গ্রিস

দক্ষিণ ইউরোপের রাষ্ট্র
(Greece থেকে পুনর্নির্দেশিত)

গ্রিস (গ্রিক: Ελλάδα এলাদ়া বা Ελλάς এলাস্‌) ইউরোপ মহাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব অংশের একটি রাষ্ট্র যা বলকান উপদ্বীপের একেবারে দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত। এর সীমান্তবর্তী রাষ্ট্রগুলো হচ্ছে উত্তরে বুলগেরিয়া, উত্তর মেসিডোনিয়া এবং আলবেনিয়া; পূর্বে তুরস্ক। গ্রিসের মূল ভূমির পূর্বে ও দক্ষিণে এজিয়ান সাগর অবস্থিত, আর পশ্চিমে রয়েছে আইওনিয়ান সাগর। পূর্ব ভূমধ্যসাগরের উভয় অংশে গ্রিসের অনেকগুলো দ্বীপ রয়েছে। গ্রিস ইউরোপ. এশিয়া এবং আফ্রিকার মিলন স্থলে অবস্থিত। বর্তমান গ্রিকদের পূর্বপুরুষ হচ্ছে এক সময়ের পৃথিবী বিজয়ী প্রাচীন গ্রিক সভ্যতা, বাইজান্টাইন সম্রাজ্য এবং প্রায় ৪ শতাব্দীর অটোমান সম্রাজ্য। এই দেশ পশ্চিমা বিশ্বের জ্ঞান বিজ্ঞানের সূতিকাগার এবং গণতন্ত্রের জন্মদায়ক স্থান হিসেবে সুপরিচিত। গ্রিসের আরও কিছু বৃহৎ অবদান হচ্ছে পশ্চিমা দর্শন, অলিম্পিক গেম্‌স, পশ্চিমা সাহিত্য, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, গুরুত্বপূর্ণ বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার এবং নাটক। সব মিলিয়ে গ্রিসের সভ্যতা সমগ্র ইউরোপে এক সময়ের সবচেয়ে প্রভাবশালী সভ্যতা হিসেবে পরিগণিত হত। বর্তমানে গ্রিস একটি উন্নত দেশ এবং ১৯৮১ সাল থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য।[১০]। এছাড়া এটি ২০০১ সন থেকে ইকোনমিক অ্যান্ড মনিটারি ইউনিয়ন অফ দ্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ১৯৫১ সাল থেকে ন্যাটো এবং ১৯৬০ সাল থেকে ওইসিডি-এর সদস্য হিসেবে আছে।

হেলেনীয় প্রজাতন্ত্র

Ελληνική Δημοκρατία
Ellīnikī́ Dīmokratía
গ্রিসের জাতীয় পতাকা
পতাকা
গ্রিসের জাতীয় প্রতীক
জাতীয় প্রতীক
নীতিবাক্য: Eleftheria i Thanatos, (Greek: "Ελευθερία ή Θάνατος", "Freedom or Death") (traditional)
সঙ্গীত: "Ὕμνος εἰς τὴν Ἐλευθερίαν
Ýmnos is tin Eleftherían
স্বাধীনতার স্তবগান1"
 গ্রিস-এর অবস্থান (dark green) – Europe-এ (green & dark grey) – the European Union-এ (green)  –  [ব্যাখ্যা]
 গ্রিস-এর অবস্থান (dark green)

– Europe-এ (green & dark grey)
– the European Union-এ (green)  –  [ব্যাখ্যা]

রাজধানীএথেন্স
বৃহত্তম নগরীঅ্যাথেন্স
সরকারি ভাষাGreek
জাতিগোষ্ঠী
94% Greek,
4% Albanian,
2% others[১][২][৩][৪]
জাতীয়তাসূচক বিশেষণGreek (Officially: Hellenic)
সরকারUnitary parliamentary republic
Prokopis Pavlopoulos
Kyriakos Mitsotakis MP
আইন-সভাParliament
Independence from the Ottoman Empire
• Declared
1 January 1822, at the First National Assembly
• Recognized
3 February 1830, in the London Protocol
11 June 1975,
Third Hellenic Republic
আয়তন
• মোট
১,৩১,৯৯০ কিমি (৫০,৯৬০ মা) (96th)
• পানি/জল (%)
0.8669
জনসংখ্যা
• 2010 আনুমানিক
11,305,118[৫] (74th)
• 2011 (preliminary data) আদমশুমারি
10,787,690[৬]
• ঘনত্ব
৮৫.৩ /কিমি (২২০.৯ /বর্গমাইল) (88th)
জিডিপি (পিপিপি)2010 আনুমানিক
• মোট
$318.082 billion[৭] (37th)
• মাথাপিছু
$28,434[৭] (29th)
জিডিপি (মনোনীত)2010 আনুমানিক
• মোট
$305.415 billion[৭] (32nd)
• মাথাপিছু
$27,302[৭] (29th)
জিনি (২০০৫)33[৮]
ত্রুটি: জিনি সহগের মান অকার্যকর
এইচডিআই (2010)বৃদ্ধি 0.855[৯]
ত্রুটি: মানব উন্নয়ন সূচক-এর মান অকার্যকর · 22nd
মুদ্রাEuro ()2 (EUR)
সময় অঞ্চলইউটিসি+২ (EET)
• গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি)
ইউটিসি+৩ (EEST)
গাড়ী চালনার দিকright
কলিং কোড30
ইন্টারনেট টিএলডি.gr3
  1. Also the national anthem of Cyprus.
  2. Before 2001, the Greek drachma.
  3. The .eu domain is also used, as in other European Union member states.

ইতিহাসসম্পাদনা

প্রাচীন কালসম্পাদনা

এজিয়ান সাগরের তীরে সুপ্রাচীন কালে ইউরোপের প্রথম উন্নত সভ্যতা গড়ে উঠেছিল, বর্তমান আধুনিক ইউরোপকে এর ফসল বললে অত্যুক্তি হবে না। Minoan এবং Mycenean সভ্যতার উত্থানের ফলে গ্রিসের বিভিন্ন অঞ্চলে স্বতন্ত্র জেলা এবং সরকার ও সমাজ কাঠামো বিশিষ্ট রাজ্যের সৃষ্টি হয়। এই রাজ্যগুলো স্পার্টা এবং এথেন্সের অধীনে একত্রিত হয়ে পার্সিয়ানদের অগ্রযাত্রাকে প্রতিহত করেছিল। এথেন্সে গ্রিসের প্রথম সমৃদ্ধ সভ্যতা প্রতিষ্ঠিত হয়। কিন্তু পরবর্তীকালে এথেন্স ও স্পার্টার মধ্যে সংঘাতের সৃষ্টি হয় যার পরিণতি পেলোপোনেশীয় যুদ্ধ। এ সময় পার্সিয়ানদের হাতে স্পার্টার পতন হয়। এর পর মাত্র এক শতাব্দীর মধ্যে সকল গ্রিকরা আলেকজান্ডার দ্য গ্রেটের নেতৃত্বে একত্রিত হয়ে পার্সীয়দের প্রতিহত করে। ১৪৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দে এখানে রোমান সম্রাজ্যের সূচনা হয়।

