প্রধান মেনু খুলুন

বৃন্দাবন সরকারি কলেজ

বৃন্দাবন সরকারি কলেজ হচ্ছে স্নাতক পর্যায়ের একটি সরকারি ডিগ্রী কলেজ, যা বাংলাদেশের হবিগঞ্জ শহরে অবস্থিত। এটি ১৯৩১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।[১]

বৃন্দাবন সরকারি কলেজ
ধরনসরকারি কলেজ
স্থাপিত১৯৩১ (1931)
অবস্থান
হবিগঞ্জ
,
২৪°২২′২৮″ উত্তর ৯১°২৪′৪৪″ পূর্ব / ২৪.৩৭৪৫° উত্তর ৯১.৪১২২° পূর্ব / 24.3745; 91.4122স্থানাঙ্ক: ২৪°২২′২৮″ উত্তর ৯১°২৪′৪৪″ পূর্ব / ২৪.৩৭৪৫° উত্তর ৯১.৪১২২° পূর্ব / 24.3745; 91.4122
শিক্ষাঙ্গনশহুরে
ওয়েবসাইটbrindabangovcollege.edu.bd

এই কলেজটি হবিগঞ্জ সদরে অবস্থিত। এটি ১৮ বিঘা জমির উপর অধিষ্ঠিত। এবং এটি হবিগঞ্জের সবথেকে বড় কলেজ।

ইতিহাসসম্পাদনা

সিলেট বিভাগের দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং পুরোনো এই শিক্ষা প্রতিষ্টানের কার্যক্রম শুরু হয় ১৯৩১ সালের মাঝামাঝি সময়ে হবিগঞ্জ কলেজ নাম নিয়ে। কলকাতার রিপন কলেজের দর্শনের অধ্যাপক মিঃ বিপিন বিহারী দে প্রথম অধ্যক্ষের দায়িত্ব নেন। তৎকালীন  কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজটি প্রতিষ্টার বছরখানেকের মধ্যেই আর্থিক সমস্যার কারণে শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হলে পার্শ্ববর্তী বানিয়াচং থানার বিথঙ্গল গ্রামের দানশীল ব্যবসায়ী বাবু বৃন্দাবন চন্দ্র দাস এককালীন দশ হাজার টাকা দান করেন। কলেজের পরিচালনা কমিটি তার নামানুসারে নাম রাখেন বৃন্দাবন কলেজ। ব্রিটিশ শাসনামলে শুরু হওয়া কলেজটি প্রথমে কেবলমাত্র উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে মানবিক বিভাগে পাঠদান করলেও ১৯৩৯-৪০ শিক্ষাবর্ষে বিএ(পাস) এবং ১৯৪০-৪১ শিক্ষাবর্ষে কয়েকটি বিষয়ে বিএ(অনার্স) কোর্স চালু করে। ১৯৭৯ সালের ৭ মে, তৎকালীন সরকার কলেজটি জাতীয়করণ করেন এবং নাম হয় বৃন্দাবন সরকারী কলেজ। ১৯৯৮ সালে কলেজটি অনার্স কোর্স পাঠদানের পুনঃঅনুমতি পায়। বর্তমানে বৃন্দাবন সরকারী কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে সকল বিভাগ, স্নাতক (পাস), বাংলা, ইংরেজী, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, দর্শন, ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন, উদ্ভিদবিজ্ঞান, প্রাণি বিদ্যা, গণিত, হিসাববিজ্ঞান এবং ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু আছে। ২০০৩ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বাংলা, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, হিসাববিজ্ঞান, এবং ব্যবস্থাপনা বিষয়ে  মাস্টার্স কোর্স চালু হয়েছে। [২]

একাডেমীক্সসম্পাদনা

৪০০০ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী হায়ার সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট (HSC), স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ে এই প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করছে। এইচএসসি শিক্ষাব্যবস্থা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, সিলেট কর্তৃক পরিচালিত হয়। স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ের বিষয়সমূহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্ত্বাবধানে পাঠদান করানো হয়। শিক্ষার্থীদের অবদানের উপর ভিত্তি করে, ২০০৭ থেকে ২০১৬ সালে চার বছরের মধ্যে কলেজটি সিলেট বিভাগের শীর্ষ দশটি কলেজের মধ্যে স্থান করে নেয়।[৩][৪][৫][৬]

ক্যাম্পাসসম্পাদনা

৬.২ একর জায়গার মধ্যে কলেজ ক্যাম্পাসটিতে রয়েছে একাডেমীক ভবন, বিভিন্ন ধরনের গাছপালা, পুকুর এবং অন্যান্য অবকাঠামো। এখানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভবন রয়েছে। কলেজের মতোই এই ভবনগুলোও অনেক পুরনো। তাছাড়া ক্যাম্পাসে একটি গ্রন্থাগার, ১৯৫২ সালের ভাষা শহীদদের স্মরণে একটি শহীদ মিনার, একটি মসজিদ, এবং একটি জিমনেসিয়ামও আছে।

কৃতী শিক্ষার্থীসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "History"বৃন্দাবন সরকারি কলেজ। ৩ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  2. "বৃন্দাবন সরকারি কলেজ"www.habiganj.gov.bd। www.habiganj.gov.bd। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮। ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  3. "Notre Dame, Viqarunnisa, City College on top again"The Daily Star। ২৭ আগস্ট ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. "Rajuk Uttara Model tops list"Dhaka Mirror। ৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  5. "Jalalabad Cantonment Public School secures top position in Sylhet board"Bangladesh Sangbad Sangstha। ১৩ আগস্ট ২০১৪। ২০১৭-০১-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  6. "Rajshahi College achieves first, Eden College 2nd, Dhaka College 3rd"The New Nation। ১৫ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  7. "Former social welfare minister Enamul Hoque Mostofa Shaheed dies aged 78"bdnews24.com। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