রাঙা ভাবী মতিন রহমান পরিচালিত ১৯৮৯ সালের বাংলাদেশী নাট্যধর্মী চলচ্চিত্র। ইকবাল কাশ্মীরীর গল্প অবলম্বনে এই ছবির কাহিনী বিন্যাস ও সংলাপ রচনা করেছেন আহমদ জামান চৌধুরী এবং চিত্রনাট্য লিখেছেন মতিন রহমান। শাবানা নিবেদিত ছবিটি এস এস প্রডাকশন্সের ব্যানারে প্রযোজিত ও পরিবেশিত হয়। এতে রাঙা ভাবী চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাবানা। অন্যান্য প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন আলমগীর, নূতন, গোলাম মুস্তাফা, ও তাপ্পু।[২]

রাঙা ভাবী
পরিচালকমতিন রহমান
প্রযোজকশাবানা
রচয়িতাআহমদ জামান চৌধুরী (কাহিনী বিন্যাস ও সংলাপ)
চিত্রনাট্যকারমতিন রহমান
কাহিনিকারইকবাল কাশ্মীরী
উৎসকর্তৃক 
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারসুবল দাস
চিত্রগ্রাহকরেজা লতিফ
সম্পাদকনুরুন্নবী
প্রযোজনা
কোম্পানি
এস এস প্রডাকশন্স
পরিবেশকএস এস প্রডাকশন্স
মুক্তি৭ মে, ১৯৮৯[১]
দৈর্ঘ্য১৪৯ মিনিট
দেশবাংলাদেশ
ভাষাবাংলা

চলচ্চিত্রটি ১৯৮৯ সালে ৭ মে ঈদে বাংলাদেশে মুক্তি পায়। এই ছবিতে রোকেয়া চরিত্রে অভিনয়ের জন্য শাবানা ১৪তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে পুরস্কার লাভ করেন।[৩]

কাহিনী সংক্ষেপসম্পাদনা

আলম শহরে পড়াশুনা করে। একদিন সে তার বাবার মৃত্যুর সংবাদ শুনতে পায় এবং বাড়ি ফিরে। কিন্তু সে তার বাবার জানাজা ও দাফনে শরিক হতে পারে না। গ্রামের একজন তার বাবার মৃত্যুর জন্য তার সৎ মাকে দায়ী করে। ফলে আলম ভুল তার সৎ মাকে ভুল বোঝে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। ইতিমধ্যে আলম একটি চাকরি পায়। মাতাপিতাহীন রোকেয়া তার কোটিপতি মামার কাছে বড় হয়। তার মামা তাকে তার পছন্দের পাত্র আলমের সাথে বিয়ে দেয়। কয়েক বছর পর আলমের সৎ মা মারা যায় এবং মৃত্যুর পূর্বে তার হাতের দুটি সোনার বালা তার সন্তান বাবলার হাতে দিয়ে বড় ভাই আলমের সাথে দেখা করতে বলে এবং তার ভাবীর হাতে বালা পড়িয়ে দিতে। নিঃসন্তান আলমের পরিবারে বাবলা উপস্থিত হয়। রোকেয়া তাকে নিজের ছেলের মত লালন পালন করলেও আলম তাকে সহ্য করতে পারে না। রোকেয়া তাকে স্কুলে পাঠালে আলম তাকে রাস্তায় ইট ভাঙ্গার কাজে লাগিয়ে দেয়।

ইতিমধ্যে বিদেশ থেকে দেশে ফিরে আলমের কোম্পানির মালিক জনাব চৌধুরী মেয়ে সোনিয়া চৌধুরী। সোনিয়া আলমকে পছন্দ করে। নিঃসন্তান আলমও সন্তান লাভের আশায় তার প্রেমে সাড়া দেয়। জনাব চৌধুরী চান তার মেয়ের বিয়ে দিতে। আলমকে মেয়ের জামাই হিসেবে তারও পছন্দ হয়। তিনি তাদের বিয়ে দিতে গেলে বিয়ের দিন রোকেয়া ও বাবলা সেখানে উপস্থিত হয়। আলম তাদের অস্বীকার করে সেখান থেকে বের করে দেয়। আলম বাবলার মার দেওয়া সোনার বালা চুরি করে সোনিয়াকে দিলে বাবলা তা মানতে পারে না। একদিন সে তার মায়ের দেওয়া বালা চুরি করে ফিরার সময় ঘটে এক অঘটন।

কুশীলবসম্পাদনা

সঙ্গীতসম্পাদনা

রাঙা ভাবী চলচ্চিত্রের গানের সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন সুবল দাস। গীত রচনা করেছেন গাজী মাজহারুল আনোয়ারআহমদ জামান চৌধুরী। গানে কণ্ঠ দিয়েছেন সাবিনা ইয়াসমিন, এন্ড্রু কিশোর, সুবীর নন্দী, রুনা লায়লা, ও আবিদা সুলতানা

গানের তালিকাসম্পাদনা

নং.শিরোনামলেখককণ্ঠশিল্পী(রা)দৈর্ঘ্য
১."আমার হাতে পড়িয়ে দিলে"গাজী মাজহারুল আনোয়ারসাবিনা ইয়াসমিন 
২."আমার যা কিছু সবই তো"গাজী মাজহারুল আনোয়ারসাবিনা ইয়াসমিন ও সুবীর নন্দী 
৩."রাঙা ভাবী মা" রুনা লায়লা 
৪."তোমাদের এই খুশির আড়ালে"   

পুরস্কারসম্পাদনা

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Movie List 1989"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতি। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. এলাহী, ফজলে (২৫ জুন ২০১৬)। "মতিন রহমানের 'রাঙা ভাবী' : যে গল্পের ছবি আজ হয় না"বাংলা মুভি ডেটাবেজ। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৭ 
  3. "অনন্য শাবানা"ভোরের কাগজ। ১০ জুন ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৭ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা