
মালিকজাহাজ মন্ত্রক, ভারত সরকার
উপলব্ধ নোঙরের স্থান১৪
জেটি
বন্দর প্রধানশ্রী পাল অ্যান্টনি ,আইএএস
পোতাশ্রয়ের গভীরতা১২ মিটার (৩৯ ফু)
পরিসংখ্যান
বার্ষিক কার্গো টন১৭.৪৩ মিলিওন টন (২০১৪-১৫)
বার্ষিক কন্টেইনারের আয়তন৩,৬৫,০০০ টিইউএস (২০১৪-২০১৫)

অবস্থানসম্পাদনা

বন্দরটি কোচি শহরের একটি দ্বীপে অভ্যান্তরিন হ্রদে অবস্থিত। এই বন্দরটি মূল ভূখন্ডের সঙ্গে ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু দ্বারা যুক্ত। এই বন্দর ০৯.৩৫ ডিগ্রী উত্তর ও ৭৬.১৪ ডিগ্রী পূর্বে অবস্থিত।[২] এটি সমুদ্র সমতল থেকে ০ থেকে ২ মিটার উঁচু।

পোতাশ্রয়সম্পাদনা

 
কোচি বন্দরে টোকিও মেরিন নামের একটি জাহাজ

কোচি বন্দরটির পোতাশ্রয়টি স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক। এই বন্দরের পোতাশ্রয়টি খুবই গভীর।এর গভীরতা গড়ে ১২ মিটার (৩৯ ফু)। ফলে বন্দরের পোতাশ্রয়ে বড় সামুদ্রিক জাহাজ নোঙর করতে পারে। এছাড়া কন্টেইনার টার্মিনালটি ১৪.৫ মিটার এর বেশি গভীর।

পরিকাঠামোসম্পাদনা

এই বন্দরটি দুটি পৃথক ডক নিয়ে গঠিত। এছাড়া এখানে একটি কন্টেইনার টার্মিনাল রয়েছে। বন্দরটিতে মোট ১৪ টি জেটি রয়েছে। বন্দরটি থেকে পণ্য দেশের অভ্যন্তরে ও দেশের অভ্যন্তর থেকে পণ্য অন্য দেশে পরিবহনের জন্য বন্দরটি একটি সেতু দ্বারা মূল ভূখন্ডে যুক্ত। বন্দরের পণ্য মজুতের সুব্যবস্থা রয়েছে।

কন্টেইনার টার্মিনালসম্পাদনা

 
কোচিনকন্টেইনার টার্মিনাল

প্রথম পর্যায়ে ৩,২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ভারত ও দুবাই পোর্ট ওয়ার্ল্ডের যৌথ সহযোগিতায় এটি নির্মিত হয়৷[৩] কেরালার কোচিতে নির্মিত এই আন্তর্জাতিক কন্টেনার ট্রান্সশিপমেন্ট টার্মিনাল সংক্ষেপে আইসিটিটি হবে দেশের বৃহত্তম সিঙ্গল-অপারেটর কন্টেনার বন্দর৷ জাহাজে কন্টেনার বোঝাই ও খালাসের ক্ষেত্রে এই নতুন বন্দর হবে এক প্রাণকেন্দ্র৷ এর ফলে সমুদ্রপথে ভারতের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের জন্য সিঙ্গাপুর ও কলম্বো বন্দরের ওপর নির্ভরশীলতা অনেক কমবে৷ সময় কম লাগবে খরচ কম পড়বে৷ প্রথম পর্যায়ে ১০ লক্ষ কন্টেনার হ্যান্ডল করতে পারবে এই টার্মিনাল৷ পরে তা বেড়ে হবে ৪০ লক্ষ কন্টেনার৷ সরকারি ও বেসরকারি সহযোগিতায় দুবাই পোর্ট ওয়ার্ল্ড (ডিপিডবল্যু) এটি নির্মাণ করে এবং ৩০ বছর তা চালাবে৷ এজন্য ডিপিবল্যু দিয়েছে ১,৬০০কোটি টাকা আর ভারত সরকার দিয়েছে ১,৬৫০ কোটি টাকা৷

পশ্চাৎভূমিসম্পাদনা

কোচি বন্দরের পশ্চাৎ ভূমি দক্ষিণ ভারতের পশ্চিম অংশেই সীমাবদ্ধ। এর পশ্চাৎ ভূমি সমগ্র কেরালা রাজ্য ও তামিলনাড়ু রাজ্যের পশ্চিম এলাকার কিছু অংশে বিস্তৃত।

আমদানি রপ্তানিসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "কোচি বন্দর কর্তিপক্ষ"। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  2. "কোচি বন্দরের অবস্থান ও মানচিত্র"। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  3. "ভারতের অন্যতম বৃহৎ কন্টেনার বন্দরের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী"। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা