রাধানাথ রায়

ওড়িয়া লেখক

রাধানাথ রায় (ওড়িয়া: ରାଧାନାଥ ରାୟ) (২৮ সেপ্টেম্বর ১৮৪৮ - ১৭ এপ্রিল ১৯০৮) ছিলেন 'কবিবর' উপাধিতে ভূষিত একজন বহু প্রতিভাসম্পন্ন ওড়িয়া লেখক[১][২] তিনি ওড়িশার বালেশ্বরে ( বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি) এক সম্ভ্রান্ত জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন । প্রথমদিকে তিনি ওড়িয়া এবং বাংলা উভয় ভাষায় লিখতেন গবেষণা হয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীকালে শুধু ওড়়িয়া ভাষায় লেখা শুরু করেন । তিনি ১৮৪৮-এর ২৮ সেপ্টেম্বর ওড়িশার বালেশ্বরের কেদারপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছেন।  উনিশ শতকের ওড়িয়া সাহিত্যে প্রথম তিনি ছন্দ এবং কবিতার অবতরণ করেন।

কবিবর রাধানাথ রায়
রাধানাথ রায়ের প্রতিকৃতি
রাধানাথ রায়ের প্রতিকৃতি
স্থানীয় নাম
କବିବର ରାଧାନାଥ ରାୟ
জন্ম(১৮৪৮-০৯-২৮)২৮ সেপ্টেম্বর ১৮৪৮
কেদারপুর, বালেশ্বর, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমান ওড়িশা, ভারত)
মৃত্যু১৭ এপ্রিল ১৯০৮(1908-04-17) (বয়স ৫৯)
পেশাবিদ্যালয় পরিদর্শক
ভাষাওড়়িয়া
জাতীয়তাভারত
ধরনকবি, ঔপন্যাসিক, গল্পকার, প্রাবন্ধিক, নাট্যকার, শিক্ষাবিদ, সাংস্কৃতিক ব্যতিসঙ্গবাদী, বাগ্মী, গীতিকার.
উল্লেখযোগ্য রচনাবলিকেদার গৌরী, চিলিকা
দাম্পত্যসঙ্গীপরশমণি দেবী

জন্ম ও পরিবারসম্পাদনা

রাধানাথ রায় ১৮৪৮ খ্রিস্টাব্দের ২৮ সেপ্টেম্বর বর্তমান ওড়িশা রাজ্যের বালেশ্বর জেলার কেদারপুরে জন্মগ্রহণ করেন । তার স্ত্রীর নাম পরশমণি দেবী ।

ওড়িয়া সাহিত্যে অবদানসম্পাদনা

মধ্যযুগীয় ওড়িয়া সাহিত্যের সমৃদ্ধ এবং স্বতন্ত্র সাহিত্যিক ঐতিহ্য এবং ইতিহাস ছিল, তবুও কিছু বাঙালি শিক্ষাবিদ ওড়িয়া ভাষা স্কুল থেকে শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে বিলুপ্ত করতে চেয়েছিলেন।  ওড়িশার অনেক আগে থেকেই যেহেতু বাংলা ব্রিটিশ শাসনের অধীনে ছিল, তাই বাঙালীরা ওড়িয়াকে বাংলা ভাষার একটি শাখা হিসাবে প্রমাণ করার জন্য অ্যাংলজিস্ট পণ্ডিতদের অনুপ্রাণিত করার সুযোগ পেয়েছিল।  তবে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির একজন ব্রিটিশ অফিসার জন বিমস প্রথমে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছিলেন যে ওড়িয়া বাঙালির চেয়ে বেশি প্রাচীন ভাষা, এবং এর একটি সমৃদ্ধ সাহিত্য ছিল যা বাংলায় ছিল না।  ওড়িশা বিভাগে ওডিয়া বিদ্যালয়ের মাত্র সাতজন শিক্ষক ছিলেন;  বাঙালিরা এমনকি প্রত্যন্ত অঞ্চলে সংখ্যাগরিষ্ঠ শিক্ষক গঠন করেছিল।  ফলস্বরূপ, ওড়িয়ার শিক্ষার্থীদের জন্য বাংলা পাঠ্যপুস্তক নির্ধারিত ছিল।  ফকির মোহন সেনাপতির সাথে রাধানাথ সেই সময়ের অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব ছিলেন, যিনি ওড়িশা থেকে ওড়িয়া ভাষা নির্মূলের জন্য বাঙালি শিক্ষাবিদদের সম্প্রসারণবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন।  তিনি ওড়িশা স্কুল সমিতির পরিদর্শক ছিলেন এবং ফকির মোহন সেনপতি এবং মধুসূদন রাওয়ের সাথে তিনি পাঠ্য বইয়ের লেখার প্রচারের চেষ্টা করেছিলেন।

