বালকৃষ্ণ বিঠলদাস দোশি

ভারতীয় স্থপতি

বালকৃষ্ণ বিঠলদাস দোশি ওএএল ( গুজরাটি: બાલકૃષ્ણ વિઠ્ઠલદાસ દોશી ; ২৬শে আগস্ট ১৯২৭ – ২৪শে জানুয়ারি ২০২৩) ছিলেন একজন ভারতীয় স্থপতি।[১] তিনি ভারতীয় স্থাপত্যের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব এবং ভারতে স্থাপত্য প্রকরণের বিবর্তনে তাঁর অবদানের জন্য সুপরিচিত।[২] লে কর্বুসিয়ার এবং লুই কানের অধীনে কাজ করার পর, তিনি ছিলেন ভারতে আধুনিকতাবাদী এবং ব্রুটালিস্ট স্থাপত্যের (ন্যূনতম নির্মাণ দ্বারা চিহ্নিত) অগ্রদূত।

বালকৃষ্ণ বিঠলদাস দোশি
২০১৩ সালে দোশি
জন্ম
বালকৃষ্ণ বিঠলদাস দোশী

(১৯২৭-০৮-২৬)২৬ আগস্ট ১৯২৭
মৃত্যু২৪ জানুয়ারি ২০২৩(2023-01-24) (বয়স ৯৫)
জাতীয়তাভারতীয়
মাতৃশিক্ষায়তনজে. জে স্কুল অফ আর্কিটেকচার, মুম্বাই
পুরস্কারপদ্মবিভূষণ (মরণোত্তর)
পদ্মভূষণ
পদ্মশ্রী
অর্ডার অফ আর্টস অ্যাণ্ড লেটারস
প্রিট্‌জকার পুরস্কার
স্থাপত্যের জন্য আগা খান পুরস্কার
রয়্যাল গোল্ড মেডেল
স্থাপত্য প্রতিষ্ঠানবাস্তু শিল্প পরামর্শদাতা
ভবনসমুহআইআইএম-ব্যাঙ্গালোর, আইআইএম উদয়পুর, ন্যাশানাল ইনস্টিটিউট অব ফ্যাশন টেকনোলজি নতুন দিল্লি

তাঁর উল্লেখযোগ্য পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে ফ্লেম ইউনিভার্সিটি, আইআইএম ব্যাঙ্গালোর, আইআইএম উদয়পুর, এনআইএফটি দিল্লি, আমদাবাদ নি গুফা, সিইপিটি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইন্দোরের অরণ্য লো কস্ট হাউজিং ডেভেলপমেন্ট। শেষেরটি করার পর তাঁকে স্থাপত্যের জন্য আগা খান পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছিল।[৩]

২০১৮ সালে, তিনি প্রথম ভারতীয় স্থপতি হিসেবে প্রিটজকার আর্কিটেকচার পুরস্কার পান।[৪][৫] এছাড়াও তিনি পদ্মশ্রী, পদ্মভূষণ, পদ্মবিভূষণ,[৬] এবং ২০২২ সালের জন্য রয়্যাল ইনস্টিটিউট অফ ব্রিটিশ আর্কিটেক্টস ' রয়্যাল গোল্ড মেডেল' লাভ করেন।[৭]

প্রাথমিক জীবন

সম্পাদনা

বালকৃষ্ণ পুনের একটি গুজরাটি বৈষ্ণব হিন্দু পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর ১০ মাস বয়সে তাঁর মা মারা যান এবং তাঁর বাবা পুনরায় বিয়ে করেছিলেন। তাঁর ঠাকুরদাদা এবং পিসিরা তাঁকে বড় করতে সাহায্য করেছিলেন।[৮][৯] এগারো বছর বয়সে, তিনি একটি অগ্নি দুর্ঘটনায় আহত হন, এবং তারপর থেকে সামান্য খুঁড়িয়ে হাঁটতেন।[১০] তিনি ১৯৪৭ থেকে ১৯৫০ সালের মধ্যে মুম্বাইয়ের স্যার জে জে স্কুল অফ আর্ট থেকে অধ্যয়ন করেন।[১১]

কর্মজীবন

সম্পাদনা

প্রারম্ভিক প্রকল্প

সম্পাদনা

১৯৫০ সালে, তিনি ইউরোপে যান। ১৯৫১ এবং ১৯৫৪ সালের মধ্যে প্যারিসে পরবর্তী প্রকল্পগুলিতে তিনি লে কর্বুসিয়ারের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছিলেন। ১৯৫৪ সালে, তিনি আহমেদাবাদে কর্বুসিয়ারের ভবনগুলির তত্ত্বাবধানের জন্য ভারতে ফিরে আসেন। এগুলির মধ্যে ভিলা সারাভাই, ভিলা শোধন, মিল মালিক সমিতি বিল্ডিং এবং সংস্কার কেন্দ্র ছিল প্রধান। লে কর্বুসিয়ার এবং লুই কানের সাথে কাজ করার সময় তিনি যে নীতিগুলি শিখেছিলেন, তাঁর জন্মভূমির জন্য প্রকল্প পরিকল্পনার সময় প্রয়োজন অনুযায়ী সেগুলির অভিযোজন করেছিলেন।[১২]

 
অসমাপ্ত শোধন হাউসে লে করবুসিয়ারের সাথে দোশি, আনুমানিক ১৯৫৫।

১৯৫৫ সালে তাঁর স্টুডিও, বাস্তু-শিল্প (পরিবেশগত নকশা), প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। লুই কান এবং অনন্ত রাজের সাথে দোশি ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছিলেন। যখন কান আহমেদবাদের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট, ক্যাম্পাস ডিজাইন করেছিলেন, তখন বালকৃষ্ণ তাঁর সঙ্গে কাজ করেন। ১৯৫৮ সালে তিনি গ্রাহাম ফাউন্ডেশন ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিজ ইন দ্য ফাইন আর্টসে একজন ফেলো ছিলেন। এরপর তিনি ১৯৬৬ সালে স্কুল অফ আর্কিটেকচার (এসএ) শুরু করেন।[১২]

বিমাননগর

সম্পাদনা

আহমেদাবাদে অবস্থিত বিমাননগর হাউজিং সোসাইটি হলো বি ভি দোশির একটি সুপরিচিত প্রকল্প। তিনি একবার বলেছিলেন, "আমার সবচেয়ে প্রিয় আবাসন প্রকল্পগুলির মধ্যে একটি হল আহমেদাবাদে জীবন বীমা কর্পোরেশনের জন্য পরিকল্পনা করা প্রকল্পটি। এখানে আমি জানতাম যে বাড়িগুলিতে একই পরিবারের বেশ কয়েকটি প্রজন্ম বসবাস করবে, তারা এটির সাথে আত্মস্থ হবে, এর সাথে শক্তিশালী বন্ধন তৈরি হবে। যখন তাদের চাহিদাগুলি পরিবর্তিত হবে তখন তারা এর কিছু অংশ পরিবর্তন করতে পারে।"

শিক্ষাদান

সম্পাদনা

একজন স্থপতি হিসাবে তাঁর আন্তর্জাতিক খ্যাতি ছাড়াও, বালকৃষ্ণ একজন শিক্ষাবিদ এবং প্রতিষ্ঠান নির্মাতা হিসেবে সমানভাবে পরিচিত। তিনি আহমেদাবাদের স্কুল অফ আর্কিটেকচার-এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক (১৯৬২ - ৭২), স্কুল অফ প্ল্যানিং এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক (১৯৭২ - ৭৯), সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল প্ল্যানিং অ্যান্ড টেকনোলজির প্রতিষ্ঠাতা ডিন (১৯৭২ - ৮১), আহমেদাবাদের ভিজ্যুয়াল আর্টস সেন্টার-এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং আহমেদাবাদের কানোরিয়া সেন্টার ফর আর্টস-এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক।[১৩]

জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত গবেষণা প্রতিষ্ঠানবাস্তু-শিল্প ফাউন্ডেশন ফর স্টাডিজ অ্যান্ড রিসার্চ ইন এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন প্রতিষ্ঠায় বালকৃষ্ণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। প্রতিষ্ঠানটি কম খরচে আবাসন এবং শহর পরিকল্পনায় অগ্রণী কাজ করেছে।[১৪] তিনি স্বল্প-আয়ের আবাসন নিয়ে তাঁর অগ্রগামী কাজের জন্য এবং উদ্ভাবনী উপায়ে স্থায়িত্বের ধারণা অন্তর্ভুক্ত করে তাঁর নকশাগুলির জন্য উল্লেখযোগ্য।[১৪]

মাধ্যম

সম্পাদনা

২০০৮ সালে, হান্ড্রেডহ্যান্ডস পরিচালক প্রেমজিৎ রামচন্দ্রন দোশির সাক্ষাৎকার নিয়ে একটি তথ্যচিত্র প্রকাশ করেন। তিনি মণি রত্নমের ও কাদাল কানমানি এবং শাদ আলীর ওকে জানুতে নিজের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।[১০]

বালকৃষ্ণ দোশি বলেছিলেন যে তিনি ঐতিহাসিক ভারতীয় স্মৃতিস্তম্ভের পাশাপাশি ইউরোপীয় এবং আমেরিকান স্থপতিদের কাজ দ্বারা তিনি অনুপ্রাণিত হয়েছেন।[১৫]

ব্যক্তিগত জীবন এবং মৃত্যু

সম্পাদনা

তিনি ১৯৫৫ সালে কমলা পারিখকে বিয়ে করেন। তাঁদের তিন কন্যা ছিল - তেজল, রাধিকা এবং মনীষা।[১৬] তেজল পান্থকি একজন বস্ত্র পরিকল্পনাকার,[১৭] রাধিকা কাঠপালিয়া একজন স্থপতি এবং ফ্যাশন ডিজাইনার,[১৮] এবং মনীষা আক্কিথাম একজন চিত্রশিল্পী।[১৯]

দোশি ২০২৩ সালের ২৪শে জানুয়ারী গুজরাটের আহমেদাবাদে ৯৫ বছর বয়সে মারা যান।[২০][২১]

স্বীকৃতি

সম্পাদনা

দোশি রয়্যাল ইনস্টিটিউট অফ ব্রিটিশ আর্কিটেক্টের একজন ফেলো ছিলেন। তিনি প্রিটজকার পুরস্কার, ইন্দিরা গান্ধী ন্যাশনাল সেন্টার ফর দ্য আর্টস এবং স্থাপত্যের জন্য আগা খান পুরস্কারের জন্য নির্বাচন কমিটিতে ছিলেন। এছাড়াও তিনি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ আর্কিটেক্টের একজন ফেলো ছিলেন।[২২]

বালকৃষ্ণ দোশির ভারতীয় ও ইংরেজি ঐতিহ্যের পুনঃএকত্রীকরণের কাজটি ২০০৭ সালে মজবুত স্থাপত্যের জন্য একটি বৈশ্বিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিল, এটি পুরস্কারের প্রথম সংস্করণ। পুরস্কারটি একটি বিকল্প উন্নয়ন মডেলের দিকে দোশির গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপকে স্বীকৃতি দিয়েছিল।[২৩]

২০১৮ সালের মার্চ মাসে, দোশিকে প্রিটজকার আর্কিটেকচার পুরস্কার দেওয়া হয়, যা এই ক্ষেত্রের জন্য নোবেল সমতুল্য, এই সম্মান প্রাপ্ত তিনি প্রথম ভারতীয় ছিলেন। প্রিটজকার জুরি ঘোষণা করেছেন যে দোশি "সর্বদা এমন একটি স্থাপত্য তৈরি করেছেন যা গুরুত্বপূর্ণ, কখনও চটকদার বা প্রবণতার অনুসারী নয়", এবং তাঁর "গভীর দায়িত্ববোধ এবং উচ্চ মানের, খাঁটি স্থাপত্যের মাধ্যমে তাঁর দেশ এবং তার জনগণের জন্য অবদান রাখার ইচ্ছা" উল্লেখ করেছেন।[৫]

 
সি কে মেহতা ২০১৭ সালের ২৭শে জুন দোশীকে ধীরুভাই ঠাকর সভ্যসাচী সারস্বত পুরস্কার প্রদান করছেন
 
