হোমিওপ্যাথি

জার্মান চিকিৎসক স্যামুয়েল হ্যানিম্যান উদ্ভাবিত (১৭৯৬) এক চিকিৎসা পদ্ধতি

হোমিওপ্যাথি (Homeopathy also homœopathy or homoeopathy; from the Greek ὅμοιος, hómoios, "similar" + πάθος, páthos, "suffering" or "disease") জার্মান চিকিৎসক স্যামুয়েল হ্যানিম্যান উদ্ভাবিত (১৭৯৬) এক চিকিৎসা পদ্ধতি। এই চিকিৎসা পদ্ধতির অন্তর্নিহিত মূলনীতি হচ্ছে- কোনো একজন সুস্থ ব্যক্তির শরীরে যে ওষুধ প্রয়োগ করলে তার মধ্যে যে লক্ষণ দেখা দেয়, ওই একই ওষুধ সেই লক্ষণের ন্যায় অসুখে আক্রান্ত ব্যক্তির উপরে প্রয়োগ করলে তা অসুস্থ ব্যক্তির জন্য অসুখের লক্ষণ নিরাময়ের কাজ করে।[১] হ্যানিম্যানের প্রস্তাবিত এই তত্ত্বের উপর ভিত্তি করেই গড়ে উঠেছে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ব্যবস্থা। কিন্তু বৈজ্ঞানিক পর্যালোচনায় দেখা গিয়েছে যে, হোমিওপ্যাথিক ওষুধ প্রয়োগের ফলে কোনপ্রকার শারীরিক পরিবর্তন হয় না; যদিও কিছু ক্ষেত্রে ওষুধ গ্রহণের কারণে হয়ত রোগী মানসিক প্রশান্তি লাভ করে থাকতে পারেন। এইজন্য হোমিওপ্যাথিক ওষুধকে "প্লেসবো" হিসেবে গণ্য করা হয়[২] এবং হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতিকে বিজ্ঞানীরা ছদ্মবিজ্ঞান হিসেবে অভিহিত করে থাকেন।[৩][৪][৫][৬][৭]

Homeopathic remedies
1857 painting by Alexander Beydeman showing historical figures and personifications of homeopathy observing the perceived brutality of medicine of the 19th century

হ্যানিম্যান বিশ্বাস করতেন সকল অসুখের মূলে রয়েছে "মিয়াসম" নামক একধরনের প্রতিক্রিয়া এবং হোমিওপ্যাথিক ওষুধ এই মিয়াসম দূর করার জন্য কার্যকর। সাধারণত হোমিওপ্যাথিক ওষুধ তৈরি করার জন্য একটি নির্দিষ্ট দ্রব্যকে ক্রমাগত লঘুকরণ করা হয় অ্যালকোহল অথবা পতিত জলে দ্রবীভূত করে। এই লঘুকরণ এতবার করা হয়ে থাকে যে শেষপর্যন্ত এই মিশ্রণে প্রাথমিক দ্রব্যের অণু পরিমাণও অবশিষ্ট থাকে না।[৮]

আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানে এবং বৈজ্ঞানিক মহলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতিকে অবৈজ্ঞানিক, আজগুবি[৯] আর হাতুড়ে চিকিত্সা[১০][১১] হিসেবে গণ্য করা হয়। রোগী চিকিৎসায় এর প্রয়োগের নীতিহীনতা বিজ্ঞানীরা সমালোচনা করে থাকেন[১২] এবং অনেকেই একে প্রতারণার সামিল[১৩] মনে করেন। হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার মূলনীতিকে অনেক আগেই বৈজ্ঞানিকভাবে ভুল প্রমাণিত করা হয়েছে[১৪] এবং এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তিও খুঁজে পাওয়া যায়নি।[১৫] যদিও কিছু কিছু গবেষণায় এর কার্যকারিতার সপক্ষে কিছু তথ্য পাওয়া গেছে,[১৬][১৭] পরবর্তীতে কঠোর বৈজ্ঞানিক পর্যালোচনার মাধ্যমে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে যে হোমিওপ্যাথিক পদ্ধতির সপক্ষের এই কতিপয় ফলাফলের পিছনে ছিল ত্রুটিপূর্ণ গবেষণা পদ্ধতি এবং কিছু গবেষকের পক্ষপাতদুষ্ট ফলাফল উপস্থাপন।[১৮][১৯] হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতির প্রস্তাবিত মূলনীতি যে শুধু বৈজ্ঞানিকভাবে অযৌক্তিক [২০][২১] তাই নয়, উপরন্তু এই তত্ত্ব মৌলিক বৈজ্ঞানিক নীতির পরিপন্থী।[২২].

ইতিহাসসম্পাদনা

 
হোমিওপ্যাথি অ্যালোপ্যাথির ভয়াবহতা দেখেছে,অ্যালেক্সান্ডার বেইডেমনের একটি ১৮৫৭ সালের চিত্রকর্ম, যাতে ১৯ শতকের চিকিৎসার নৃশংসতা পর্যবেক্ষণ করে হোমিওপ্যাথির ঐতিহাসিক চিত্র এবং ব্যক্তিত্ব দেখা যায়।

ঐতিহাসিক প্রসঙ্গসম্পাদনা

হ্যানিম্যান আঠারো শতকের শেষের দিকে মূলধারার ঔষধগুলো অযৌক্তিক এবং অগ্রহণযোগ্য হিসাবে প্রত্যাখ্যান করেছিলেন [২৩] কারণ এটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অকার্যকর এবং প্রায়শই ক্ষতিকারক ছিল। [২৪] তিনি কম মাত্রায় একক ওষুধের ব্যবহারের পক্ষে ছিলেন এবং জীবিত প্রাণীরা কীভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে একটি নিরপেক্ষ, প্রাণবন্ত দৃষ্টিভঙ্গি প্রচার করেছিলেন। [২৫] চিকিৎসা এবং পর্যাপ্ত বিশ্রামের ফলাফলটি মূলধারার ঔষধের চেয়ে সাধারণত হোমিওপ্যাথির শুরু হওয়ার সময় প্রচলিত ছিল।

হ্যানিম্যানের ধারনাসম্পাদনা

 
স্যামুয়েল হ্যানিম্যান স্মৃতিস্তম্ভ, ওয়াশিংটন ডিসি, "সিমিলিয়া সিমিলিবাস কিউরেন্টার" সদৃশ্য সদৃশ্যকে আরোগ্য করবে।

"হোমিওপ্যাথি" শব্দটি হ্যানিম্যান তৈরি করেছিলেন এবং ১৮০৭ সালে প্রথম মুদ্রণে প্রকাশিত হয়েছিল।[২৬]

স্কটিশ চিকিৎসক এবং রসায়নবিদ উইলিয়াম কুলেনের জার্মান ভাষায় একটি মেডিকেল গ্রন্থ অনুবাদ করার সময় হ্যানিম্যান হোমিওপ্যাথি সম্পর্কে ধারণা করেছিলেন। ম্যালেরিয়া নিরাময়ের জন্য সিনচোনার ব্যবহার সম্পর্কিত কুলেনের তত্ত্ব সম্পর্কে সন্দেহাতীত হলেন, হ্যানিম্যান কী ঘটবে তা খতিয়ে দেখার জন্য বিশেষভাবে কিছু ছাল খেয়েছিলেন। তিনি জ্বর, কাঁপুনি এবং জয়েন্টে ব্যথা অনুভব করেছেন: ম্যালেরিয়ার মতোই লক্ষণগুলি। এ থেকে হ্যানিম্যান বিশ্বাস করেছিলেন, যে সমস্ত কার্যকর ওষুধগুলি থেকে চিকিৎসা করা হয়, সেগুলোই রোগগুলির মতো সুস্থ ব্যক্তিদের মধ্যে লক্ষণ তৈরি করে, প্রাচীন চিকিৎসকদের প্রস্তাবিত "সাদৃশ্য বিধান" অনুসারে। [২৭] অলিভার ওয়েন্ডেল হোমস দ্বারা চিহ্নিত এবং ১৮৬১ সালে প্রকাশিত সিনচোনার ছাল খাওয়ার প্রভাবগুলির একটি বিবরণ লক্ষণগুলি পুনরুৎপাদন করতে ব্যর্থ হয়েছিল।[২৮] হ্যানিম্যানের সাদৃশ্য বিধান একটি আইপ্স ডিক্সিট যা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি থেকে প্রাপ্ত হয় না।[২৯] এটিকে হোমিওপ্যাথি নাম দিয়েছ যা আসে, গ্রিকঃ ὅμοιος hómoios, "-সাদৃশ্য" and πάθος páthos, "পদ্ধতি" থেকে।

পরবর্তীতে বৈজ্ঞানিক গবেষনায় দেখা গিয়েছে যে সিনচোনা ম্যালেরিয়া নিরাময় করে, কারণ এটিতে কুইনাইন রয়েছে যা প্লাজমোডিয়াম ফ্যালসিপারাম পরজীবীকে মেরে ফেলে যা এই রোগের কারণ হয়; এটি একটি রাসায়নিক ক্রিয়াযা হ্যানম্যানের ধারণার সাথে সম্পর্কিত নয়। [৩০]

১৯ শতক: জনপ্রিয়তা এবং প্রথম দিকে সমালোচনা বৃদ্ধিসম্পাদনা

বিশ শতকে পুনর্জাগরণসম্পাদনা

একবিংশ শতাব্দিসম্পাদনা

ভারতীয় উপমহাদেশেসম্পাদনা

ভারত ও বাংলাদেশে বহুকাল থেকেই এই চিকিৎসা চলছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উদ্ভিজ্জ বা সাধারণ রাসায়নিক পদার্থ থেকে কনসেনট্রেট হিসেবে এই ওষুধ তৈরি করা হয় এবং চিকিৎসকরা গাইড বুকের নির্দেশ অনুযায়ী সেগুলি প্রয়োজন মতো লঘুকৃত করেন। বাংলা ভাষায় হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার প্রচুর বইপত্র আছে এবং এগুলির ভিত্তিতে দেশে এই চিকিৎসা চলছে। ইদানীং দেশের নগর ও শহরে আনুষ্ঠানিক শিক্ষাদানের জন্য কয়েকটি হোমিওপ্যাথি কলেজ[৩১] প্রতিষ্ঠিত হয়েছে [৩২]

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ২০০৯ সালে একটি বিবৃতিতে জানায় যে হোমিওপ্যাথি কোনো বিজ্ঞানসম্মত চিকিৎসা নয়।[৩৩]

প্রমাণ এবং ফলপ্রসূতাসম্পাদনা

অনুভূত প্রভাব ব্যাখ্যাসম্পাদনা

অকার্যকর হওয়া সত্ত্বেও হোমিওপ্যাথি কিভাবে রোগ নিরাময় করতে পারে কিংবা লক্ষণ উপশম করতে পারে, তার কারণ হিসেবে বিজ্ঞান যা বলে [৩৪]:১৫৫–১৬৭

  • প্লেসবো প্রভাব
  • আলোচনা এর চিকিৎসাগত প্রভাব
  • প্রাকৃতিক নিরাময়
  • অস্বীকৃত চিকিৎসা
  • নন হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

সমালোচনাসম্পাদনা

ক্লিনিকাল ভিত্তিতে যে সকল রোগী সাধারণ চিকিৎসার বদলে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নির্বাচন করেছেন, তাদের সময়মত রোগ নির্ণয় এবং ফলপ্রসূ চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয় নি, ফলে অবস্থা আরও গুরুতর হয়েছে।[৩৫][৩৬][৩৭][৩৮] হোমিওপ্যাথির সমালোচকেরা বলেছেন, হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহণকারী ব্যক্তিরা যথাযথ চিকিৎসা নিতে পারেন নি,যা প্রচলিত চিকিৎসায় সম্ভব ছিল, এবং এর ফলে মৃত্যুও হয়েছে। হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক দাবি করেন, প্রচলিত চিকিৎসা রোগকে আরও গুরুতর করবে এবং আরও ভয়াবহ সমস্যার মুখোমুখি করবে। [৩৯][৪০] কিছু হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক তাদের রোগীকে উপদেশ দেন ভ্যাক্সিনের পরিবর্তে হোমিওপ্যাথিক nosode ব্যবহার করতে .[৩৭][৪১][৪২],যা জৈবিক উপাদান যেমন পুঁজ, রোগাক্রান্ত টিস্যু থেকে তৈরি হয়। যখন হানিম্যান এই পদ্ধতির বিরোধী ছিলেন, কিছু আধুনিক হোমিওপ্যাথিক এটি প্রায়শ ব্যবহার করে থাকেন যদিও এর স্বপক্ষে কোন প্রমাণ নেই।এও জানা যায়,হোমিওপ্যাথরা অ্যান্টি - ম্যালেরিয়াল ওষুধ ব্যবহার করতে নিষেধ করে। এই নিষেধবাণী যারা আক্রান্ত,তাদের বিপদে ফেলেছে, যেহেতু ম্যালেরিয়া পরজীবীর বিরুদ্ধে হোমিওপ্যাথিক ওষুধ একদম অকার্যকর ।

১৯৭৮ সালে অ্যান্থনি ক্যাম্পবেল , রয়্যাল লন্ডন হোমিওপ্যাথিক হাসপাতালের একজন কনসাল্ট্যান্ট , জর্জ ভিথলকাস এর বিবৃতির কঠোর সমালোচনা করেন, যিনি তার হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাকে চালু করতে চেয়েছিলেন। ভিথলকাস বলেছেন, অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে সিফিলিস রোগের চিকিৎসা করলে তা পরবর্তীতে সেকেন্ডারি এবং টারশিয়ারি অবস্থায় উন্নীত হতে পারে কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র সহ। ক্যাম্পবেল একে দায়িত্বহীন বিবৃতি বলে আখ্যা করে বলেন, এ কথা একজন সচেতনতাবিহীন মানুষকে প্রচলিত ওষুধ গ্রহণে নিবৃত্ত করবে । [৪৩]

আমেরিকান জার্নাল অফ মেডিসিন এ Should We Maintain in Open Mind about Homeopathy শীর্ষক একটি আর্টিকেলে প্রকাশিত , মাইকেল বম এবং এডয়ার্ড আর্ন্সট বলেছেন, "হোমিওপ্যাথি বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠা চিকিৎসাপদ্ধতির সবচেয়ে নিকৃষ্ট উদাহরণ। এই যুক্তি বহির্ভূত শুধু বৈজ্ঞানিক মতবাদের সাথে মিলে না, তাই নয়, বরং এটি স্ববিরোধীও বটে। যদি হোমিওপ্যাথি সঠিক হয়, তবে পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন এবং ফার্মাকোলজির অধিকাংশই বেঠিক।[৪৪]

২০১৩ সালে স্যার মার্ক ওয়ালপোর্ট , যুক্তরাজ্যের সরকারি প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা হোমিওপ্যাথি সম্বন্ধে বলেন,' বৈজ্ঞানিক ভাবে আমার দৃষ্টিভঙ্গি একদম সুস্পষ্ট; হোমিওপ্যাথি একটি ননসেন্স, অবৈজ্ঞানিক শাখা। সরকারের কাছে আমার উপদেশ, হোমিওপ্যাথিতে কোন বিজ্ঞান নেই। এটির সর্বোচ্চ প্লেসবো এফেক্ট থাকতে পারে। এটি এখন রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত তারা এর পিছনে খরচ করবে কি না।[৪৫] তার পূর্বসূরি প্রফেসর জন বেডিংটন বলেছেন, ' আমি হোমিওপ্যাথির ব্যাপারে যা ভাবতে পারি, তা হল পাগলামি। এটির কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। আসলে, সকল বৈজ্ঞানিক যুক্তি বলে এটি কোন যুক্তিযুক্ত জ্ঞান নয়। কিন্তু হোমিওপ্যাথি এখনো ব্যবহৃত হচ্ছে।[৪৬]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Hahnemann, Samuel (১৮৩৩)। The Homœopathic Medical Doctrine, or "Organon of the Healing Art"। Dublin: W.F. Wakeman। পৃষ্ঠা iii, 48–49Observation, reflection, and experience have unfolded to me that the best and true method of cure is founded on the principle, similia similibus curentur. To cure in a mild, prompt, safe, and durable manner, it is necessary to choose in each case a medicine that will excite an affection similar (ὅμοιος πάθος) to that against which it is employed.  Translator: Charles H. Devrient, Esq.
  2. "Homeopathy: an introduction"। NCCAM। এপ্রিল ২০১২। 
  3. CSICOP, cited in National Science Foundation Subcommittee on Science & Engineering Indicators (২০০০)। "Science and Technology: Public Attitudes and Public Understanding: Science Fiction and Pseudoscience"National Science Foundation। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০০৭ 
  4. Raimo Tuolema. [link.springer.com/content/pdf/10.1007/978-94-009-3779-6_4.pdf "Science, protoscience and pseudoscience."] J C. Pitt and M. Pera (eds), Rational Changes in Science, p83-101. D. Riedel, 1987.
  5. Adolfo Peña, Ofelia Paco. "Attitudes and Views of Medical Students toward Science and Pseudoscience." Medical Education Online, North America, 9 Dec. 2009.
  6. Kevin Smith. "Homeopathy is unscientific and unethical." Bioethics Volume 26, Issue 9, pages 508–512, November 2012, DOI: 10.1111/j.1467-8519.2011.01956.x
  7. Alan D. Sokal. "Pseudoscience and Postmodernism: Antagonists or Fellow-Travellers?" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে Garrett Fagan, ed. Archaeological Fantasies: How Pseudoarchaeology Misrepresents The Past and Misleads the Public. 2004. "Examples of pseudosciences are astrology, homeopathy ..."
  8. "Dynamization and Dilution", Complementary and Alternative Medicine, Creighton University Department of Pharmacology, সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৩-২৪ 
  9. "Homeopathy is nonsense, says new chief scientist"Daily Telegraph। ১৮ এপ্রিল ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৩ 
  10. Paul S. Boyer। The Oxford Companion to United States Historyআইএসবিএন 9780195082098। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৫, ২০১৩After 1847, when regular doctors organized the American Medical Association (AMA), that body led the war on "quackery," especially targeting dissenting medical groups such as homeopaths, who prescribed infinitesimally small doses of medicine. Ironically, even as the AMA attacked all homeopathy as quackery, educated homeopathic physicians were expelling untrained "quacks" from their ranks. 
  11. James Randi (১৯৯৫)। An encyclopedia of claims, frauds, and hoaxes of the occult and supernatural। St. Martin's Press। আইএসবিএন 9780312109745। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৫, ২০১৩ 
  12. দৃষ্টি আকর্ষণ: এই টেমপ্লেটি ({{cite doi}}) অবচিত। doi দ্বারা চিহ্নিত প্রকাশনা উদ্ধৃত করার জন্য:10.1136/jme.2009.034959, এর পরিবর্তে দয়া করে |doi=10.1136/jme.2009.034959 সহ {{সাময়িকী উদ্ধৃতি}} ব্যবহার করুন।
  13. "Supported by science?: What Canadian naturopaths advertise to the public"। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৫, ২০১৩Within the non-CAM scientific community, homeopathy has long been viewed as a sham 
  14. Atwood, Kimball (জানুয়ারি ১১, ২০০৮)। "Homeopathy and Evidence-Based Medicine: Back to the Future – Part II"। Science Based Medicine। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৩ 
  15. Ernst, Edzard (২০১২)। "Homeopathy: A Critique of Current Clinical Research"Skeptical Inquirer36 (6)।  অজানা প্যারামিটার |month= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  16. Cucherat, M; Haugh, MC; Gooch, M; Boissel, JP (২০০০), "Evidence of clinical efficacy of homeopathy. A meta-analysis of clinical trials. HMRAG. Homeopathic Medicines Research Advisory Group", European journal of clinical pharmacology, 56 (1): 27–33, পিএমআইডি 10853874 
  17. Caulfield, Timothy; Debow, Suzanne (২০০৫), "A systematic review of how homeopathy is represented in conventional and CAM peer reviewed journals", BMC Complementary and Alternative Medicine, 5: 12, ডিওআই:10.1186/1472-6882-5-12, পিএমআইডি 15955254, পিএমসি 1177924  
  18. Shang, Aijing; Huwiler-Müntener, Karin; Nartey, Linda; Jüni, Peter; Dörig, Stephan; Sterne, Jonathan AC; Pewsner, Daniel; Egger, Matthias (২০০৫), "Are the clinical effects of homoeopathy placebo effects? Comparative study of placebo-controlled trials of homoeopathy and allopathy", The Lancet, 366 (9487): 726–732, ডিওআই:10.1016/S0140-6736(05)67177-2, পিএমআইডি 16125589 
  19. Kleijnen, J; Knipschild, P; Ter Riet, G (১৯৯১), "Clinical trials of homoeopathy", BMJ, 302 (6772): 316–23, ডিওআই:10.1136/bmj.302.6772.316, পিএমআইডি 1825800, পিএমসি 1668980  
  20. UK Parliamentary Committee Science and Technology Committee - "Evidence Check 2: Homeopathy"
  21. http://nccam.nih.gov/health/homeopathy "Homeopathy: An Introduction" a NCAAM webpage
  22. Grimes D R (২০১২), "Proposed mechanisms for homeopathy are physically impossible", FACT, 17 (3): 149, ডিওআই:10.1111/j.2042-7166.2012.01162.x 
  23. Lasagna L (1970) [1962]. The doctors' dilemmas. New York: Collier Books. p. 33. ISBN 978-0-8369-1669-0.
  24. Edzard Ernst; Singh, Simon (2008). Trick or Treatment: The Undeniable Facts about Alternative Medicine. New York: W. W. Norton. ISBN 978-0-393-06661-6.
  25. W. Steven Pray (August 1, 2003). a History of Nonprescription Product Regulation https://books.google.com.bd/books?id=uadgq04eLr0C&pg=PA192&redir_esc=y. Psychology Press. p. 192. ISBN 978-0-7890-1538-9. Retrieved January 21, 2013.
  26. Dean ME (2001). "Homeopathy and "the progress of science""https://web.archive.org/web/20060101084902/http://www.shpltd.co.uk/dean-homeopathy.pdf(PDF). Hist Sci. 39 (125 Pt 3): 255–83. Bibcode:2001HisSc..39..255E. doi:10.1177/007327530103900301. PMID 11712570. Archived from the original http://www.shpltd.co.uk/dean-homeopathy.pdf(PDF) on January 1, 2006. Retrieved March 31, 2009.
  27. Robert W. Ullman; Judyth Reichenberg-Ullman (October 1, 1994). The patient's guide to homeopathic medicine. Picnic Point Press. pp. 1 https://archive.org/details/patientsguidetoh00robe/page/1–2. ISBN 978-0-9640654-2-0. Retrieved January 24, 2013.
  28. Oliver Wendell Holmes, Sr. (1842). Homoeopathy and its kindred delusions: Two lectures delivered before the Boston Society for the Diffusion of Useful Knowledge. Boston. as reprinted in Oliver Wendell Holmes, Sr. (1861). Currents and counter-currents in medical science. Ticknor and Fields. pp. 72–188. OCLC 1544161. OL 14731800M.
  29. J. D. White; John Hugh McQuillen; George Jacob Ziegler; James William White; Edward Cameron Kirk; Lovick Pierce Anthony, eds. (December 1894). "A wail from the waste-basket" https://quod.lib.umich.edu/d/dencos/acf8385.0036.001/1050:349?didno=ACF8385.0036.001;rgn=full+text;view=image. The Dental Cosmos (editorial). 36 (12): 1030–32.
  30. Atwood, Kimball (January 4, 2008). "Homeopathy and evidence-based medicine: back to the future" https://sciencebasedmedicine.org/homeopathy-and-evidence-based-medicine-back-to-the-future-part-i/. Science Based Medicine. Retrieved September 9, 2013.
  31. http://www.homeopathybd.com/list-of-homeopathic-medical-colleges-in-bangladesh/
  32. দৈনিক সংগ্রাম (শনিবার ২৫ ডিসেম্বর ২০১০)। "সরকারি হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ পরিচিতি ও ভর্তিতথ্য, লেখক: মুহম্মদ হামিম উদ্দিন"। ১০ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০১৪  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  33. http://news.bbc.co.uk/2/hi/health/8211925.stm
  34. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Shelton নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  35. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; pmid17285788 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  36. Malik, Imtiaz A.; Gopalan, Sethuraman (২০০২), "Use of CAM results in delay in seeking medical advice for breast cancer", European Journal of Epidemiology, 18 (8): 817–22, ডিওআই:10.1023/A:1025343720564, পিএমআইডি 12974558, CAM use [in the developing countries this study solely considered] was associated with delay in seeking medical advice (OR: 5.6; 95% CI: 2.3, 13.3) and presentation at an advanced stage of disease 
  37. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; pmid8554846 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  38. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; malaria2 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  39. Case of Baby Gloria, who died in 2002:
  40. Alastair Neil Hope, State Coroner, Coroner's inquest into the death of Penelope Dingle. Ref No: 17/10 
  41. Ernst, E. (১৯৯৭), "The attitude against immunisation within some branches of complementary medicine", European Journal of Pediatrics, 156 (7): 513–5, ডিওআই:10.1007/s004310050650, পিএমআইডি 9243229 
  42. Ernst, E (২০০১), "Rise in popularity of complementary and alternative medicine: reasons and consequences for vaccination", Vaccine, 20: S90–3; discussion S89, ডিওআই:10.1016/S0264-410X(01)00290-0, পিএমআইডি 11587822 
  43. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Birnbaum নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  44. Baum, Michael; Ernst, Edzard (২০০৯), "Should We Maintain an Open Mind about Homeopathy?", The American Journal of Medicine, 122 (11): 973–4, ডিওআই:10.1016/j.amjmed.2009.03.038, পিএমআইডি 19854319 
  45. Nick Collins, Science Correspondent. Homeopathy is nonsense, says new chief scientist. The Telegraph, 18 Apr 2013
  46. http://www.telegraph.co.uk/health/healthnews/9982234/Homeopathy-on-the-NHS-is-mad-says-outgoing-scientific-adviser.html Homeopathy on the NHS is 'mad' says outgoing scientific adviser.] The Telegraph, 09 Apr 2013

Associations and regulatory bodiesসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা