অসমোটিক ঘনত্ব, (পূর্বে অসমোলারিটি নামে পরিচিত ছিল[১] ) হলো দ্রবের ঘনত্বের পরিমাপ। অসমোটিক ঘনত্ব বলতে প্রতি লিটার (L) দ্রবণে যত অসমোল (Osm) দ্রব দ্রবীভূত থাকে তার পরিমাণকে বোঝায়। একটি দ্রবণের অসমোলারিটিকে সাধারণত Osm/L (অসমোল/লিটার) হিসেবে প্রকাশ করা হয়। একইভাবে একটি দ্রবণের মোলারিটিকে "M" (উচ্চারিত "মোলার") দ্বারা প্রকাশ করা হয়। মোলারিটি দ্রবণের প্রতি একক আয়তনে দ্রবীভূত দ্রবের মোলসংখ্যা নির্দেশ করে। আর অসমোলারিটি দ্রবণের প্রতি একক আয়তনে দ্রবণীয় কণার সংখ্যা পরিমাপ করে।[২] অসমোটিক ঘনত্বের মান একটি দ্রবণের অসমোটিক চাপ পরিমাপ এবং অসমোটিক ঘনত্বের তারতম্যের জন্য কিভাবে একটি দ্রাবক পদার্থ একটি অর্ধভেদ্য ঝিল্লি দ্বারা অভিস্রবণ প্রক্রিয়ায় পৃথক হবে তা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।

এককসম্পাদনা

অসমোটিক ঘনত্বের একক হচ্ছে অসমোল। এটি পরিমাপের একটি অ-এসআই একক যা দ্রবণের মোলের সংখ্যা নির্ধারণ করে। এটি একটি দ্রবণের অসমোটিক চাপে অবদান রাখে। ১ মিলিঅসমোল, (mOsm) ১ অসমোলের (Osm) ১/১,০০০ হয়।

দ্রবের প্রকারভেদসম্পাদনা

অসমোলারিটি মোলারিটি থেকে আলাদা। কারণ এটি দ্রবের মোল এর পরিবর্তে অসমোল পরিমাপ করে। কিছু কিছু যৌগ দ্রবণে বিচ্ছিন্ন হতে পারে এবং কিছু কিছু যৌগ দ্রবণে বিচ্ছিন্ন হয় না। এ থেকেই অসমোলারিটি এবং মোলারিটির মধ্যে পার্থক্য নির্ণীত হয়েছে।

সংজ্ঞাসম্পাদনা

একটি দ্রবণের অসমোলারিটি, প্রতি লিটারে ( Osm/L) প্রদত্ত একটি দ্রবণের অসমোলারিটি থেকে নিম্নলিখিতভাবে গণনা করা হয়:

 

যেখানে

  • 'φ' হচ্ছে অসমোটিক গুণাঙ্ক, যা দ্রবণের অ-আদর্শের মাত্রা হিসাব করে। এটা দ্রবণে দ্রবের দ্রবীভূত হবার মাত্রা। 'φ' এর মান ০ থেকে ১ এর মধ্যে হতে পারে। এর মান "১" দ্বারা বুঝায় যে দ্রবটি ১০০% দ্রবীভূত হয়েছে;
  • 'n' হচ্ছে কণার সংখ্যা (উদাহরণস্বরূপ আয়ন) যার মধ্যে একটি অণু বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। উদাহরণস্বরূপ: গ্লুকোজ এর ক্ষেত্রে 'n' এর মান ১ যেখানে NaCl ক্ষেত্রে 'n' এর মান ২;
  • 'c' হল দ্রবণের মোলার ঘনত্ব;
  • 'i' সূচক একটি নির্দিষ্ট দ্রবণের পরিচয়ের প্রতিনিধিত্ব করে।

অসমোলারিটি বনাম টনিসিটিসম্পাদনা

অসমোলারিটি এবং টনিসিটি একে অপরের সাথে সম্পর্কিত কিন্তু দুটো স্বতন্ত্র ধারণা। একইভাবে, অসমোটিক (আইসোঅসমোটিক, হাইপারঅসমোটিক, হাইপোঅসমোটিক) শব্দগুলি -টনিক (আইসোটোনিক, হাইপারটনিক, হাইপোটনিক) শব্দের সমার্থক নয়। উভয় ক্ষেত্রেই একটি ঝিল্লি দ্বারা পৃথক দুটি ভিন্ন দ্রবণের ঘনত্ব তুলনা করা হয়। অসমোলারিটি দ্রব এবং অনুপ্রবেশহীন দ্রবণের মোট একাগ্রতা বিবেচনা করে। অন্যদিকে টনিসিটি শুধুমাত্র অবাধে প্রবেশ করা দ্রবণের মোট একাগ্রতা বিবেচনা করে।[৩]

প্লাজমা অসমোলারিটি বনাম অসমোলারিটিসম্পাদনা

প্লাজমা অসমোলারিটি নিম্নলিখিত সমীকরণ দ্বারা প্লাজমা অসমোলারিটি থেকে গণনা করা যেতে পারে:[৪] অসমোলারিটি = অসমোলারিটি * (ρsol − ca)

যেখানে:

  • ρsol হলো g/ml এককে দ্রবণের ঘনত্ব। রক্তের প্লাজমার জন্য যা হলো ১.০২৫ g/ml।[৫]
  • ca হল g/ml এককে দ্রবের ঘনত্ব।

IUPAC এর অনুসারে, অসমোলালিটি হচ্ছে পানির যৌক্তিক কার্যকলাপ এবং পানির মোলার ভরের ঋণাত্মক প্রাকৃতিক লগারিদমের ভাগফল, অন্যদিকে অসমোলারিটি হচ্ছে অসমোলিটির এবং পানির ভর ঘনত্বের গুনফল (যা অসমোটিক ঘনত্ব নামেও পরিচিত)।

সহজ ভাষায়, অসমোলালিটি হলো দ্রাবকের প্রতি একক ভরে দ্রবের অসমোটিক ঘনত্ব। অন্যদিকে অসমোলারিটি হলো দ্রবণের প্রতি একক আয়তনে দ্রবের অসমোটিক ঘনত্ব।

 

যেখানে mi হলো i এর মোলালিটি।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. IUPAC goldbook
  2. Widmaier, Eric P.; Hershel Raff; Kevin T. Strang (২০০৮)। Vander's Human Physiology, 11th Ed. । McGraw-Hill। পৃষ্ঠা 108–12আইএসবিএন 978-0-07-304962-5 
  3. 1947-, Costanzo, Linda S. (২০১৭-০৩-১৫)। Physiology। Preceded by: Costanzo, Linda S., 1947- (Sixth সংস্করণ)। Philadelphia, PA। আইএসবিএন 9780323511896ওসিএলসি 965761862 
  4. Page 158 in:Martin, Alfred N.; Patrick J Sinko (২০০৬)। Martin's physical pharmacy and pharmaceutical sciences: physical chemical and biopharmaceutical principles in the pharmaceutical sciences। Phila: Lippincott Williams and Wilkins। আইএসবিএন 0-7817-5027-X  [১]
  5. Density of Blood The Physics Factbook. Edited by Glenn Elert. Retrieved on 26 Mars, 2009

বহিঃসংযোগসম্পাদনা