মার্টিন লাভ

অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার

মার্টিন লয়েড লাভ (ইংরেজি: Martin Love; জন্ম: ৩০ মার্চ, ১৯৭৪) কুইন্সল্যান্ডের মুন্ডুবেরায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ২০০২ থেকে ২০০৩ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

মার্টিন লাভ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমার্টিন লয়েড লাভ
জন্ম (1974-03-30) ৩০ মার্চ ১৯৭৪ (বয়স ৪৮)
মুন্ডুবেরা, কুইন্সল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া
ডাকনামমাসল
উচ্চতা১.৮৩ মিটার (৬ ফুট ০ ইঞ্চি)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩৮৫)
২৬ ডিসেম্বর ২০০২ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৮ জুলাই ২০০৩ বনাম বাংলাদেশ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৯২–২০০৯কুইন্সল্যান্ড বুলস
২০০১–২০০৩ডারহাম
২০০৪–২০০৫নর্দাম্পটনশায়ার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ২১৩ ১৫৫
রানের সংখ্যা ২৩৩ ১৬,৮০৭ ৪,৫৪৫ ১৬৬
ব্যাটিং গড় ৪৬.৬০ ৪৯.৫৭ ৩৩.৪১ ২৭.৬৬
১০০/৫০ ১/১ ৪৪/৭৮ ৫/২১ ০/২
সর্বোচ্চ রান ১০০* ৩০০* ১২৭* ৫৩
বল করেছে ৩০ ১২
উইকেট
বোলিং গড় ১১.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/৫ ০/৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৭/– ২৬৮/– ৬৮/– –/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে কুইন্সল্যান্ড এবং প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ডারহাম ও নর্দাম্পটনশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে অফ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শিতা দেখিয়েছেন ‘মাসল’ ডাকনামে পরিচিত মার্টিন লাভ

শৈশবকালসম্পাদনা

মুন্ডুবেরা স্টেট স্কুলে অধ্যয়নশেষে মুন্ডুবেরা হাই স্কুল ও টুওম্বা গ্রামার স্কুলে পড়াশোনা করেছেন মার্টিন লাভ।[১][২] এরপর ১৯৯৭ সালে কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিজিওথেরাপি বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।[৩]

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৯৪-৯৫ মৌসুমে শেফিল্ড শিল্ডের চূড়ান্ত খেলায় কুইন্সল্যান্ডের পক্ষে ১৪৬ রান তুলেন। এরফলে দলটি দীর্ঘ ৬৮ বছর পর প্রতিযোগিতার শিরোপা লাভে সক্ষমতা দেখায়। ২০০২ সালে ডারহামের পক্ষে ২৫১ রানের ইনিংস খেলে রেকর্ড গড়েন। এরপর ২০০৩ সালে ২৭৩ রান তুলে এ রেকর্ডকে আরও উচ্চতায় নিয়ে যান।

অক্টোবর, ২০০৬ সালে ওয়ারউইকশায়ারের পক্ষে খেলার জন্য চুক্তিবদ্ধ হন। কিন্তু দলে যোগদানের পূর্বেই আঘাতগ্রস্ত হলে কুমার সাঙ্গাকারা তার স্থলাভিষিক্ত হন।

টেস্ট ক্রিকেটসম্পাদনা

২০০২-০৩ মৌসুমে ইংল্যান্ড দল অ্যাশেজ সিরিজে খেলার উদ্দেশ্য নিয়ে অস্ট্রেলিয়া সফরে আসে। ২৬ ডিসেম্বর, ২০০২ তারিখে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক ঘটে মার্টিন লাভের। অ্যাশেজ সিরিজের ৪র্থ ও টম টেস্টে যথাক্রমে ৬২*, ৬* ও ০, ২৭ রান তুলেছিলেন। এরপর বার্বাডোসে অনুষ্ঠিত একমাত্র টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩৬ ও ২ রান তুলেন। ২০০৩ সালে সফরকারী বাংলাদেশের বিপক্ষে শূন্য রান ও অপরাজিত ১০০ করেন।

ড্যামিয়েন মার্টিন আঘাত থেকে আরোগ্য লাভ শেষে দলে ফিরে আসলে মার্টিন লাভকে টেস্ট দল থেকে চলে আসতে হয়েছিল।

অবসরসম্পাদনা

২৪ ফেব্রুয়ারি তারিখে মার্টিন লাভ ঘোষণা করেন যে ফিজিওথেরাপিকে পেশা হিসেবে গ্রহণের উদ্দেশ্যে, ২০০৮-০৯ মৌসুম শেষে ক্রিকেট থেকে অবসর গ্রহণ করবেন।

জাঙ্কশন ওভালে তিনি তার শেফিল্ড শিল্ডের শেষ খেলায় ভিক্টোরিয়ার বিপক্ষে অপরাজিত ১০৪ রানের ইনিংস খেলার পর নিজ মাঠে নিজস্ব শেষ খেলায় অপরাজিত ২১৯ রানের ইনিংস খেলে নিজেকে স্মরণীয় করে রাখেন। এরফলে নিজস্ব শেষ টেস্ট ও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অপরাজিত সেঞ্চুরি করে বিরল দৃষ্টান্ত গড়েন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Martin Love"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-২৭ 
  2. "Love pads up for TGS squad"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-২৭ 
  3. "University of Queensland holds graduation ceremonies"UQ News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-২০ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা