প্রধান মেনু খুলুন

হলি কলভিন

ইংল্যান্ড প্রমিলা ক্রিকেটার

হলি লুইস কলভিন (জন্ম: ৭ সেপ্টেম্বর ১৯৮৯ চিচেস্টার) একজন ইংরেজ প্রমিলা ক্রিকেটার এবং বর্তমান ইংল্যান্ড জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য। তিনি বর্তমানে ইংল্যান্ড দলের হয়ে খেলা সর্বকনিষ্ঠ টেস্ট ক্রিকেটার হওয়ার রেকর্ড নিজের ঝুলিতে ভরেছেন।

হলি কলভিন
Holly Colvin 2.jpg
হলি কলভিন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামহলি লুইস কলভিন
জন্ম (1989-09-07) ৭ সেপ্টেম্বর ১৯৮৯ (বয়স ৩০)
সাসেক্স, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডান-হাতি
বোলিংয়ের ধরনধীরগতির বা-হাতি অর্থডক্স
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৪৩)
৯ আগষ্ট ২০০৫ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট১৩ জুলাই ২০০৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০৬)
১৪ আগষ্ট ২০০৬ বনাম ভারত
শেষ ওডিআই৭ জুলাই ২০০৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৫–বর্তমানসাসেক্স নারী
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওয়ানডে চি২০ আই
ম্যাচ সংখ্যা ৪২ ১২
রানের সংখ্যা ২৩ ৫১
ব্যাটিং গড় ১১.৫০ ১০.২০ ৪.০০
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১৭* ১৩*
বল করেছে ৬৪৯ ২০৫৮ ২৬৪
উইকেট ১৩ ৫৭ ১৭
বোলিং গড় ২৫.৯২ ২০.০৮ ১৩.৩৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট n/a n/a
সেরা বোলিং ৩/৪২ ৪/২০ ৩/১৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/– ১০/– ৩/–
উৎস: Cricinfo, 13 July 2009

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

স্কুল পর্যায়সম্পাদনা

একজন ডান হাতি ব্যাটসম্যান এবং ধীরগতির বা-হাতি বোলার হিসেবে কলভিন মূলত ওয়েস্টবার্ন হাউস স্কুল, ওয়েস্ট সাসেক্স উপস্থিত হয়েছিলেন এবং মাত্র ৭ বছর বয়স থেকে ১ম একাদশে ১০০এর উপর গড় নিয়ে খেলাধুলা শুরু করেন। ওয়েস্টবুর্ন হাউস এর পরে কলভিন ব্রাইটন কলেজে ছেলেদের দলের মধ্যে খেলার মাধ্যমে ইংল্যান্ড নারীদের অধিনায়ক ক্লেয়ার কনর এর পদাঙ্ক অনুসরণ করেন। ২০০৪ সালে লর্ডস তাভিনার্সে অনূর্ধ্ব-১৫ কাপে ১,০০০ অংশগ্রহণকারী দলের মধ্যে শুধুমাত্র মেয়েদের ভিতরে কলভিন এবং সহকর্মী ব্রাইজটোনিয়ন সারাহ টেলর ছিলেন।[১]

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

কলভিন, ১০ এ * জিসিএসই, ৩টি এএস লেভেলের পরীক্ষায় এবং ৪ এএস তার এ-লেভেল পরীক্ষায় কৃতিত্ব অর্জন করেন।[২] ২০০৯ সালে তিনি ডরহম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক বিজ্ঞান বিয়ষে পড়াশুনা শুরু করেন;[৩] যেটি ক্রিকেট এক্সেলেন্স ইংল্যান্ডের চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার একটিতে সংযুক্ত করা হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Clare Connor (২০ জুন ২০০৪)। "Girl power alters school of thought"The Observer। UK। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০০৮ 
  2. "Cricketing star passes GCSE test"BBC News। ২৪ আগস্ট ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০০৭ 
  3. Staves, Russell (৩ নভেম্বর ২০০৯)। "Sunday best for Colvin"Women's। ECB। ৪ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা