সুলাওসি (/ˌsləˈwsi/ এছাড়াও সেলেভেজ নামে পরিচিত/ˈsɛlɪbz, sɪˈlbz/) চারটি বৃহত্তর সুন্দা দ্বীপপুঞ্জের অন্যতম। এটি ইন্দোনেশিয়া সরকার দ্বারা পরিচালিত একটি অঞ্চল। সুলাওসি বিশ্বের একাদশ বৃহত্তম দ্বীপ। মালুকু দ্বীপপুঞ্জের পশ্চিমে বোর্নিওর পূর্বে, এবং মিন্দানাও এবং সুলু দ্বীপপুঞ্জের দক্ষিণে এই দ্বীপ অবস্থিত। ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে সুমাত্রা, বোর্নিও এবং পাপুয়া এর চেয়ে বৃহত্তর অঞ্চল। জাভা এবং সুমাত্রা সুলাওসির চেয়ে জনসংখ্যায় বেশি।

সুলাওসি
Sulawesi map.PNG
প্রাদেশিক বিভাগ
Sulawesi Topography.png
ভূগোল
অবস্থানইন্দোনেশিয়া
স্থানাঙ্ক০২° দক্ষিণ ১২১° পূর্ব / ২° দক্ষিণ ১২১° পূর্ব / -2; 121স্থানাঙ্ক: ০২° দক্ষিণ ১২১° পূর্ব / ২° দক্ষিণ ১২১° পূর্ব / -2; 121
দ্বীপপুঞ্জবৃহত্তর সুন্দা দ্বীপপুঞ্জ
আয়তন১,৮০,৬৮০.৭ বর্গকিলোমিটার (৬৯,৭৬১.২ বর্গমাইল)
আয়তনে ক্রম১১তম বৃহত্তম দ্বীপ
সর্বোচ্চ উচ্চতা৩,৪৭৮ মিটার (১১,৪১১ ফুট)
সর্বোচ্চ বিন্দুলাতিমুযং
প্রশাসন
ইন্দোনেশিয়া
প্রাদেশিক
(অঞ্চল)
বৃহত্তর বসতিমাকাসার (জনগণ ১,৩৩৮,৬৩৩)
জনপরিসংখ্যান
জনসংখ্যা১৯,৫৭৩,৮০০ (২০১৯)
জনঘনত্ব১০৩.৮ /বর্গ কিমি (২৬৮.৮ /বর্গ মাইল)
জাতিগত গোষ্ঠীসমূহMakassarese, Buginese, Mandar, Minahasa, Gorontalo, Toraja, Butonese, Muna, Tolaki, Bajau, Mongondow

সুলাওসীর স্থলভাগে চারটি উপদ্বীপ রয়েছে: উত্তর মিনাহাশা উপদ্বীপ; পূর্ব উপদ্বীপ; দক্ষিণ উপদ্বীপ; এবং দক্ষিণ পূর্ব উপদ্বীপ।

তিনটি উপসাগর এই উপদ্বীপগুলিকে পৃথক করে: উত্তর মিনাহাস এবং পূর্ব উপদ্বীপের মধ্যে টোমিনি উপসাগর; পূর্ব এবং দক্ষিণ-পূর্ব উপদ্বীপের মধ্যে টলো উপসাগর; এবং দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব উপদ্বীপের মধ্যে হাড় উপসাগর।

মাকাসার প্রণালী দ্বীপের পশ্চিম দিকে অবস্থিত এবং এটা দ্বীপটিকে বোর্নিও থেকে পৃথক করে।

শব্দের ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

সুলাওসি নামটি সম্ভবত সুলা ("দ্বীপ") এবং ওসি ("আয়রন") শব্দ থেকে এসেছে। যার পূর্ণ অর্থ হয়- লৌহ দ্বীপ। এই দ্বীপ লোহা সমৃদ্ধ। ঐতিহাসিকভাবে এই অঞ্চল থেকে লোহা রপ্তানি করা হতো বলে স্বীকৃত। সেই দিকে লক্ষ্য করে এই দ্বীপকে ‘সুলাওসি’ বা ‘লৌহ দ্বীপ’ বলা হয়। [১] এই নামটি ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতার পরে ইংরেজিতে প্রচলিত হয়েছিল ।

এই দ্বীপটির নাম সেলিব্রেস নামটি মূলত পর্তুগিজ এক্সপ্লোরারদের দ্বারা দেওয়া হয়েছিল। যদিও এর সরাসরি অনুবাদটি অস্পষ্ট। এটির স্থানীয় নাম "সুলাওসি"এর পর্তুগিজ ভাষায় রচনাকৃত নাম হিসাবে বিবেচিত হতে পারে।[২]

ভূগোলসম্পাদনা

১,৭৪,৬০০ কিমি (৬৭,৪১৩ মা) বিশ্বের একাদশ বৃহত্তম দ্বীপ[৩] দ্বীপের কেন্দ্রীয় অংশটি পাহাড়ী অঞ্চল। এই দ্বীপের উপদ্বীপগুলি পরম্পরভাবে একে অপরের থেকে দূরে অবস্থিত। ভূপথের চেয়ে সমুদ্র পথে ভাল সংযোগ রয়েছে। সুলাওসির উপদ্বীপকে যে তিনটি উপায়ে বিভক্ত করে তা হল- উত্তর থেকে দক্ষিণ; টমিনি, টলো এবং বনি[৭] এগুলি মিনহাসা বা উত্তর উপদ্বীপ, পূর্ব উপদ্বীপ, দক্ষিণ-পূর্ব উপদ্বীপ এবং দক্ষিণ উপদ্বীপকে পৃথক করে ।

মাকাসার প্রণালী দ্বীপের পশ্চিম পাশে অবস্থিত। [৮] দ্বীপটির পশ্চিমে বোর্নিও, উত্তরে ফিলিপাইন, পূর্বে মালুকু এবং দক্ষিণে ফ্লোরস এবং তিমুর দ্বারা বেষ্টিত।

স্লেয়ার দ্বীপপুঞ্জ দক্ষিণ-পশ্চিম সুলাওসি থেকে দক্ষিণে ফ্লোরস সাগরে প্রসারিত একটি উপদ্বীপ যা প্রশাসনিকভাবে সুলাওসির অংশ। সাংগিহে দ্বীপপুঞ্জ এবং তালাউদ দ্বীপপুঞ্জ সুলাওয়েসি উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় মাথা থেকে উত্তরদিকে প্রসারিত। বুতন দ্বীপ,তগিয়ান দ্বীপপুঞ্জ, পেলেং দ্বীপ এবং বাংগাই দ্বীপপুঞ্জ সুলাওসি ও মালুকুর মধ্যে একধরনের গুচ্ছ তৈরি করেছে। উপরে উল্লিখিত সমস্ত দ্বীপপুঞ্জ এবং অনেকগুলি ছোট ছোট দ্বীপগুলি প্রশাসনিকভাবে সুলাওসির ছয়টি প্রদেশের অংশ। [৯][১০]

ভূতত্ত্বসম্পাদনা

 
মাউন্ট টঙ্গকোকো উত্তর সুলাওসিতে অবস্থিত আগ্নেয়গিরি

দ্বীপটি গভীর সমুদ্রের তীর থেকে দ্বীপের চারপাশ উঁচুতে অবস্থিত। বেশিরভাগ আগ্নেয়গিরি নিষ্ক্রিয়।সানকিহে দ্বীপপুঞ্জের উত্তরে উত্তর মিনাহাসা উপদ্বীপে সক্রিয় আগ্নেয়গিরির সন্ধান পাওয়া যায়। উত্তরাঞ্চল উপদ্বীপে বেশ কয়েকটি সক্রিয় আগ্নেয়গিরি রয়েছে। যেমন: মাউন্ট লোকন, মাউন্ট আউ, সোপুটান এবং করঙ্গতেং ।

প্লেট পুনর্গঠন অনুসারে, দ্বীপটি এশিয়ান প্লেট (পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে) এবং অস্ট্রেলিয়ান প্লেট (দক্ষিণ-পূর্ব এবং বাংগাই) থেকে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে দ্বীপের আরাক নিয়ে টেরেনের সংঘর্ষের দ্বারা গঠিত বলে বিশ্বাস করা হয়। [১১] এর বেশ কয়েকটি গঠনাত্মক কারণে, বিভিন্ন ত্রুটিযুক্ত স্থলটির উপর দাগ পড়ে এবং ফলস্বরূপ দ্বীপটি ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে পড়ে।

পূর্বইতিহাসসম্পাদনা

অক্টোবর ২০১৪ এর আগে, মারোসের শিলা আশ্রয়স্থল থেকে প্রাপ্ত রেডিও কার্বনের তারিখের ভিত্তিতে এই তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে যে,দক্ষিণ সুলাওসিতে মানবসভ্যতা বসতি গেড়ে ছিল খ্রিস্টপূর্ব ৩০,০০০;[১২] এর আগে মানববসতির কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় নি। তবে দ্বীপটি প্রায় কমপক্ষে ৪০,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউ গিনির বসতি স্থাপনের জন্য ব্যবহৃত স্থল সেতুর একটি অংশ তৈরি করেছিল। [১৩] হোমো ইরেক্টাস সুলাওসিতে পৌঁছানোর কোনও প্রমাণ নেই।

ইন্দোনেশিয়ার বেরুরুতে ওয়ালেনা নদীর ডান তীরে ১৯৪৭ সালে প্রথম অপরিশোধিত পাথরের সরঞ্জাম আবিষ্কৃত হয়েছিল। যেগুলি মেরুদণ্ডের জীবাশ্মের সাথে তাদের সংযুক্তির ভিত্তিতে প্লাইস্টোসিনেরও তারিখ হওয়ার কথা। [১৪] এখন সম্ভবত মানবসভ্যতা তারিখ খ্রিস্টপূর্ব ৫০,০০০ অবধি নির্ধারন করা হয়। [১৫]

 
ঘর
 
সেন্ট্রাল সুলাওসিতে মেগালিথিক পাথর

সেন্ট্রাল সুলাওসিতে ৪০০ এরও বেশি গ্রানাইট মেগালিথ রয়েছে। যা বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণায় খ্রিস্টপূর্ব ৩০০০ থেকে ১৩০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত রয়েছে। এগুলির আকার কয়েক সেন্টিমিটার থেকে প্রায় ৪.৫ মিটার (১৫ ফু)পর্যন্ত। মেগালিথগুলির আসল উদ্দেশ্যটি অজানা। প্রায় ৩০টি মেগালিথ মানব রূপ ধারণ করে আছে। অন্যান্য মেগালিথ বৃহৎ পাত্র এবং প্লেট আকারে আছে। [১৬][১৭]

 
মারোসের পেটটেকারে গুহায় হাত গুহাচিত্র

২০১৪ সালের অক্টোবরে ঘোষণা করা হয়েছিল যে মারোসের গুহ চিত্রগুলি প্রায় ৪০,০০০ বছর পুরানো বলে চিহ্নিত হয়েছিল। একটি হাতের বয়স ছিল ৩৯,৯00 বছর, যা এটিকে "বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন গুহাচিত্র" হিসেবে গণ্য হয়।[১৮][১৯][২০][২১][২২][২৩] ২০২০ সালের মার্চ মাসে লিয়াং বুলু বেতু গুহায় দুটি ছোট ছোট পাথরের প্ল্যাকেটসপাওয়া গিয়েছিল।যার সময়কাল ২৬,০০০ থেকে ১৪,০০০ বছর পূর্বে ছিল। [২৪]

ইতিহাসসম্পাদনা

 
১৮৭০-এর দশকে মারোস, সুলাওসি -তে 'পাদজোগ' নর্তকী
 
স্থানীয় প্রধান (১৮৭২)

ত্রয়োদশ শতাব্দীর শুরু থেকে ব্যবসায়িক পণ্য এবং লোহার খনি থাকার কারণে নানা ধরনের ব্যবসায়িক এবং রাজনৈতিক দল গঠন হয়।

১৩৬৭ সালে দ্বীপে অবস্থিত বেশ কয়েকটি চিহ্নিত রাষ্ট্রের সন্ধান পাওয়া যায়। যার উপস্থিতি জাভানিজ পান্ডুলিপি অনুসারে নাগড়ক্রেতাগামায় যা মাজাপাহিত সময়কাল থেকে। ক্যান্টো গওয়া, মাকাসার, লুভু এবং বাঙ্গাই সহ ১৪টি ক্ষুদ্র রাষ্ট্রের কথা উল্লেখ করেছে। দেখে মনে হয় যে ১৪ শতাব্দীর মধ্যে দ্বীপের শৈলিকাগুলি পূর্ব জাভার মাজাপাহিত বন্দরে কেন্দ্র করে একটি দ্বীপপুঞ্জীয় সামুদ্রিক বাণিজ্য নেটওয়ার্কে সংযুক্ত ছিল। ১৪০০ সালের মধ্যে পশ্চিম সেনরানা উপত্যকায়, পাশাপাশি দক্ষিণ উপকূলে এবং আধুনিক পেরেপাড়ের নিকটে পশ্চিম উপকূলে বেশ কয়েকটি কৃষি প্রধান এলাকার উদ্ভব হয়েছিল। [২৫]

প্রথম ইউরোপীয় ভ্রমণকারী ১৫২৩ সালে পর্তুগিজ নাবিক সিমো দে আব্রেইউ এবং ১৫২৫ সালে গোমেস দে সেকিউরা(অন্যদের সাথে) মলুচাস থেকে এই দ্বীপে স্বর্ণ অনুসন্ধানে প্রেরণ করেছিলেন, যা এই দ্বীপপুঞ্জের উৎপাদন খ্যাতি ছিল। [২৬][২৭] ১৬শ শতাব্দীর প্রথম দশকে মাকাসারে একটি পর্তুগিজ ঘাঁটি স্থাপন করা হয়েছিল ১৬৬৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত টিকে ছিল।পরবর্তীতে ডাচরা এটিকে দখল করে নিয়ে ছিল।১৬০৫ সালে ডাচরা সুলাওসিতে এসে পৌঁছেছিল এবং ইংরেজরাও তাদের অনুসরণ করেছিল, ইংরেজরা মাকাসারে একটি কারখানা স্থাপন করেছিলেন। [২৮] ১৬৬০ সালে থেকে ডাচরা পশ্চিম উপকূলের প্রধান শক্তি মাকাসারের গোয়ার সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিল। ১৬৬৯ সালে অ্যাডমিরাল স্পেলম্যান শাসক সুলতান হাসানউদ্দীনকে বনগায়ার চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করেন। যার কারণে বাণিজ্যের নিয়ন্ত্রণ ডাচ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হাতে চলে যায় । তারা আশেপাশের রাজ্যগুলোকে নিজেদের অধীনস্ত রাজ্য হিসেবে নিয়ে নেয়।

১৯০৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জাপানিদের দখলে আসার আগ পর্যন্ত পুরো দ্বীপ নেদারল্যান্ডস ইস্ট ইন্ডিয়া ডাচ রাষ্ট্রীয় উপনিবেশে পরিণত হয়েছিল। ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় বিপ্লব চলাকালীন ডাচ ক্যাপ্টেন 'তুর্ক' ওয়েস্টারলিং নেতৃত্বাধীন দক্ষিণ সুলাওসি অভিযানের সময় হাজার হাজার মানুষ মারা গিয়েছিলেন।[২৯] ১৯৪৯ সালের ডিসেম্বরে সার্বভৌমত্ব স্থানান্তরিত হওয়ার পরে সুলাওসি ফেডারেল আমেরিকার ইন্দোনেশিয়া অঙ্গরাজ্যের অংশ হন, যা ১৯৫০ সালে ইন্দোনেশিয়ার একক প্রজাতন্ত্রের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যায়। [৩০]

কেন্দ্রীয় সুলাওসিসম্পাদনা

 
তোরাজা সমাধিস্থল। টাউ-টাউ, সমাহিত লোকদের প্রতিনিধিত্বকারী মূর্তিটি পাহাড়ের উপরে কুলুঙ্গিতে দেখা যায়।

জনসংখ্যাসম্পাদনা

সুলাওসি প্রদেশগুলির ২০০০ সালের আদম শুমারি অনুসারে ১৪,৯৪৬,৪৮৮ জন যা ইন্দোনেশিয়ার মোট জনসংখ্যার প্রায় ৭.২৫%।[৩১] ২০১০ এর আদমশুমারীর অনুসারে জনসংখ্যা মোট ১৭,৩৭১,৭৮২জন।সর্বশেষ সরকারী হিসাব (জুলাই ২০১৯সাল) ১৯,৫৭৩,৮০০।

প্রাদেশিকভাবে সুলাওসির জনসংখ্যা (২০১৯) [৩২]

  দক্ষিণ সুলাওসি (৪৫.০৬%)
  মধ্য সুলাওসি (১৫.৫৪%)
  দক্ষিণ -পূর্ব সুলাওসি (১৩.৬১%)
  উত্তর সুলাওসি (১২.৮৪%)
  পশ্চিম সুলাওসি (৬.৯৪%)
  Gorontalo (৬.০১%)

এই দ্বীপটির বৃহত্তম শহর হলো মাকাসার।

ধর্মসম্পাদনা

সুলাওসীতে ইসলামই সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্ম। দক্ষিণ পশ্চিম উপদ্বীপের (দক্ষিণ সুলাওয়েসি) ইসলামে রূপান্তর ঘটেছিল সতেরো শতকের গোড়ার দিকে। হাড় উপসাগরে লুয়ু রাজ্য ১৬০৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে সর্বপ্রথম ইসলাম গ্রহণ করেছিল; মাকাসার কিংডম অব গুয়া তালুকের যা আধুনিক শহর মাকাসার সেপ্টেম্বরে ইসলাম আসে।[৩৩] তবে উত্তর উপদ্বীপের গোরন্টোলো এবং মংডোর জনগণ ১৯ শতকে মূলত ইসলাম গ্রহণ করেছিল। এখানকার বেশিরভাগ মুসলিমই সুন্নী

খ্রিস্টানরা এই দ্বীপে যথেষ্ট সংখ্যালঘু। ডেমোগ্রাফার টবি অ্যালিস ভলকম্যানের মতে, সুলাওসির ১% জনগন প্রোটেস্ট্যান্ট এবং ২% এরও কম রোমান ক্যাথলিক । খ্রিস্টানদের শহর উত্তর উপদ্বীপ মানাডু, যা বসবাস করে প্রধানত প্রোটেস্ট্যান্টরা। উত্তরদিকের তালাউদ দ্বীপপুঞ্জেও তাদের বসবাস রয়েছে। সেন্ট্রাল সুলাওসিতে তানা তোরাজার লোকেরা ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতার পর থেকে মূলত খ্রিস্টান ধর্মান্তরিত হয়েছে।

যদিও বেশিরভাগ লোকেরা নিজেকে মুসলমান বা খ্রিস্টান হিসাবে চিহ্নিত করে, তারা প্রায়শই স্থানীয় বিশ্বাস ও রীতিনীতি মেনে চলে। উভয় দলই স্থানীয় দেবদেবীদের, এবং আত্মাদের উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করা অস্বাভাবিক কিছু নয়।

বৌদ্ধ এবং হিন্দুদের ছোট ছোট সম্প্রদায়গুলি সুলাওসীতে সাধারণত দেখা যায়। সাধারণত তাদের মধ্যে চীনা, বালিনি এবং ভারতীয় সম্প্রদায়ের লোক রয়েছে।

ভাষাসম্পাদনা

সুলাওসি অঞ্চলের মানুষরা প্রায় ১১৪ প্রকার ভাষা-উপভাষায় কথা বলে। এই ভাষাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-

  • গুরান্তালো ভাষা
  • স্যানগিরিক ভাষা
  • মিনাহাসান ভাষা
  • সেলেবিক ভাষা
  • দক্ষিণ সুলাওসি ভাষা

প্রশাসনসম্পাদনা

সুলাওসি দ্বীপটি ছয়টি প্রদেশে বিভক্ত: গোরন্টোলো, পশ্চিম সুলাওসি, দক্ষিণ সুলাওসি, মধ্য সুলাওসি, দক্ষিণ পূর্ব সুলাওসি এবং উত্তর সুলাওসি । পশ্চিম সুলাওসি একটি নতুন প্রদেশ, এটি ২০০৪ সালে দক্ষিণ সুলাওসির অংশ থেকে তৈরি হয়েছিল। দ্বীপে বৃহত্তম শহরগুলি হল মাকাসার, মানাদু, পালু, কেনদারি, বিতুং, গোরোন্তালো, পালুপু এবং বাউবাউ।


উদ্ভিদ ও প্রাণীজগতসম্পাদনা

 
ইউক্যালিপটাসের রঙিন ছাল ডিগলুপ্ত

সুলাওসিতে রয়েছে বহুবৈচিত্র রকমের উদ্ভিত ও প্রাণি।

সুলাওসির রয়েছে সমৃদ্ধ প্রবাল ইকোসিস্টেম। সুরক্ষিত বুনকান ন্যাশনাল পার্ককে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য হিসাবে প্রস্তাব করা হয়েছে।

স্তন্যপায়ী প্রাণীসম্পাদনা

 
উত্তর সুলাওসি বাবিরুসা সুলাওসি-র স্থানীয়।

সুলাওসিতে ১২৭ দেশীয় স্তন্যপায়ী প্রজাতি রয়েছে। স্থানীয় প্রকৃতির এই প্রজাতির প্রাণি যা পৃথিবীতে আর কোথাও পাওয়া যায় না। এর মধ্যে বৃহত্তম হ'ল দুটি প্রজাতির অ্যানা বা বামন মহিষ। সুলাওসিতে বসবাসকারী অন্যান্য প্রজাতিগুলি হলে মলিন শুয়োর এবং বাবাইরাস। [৩৪] বনমানুষসহ অনেক নিশাচর প্রাণির উপস্থিতি এই দ্বীপে পাওয়া যায়।

পাখিসম্পাদনা

 
স্থানীয় অলঙ্কৃত লরিকিট

সুলাওসিয়ান পাখি প্রজাতিগুলি আশেপাশের অন্যান্য দ্বীপগুলিতেও পাওয়া যায়। যেমন: বোর্নিওতে। সুলাওসির ৩১% পাখি পৃথিবীর আর কোথাও পাওয়া যায় না। একটি স্থানীয় (ছোট প্রতিবেশী দ্বীপগুলিতেও পাওয়া যায়) প্রজাতি হলো যা মূলত মুরগির আকারের। একটি মেগাপোড যা কখনও কখনও দ্বীপের আগ্নেয়গিরির নিকটে গরম বালির ব্যবহার করে এর ডিমগুলি ছড়িয়ে দেয়। দ্বীপের মধ্য-পূর্ব অঞ্চলে এই পাখির বাসা বাঁধতে দেখা যায়। সচেতনতা বাড়াতে এবং সুরক্ষার প্রয়াসে সংরক্ষণবাদী, দাতা এবং স্থানীয় জনগণের একটি আন্তর্জাতিকভাবে সংরক্ষণের জন্য জোট গঠন করেছে [৩৫] । অন্যান্য স্থানীয় পাখির মধ্যে রয়েছে ফ্লাইটহীন স্নোরিং রেল, ফাইরি-ব্রাউড স্টার্লিং, সুলাওসি মুখোশযুক্ত পেঁচা, সুলাওসি মীনা, স্যাটানিক নাইটজার এবং গ্রসবাইক স্টার্লিং । সুলাওসিতে প্রায় 350 টি পরিচিত পাখি প্রজাতি রয়েছে।

মিঠাপানির মাছসম্পাদনা

 
১৫ প্রজাতির ভিভিপারাস হাফবাইকগুলি সুলাওসি-র স্থানীয়, যার মধ্যে ১২ নোমোরহ্যাম্পাস (চিত্রিত), ডারমজেনিস ওরিয়েন্টালিস, ডি ভোগি, এবং টন্ডনিচথিস কোটেলটি রয়েছে[৩৬][৩৭]

সুলাওয়েসি ৭০ প্রজাতির মিঠাপানির মাছ রয়েছে। [৩৬][৩৮][৩৯][৪০]

মিষ্টি জলের ক্রাস্টেসিয়ান এবং শামুকসম্পাদনা

 
সুলাওসি থেকে কমলা রঙের চিংড়ি ( ক্যারিডিনা লোহেই )।

অনেক প্রজাতির চিংড়ি এবং কাঁকড়া ( Migmathelphusa, সুলাওয়েসিতে পাওয়া যায়। [৪১][৪২] এগুলির বেশ কয়েকটি প্রজাতি অ্যাকোরিয়ামে শখের ক্ষেত্রে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এছাড়াও বেশ কয়েকটি স্থানীয় গুহা-অভিযোজিত চিংড়ি এবং কাঁকড়া রয়েছে, বিশেষত মারোস কার্স্টে।[৪৩]

পরিবেশসম্পাদনা

 
মানাদো টুয়া দ্বীপ থেকে বুনকেন দ্বীপ দেখা যাচ্ছে।

সুলাওসির বৃহত্তম পরিবেশগত সমস্যা হলো বনভূমি ধবংস করা। ২০০৭ সালে বিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছিলেন যে সুলাওসির অরণ্যের ৮০ শতাংশ হারিয়ে গেছে বা অবনতি হয়েছে। বিশেষত নিম্নাঞ্চল এবং ম্যানগ্রোভ এলাকা। [৪৪] বনভূমি লগিং এবং বড় বড় কৃষি প্রকল্পের জন্য বানানো হয়েছে। বন্যার ক্ষতির ফলে সুলাওসির বহু স্থানীয় প্রজাতি বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এছাড়াও, সুলাওসির জলাভূমিগুলির ৯৯ শতাংশ হারিয়ে গেছে বা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

অন্যান্য পরিবেশগত সমস্যা হলো বুশমেট শিকার এবং খনির অনুসন্ধান। [৪৪]

পার্কসম্পাদনা

সুলাওসি দ্বীপে ছয়টি জাতীয় উদ্যান এবং উনিশটি প্রাকৃতিক রিজার্ভ রয়েছে। এছাড়াও সুলাওসির তিনটি সামুদ্রিক সুরক্ষিত অঞ্চল রয়েছে। সুলাওসির পার্কগুলির অনেকগুলি লগিং, খনন এবং কৃষির জন্য বন উজারের কারণে হুমকির মধ্যে রয়েছে। [৪৪]

আরো দেখুনসম্পাদনা

  • ইন্দোনেশিয়ার দ্বীপপুঞ্জের তালিকা
  • সমুদ্র উদযাপন
  • এইচএমএস সেলিব্রেটিস (1806)

মন্তব্যসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Watuseke, F. S. 1974. On the name Celebes. Sixth International Conference on Asian History, International Association of Historians of Asia, Yogyakarta, 26–30 August. Unpublished.
  2. Everett-Heath, John (২০১৮)। The concise dictionary of world place-names (Fourth সংস্করণ)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 1131। আইএসবিএন 9780191866326ওসিএলসি 1053905476 
  3. Gursky, Sharon L. (২০১৫)। The Spectral Tarsier। Routledge। পৃষ্ঠা 8। আইএসবিএন 9781317343974 
  4. IHO (1953), §48 (d).
  5. IHO (1953), §48 (k).
  6. IHO (1953), §48 (c).
  7. Technically, Tomini[৪] and Boni[৫] are defined as gulfs by the International Hydrographic Organization, while Tolo is considered a bay of the Malukka Sea.[৬]
  8. "Makassar Strait"Encyclopedia Britannica। Encyclopedia Britannica, Inc.। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৩, ২০১৭ 
  9. "Southeast Sulawesi" 
  10. "South Sulawesi" 
  11. "Researchers find biggest exposed fault on Earth"। ২৮ নভেম্বর ২০১৬। 
  12. Glover, Ian। "Leang Burung 2: an Upper Palaeolithic rock shelter in South Sulawesi, Indonesia". Modern Quaternary Research in Southeast Asia 6:1–38; David Bulbeck, Iwan Sumantri, Peter Hiscock, "Leang Sakapao 1; a second dated Pleistocene site from South Sulawesi, Indonesia"": 111–28। 
  13. C.C. Macknight (1975) The emergence of civilization in South Celebes and elsewhere, in A. Reid and L. Castles (ed.) Pre-Colonial state systems in Southeast Asia. Kuala Lumpur: Malaysian Branch of the Royal Asiatic Society: 126–135.
  14. Bartstra, Gert-Jan; Keates, Susan (১৯৯১)। "On the dispersal of Homo sapiens in Eastern Indonesia: the Paleolithic of South Sulawesi": 317–21। doi:10.1086/203960 
  15. Bulbeck, David; Sumantri, Iwan। "Leang Sakapao 1; a second dated Pleistocene site from South Sulawesi, Indonesia": 111–28। 
  16. Jennifer Hile (১২ ডিসেম্বর ২০০১)। "Explorer's Notebook: The Riddle of Indonesia's Ancient Statues"National Geographic। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১২ 
  17. Sangadji, Ruslan: C. Sulawesi's Lore Lindu park, home to biological wealth, The Jakarta Post, 5 June 2005 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে, retrieved 11 October 2010
  18. Ghosh, Pallab (২০১৪-১০-০৮)। "Painted caves challenge art origins"BBC News 
  19. Ghosh, Pallab (২০১৯-১২-১১)। "Earliest hunting scene in prehistoric art"Nature 
  20. "Animal painting found in cave is 44,000 years old"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১২-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৩ 
  21. "Narrative Cave Art in Indonesia Dated to 44,000 Years Ago | ARCHAEOLOGY WORLD" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৩ 
  22. correspondent, Hannah Devlin Science (২০১৯-১২-১১)। "Earliest known cave art by modern humans found in Indonesia"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0261-3077। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৩ 
  23. practice, Ben Guarino closeBen GuarinoReporter covering the; scienceEmailEmailBioBioFollowFollow, culture of। "The oldest story ever told is painted on this cave wall, archaeologists report"Washington Post (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৩ 
  24. Langley, Michelle C.; Hakim, Budianto (২০২০)। "Portable art from Pleistocene Sulawesi"। doi:10.1038/s41562-020-0837-6 
  25. Caldwell, I.A. 1988. 'South Sulawesi A.D. 1300–1600; Ten Bugis texts.' Ph.D thesis, The Australian National University; Bougas, W. 1998. 'Bantayan; An early Makassarese kingdom 1200 -1600 AD. Archipel 55: 83–123; Caldwell, I. and W.A. Bougas 2004. 'The early history of Binamu and Bangkala, South Sulawesi.' Bijdragen tot de Taal-, Land- en Volkenkunde 64: 456–510; Druce, S. 2005. 'The lands west of the lake; The history of Ajattappareng, South Sulawesi, AD 1200 to 1600.' Ph.D thesis, the University of Hull.
  26. Crawfurd, J. 1856. A descriptive dictionary of the Indian islands and adjacent countries. London: Bradbury & Evans.
  27. [১] Luis Filipe F. R. Thomaz, The image of the Archipelago in Portuguese cartography of the 16th and early 17th centuries, Persee, 1995, Volume 49 pages: 83
  28. Bassett, D. K. (১৯৫৮)। "English trade in Celebes, 1613–67": 1–39।  "and ruled a base in Makassar since the mid-16th century to the year 1665, when it was taken by the Dutch."
  29. Kahin (1952), p. 145
  30. Westerling, R. 1952. Challenge to Terror
  31. "Brief Analysis – A. Total Population"। ২৫ জুলাই ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০২০ 
  32. Indonesia's Population
  33. Noorduyn, J (১৯৫৬)। "'De Islamisering van Makasar.' Bijdragen tot de Taal-, Land- en Volkenkunde 112: 247–66; Caldwell, I. 1995. 'Power, state and society in pre-Islamic South Sulawesi.'": 394–421। 
  34. Groves C. (১ জুন ২০০১)। "Mammals in Sulawesi: Where did they come from and when, and what happened to them when they got there?"Faunal and Floral Migration and Evolution in SE Asia-Australasia। CRC Press। পৃষ্ঠা 333–342। আইএসবিএন 978-90-5809-349-3 
  35. "Maleo"www.tompotika.org। Alliance for Tompotika Conservation। ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২০ 
  36. The Systematic Review of the Fish Genus Nomorhamphus ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ সেপ্টেম্বর ২০০৬ তারিখে – Louie, Kristina, research paper, Colgate University, Hamilton, New York, 1993
  37. Froese, Rainer and Pauly, Daniel, eds. (2014). "Tondanichthys kottelati" in FishBase. April 2014 version.
  38. Nguyen, T.T.T.; De Silva, S. S. (২০০৬)। "Freshwater finfish biodiversity and conservation: an asian perspective.": 3543–3568। doi:10.1007/s10531-005-0312-8 
  39. Parenti, L.R. (2011). Endemism and Conservation of the Native Freshwater Fish Fauna of Sulawesi, Indonesia. Prosiding Seminar Nasional Ikan IV: 1-10.
  40. Saturi, O.S. (31 May 2012). Ikan, Kepiting dan Udang Buta Penghuni Karst Maros. Mongabay-Indonesia. Retrieved 23 November 2012.
  41. von Rintelen, K., and Y. Cai (2009). Radiation of endemic species flocks in ancient lakes: systematic revision of the freshwater shrimp Caridina H. Milne Edwards, 1837 (Crustacea: Decapoda: Atyidae) from the ancient lakes Of Sulawesi, Indonesia, with the description of eight new species. Raffles Bulletin of Zoology 57: 343–452.
  42. Chia, O.C.K. and P.K.L. Ng (2006). The freshwater crabs of Sulawesi, with descriptions of two new genera and four new species (Crustacea: Decapoda: Brachyura: Parathelphusidae). Raffles Bulletin of Zoology 54: 381–428.
  43. Deharveng, L., D. Guinot and P.K.L. Ng (2012). False spider cave crab, (Cancrocaeca xenomorpha) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৫ মে ২০১৩ তারিখে. ASEAN Regional Center for Biodiversity Conservation. Retrieved 13 November 2012.
  44. "Sulawesi Profile" – mongabay.com

উৎসসম্পাদনা

  • Limits of Oceans and Seas, 3rd ed. (PDF), International Hydrographic Organization, 1953.
  • Von Rintelen, T.; et al. (2014), "A Snail Perspective on the Biogeography of Sulawesi, Indonesia: Origin and Intra-Island Dispersal of the Viviparous Freshwater Gastropod Tylomelania"PLoS ONE", PLOS One, Vol. 9, No. 6 (6): e98917, doi:10.1371/journal.pone.0098917, PMC 4090239, PMID 24971564.

বাহ্যিক লিঙ্কগুলিসম্পাদনা

  •   উইকিভ্রমণ থেকে সুলাওসি ভ্রমণ নির্দেশিকা পড়ুন