আইআইএম-ব্যাঙ্গালোরের একাডেমিক ব্লক
 
হোসেন-দোশি গুফা, আহমেদাবাদ

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. Balkrishna Vithaldas Doshi. ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৩ আগস্ট ২০১১ তারিখে. ArchNet 2011. Retrieved 26 July 2011.
  2. Ashish Nangia (১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৬)। "Balkrishna V Doshi: The Mythical and the Modern"। Post-Colonial India and its Architecture – II। ১০ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "Balkrishna Doshi Named 2018 Pritzker Prize Laureate"ArchDaily। ৭ মার্চ ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৮ 
  4. Pogrebin, Robin (৭ মার্চ ২০১৮)। "Top Architecture Prize Goes to Low-Cost Housing Pioneer From India"The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  5. Rajghatta, Chidanand (৮ মার্চ ২০১৮)। "B V Doshi 1st Indian to win 'Nobel' for architecture"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১৮ 
  6. "Padma Awards" (পিডিএফ) 
  7. "Royal Gold Medal 2022 recipient: Balkrishna Doshi" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০২১ 
  8. Balkrishna Doshi. Timeline of his life & works
  9. Japan Architect। ২০০১ https://backnumber.japan-architect.co.jp/english/2maga/au/magazine/2001/05/architect/001/main.html। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০২৩ – backnumber.japan-architect.co.jp-এর মাধ্যমে।  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  10. Shah, Devanshi (২৬ আগস্ট ২০১৭)। "9 amazing facts you absolutely wouldn't have guessed about BV Doshi"Architectural Digest। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৮ 
  11. "Every object around us is in symphony"BBC। ৮ মার্চ ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  12. "Balkrishna Doshi | Biography, Buildings, Works, Architecture, & Facts | Britannica"www.britannica.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৮-১৪ 
  13. "Limited Edition Serigraphs and Signed Prints by architect B. V. Doshi"www.archerindia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৮-১৪ 
  14. Pogrebin, Robin (৭ মার্চ ২০১৮)। "Top Architecture Prize Goes to Low-Cost Housing Pioneer From India"The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০২৩ 
  15. Saberin, Zeenat (৮ মার্চ ২০১৮)। "Balkrishna Doshi: 'Architecture is a backdrop to life'"Al Jazeera। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  16. Contemporary Architects। Internet Archive। St. James Press। ১৯৮৭। পৃষ্ঠা 234–237। আইএসবিএন 978-0-912289-26-7 
  17. "Tejal Design Studio"www.baroda.com। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০২২ 
  18. "VSC Vāstu Shilpā Consultants – Team"Indian-Architects (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০২২ 
  19. "Maneesha Doshi"Saffronart। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০২২ 
  20. "Celebrated architect Balkrishna Doshi passes away at 95"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০২৩ 
  21. Bernstein, Fred A. (২৪ জানুয়ারি ২০২৩)। "Balkrishna Doshi, Modernist Indian Architect, Is Dead at 95"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০২৩ – NYTimes.com-এর মাধ্যমে। 
  22. "Dr. Balkrishna Doshi, architect of IIMB and Pritzker Architecture Prize awardee, is honoured with Padma Bhushan | IIM Bangalore"www.iimb.ac.in। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৮-১৪ 
  23. Contal, Marie-Hélène; Revedin, Jana (জুন ২০০৯)। Sustainable Design: Towards a New Ethic in Architecture and Town Planning। Birkhäuser। আইএসবিএন 978-3-7643-9938-2 
  24. "Padma Awards 2023 announced"www.pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-২৭ 
  25. updated, Ellie Stathaki last (৯ ডিসেম্বর ২০২১)। "Balkrishna Doshi wins 2022 Royal Gold Medal for Architecture"wallpaper.com। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০২৩ 
  26. "K G Subramanyan awarded Savyasachi Award"The Times of India। ২৮ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১০ 
  27. "Global Award for Sustainable Architecture"Cité de l'architecture & du patrimoine (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০২০ 
  28. "B V Doshi conferred France's highest honour for arts | Ahmedabad News – Times of India"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  29. "Institute of Indology"www.architectmagazine.com। ৭ মার্চ ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০২২ 
  30. "9 iconic buildings designed by BV Doshi"Architectural Digest India (ইংরেজি ভাষায়)। ২৬ আগস্ট ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  31. "When Hauz Khas ruins, kund steps and gopuram gateways inspired BV Doshi to design NIFT Delhi"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০২২ 
  32. Shahane, Devayani (২ জানুয়ারি ২০০৩)। "PM to inaugurate Sawai Gandharva Smarak"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০২২ 
  33. "Udayan ~ The Condoville"Ambuja Neotia (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৮-১৪ 

আরও পড়ুন

সম্পাদনা
  • কার্টিস, উইলিয়াম জেআর, বালিকৃষ্ণ দোশি: ভারতের জন্য একটি স্থাপত্য, রিজোলি, নিউ ইয়র্ক ১৯৮৮,আইএসবিএন ০-৮৪৭৮-০৯৩৭-৪
  • জেমস স্টিল, দ্য কমপ্লিট আর্কিটেকচার অফ বালিকৃষ্ণ দোশি, ডেভেলপিং ওয়ার্ল্ডের জন্য আধুনিকতা পুনর্বিবেচনা, টেমস অ্যান্ড হাডসন, লন্ডন ১৯৯৮,আইএসবিএন ০-৫০০-২৮০৮২-৭
  • ব্রুনো মেলোটো সংস্করণ, বালকৃষ্ণ দোশি। সংগাথ। ঐতিহ্য এবং আধুনিকতার মধ্যে ভারতীয় স্থাপত্য , ম্যাগিওলি, সান্টারকাঞ্জেলো ডি রোমাগনা ২০১২,আইএসবিএন ৮৮-৩৮৭-৬১২৬-৪
  • ব্রুনো মেলোটো সংস্করণ, বালকৃষ্ণ দোশি। ভারতে মাস্টার্স। লে করবুসিয়ার, লুই কান এবং ভারতীয় প্রসঙ্গ, ম্যাগিওলি, সান্টারকাঞ্জেলো ডি রোমাগনা ২০১৪,আইএসবিএন ৯৭৮-৮৮-৩৮৭-৬২৯৫-৬

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা

টেমপ্লেট:PadmaBhushanAwardRecipients 2020–2029

টেমপ্লেট:Pritzker Prize laureates