বিসমিল্লাহখানি

বিসমিল্লাহখানি একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান যা সাধারণত ভারতীয় উপমহাদেশের[১] মুসলমানরা পালন করে থাকে। এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিশুকে আরবি ভাষায় কুরআন তেলাওয়াত শিখানো শুরু হয়। এটি আসলে ইসলামের অংশ নয়। বরং একে ইসলাম শিক্ষার হাতেখড়ি জাতীয় অনুষ্ঠান বলা যেতে পারে। কিভাবে ইবাদত (প্রার্থনা) করা উচিত, কীভাবে কুরআন পড়া উচিত- এ জাতীয় বিষয়গুলো শিক্ষা দানের সূচনা হয় এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে।[২] অনুষ্ঠানটির নামকরণ করা হয়েছে বিসমিল্লাহ (আরবি: بسم الله‎‎) শব্দানুসারে যার অর্থ আল্লাহ'র নামে।[৩]

অনুষ্ঠানসম্পাদনা

সাধারণত, ৪ থেকে ৫ বছর বয়সী শিশুদের জন্য এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এটি কেবল ছেলে শিশুর জন্যই নয়, বরং মেয়েদের জন্যও আয়োজিত হয়।[৪] তবে, মেয়েদের ক্ষেত্রে অনেক সময় অনুষ্ঠানটিকে জারিজশানী বলা হত।[৫] অনেকে দিন মাস ও বছরে মিল রাখতে যেদিন শিশুর বয়স ৪ বছর ৪ মাস ৪ দিন হতো সেদিনই বিসমিল্লাহখানির আয়োজন করত।[৬] অধিকাংশ ক্ষেত্রেই স্থানীয় মসজিদের ইমাম সাহেব এ অনুষ্ঠান পরিচালনা করে থাকেন। তবে অন্য কোন আলেমও অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করতে পারেন।[৭]

এ অনুষ্ঠান উপলক্ষে আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে শিশু সুন্দর পোশাক পরে সেখানে যায়। এরপর আরবি: بسم الله الرحمن الرحيم‎, প্রতিবর্ণী. বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম‎ (পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে) পাঠের মাধ্যমে শিশু তার শিক্ষা জীবন শুরু করে।[৮][৯] অনেক সময়, হুজুর শিশুর হাত ধরে আরবি: الله‎, প্রতিবর্ণী. আল্লাহ‎ শব্দটি লিখান। তারপর দোয়া-দুরুদ পাঠ করে শিশুর সর্বাঙ্গীণ কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।[১০]

মূল অনুষ্ঠান শেষে আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য ভালো খাবারের ব্যবস্থা করা হয়। আয়োজকরা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী খাবারের আয়োজন করেন।[১১] অতিথিরাও শিক্ষা জীবনে প্রবেশ করা শিশুটিকে বিভিন্ন উপহার দিয়ে অভিনন্দন জানান।[১২] এভাবে শিশুর ইসলামী শিক্ষার প্রথম দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখার চেষ্টা করা হয়।[১০]

ইতিহাসসম্পাদনা

বিসমিল্লাহখানি অনুষ্ঠান অনেক আগে থেকেই ভারতীয় উপমহাদেশে প্রচলিত আছে। এমনকি, সুলতানি আমলেও এরূপ অনুষ্ঠান প্রচলিত ছিল বলে জানা যায়।[১৩][১৪] মনে করা হয়, এ অনুষ্ঠান থেকেই হিন্দু সমাজে হাতেখড়ি অনুষ্ঠানের প্রচলন শুরু হয়।[১৫][১৬]

এখনো পাকিস্তান,[১৭][১৮] বাংলাদেশভারতের অনেক পরিবার এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। তবে, উপমহাদেশের বাইরে এরূপ অনুষ্ঠান খুব একটা দেখা যায় না।

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Bismillah Ceremony | Definition and more for Bismillah Ceremony"www.ijunoon.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  2. Bilquis Jehan Khan। "A Song of Hyderabad"। thefridaytimes.com। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০১২ 
  3. Levete, Sarah (২০০৯-০৮-১৫)। Coming of Age (ইংরেজি ভাষায়)। The Rosen Publishing Group, Inc। আইএসবিএন 978-1-4358-5350-8 
  4. Jain, Simmi (২০০৩)। Encyclopaedia of Indian Women Through the Ages: The middle ages (ইংরেজি ভাষায়)। Gyan Publishing House। আইএসবিএন 978-81-7835-173-5 
  5. "Education System In India"www.gcoekmr.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬This was special method of education to Maktabas (primary schools). In case of male child it is called Bismillah khani (means to begin education with Gods blessing) and in case of female it is called 'Zarijshani' . Zarijshani means sprinkling of hold. 
  6. Keene, Michael (১৯৯৯)। Islam (ইংরেজি ভাষায়)। Nelson Thornes। আইএসবিএন 978-0-7487-3903-5 
  7. "একটি অধ্যয়নপ্রিয় জাতি"The Daily Sangram। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  8. "Life & Death"। ৫ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০১২ 
  9. Pathak, R. P. (২০০৭)। Education in the Emerging India (ইংরেজি ভাষায়)। Atlantic Publishers & Dist। আইএসবিএন 978-81-269-0741-0 
  10. "বিসমিল্লাহখানি - বাংলাপিডিয়া"bn.banglapedia.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  11. "ইতিহাস পরিক্রমায় শিক্ষার প্রকৃতি ও ‍বিস্তার"The Report24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  12. Simmonds, David (2014-11)। Believers All: A Book of Six World Religions (ইংরেজি ভাষায়)। Nelson Thornes। আইএসবিএন 978-0-17-437057-4  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  13. "শিক্ষার বিস্তার ও প্রতিষ্ঠানের ইতিহাস"NTV Online (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-১১-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  14. Hasan, Rakib (২০১৯-০৮-০৫)। "সুলতানি আমলে বাংলার শিক্ষাব্যবস্থা"Fateh24 (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  15. "শিক্ষার মানোন্নয়ন প্রশ্নে এমন নিরীক্ষা কেন|168083|Desh Rupantor"www.deshrupantor.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  16. "শিক্ষার মানোন্নয়ন প্রশ্নে এমন নিরীক্ষা কেন? | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-২৬ 
  17. Bedell, J. M. (২০০৯)। Teens in Pakistan (ইংরেজি ভাষায়)। Capstone। আইএসবিএন 978-0-7565-4043-2 
  18. Black, Carolyn (২০০৩)। Pakistan - The Culture (ইংরেজি ভাষায়)। Crabtree Publishing Company। আইএসবিএন 978-0-7787-9348-9 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা