মধুপুর কর্দম

অতিমাত্রায় বিচূর্ণিত ও জারিত লালচে বাদামি অবক্ষেপ

মধুপুর কর্দম হলো অতিমাত্রায় বিচূর্ণিত ও জারিত লালচে বাদামি অবক্ষেপ বা আদি প্রস্তর।[১] এই অবক্ষেপটি নতুন প্লাইসটোসিন যুগে জলবায়ুগত কারণে সৃষ্ট ও এটি বিভক্ত কয়েকটি প্লাইসটোসিন সোপানের সমন্বয়ে গঠিত।[২] এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্লাইসটোসিন চত্বর। একই কর্দমের মধ্যে মধুপুর গড় অঞ্চলসহ লালমাই পাহাড়বরেন্দ্র ভূমি সৃষ্টি হয়েছে।[১] সঞ্চয়নজাত নদীজ পরিবেশ নিয়ে কর্দমটি গঠিত।

প্রাচীন মহাস্থানগড়, পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার, ময়নামতী সভ্যতাও এই অবক্ষেপের স্তরসমষ্টি বেষ্টিত অঞ্চলের অন্তর্গত। ঢাকা বিভাগ, ময়মনসিংহ বিভাগটাঙ্গাইল জেলার বাইরে বৃহত্তর রাজশাহীবগুড়া জেলায় বিস্তৃত বরেন্দ্রভূমিতে এই কর্দমের অধিক্য দেখা যায়। এছাড়া, কুমিল্লা জেলায় অবস্থিত লালমাই পাহাড়ের অধিকাংশ শৃঙ্গচূড়াই এ কর্দম দ্বারা আবৃত।[৩]

গঠনসম্পাদনা

এ অঞ্চলের ভূমি সঞ্চয়ন সংলগ্ন প্লাবনভূমি থেকে সামান্য উঁচু যা হ্যালোইসাইট ও ইলাইটের সমন্বয়ে সৃষ্ট।[১] এগুলো মিলে উত্তর-দক্ষিণে এটি প্রলম্বিত ভূভাগ গঠন করেছে যা স্মারক প্রত্নমৃত্তিকার অন্তর্গত। উত্তর-প্লাইসটোসিন যুগে এ অঞ্চলটিতে ব্যাপক বৃষ্টিপাত ও বিভিন্নভাবে ক্ষয়ের কারণে বেশকিছু প্লাইসটোসিন সোপান আলাদা হয়ে গিয়েছে।[৪] পরে, এই সোপানগুলোই একটি অপরটির সাথে যুক্ত হয়ে ও খোলা স্থানে উর্বর পলিমাটিতে পূর্ণ হয়ে প্লাবনভূমির তৈরি হয়েছে।[১]

স্তরের ভিত্তিতে মধুপুর কর্দমকে ৩টি উপশ্রেণীতে ভাগ করা হয়। স্তরগুলো হলো ঢাকা কর্দম গ্রুপ, মিরপুর পলিময় কর্দম গ্রুপ এবং ভালুকা বালি গ্রুপ। এরমধ্যে ঢাকা কর্দম গ্রুপ অধিকতর নতুন ও ভালুকা বালি গ্রুপ তিনটির মধ্যে প্রাচীন। ঢাকা কর্দম গ্রুপের স্তরটি লৌহময় গুটি, ম্যাংগানিজের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দাগ নিয়ে প্রলম্বিভাবে গঠিত। ভালুকা বালি গ্রুপের স্তরটি হলুদ-বাদামি এবং অতিমাত্রায় অভ্রসমৃদ্ধ বালির সমন্বয়ে গঠিত। প্রত্ন-চুম্বকীয় সমীক্ষায় ভালুকা স্তরটি স্বাভাবিক মেরু প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং এটি প্রায় ০.৯৭ থেকে ০.৯০ মিলিয়ন বছর পূর্বে সৃষ্টি হয়েছে বলে ভূতত্ত্ববিদগণ ধারণা করেন।[১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "মধুপুর কর্দম"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  2. "প্রাকইতিহাস"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  3. "ভূ-প্রকৃতি"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  4. "বাংলাদেশের মৃত্তিকা"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