শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে রেলওয়ে স্টেশন

শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন পূর্ব রেলওয়ে অঞ্চলের শিয়ালদহ রেল বিভাগের রানাঘাট কৃষ্ণনগর রেলপথের একটি রেলওয়ে স্টেশন। এটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নদীয়া জেলায় শান্তিপুর জাতীয় হাইওয়ে ৩৪ এর নিকট কালীনারায়ণপুরের শান্তিপুর লুপ লাইনের সাথে রানাঘাট-কৃষ্ণনগর লাইনের সাথে সংযোগকারী নদিয়ার শান্তিপুরে অবস্থিত।[১][২]


শান্তিপুর জংশন
যাত্রীবাহী ট্রেন স্টেশন
অবস্থানশান্তিপুর, নদিয়া, পশ্চিমবঙ্গ
ভারত
উচ্চতা১২ মি (৩৯ ফু)
মালিকানাধীনভারতীয় রেল
পরিচালিতপূর্ব রেল
লাইনরানাঘাট – কৃষ্ণনগর লাইন
প্ল্যাটফর্ম
রেলপথ
নির্মাণ
গঠনের ধরনভূমিগত স্টেশন
পার্কিংনেই
সাইকেলের সুবিধানেই
প্রতিবন্ধী প্রবেশাধিকারনেই
অন্য তথ্য
অবস্থাসক্রিয়
স্টেশন কোডকেএলএনপি
অঞ্চল পূর্ব রেল
বিভাগ শিয়ালদহ
বৈদ্যুতীকরণহ্যাঁ
পরিষেবা
পূর্ববর্তী স্টেশন   কলকাতা শহরতলি রেল   পরবর্তী স্টেশন
পূর্ব রেল
পূর্ববর্তী স্টেশন   কলকাতা শহরতলি রেল   পরবর্তী স্টেশন
পূর্ব রেল
অবস্থান
মানচিত্র

অবস্থান

সম্পাদনা

শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন নদীয়া জেলায় শান্তিপুর জাতীয় হাইওয়ে ৩৪ এর নিকট কালীনারায়ণপুরের শান্তিপুর লুপ লাইনের সাথে রানাঘাট-কৃষ্ণনগর লাইনের সাথে সংযোগকারী নদিয়ার শান্তিপুরে অবস্থিত।[১][২] এই জংশন স্টেশন থেকে দুটি আলাদা রেলপথের সংগম স্থল আছে। রানাঘাট-কৃষ্ণনগর লাইন আর একটি ব্রডগেজ লাইন শান্তিপুর থেকে কৃষ্ণনগর সিটি জংশন রেলওয়ে স্টেশনের সাথে যুক্ত। এই স্টেশন থেকে পরবর্তী স্টেশন হল - দিগনানগর রেলওয়ে স্টেশন এবং পূর্ববর্তী স্টেশন হল বাথনা কৃত্তিবাস রেলওয়ে স্টেশন এবং আর একটি শাখা কৃষ্ণনগর সিটি জংশন রেলওয়ে স্টেশনে যুক্ত হচ্ছে।

ইতিহাস

সম্পাদনা

১৯৪৮ সালে, শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন একটি সংকীর্ণ গেজ ট্র্যাক "শান্তিপুর-নবদ্বীপ ঘাট লাইট রেলওয়ে" শাখা খোলা হয়েছিল যা পরবর্তীকালে, একটি ব্রডগেজ রুট শান্তিপুর থেকে কৃষ্ণনগর সিটি জংশন রেলস্টেশনের সাথে সংযুক্ত করা হয়েছিল।[৩][৪]

পরিকাঠামো

সম্পাদনা

স্টেশনটির পরিকাঠাম ভূমিগত। এই স্টেশনে ৩ টি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন ২ টি রেললাইন বা রেলট্র্যাক রয়েছে। এই প্ল্যাটফর্মগুলি ফুট ওভার ব্রিজের মাধ্যমে সংযুক্ত রয়েছে। স্টেশনে স্টেশন পরিচালনার জন্য ভবন ও স্টেশন মাষ্টারে ভবন ১ নং প্ল্যাটফর্মের সঙ্গেই অবস্থিত। যাত্রীদের রেল ভ্রমণের জন্য টিকিট স্টেশনের টিকিট ঘর থেকে প্রদান করা হয়। স্টেশনে যাত্রী সুবিধার জন্য বসার আসন, প্ল্যাটফর্ম ছাউনি, পানীয় জল এর ব্যবস্থা রয়েছে। স্টেশনে গাড়ি রাখার ব্যবস্থা নেই।

শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন ব্যাগ বা যাত্রীদের দ্বারা বহন করা জিনিসপত্রের পরীক্ষায় ব্যবস্থা আছে।

বৈদ্যুতীকরণ

সম্পাদনা

শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশনে এর রেলপথে বৈদ্যুতীক ট্রেন চলাচল করে।

রেল পরিষেবা

সম্পাদনা

এই স্টেশনটি স্টেশনের পার্শ্ববর্তী এলাকায় রেল পরিষেবা প্রদান করে থাকে। এই স্টেশনের দ্বারা শিয়ালদহ এবং শিয়ালদহ, বনগাঁ, রানাঘাট, কৃষ্ণনগর ও শান্তিপুরগামী ট্রেন চলাচল করে। প্রতিদিন এই স্টেশনে কলকাতা শহরতলি রেলের লোকাল ট্রেনগুলি ট্রেন যাত্রী পরিষেবা প্রদান করে থাকে।

প্রশাসন ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা

সম্পাদনা

শান্তিপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশনটি ভারতীয় রেলের পূর্ব রেল অঞ্চলের শিয়ালদহ রেল বিভাগের অন্তর্গত। স্টেশন পরিচালনার সমস্ত দায়িত্ব স্টেশনের প্রধান "স্টেশন মাষ্টার" - এর উপর ন্যস্ত। এছাড়া স্টেশনের নিরাপত্তার জন্য অস্থায়ী ভাবে ভ্রাম্যমাণ জিআরপি কর্মী নিযুক্ত রয়েছে এবং স্টেশন চত্বর ও সংলগ্ন এলাকার নিরাপত্তা স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন প্রদান করে থাকে।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "SHANTIPUR (STB) Railway Station"ndtv.com। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৮ 
  2. "STB/Shantipur Junction"। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৮ 
  3. "Narrow Gauge Routes in 1948"। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৮ 
  4. "Rail Trek: Shantipur-Krishnanagar-Nabadwip Ghat"। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা