ফ্রঁৎস ফানঁ

ফরাসি দার্শনিক ও মনোবিজ্ঞানী

ফ্রঁৎস ফানঁ[১] (ফরাসি: Frantz Fanon; ২০ জুলাই ১৯২৫ – ৬ ডিসেম্বর ১৯৬১), যিনি ইব্রাহিম ফ্রঁৎস ফানঁ নামেও পরিচিত, ছিলেন একজন মার্তিনিকান মনোবিজ্ঞানী, দার্শনিক, বিপ্লবী এবং লেখক যাঁর কাজের প্রভাব রয়েছে উত্তর-ঔপনিবেশিক অধ্যয়ন, সমালোচনামূলক তত্ত্ব এবং মার্ক্সবাদের মতো ক্ষেত্রগুলিতে। একজন বুদ্ধিজীবী হিসেবে ফানঁ ছিলেন রাজনৈতিক বিপ্লবে বিশ্বাসী, প্যান-আফ্রিকানবাদী এবং মার্ক্সীয় মানবতাবাদী যাঁর উপনিবেশায়নের মনোরোগ এবং বিউপনিবেশায়নের মানবিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ফলাফলের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা ছিল।

ফ্রঁৎস ফানঁ
Frantz Fanon
Frantz Fanon
জন্মফ্রঁৎস ফানঁ
(১৯২৫-০৭-২০)২০ জুলাই ১৯২৫
Fort-de-France, মার্তিনিক, France
মৃত্যু৬ ডিসেম্বর ১৯৬১(1961-12-06) (বয়স ৩৬)
বেথেসডা, মেরিল্যান্ড
দাম্পত্যসঙ্গীজোসি ফানঁ
সন্তানওলিভার ফানঁ, মিরিলো ফানঁ-মেন্দেস ফ্রঁস

জন্ম ও শিক্ষাজীবনসম্পাদনা

ফানঁ ১৯২৫ সালে মার্তিনিকে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর মা, ইলানোর মেডেলিস ছিলেন আফ্রো-মার্টিনিকান এবং সাদা আলসতিয়ান বংশোদ্ভূত এবং দোকানদার হিসাবে কাজ করতেন।[২]

ফ্রান্সে চিকিৎসাবিদ্যায় শিক্ষা গ্রহণের পর তিনি মনোরোগবিদ্যায় বিশেষ জ্ঞান অর্জন করেন। সাতাশ বছর বয়সে তিনি তার প্রথম বই প্রকাশ করেন। ফরাসিদের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানের সময় তাকে একটি হাসপাতালের দায়িত্ব দেয়া হয়। তার সেখানকার অভিজ্ঞতা ও পর্যবেক্ষণ তাকে বিদ্রোহীদের সাথে সহকর্মী করে তোলে এবং তিনি তাদের একজন সোচ্চার মুখপত্র হয়ে ওঠেন। ওই সময়েই তার 'জগতের লাঞ্ছিত ভাগ্যাহত' বইটি লেখা হয়। স্বায়ত্বশাসিত আলজেরিয়াতে শান্তির প্রতিষ্ঠা ফানঁ দেখে যেতে পারেননি। ১৯৬১ সালে তার লিউকোমিয়া রোগ ধরা পড়ে। কাজের প্রতি গভীর নিষ্ঠার জন্য তিনি অবসর নেননি; কিন্তু দেখা গেল বড় দেরি হয়ে গেছে। ১৯৬১ সালের শেষের দিকে তাকে ওয়াশিংটন নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেই বছরই ডিসেম্বর মাসে মাত্র ছত্রিশ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পর তার সমস্ত তাত্ত্বিক লেখা 'ফ্রঁৎস ফানঁর বিপ্লবি চিন্তা' নামক বইটিতে সন্নিবেশিত হয়।[৩]

কর্মজীবনসম্পাদনা

কালো চামড়া, সাদা মুখোশ ফানঁর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ। কালো চামড়া, সাদা মুখোশ-এ ফানঁ মনোবিশ্লেষ করেছেন নিপীড়িত কালো ব্যক্তিকে যারা যেই সাদা দুনিয়ায় তারা বাস করেন সেখানে নিজেদেরকে নিচু মানের প্রাণী হিসেবে হৃদয়ঙ্গম করে থাকেন এবং অধ্যয়ন করে কীভাবে তারা ফর্সাত্বের কার্যকারিতার মাধ্যমে বিশ্বকে চালনা করে।[২]

ফানঁর দর্শনসম্পাদনা

পুরস্কার ও সম্মাননাসম্পাদনা

তথ্যসুত্রসম্পাদনা

  1. এই ফরাসি ব্যক্তিনামটির বাংলা প্রতিবর্ণীকরণে উইকিপিডিয়া:বাংলা ভাষায় ফরাসি শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ-এ ব্যাখ্যাকৃত নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে।
  2. Gordon, Lewis R.; Cornell, Drucilla (২০১৫-০১-০১)। What Fanon Said: A Philosophical Introduction to His Life and Thought (ইংরেজি ভাষায়)। Fordham University Press। পৃষ্ঠা 26। আইএসবিএন 9780823266081 
  3. জগতের লাঞ্ছিত ভাগ্যাহত, মূল: ফ্রানজ ফানো, অনুবাদ ও ভূমিকা: আমিনুল করিম ভূইয়া, বাংলা একাডেমী, ঢাকা, ডিসেম্বর, ১৯৮৮।

বহিঃসংযোগসম্পাদনা