রোমান যুগসম্পাদনা

রোমান যুগের সূচনায় হেলেনীয় সমাজ ও সংস্কৃতির কোন পরিবর্তন না হলেও এর ফলে আবশ্যিকভাবেই গ্রিস তার রাজনৈতিক স্বাধীনতা হারায়। খ্রিস্ট ধর্ম বিকাশের পূর্ব পর্যন্ত এখানে হেলেনীয় সংস্কৃতি টিকে ছিল। গ্রিস রোমের একটি প্রদেশে পরিণত হয় এবং তখনও গ্রিস প্রবল প্রতাপে পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের সংস্কৃতিকে প্রভাবান্বিত করে চলে। এরপর রোমান সাম্রাজ্য দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়; একভাগের নাম পূর্ব রোমান সম্রাজ্য যা গ্রিকদের সাম্রাজ্য নামে প্রতিষ্ঠা পায় এবং পরবর্তীকালে বাইজান্টাইন সম্রাজ্য নাম ধারণ করে। অন্য অংশ ছিল কনস্টান্টিনোপ্‌ল কেন্দ্রিক যার নাম ছিল বাইজান্টিয়াম। বাইজান্টাইন রাজত্বের সময় গ্রিক আগ্রাসী সকল শক্তির মধ্যে হেলেনীয় ভাবধারার প্রভাব সৃষ্টিতে সমর্থ হয় এবং এ সময়েই সিসিলিএশিয়া মাইনর থেকে অনেকে গ্রিসে বসতি স্থাপন করে। একাদশ ও দ্বাদশ শতাব্দীকে গ্রিসে বাইজান্টাইন শিল্পকলার স্বর্ণযুগ বলা হয়। তবে ১২০৪ থেকে ১৪৫৮ সালের মধ্যে সংঘটিত ক্রুসেডের সময় ধর্মের নামে প্রতিষ্ঠিত কিছু সেনাদল দ্বারা গ্রিস আক্রান্ত হয়। ১৪৫৩ সালের ২৯ মে তারিখে কনস্টান্টিনোপ্‌লের পতনের পূর্ব পর্যন্ত এখানে বাইজান্টাইন সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠিত ছিল।

রাজনীতিসম্পাদনা

গ্রিসের রাজনীতি একটি সংসদীয় প্রতিনিধিত্বমূলক বহুদলীয় গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কাঠামোয় সংঘটিত হয়। সরকারপ্রধান হলেন প্রধানমন্ত্রী। রাষ্ট্রের নির্বাহী ক্ষমতা সরকারের উপর ন্যস্ত। আইন প্রণয়নের ক্ষমতা সরকার এবং আইনসভা উভয়ের উপর ন্যস্ত। বিচার বিভাগ নির্বাহী বিভাগ ও আইনসভা হতে স্বাধীন।

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহসম্পাদনা

প্রশাসনিকভাবে গ্রিসে মোট ১৩ টি প্রশাসনিক অঞ্চল রয়েছে। এরা আবার সর্বমোট ৫৪ টি প্রিফেকচারে বিভক্ত।

Map সংখ্যা] প্রশাসনিক অঞ্চল রাজধানী আয়তন (বর্গ কি.মি.) জনসংখ্যা
 
Attica এথেন্স ৩,৮০৮ ৩,৭৬১,৮১০
কেন্দ্রীয় গ্রিস Livadia ১৫,৫৪৯ ৬০৫,৩২৯
কেন্দ্রীয় মেসিডোনিয়া থেসালোনিকি ১৮,৮১১ ১,৮৭১,৯৫২
Crete Iraklio ৬,৩৩৬ ৬০১,১৩১
East Macedonia and Thrace Komotini ১৪,১৫৭ ৬১১,০৬৭
Epirus Ioannina ৯,২০৩ ৩৫৩,৮২০
আইওনীয় দ্বীপপুঞ্জ Cofu ২,৩০৭ ২১২,৯৮৪
উত্তর এজিয়ান Mytilene ৩,৮৩৬ ২০৬,১২১
Peloponnese Tripoli ১৫,৪৯০ ৬৩৮,৯৪২
১০ দক্ষিণ এজিয়ান Ermoupoli ৫,২৮৬ ৩০২,৬৮৬
১১ Thessaly Larissa ১৪.০৩৭ ৭৫৩,৮৮৮
১২ পশ্চিম গ্রিস পাত্রাস ১১,৩৫০ ৭৪০,৫০৬
১৩ পশ্চিম মেসিডোনিয়া Kozani ৯,৪৫১ ৩০১,৫২২
- Mount Athos (Autonomous) Karyes ৩৯০ ২,২৬২

ভূগোলসম্পাদনা

গ্রীস পাহাড়ের একটি দেশ। এগুলি দেশের উত্তর-পশ্চিমে শুরু হয় এবং সমুদ্রের ঢেউয়ের নীচে পিছলে না যাওয়া পর্যন্ত দক্ষিণ-পূর্ব দিকে চালিত হয়; তাদের শিখর পর্যায়ক্রমে ভূপৃষ্ঠ ভেঙে হাজার হাজার দ্বীপ তৈরি করে যার জন্য গ্রীক জলরাশি বিখ্যাত এই পর্বতমালাগুলি ল্যান্ডস্কেপ জুড়ে গ্রাম এবং শহরগুলির বন্টন নির্ধারণ করে এবং বৃষ্টিপাতের নিদর্শন এবং রাস্তার নেটওয়ার্ককে আকার দেয়, মূল ভূখণ্ডকে ছোট ছোট বাসযোগ্য উপত্যকা এবং সমভূমিতে বিভক্ত করে।

এই ভাঙ্গা আড়াআড়িটি গ্রিসকে বিস্তৃত পরিবেশগত পরিস্থিতি দখল করেছে, যার মধ্যে অনেকগুলি বৃহত্তর আধুনিক কৃষির জন্য উপযুক্ত নয় এবং এগুলি 'বন্য' এবং পাথুরে অবস্থায় ফিরে গেছে। এটি প্রাক-রাফেলাইট চিত্রশিল্পীদের দ্বারা কল্পনা করা কৌতুকময় ব্রুকস এবং ছায়াময় সূর্যের আলোয় বনভূমিতে ভরা আইডলিক গ্রামীণ ভূদৃশ্য নাও হতে পারে, তবে এটি এর কাঁচা এবং শিরোনামহীন রাজ্যে দুর্দান্ত ইউরোপের সৈকত এবং উপসাগর

খালি পরিসংখ্যানের ভাষায়, গ্রীস ১৩১,৯৪০ বর্গ কিমি (৫০,৯৪২ বর্গ মাইল) আয়তন এবং ১৩,৬৭৬ কিলোমিটার (৮,৪৯৮ মাইল) উপকূল রেখা রয়েছে। এটিতে প্রায় ২০০০ টিরও বেশি দ্বীপ রয়েছে, যার মধ্যে ১৭০ টি স্থায়ীভাবে বসবাস করে are একটি ভৌগোলিকভাবে জটিল দেশ, এটি বর্ণনার স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য নিম্নলিখিত অঞ্চলগুলিতে বিভক্ত করা যেতে পারে:

অ্যাথেন্স এবং অ্যাটিকা

রাজধানী এবং এর অভ্যন্তরীণ অঞ্চলটি বিস্তৃত উপদ্বীপে অবস্থিত যা এজিয়ান সাগরে প্রবেশ করে। অ্যাথেন্সে এখন স্বয়ং ৪,৪,০০,০০০ লোক রয়েছে এবং তিনটি পর্বতমালা এবং সমুদ্রের মধ্যবর্তী সমভূমিটি পূর্ণ করেছে বিমানবন্দর (এলিথেরিয়াস ভেনিজেলোস) ইমিটোস রেঞ্জের সুদূর পাশে পূর্বদিকে অবস্থিত তবে এটি রাজধানীর সাথে অত্যন্ত সুসংযুক্ত। অ্যাটিকা তার উত্পাদিত জলপাইয়ের তেলের গুণগতমানের জন্য বিখ্যাত ছিল, তবে রাজধানীতে অফার দেওয়ার কারণে বাসিন্দারা চাকরির সুযোগের দিকে মনোনিবেশ করায় অনেক কৃষিক্ষেত্র ত্যাগ করা হয়েছে।

পেলোপনিজ

পেলোপনিজ একটি বিশাল উপদ্বীপ যা করিন্থ শহরের কাছে উত্তর-পূর্বে সরু ইস্টমাস দ্বারা সবেমাত্র মূল ভূখণ্ডের সাথে সংযুক্ত ছিল। যেহেতু এই ফালাটি এখন করিন্থ খাল দিয়ে কেটে ফেলা হয়েছে (যা উপদ্বীপের চারপাশে বিপজ্জনক ভ্রমণকে তীব্রভাবে সংক্ষিপ্ত করে তোলে) এটি প্রযুক্তিগতভাবে একটি দ্বীপে পরিণত হয়েছে; গ্রীক রাষ্ট্রকে সংজ্ঞায়িত করে এমন অনেকের মধ্যে সর্বশেষতম।

এর ভর উত্তর-দক্ষিণে প্রবাহিত দুটি দীর্ঘ পর্বত শৃঙ্খল এবং উত্তর উপকূল এবং মধ্য অঞ্চল সহ পূর্ব-পশ্চিমে প্রবাহিত পাহাড়ের আরও একটি ভর দ্বারা বিভক্ত। উত্তর এবং মধ্য পর্বতমালা অত্যন্ত ভাল জল সরবরাহ করা হয়, এবং বন এবং সুন্দর জর্জে ভরা হয়। দক্ষিণে লাকোনিয়া এবং মেসিনিয়ার সমভূমি দ্বারা আধিপত্য রয়েছে, এর উত্তর অংশটি সুন্দর বালুকাময় সৈকতগুলির জন্য বিখ্যাত।

এজিয়ান দ্বীপপুঞ্জ

এজিয়ান দ্বীপপুঞ্জগুলি প্রচলিতভাবে বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত: আরগো-সারোনিক, সাইক্ল্যাডিক, স্পোরাদিস, ডোডেকানিজ, পূর্ব এজিয়ান দ্বীপপুঞ্জ (সামোস, চিয়স, লেসবোস ইত্যাদি) এবং আরও কয়েকটি যেমন such ক্রিট এবং সামোথ্রেস যা হয় এত বড় যে তারা নিজেরাই দাঁড়াতে পারে বা অন্যের থেকে খুব দূরে একটি সহজে সংজ্ঞায়িত গোষ্ঠীতে অন্তর্ভুক্ত হয়।

এগুলি সাধারণত চুনাপাথর বা গ্রানাইট দিয়ে গঠিত, যদিও দক্ষিণ ডোডেকানিজের কয়েকটি দ্বীপ আগ্নেয় শিল বা বেসাল্ট। তাদের অনেকের ভূগর্ভস্থ জলের সামান্য পরিমাণ রয়েছে, যা তাদের কৃষিক্ষেত্রকে সীমাবদ্ধ করে, যদিও তাদের মধ্যে কিছু চমৎকার ওয়াইন উত্পাদন করে। ট্যুরিজম আবির্ভাবের আগে, তাদের বেশিরভাগই সমুদ্র থেকে জীবিকা নির্বাহ করেছিলেন এবং ফিশিং গ্রামগুলিতে হোয়াইটওয়াশ করা ঘরগুলি হ'ল গ্রীক আর্কিটেকচারের কথা ভাবা হলে মনে করা হয় প্রত্নতাত্ত্বিক দৃশ্য।

মধ্য গ্রীস এবং থেসালি

থেসালি এবং বোয়েটিয়ার সমভূমিগুলি পুরোপুরি পর্বতমালা এবং এজিয়ান সাগরকে আরোপিত এবং গ্রীসের সবচেয়ে ধনী কৃষিক্ষেত্র: থিসালিয়ান বৃহত্তম, এবং প্রচুর পরিমাণে ভুট্টা, চাল, তামাক এবং ফল উত্পাদন করে; বোটিয়ান সিরিয়াল এবং তুলা উত্পাদন করে এবং এটি তার গবাদি পশুদের জন্য বিখ্যাত। কামভৌনিয়ান পর্বতমালা এই অঞ্চলটি ম্যাসেডোনিয়া থেকে উত্তরে পৃথক করে এবং পিন্ধোস পরিসর এপিরাস থেকে পশ্চিমে বিভক্ত করে, আর পার্নাসসোস পর্বতগুলি দক্ষিণে যায়। এই আধুনিকতম পরিসীমা দুটি অভিজাত স্কিইং রিসর্ট রয়েছে যা এথেন্স থেকে ডে ট্রিপগুলির মাধ্যমে সহজেই অ্যাক্সেস করা যায়।

এপিরাস, ম্যাসেডোনিয়া এবং থ্রেস

পিন্ধোস পর্বতমালার শিখরগুলির দ্বারা এপিরাসের আধিপত্য রয়েছে, যা দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রবাহিত হওয়ার সাথে সাথে মেঘগুলি ধরে ফেলে, ফলস্বরূপ এটি গ্রীসের সবচেয়ে আর্দ্রতম অঞ্চল। রাগড এবং রিমোট, এটি জনবহুল এবং দরিদ্র, তবে চমকপ্রদ সুন্দর দৃশ্যে পূর্ণ। থ্রেসের রোধোপি পর্বতমালা একইভাবে শক্তভাবে আবদ্ধ এবং এই অঞ্চলের বেশিরভাগ অংশ বনভূমি যা পাহাড় এবং উপত্যকাগুলিকে কম্বল করে। মেসিডোনিয়া বিশেষত খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ, তবে এখানে প্রচুর সংখ্যক প্রাণিসম্পদ রয়েছে। এই অঞ্চলের সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হ'ল উত্তর-পশ্চিমের হ্রদগুলি, যা আলবেনিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলি এবং ম্যাসেডোনিয়ার প্রাক্তন যুগোস্লাভিয়ান প্রজাতন্ত্রের সাথে ভাগ করা রয়েছে।

আয়নিয়ান দ্বীপপুঞ্জ

আয়নিয়ান দ্বীপপুঞ্জগুলি গ্রিসের পশ্চিম উপকূলে ছয়টি বড় দ্বীপ নিয়ে গঠিত এবং জলবায়ুর দিক থেকে তারা মূল ভূখণ্ডের এই অংশের সাথে এজিয়ান দ্বীপপুঞ্জের চেয়ে অনেক বেশি কাছাকাছি রয়েছে। অপেক্ষাকৃত উচ্চ স্তরের বৃষ্টিপাতের অর্থ তারা ভারী বৃক্ষযুক্ত এবং তাদের ভূদৃশ্যটি এপিরিসের মতোই রুক্ষ এবং পর্বতমালা। তারা কিছু ভাল ওয়াইন এবং ফল উত্পাদন করে, এবং বসন্তে পুষ্পিত বন্যফুলগুলি আশ্চর্যজনকভাবে ল্যান্ডস্কেপকে রেন্ডার করে। [১১]

অর্থনীতিসম্পাদনা

গ্রিসের অর্থনীতিমূলত সেবাখাত নির্ভর।গ্রিস বেশ ধনী একটি দেশ। যদিও শিল্প বিকাশ এবং পর্যটনের কারণে সাম্প্রতিক দশকে গ্রিসের অর্থনীতি উন্নতি হয়েছে , দেশটি একটি বৃহত এবং মারাত্মক অর্থনৈতিক সঙ্কট থেকে বেরিয়ে আসছে। ২০০২ সালের জানুয়ারী থেকে গ্রীসে টাকার মুদ্রা ইউরো, যা নাটকের পরিবর্তে । ২০০৪ সালের অলিম্পিক গেমসের প্রস্তুতি গ্রীক অর্থনীতিকে প্ররোচিত করেছিল। গত বছরগুলিতে, দেশটি একটি মারাত্মক ঋণ সংকটের মুখোমুখি হয়েছিল এবং এর অনেকগুলি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছিল, যেমন উন্নয়নের স্বল্প হার এবং বৃহত বেকারত্ব (ডিসেম্বর ২০১২ সালে ২৫%)।

অর্থনৈতিক বৈশিষ্ট্য এর অর্থনীতি গ্রীস হয় ১৫ তম বৃহত্তম অর্থনীতির ১৭ সদস্যের ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং নামমাত্র গ্রস ডোমেস্টিক উত্পাদন (২০১২) দ্বারা বিশ্বের ৩৪তম বৃহত্তম দেশ। একটি উন্নত দেশ, গ্রীস অর্থনীতির পরিষেবা খাত (৮৫%) এবং শিল্প (১২%) উপর ভিত্তি করে, যখন কৃষিক্ষেত্র জাতীয় অর্থনৈতিক আয়ের মাত্র ৩% নিয়ে গঠিত।

গ্রিসের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক শিল্প হলো পর্যটন এবং বণিক পরিবহন। প্রকৃতপক্ষে, প্রতি বছর প্রায় ২০ মিলিয়ন আন্তর্জাতিক পর্যটক গ্রিসে যান, যা এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের) ৭ম এবং বিশ্বের ১৬তম অবস্থানে রয়েছে। মার্চেন্ট শিপিংয়ের ক্ষেত্রে, গ্রিস বিশ্বের বৃহত্তম বণিক সামুদ্রিক হিসাবে এটি বিশ্বের মোট ক্ষমতার ১৬% আওতাভুক্ত।

১৯৮২ সালে, গ্রীস ইউরোপীয় সম্প্রদায়ের (পরে ইউরোপীয় ইউনিয়ন) এর সদস্য হয়ে ওঠে। ২০০২ সালের জানুয়ারিতে ইউরো দেশটির সরকারী মুদ্রায় পরিণত হয়, ৩৪০.৭৫ ড্রাচমে ইউরোর বিনিময় হারে ড্রচমা প্রতিস্থাপন করে। গ্রিস আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল, ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন, অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থা এবং অন্যান্য অনেক বিশ্ব আর্থিক সংস্থারও সদস্য।[১২]

জনসংখ্যাসম্পাদনা

গ্রিসের জনসংখ্যা ১,১৩,০৫,১১৮ জন (২০১১ সন অনুযায়ী)

সংস্কৃতিসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Demographics of Greece"। European Union National Languages। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ডিসেম্বর ২০১০ 
  2. "Greece"The World FactbookCentral Intelligence Agency। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১১ 
  3. "Πίνακας 7: Αλλοδαποί κατά υπηκοότητα, φύλο και επίπεδο εκπαίδευσης – Σύνολο Ελλάδας και Νομοί" [Table 7: Foreigners by citizenship, gender and educational level -Whole of Greece and Prefectures] (PDF) (Greek ভাষায়)। Greek National Statistics Agency। ২৮ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১১ 
  4. "Demography Report 2010" (PDF)Eurostat Yearbook 2010Eurostat। ৯ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১১ 
  5. "Total Population"Eurostat। ১ জানুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৮ জানুয়ারি ২০১০ 
  6. "'Πίνακας 1: Προσωρινά αποτελέσματα του Μόνιμου Πληθυσμού της Ελλάδος'" (PDF)। National Statistical Service of Greece: Ανακοίνωση προσωρινών αποτελεσμάτων Απογραφής Πληθυσμού 2011, 22 Ιουλίου 2011। 
  7. "Greece"International Monetary Fund। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১১ 
  8. "Distribution of Family Income – Gini Index"The World FactbookCentral Intelligence Agency। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১০ 
  9. "Human Development Report 2010" (PDF)। United Nations। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১০ 
  10. "Member States of the EU: Greece"European Union। europa.eu। ২০০৭-০৪-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৪-০৭ 
  11. "Greek Geography"https://www.petersommer.com/। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০২১  |প্রকাশক= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  12. "Economy of Greece"https://www.greeka.com/। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০২১  |প্রকাশক= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)

বহিঃসংযোগসম্পাদনা