উল্লেখযোগ্য কর্মসম্পাদনা

রাধানাথ রায় তাঁর প্রথম রচনাটি আঠারো বছর বয়সে রচনা করেন । তাঁর রচিত বাংলা কবিতার সংকলন 'কবিতাবলী' কলকাতার বেশিরভাগ প্রধান প্রধান সংবাদপত্র এবং জার্নালে প্রদর্শিত হয়েছিল।  তাঁর আর একটি বাংলা কবিতা ছিল 'লেখাবলী' ।পরবর্তীকালে, তিনি ওড়িয়া ভাষায় লেখালেখিতে মনোনিবেশ করেন এবং কেদার গৌরী, নন্দিকেশ্বরী, চিলিকা, মহাযাত্রা-যযাতিকেশরী, তুলসীস্তবক, ঊর্বশী, দরবার, দশরথ বিয়োগ,সাবিত্রী চরিতা এবং মহেন্দ্রগিরি র মতো বিখ্যাত কাব্য রচনা করেছিলেন। এছাড়া, তিনি ১৫ এর বেশি প্রবন্ধ রচনা করেছেন।  তাঁর আসল রচনাগুলি ছাড়াও তিনি লাতিন সাহিত্যের অনুবাদ ও অভিযোজনের জন্যও পরিচিত।  এর মধ্যে ঊষা, চন্দ্রভাগা এবংপার্বতী উল্লেখযোগ্য ।[৩][৪]

বাদানুবাদসম্পাদনা

যদিও রাধানাথ ওড়িয়া সাহিত্যে প্রচুর অবদান রেখেছিলেন, তবে তাঁর সময়কার সমসাময়িক রক্ষণশীল পাঠকরা তাঁকে গ্রহণ করেননি।  শীঘ্রই, তাঁকে একটি বিতর্কের মধ্যে জড়িয়ে দেওয়া হয় । তৎকালীন বামন্ডের রাজা সুধল দেব কবিকে 'কবিবর' উপাধিতে ভূষিত করলে এই দুর্লভ সম্মান কিছু সমালোচক ও কবিদের ঈর্ষান্বিত করেছিল।  কিছু সমালোচক এমনকি মন্তব্য করেছিলেন যে রাধানাথের চেয়ে কবিসম্রাট উপেন্দ্র ভঞ্জ এই পুরস্কার পাওয়ার ক্ষেত্রে অধিক উপযুক্ত এবং এই যুক্তিগুলি আধুনিকতা বনাম ঐতিহ্যের মতো বিতর্কের মারাত্মক বিষয়ে পরিণত হয়েছিল।  দু'টি সাহিত্য জার্নাল ইন্দ্রধনু এবং বিজলি এই সম্বন্ধীয় লেখা প্রকাশ করে বিতর্কে জড়িয়েছিল এবং পরে সমস্ত বুদ্ধিজীবী এর সাথে জড়িয়ে পড়েছিলেন। যাইহোক, রাধানাথের একটি চিঠি দিয়ে এই সাহিত্য বিতর্ক শেষ হয়েছিল।[৫][৬]

আরো দেখুনসম্পাদনা

ওড়িয়া সাহিত্য

ওড়িয়া ভাষা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Mohanty, J. (২০০৯)। Encyclopaedia of Education, Culture and Children's Literature: v. 3. Indian culture and education। Deep & Deep Publications। পৃষ্ঠা 119। আইএসবিএন 978-81-8450-150-6। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৪ 
  2. "Archived copy"। Archived from the original on অক্টোবর ২৬, ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-২৫ , accessed 25 December 2007
  3. [১], accessed 25 December 2007
  4. Mahapatra, B.P.; Kloss, H.; McConnell, G.D.; India. Office of the Registrar General (১৯৮৯)। Constitutional languages। The Written Languages of the World: A Survey of the Degree and Modes of Use. India। Presses de l'Université Laval। পৃষ্ঠা 391। আইএসবিএন 978-2-7637-7186-1। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৪ 
  5. Mayadhar, Mansingha :History of Oriya Literature : Sahitya Akademy, Delhi
  6. History of Oriya Literature by Dr. Natabar Samanta Ray)