অভিস্রবণ বলতে দুটো ভিন্ন ঘনত্বের দ্রবণ একটি অর্ধভেদ্য পর্দা দিয়ে পাশাপাশি আলাদা করে রাখলে পর্দা ভেদ করে কম ঘন দ্রবণ থেকে অধিক ঘন দ্রবণের দিকে দ্রাবক অণু প্রবেশ করার প্রক্রিয়াকে বোঝায়। দুটো দ্রবণের ঘনত্ব সমান না হওয়া পর্যন্ত এই প্রক্রিয়া চলতে থাকে।অভিস্রবন এক প্রকার ব্যাপন।অভিস্রবণ কেবলমাত্র তরলের ক্ষেত্রে ঘটে। [১][২] একে অন্যভাবে বলা যায় কোনো শক্তির প্রয়োগ ছাড়াই তরলের বাস্তবিক চলাচল।অভিস্রবণকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়— অন্তঃঅভিস্রবণ, বহিঃঅভিস্রবণ। কোষের বাইরে অবস্থিত তরল পদার্থ যখন অর্ধভেদ্য পর্দা ভেদ করে ভেতরে প্রবেশ করে তখন সেই প্রক্রিয়াকে অন্তঃঅভিস্রবণ বলে। কোষের ভেতর থেকে যখন তরল পদার্থ পর্দা ভেদ করে বাইরে বেরিয়ে যায় তখন সেই প্রক্রিয়াকে বহিঃঅভিস্রবণ প্রক্রিয়া বলে।

অভিস্রবণের একটি কম্পিউটার সিমুলেশন

[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. [http:// www.britannica.com/EBchecked/topic/434057/osmosis Osmosis], Encyclopedia Britannica on-line
  2. Haynie, Donald T. (২০০১)। Biological Thermodynamics। Cambridge: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 130–136। আইএসবিএন 0521795494 
  3. Waugh, A. (২০০৭)। Anatomy and Physiology in Health and Illness। Edinburgh: Elsevier। পৃষ্ঠা 25–26। আইএসবিএন 0443101019  অজানা প্যারামিটার |coauthors= উপেক্ষা করা হয়েছে (|author= ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে) (সাহায্য)

বহিঃসংযোগসম্পাদনা