অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে

১৯৯৭ সালে প্রকাশিত লুটতরাজ চলচ্চিত্রের সঙ্গীত

‘অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে’ ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত বাংলা চলচ্চিত্র সঙ্গীত। প্রণয়ধর্মী এই সঙ্গীত বা গানটি ১৯৯৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত[১] কাজী হায়াৎ পরিচালিত চলচ্চিত্র লুটতরাজ-এ ব্যবহার করা হয়েছে।[২] আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের গীতি ও সুরে এই গানে কণ্ঠ দেন আইয়ুব বাচ্চু এবং কনক চাঁপা। চলচ্চিত্রে এই গানের চিত্রায়ণে অভিনয় ও ঠোট মিলিয়েছেন মান্নামৌসুমী[২] এই গানের মাধ্যমে বাংলা চলচ্চিত্রে গায়ক হিসেবে আইয়ুব বাচ্চু’র অভিষেক হয়[৩][৪][৫]

"অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে"
অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে.jpg
একক সঙ্গীতের প্রচ্ছদ
লুটতরাজ অ্যালবাম থেকে
আইয়ুব বাচ্চুকনক চাঁপা কর্তৃক সঙ্গীত
ভাষাবাংলা
মুক্তিপ্রাপ্তঅডিওঃ ১৯৯৭
ভিডিওঃ ২৮ এপ্রিল, ২০১৮
বিন্যাসঅডিও ক্যাসেট, ভিডিও স্ট্রিমিং
রেকর্ডকৃত১৯৯৭
ধারাচলচ্চিত্র সঙ্গীত
দৈর্ঘ্য০৪:৫২
লেবেলঅনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া (২০১৮-বর্তমান)
গান লেখকআহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল
সুরকারআহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল
প্রযোজকআহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল
সঙ্গীত ভিডিও
ইউটিউবে "অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে"

পটভূমিসম্পাদনা

লুটতরাজ চলচ্চিত্রটি মান্না’র প্রথম প্রযোজিত চলচ্চিত্র।[১] তিনি এই ছায়াছবির দর্শকদের চমক দেয়ার জন্য আইয়ুব বাচ্চুকে দিয়ে এই চলচ্চিত্রে নেপথ্য গান গাওয়ানোর ধারণা কাজী হায়াতকে উপস্থাপন করেছিলেন।[৬] আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলও এই বিষয়ে মান্নাকে সমর্থন করেছিলেন।[৭] তবে তিনি আশাবাদী ছিলেন না। মান্না’র একান্ত আগ্রহ ও বহুবার অনুরোধ করার পর আইয়ুব বাচ্চু এই চলচ্চিত্রে নেপথ্য গান গাওয়ার সম্মতি দিয়েছিলেন।[৬][৭][৮]

সঙ্গীত প্রযোজনাসম্পাদনা

আইয়ুব বাচ্চু সম্মতি দেয়ার পর আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল এই গানের গীতিরচনা ও সুরারোপ করেন।[৭] গীতিরচনার ক্ষেত্রে আইয়ুব বাচ্চু’র গায়কী ও গানের ধরনকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছিল।[৬] এই গানটি মুলত উচ্চ স্কেলে গাওয়া। আইয়ুব বাচ্চু উচ্চ স্কেলের গানে অভ্যস্ত হলেও কনক চাঁপা অভ্যস্ত ছিলেন না। আইয়ুব বাচ্চুর সাথে কণ্ঠদানের ক্ষেত্রে কনক চাঁপার স্বামী মইনুল ইসলাম খান বেশ চিন্তিত ছিলেন।[২] পরবর্তীতে সফলভাবেই তাদের কণ্ঠধারণ সম্পন্ন হয়।

মুক্তি ও জনসংস্কৃতিতে প্রভাবসম্পাদনা

চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাওয়ার পর শ্রোতারা এই গান সাদরে গ্রহণ করে এবং তুমুল জনপ্রিয় হয়। আইয়ুব বাচ্চুর ব্যান্ড সঙ্গীতের ভক্ত অনেকেই শুধু এই গান শোনার জন্য চলচ্চিত্রটি প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে দেখেছেন।[৩][৬] বাংলাদেশ বেতারের চলচ্চিত্র সংগীতানুষ্ঠানে এই গান নিয়মিত প্রচার করা হয়।[৫] চলচ্চিত্রে গান গাওয়া ছেড়ে দেয়ার আগে, আইয়ুব বাচ্চু তাঁর কনসার্টে শ্রোতাদের অনুরোধে এই গান পরিবেশন করেছিলেন। এই গানের মাধ্যমে ব্যান্ড ও রক সঙ্গীতে বাইরে চলচ্চিত্রের সঙ্গীত জগতে আইয়ুব বাচ্চুর সফল পদচারণা শুরু হয়।[৬] চলচ্চিত্র মুক্তির একুশ বছর পর অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়ার ব্যানারে গানটির ভিডিও ২৮ এপ্রিল, ২০১৮ তারিখে ইউটিউবে অবমুক্ত করা হয়।[৯]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "টাঙ্গাইলের আসলাম থেকে মান্না"প্রথম আলো। ২০১৬-০২-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ 
  2. "ভালোবাসার গান নেপথ্যের গল্প"দৈনিক ভোরের কাগজ। ২০১৮-০২-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ 
  3. "'অনন্ত প্রেম' থেকে 'আম্মাজান', চলচ্চিত্রে আইয়ুব বাচ্চু (ভিডিও)"দৈনিক যুগান্তর। ২০১৮-১০-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৬ 
  4. "চলচ্চিত্রেও দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল বাচ্চুর গান"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ২০১৮-১০-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ 
  5. "'অনন্ত প্রেম' থেকে 'আম্মাজান আম্মাজান'"পূর্বপশ্চিম। ২০১৮-১০-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ 
  6. "নায়ক মান্নার অনুরোধেই সিনেমায় এসেছিলেন আইয়ুব বাচ্চু"জাগো নিউজ। ২০১৮-১০-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ 
  7. "মান্নার অনুরোধে চলচ্চিত্রে গান গেয়েছিলেন বাচ্চু"এনটিভি অনলাইন। ২০১৯-১০-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ 
  8. "নায়ক মান্নার অনুরোধে চলচ্চিত্রে প্লে-ব্যাক করেছিলেন তিনি"সময় টিভি। ২০১৯-১০-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৩ 
  9. "Ononto Prem Tumi | অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে | Manna & Moushumi | Loottoraj"অনুপম রেকর্ডিং। ২০১৮-০৪-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-০৩ইউটিউব-এর মাধ্যমে। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা