লধা রামজী

ভারতীয় ক্রিকেটার

রামজী লধা নকুম (এই শব্দ সম্পর্কেউচ্চারণ ; মারাঠি: लढा रामजी; জন্ম: ১০ ফেব্রুয়ারি, ১৯০০ - মৃত্যু: ২০ ডিসেম্বর, ১৯৪৮) তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের গুজরাতের পিধার এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৩৩ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।[১][২][৩]

লধা রামজী
লধা রামজী.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামরামজী লধা নকুম
জন্ম১০ ফেব্রুয়ারি, ১৯০০
পিধার, গুজরাত, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু২০ ডিসেম্বর, ১৯৪৮
রাজকোট, গুজরাত, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
সম্পর্কঅমর সিং (ভ্রাতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৬)
১৫ ডিসেম্বর ১৯৩৩ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৭
রানের সংখ্যা ৩২৫
ব্যাটিং গড় ০.৫০ ৮.৫৫
১০০/৫০ -/- -/১
সর্বোচ্চ রান ৭০
বল করেছে ১৩৮ ৪৭৪১
উইকেট - ১২৫
বোলিং গড় - ১৭.৩৭
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং - ৮/১৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/- ২৫/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১ নভেম্বর ২০১৯

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে পশ্চিম ভারত দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে ব্যাটিং করতেন লধা রামজী

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

আলফ্রেড হাই স্কুলে অধ্যয়ন করেন। পাঞ্জাবের ফাস্ট বোলার গুলাম নবিকে অনুসরণ করে বোলিং কর্মে অগ্রসর হয়েছিলেন। ১৯২৩-২৪ মৌসুম থেকে ১৯৩৫-৩৬ মৌসুম পর্যন্ত লধা রামজী’র প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা অমর সিংয়ের সাথে তুলনান্তে লম্বাটে গড়নের ও মজবুত ধরনের ফাস্ট-মিডিয়াম বোলার ছিলেন। প্রায় সকল খেলাতেই বোলিং উদ্বোধনে নামতেন। বোম্বে চতুর্দলীয় প্রতিযোগিতায় হিন্দু দলের পক্ষে খেলে উল্লেখযোগ্য সফলতা পেয়েছিলেন। এক দশকের অধিক সময় প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৮.৮০ গড়ে ১১১ উইকেট পেয়েছেন।

১৯৩১-৩২ মৌসুমে ফ্রিলুটার্স দলের পক্ষে খেলেন। নিজামস স্টেট রেলওয়ে এ দলের বিপক্ষে খেলায় তিনি ৮/১৪ ও ৪/৩২ পেয়েছিলেন। সহোদর অমর সিং অন্য আট উইকেট পেয়েছিলেন।[৪]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন লধা রামজী। ১৫ ডিসেম্বর, ১৯৩৩ তারিখে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এরপর আর তিনি কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করেননি। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। নিজ দেশে অনুষ্ঠিত ভারতের উদ্বোধনী টেস্টে খেলেন। তবে, বোম্বে টেস্টে তেমন সুবিধে করতে পারেননি।

মূল্যায়নসম্পাদনা

ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসের সূচনালগ্নে অংশগ্রহণকারী ফাস্ট বোলারদের মধ্যে তিনি অন্যতম ছিলেন। টেস্ট ক্রিকেট জগতে দেরীতে প্রবেশ করলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে তাকে দমিয়ে রাখা যায়নি। প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যানদের কাছে তিনি ত্রাসস্বরূপ ছিলেন ও এক দশককাল দূরন্ত পেসে নাজেহাল করে ছেড়েছেন। তাসত্ত্বেও কনিষ্ঠ ভ্রাতার সমতুল্য ছিলেন না। ১৯১০ সালে একই বছরে জন্ম নেয়া মোহাম্মদ নিসার, অমর সিং ও জাহাঙ্গীর খানের সাথে পেস আক্রমণে নিজেকেও সামিল করেছেন।

এক দশকেরও অধিককাল প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করলেও খেলেছেন মাত্র ২৭টি খেলা। ১৭.৩৭ গড়ে ১২৫ উইকেট পেয়েছেন। দ্বিতীয়-শ্রেণীর খেলাগুলোকে হিসেবে আনলে ৩৫ খেলায় ১৭.৮৬ গড়ে ১৪৫ উইকেটে দাঁড়ায়।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ডায়াবেটিসের মাত্রা বেশ বৃদ্ধি পায়। এরপূর্বে তিনি দৈনিক প্রায় পঞ্চাশ কাপ চা পান করতেন। ডান পায়ে গ্যাংগ্রিনে আক্রান্ত হন। তবে, তা থেকে নিষ্কৃতির জন্যে চিকিৎসকের পরামর্শ ও আত্মীয়-স্বজনের অনুরোধের পরও শৈলোপচারে রাজী হননি। অতঃপর ২০ ডিসেম্বর, ১৯৪৮ তারিখে গুজরাতের রাজকোট এলাকায় ৪৮ বছর বয়সে লধা রামজী’র দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. List of India Test Cricketers
  2. "India – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  3. "India – Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  4. Freelooters v Nizam's State Railway A, 1931-32

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা