বোসন

(Boson থেকে পুনর্নির্দেশিত)

বোসন হলো পূর্ণসংখ্যক স্পিনবিশিষ্ট একটি মৌলিক কণিকা। এই কণিকা বোস-আইনস্টাইন পরিসংখ্যান মেনে চলে। প্রখ্যাত ভারতীয় বাঙালি তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানী এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের[১][২] উন্নয়নশীল পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক সত্যেন বোসের (বোস-আইনস্টাইন পরিসংখ্যানের বোস) নামানুসারে পল ডিরাক[৩][৪] এই কণিকার নাম প্রদান করেন[৫]। বোসনদের বেশিরভাগই হল যৌগিক কণা।

প্রাথমিক কণাসমূহের আদর্শ তালিকার সর্বশেষ কলামে বোসন কণাসমূহের ব্যাপ্তি প্রকাশ করছে।

এক শক্তিস্তরে অনেকগুলি বোসন একসঙ্গে থাকতে পারে, যা পাউলির বর্জন নীতি মেনে চলা ফার্মিয়নদের পক্ষে সম্ভব নয়।

বোসনের উদাহরণ হ'ল ফোটন, গ্লুয়ন এবং W এবং Z বোসন (স্ট্যান্ডার্ড মডেলের চারটি বল বহনকারী গেজ বোসন), সম্প্রতি আবিষ্কৃত হিগস বোসন এবং কোয়ান্টাম মাধ্যাকর্ষণটির অনুমানের মহাকর্ষ। কিছু সংমিশ্রিত কণা হ'ল বোসন, যেমন মেসন এবং এমনকি ভর সংখ্যার স্থির নিউক্লিয়াস যেমন ডিউটেরিয়াম (একটি প্রোটন এবং একটি নিউট্রন, পারমাণবিক ভর সংখ্যা = ২), হিলিয়াম -৪, এবং সীসা ২০৮; পাশাপাশি কিছু কাসি-পার্টিকেলস (উদাঃ কপার জোড়া, প্লাজমোন এবং ফোনস)।[৬] :১৩০

ইতিহাসসম্পাদনা

প্রকারভেদসম্পাদনা

বোসন কণাদের মধ্যে যৌগিক (Composite) ও মৌলিক দুই প্রকারের কণাই আছে। মৌলিক কণাদের (Composite Particles) মধ্যে আছে তিনটি যথা হিগস বোসন, গেজ বোসন। এছাড়াও আছে গ্র্যাভিটন এখনও স্বীকৃত নয়। যৌগিক বোসন কণারা হল মেসন, ডিউটেরিয়াম, হিলিয়াম-৪, লেড-২০৪ ইত্যাদি।[৫]

ধর্মসম্পাদনা

বোস – আইনস্টাইনের পরিসংখ্যানগুলি বোঝায় যে, যখন কেউ দুটি বোসন (একই প্রজাতির) বদল করে, তখন সিস্টেমটির তরঙ্গসীমা অপরিবর্তিত থাকে।[৭]


সমস্ত পরিচিত প্রাথমিক এবং যৌগিক কণাগুলি তাদের স্পিনের উপর নির্ভর করে বোসন বা ফার্মিয়ন হয়: অর্ধ-পূর্ণসংখ্যা স্পিন সহ কণাগুলি ফার্মিয়ন;  পূর্ণসংখ্যা স্পিন সহ কণাগুলি বোসন।  ননরিলেটিস্টিক কোয়ান্টাম মেকানিক্সের কাঠামোর মধ্যে এটি একটি নিখুঁত অভিজ্ঞতামূলক পর্যবেক্ষণ।  আপেক্ষিক কোয়ান্টাম ফিল্ড তত্ত্বে, স্পিন-পরিসংখ্যানের উপপাদ্যটি দেখায় যে অর্ধ-পূর্ণসংখ্যার স্পিন কণাগুলি বোসন হতে পারে না এবং পূর্ণসংখ্যা স্পিন কণাগুলি ফার্মিন হতে পারে না।[৮]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Daigle, Katy (১০ জুলাই ২০১২)। "India: Enough about Higgs, let's discuss the boson"AP News। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১২ 
  2. Bal, Hartosh Singh (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "The Bose in the Boson"The New York Times blog। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  3. Notes on Dirac's lecture Developments in Atomic Theory at Le Palais de la Découverte, 6 December 1945। UKNATARCHI Dirac Papers। BW83/2/257889। 
  4. Farmelo, Graham (২০০৯-০৮-২৫)। The Strangest Man: The Hidden Life of Paul Dirac, Mystic of the Atom (ইংরেজি ভাষায়)। Basic Books। পৃষ্ঠা 331। আইএসবিএন 9780465019922 
  5. http://www.thinkermahmud.com/2014/03/bosons.html[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  6. Jr, Charles P. Poole (২০০৪-০৩-১১)। Encyclopedic Dictionary of Condensed Matter Physics (ইংরেজি ভাষায়)। Academic Press। আইএসবিএন 978-0-08-054523-3 
  7. Srednicki, Mark Allen. (২০১২)। Quantum field theory। Cambridge: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা ২৮–২৯। আইএসবিএন 978-0-521-86449-7ওসিএলসি 71808151 
  8. Sakurai, J. J. (Jun John), 1933-1982. (১৯৯৪)। Modern quantum mechanics। Tuan, San Fu, (মার্জিত সংস্করণ)। Reading, Mass.: Addison-Wesley Pub. Co। পৃষ্ঠা ৩৭৪আইএসবিএন 0-201-53929-2ওসিএলসি 28065703