রয় মিলার

ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার

রয় স্যামুয়েল মিলার (ইংরেজি: Roy Miller; জন্ম: ২৪ ডিসেম্বর, ১৯২৪) জ্যামাইকার কিংস্টনে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ও সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫৩ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে জ্যামাইকা দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম বোলার ছিলেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিং প্রদর্শন করতেন রয় মিলার

রয় মিলার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামরয় স্যামুয়েল মিলার
জন্ম (1924-12-24) ২৪ ডিসেম্বর ১৯২৪ (বয়স ৯৬)
কিংস্টন, জ্যামাইকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ৭৮)
১১ মার্চ ১৯৫৩ বনাম ভারত
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৫০/৫১ - ১৯৫৩/৫৪জ্যামাইকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ২৩ ২৩১
ব্যাটিং গড় ২৩.০০ ২৫.৬৬
১০০/৫০ ০/০ ০/১
সর্বোচ্চ রান ২৩ ৮৬
বল করেছে ৯৬ ১৪৬৪
উইকেট ১৪
বোলিং গড় - ৪৫.৩৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং -/- ৩/৬৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ২/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৯ মে ২০১৯

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৫০-৫১ মৌসুম থেকে ১৯৫৩-৫৪ মৌসুম পর্যন্ত রয় মিলারের সংক্ষিপ্ত প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। নিচেরসারির ব্যাটসম্যান ও উদ্বোধনী বোলার রয় মিলার সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে জ্যামাইকার পক্ষে সাতটিমাত্র প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছিলেন।

১৯৫১-৫২ মৌসুমে বার্বাডোসের বিপক্ষে ব্যক্তিগত সেরা বোলিং পরিসংখ্যান ৩/৬৫ দাঁড় করিয়েছিলেন।[১] ১৯৫২-৫৩ মৌসুমে ব্রিটিশ গায়ানার বিপক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৮৬ রান তুলেছেন।[২]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করার সুযোগ লাভ করেছিলেন রয় মিলার। ১১ মার্চ, ১৯৫৩ তারিখে সফরকারী ভারত জাতীয় ক্রিকেট দল বিপক্ষে লেসলি উইটের সাথে একযোগে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয় তার। ১৯৫২-৫৩ মৌসুমে বিজয় হাজারের নেতৃত্বে ভারত দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করে। গায়ানার জর্জটাউনে সিরিজের চতুর্থ টেস্টে জেরি গোমেজের স্থলাভিষিক্ত হন তিনি। বল হাতে নিয়ে ১৬ ওভারে ২৮ রান দিলেও কোন উইকেটের সন্ধান পাননি। একমাত্র ইনিংসে আট নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্রুতগতিতে রান তুলতে গিয়ে সুভাষ গুপ্তের বলে ২৩ করে মাধব আপ্তের কটে বিদায় নেন। বড় ধরনের রান সংগ্রহের চেষ্টাকালে পিঠে চোট পান। ফলে, ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি বোলিং করতে পারেননি।[৩] ঐ খেলাটি ড্রয়ে পরিণত হয়েছিল।

সিরিজের পঞ্চম টেস্টে জেরি গোমেজ প্রত্যাবর্তন করলে দল থেকে বাদ পড়েন তিনি। এরপর আর তাকে টেস্ট খেলায় অংশ নিতে দেখা যায়নি। একটিমাত্র টেস্টে অংশ নিয়ে কার্যকরী অল-রাউন্ডারের স্বীকৃতি পেয়েছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Barbados v Jamaica 1951-52"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  2. "British Guiana v Jamaica 1952-53"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  3. Wisden 1954, p. 831.

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা