ফুজাইল ইবনে আয়াজ

ফুজাইল ইবনে আয়াজ (জন্ম: ৭২৬ সাল - ৮০৩ সাল / ৭ মহররম বা ৩ রবিউল আউয়াল ১৮৭ হিজরি, الفضيل بن عياض , পুরো নাম আল-ফুজাইল ইবনে আয়াজ ইবনে বিশর ইবনে মাসুদ ইবনে আবু আলী আত-তামিমি আল-ইয়ারবুই আল-খোরাসানী; আবু আলী এবং আল-তালাকানি নামেও পরিচিত ছিলেন) হলেন হিজরি দ্বিতীয় শতাব্দীর একজন ইসলামি সুন্নি পণ্ডিত। তাকে আবেদ আল-হারামাইন বলা হয়।

ফুজাইল ইবনে আয়াজ ইবনে বিশর ইবনে মাসুদ ইবনে আবু আলী আত-তামিমি আল-ইয়ারবুই আল-খোরাসানী
الفضيل بن عياض بن مسعود بن بشر أبو على التميمي اليربوعي الخراساني
Arabic Calligraphy Of Al-Fudayl Ibn 'Iyad's Name.png
ফুজাইল ইবনে আয়াজের নামের ক্যালিগ্রাফি
আবেদ আল-হারামাইন
জন্ম৭২৬ সাল
সমরকন্দ, উজবেকিস্তান
মৃত্যু৭ মহররম বা ৩ রবিউল আউয়াল ১৮৭ হিজরি
২৮ ফেব্রুয়ারি ৮০৩ সাল
মক্কা
শ্রদ্ধাজ্ঞাপনইসলাম
প্রধান স্মৃতিযুক্ত স্থানবাগদাদ
যার দ্বারা প্রভাবিতআবদুল ওয়াহিদ বিন জায়েদ জাফর সাদিক
যাদের প্রভাবিত করেনইব্রাহিম ইবনে আদহাম

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

সমরকন্দ, মারভ, মসুল এবং বলখ সহ বেশ কয়েকটি স্থানকে ফুজাইলের জন্মস্থান বলে ধারণা করা হয়। তবে বিশুদ্ধ মতে, তিনি ৭২৬ সালে উজবেকিস্তানের সমরকন্দে জন্মগ্রহণ করেন।

আত-তামিমি নিসবাহ বোঝায় যে, ফুজাইল বনু তামিমের আরব গোত্রের অন্তর্গত এবং আল-খোরাসানী নিসবাহ বোঝায় যে, তিনি খোরাসানের লোক ছিলেন; অর্থাৎ তাকে সম্ভবত আরব বংশোদ্ভূত বা আরব হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

তার ভাবান্তর হওয়ার আগে ফুজাইল সিরিয়া এবং খোরাসানে একদল দস্যু বা রাহাজানের নেতৃত্ব দিতেন, কাফেলায় হামলা চালাতেন এবং যাত্রীদের ডাকাতি করতেন।[১] এমনকি এই সময়েও তিনি একজন মুসলিম ছিলেন, দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তেন, প্রয়োজন অনুযায়ী রোজা রাখতেন এবং তার লোকদেরকে নির্যাতিতদের মধ্যে পাওয়া কোনো নারীকে প্রকাশ করতে নিষেধ করতেন।[২] এই সময়ে, তিনি একজন মহিলার সাথে গভীর প্রেমে পড়েছিলেন এবং প্রায়শই তার চুরি করা ধন থেকে তাকে টোকেন পাঠাতেন।

তার দস্যুতার ইতিহাসে একজন ধনী বণিকের ঘটনা রয়েছে। একদিন মরুভূমির মধ্যে একটি কাফেলা যাচ্ছিল। তখন ডাকাত দল ঐ কাফেলার উপর হামলা করে ডাকাতি শুরু করলো। ঐ কাফেলাতে ছিল একজন ধনী বণিক। তিনি তার ধন-সম্পদ দস্যুদের থেকে লুকিয়ে রাখার জন্য একটি তাঁবুর ভিতরে প্রবেশ করলেন। তখন তিনি ভিতরে দেখলেন ফুজাইল প্রার্থনায় রত আছেন। বণিক তাকে সৎ লোক মনে করে তার সম্পদ লুকিয়ে রাখতে বলে। বণিক যখন তার পথ চলতে থাকে, তখন ফুজাইলের লোকেরা তার অবশিষ্ট সম্পদ লুট করে নেয়। লুটতরাজ শেষে বণিক তার গচ্ছিত সম্পদ ফিরিয়ে আনার জন্য ফুজাইলে কাছে ফিরে আসেন, তখন তিনি তার চারপাশে সেই দস্যুদের দেখতে পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েন যারা সেখানে তাকে লুট করেছিল, যে লোকটিকে তিনি বিশ্বাস করেছিলেন সেই ছিল ডাকাত দলের সর্দার; তবে ফুজাইল ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে, তিনি একজন খোদাভীরু মানুষ এবং তার আস্থার বিশ্বাসঘাতকতা করবেন না, তাই বণিককে তার কাছে বিশ্বস্ত মনে করে যে সম্পদ রেখেছিলেন তা ফিরিয়ে দেন।[৩]

অন্য আরেকদিন ফুজাইল একটি দেয়ালে আরোহণ করে একটি কাফেলা দেখছিল;[৪] তখন ফুজাইল একজনকে কুরআন শরীফের সূরা হাদীদের ১৬ নং আয়াত তিলাওয়াত করতে শুনলেন, আয়াতটি হল "মুমিনদের জন্য কি এখনো সময় আসেনি যে তাদের হৃদয় সম্পূর্ণ বিনয়ের সাথে আল্লাহর স্মরণে নিয়োজিত থাকবে? সত্য যা (তাদের কাছে) অবতীর্ণ হয়েছে এবং তারা যেন তাদের মত না হয় যাদেরকে পূর্বে ওহী দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু তাদের উপর দীর্ঘকাল অতিবাহিত হয়েছে এবং তাদের অন্তর কঠিন হয়ে গেছে। কারণ তাদের মধ্যে অনেকেই ছিল সীমালঙ্ঘনকারী"। এই আয়াতটি শোনামাত্র তার মধ্যে ভাবান্তর ঘটলো। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, তিনি আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ এবং দস্যুতা উভয়ই দাবি করার জন্য একজন ভণ্ড ছিলেন। অতঃপর তিনি ডাকাতি ছেড়ে দিলেন।[২][৫]

একদিন ফুজাইল তার অপরাধমূলক পথ ছেড়ে দিয়ে মরুভূমিতে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন তখন তিনি সেখানে একটি কাফেলাকে শিবির স্থাপন করতে দেখলেন - এবং শুনলেন দু'জন লোক একে অপরকে তার দস্যুতার ব্যাপারে সতর্ক করছেন। তখন ফুজাইল শিবিরের ভিতরে এলেন এবং নিজের পরিচয় দিলেন, বললেন তিনি তার কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হয়েছেন এবং আর কোন বিপদ নেই।[৫][৬]

এর পরে, ফুজাইল তার পরিচিত প্রতিটি শিকারের সাথে দেখা করার চেষ্টা করেছিলেন যাতে তিনি তাদের কাছ থেকে যা চুরি করেছিলেন তা শোধ করে দিতে পারেন এবং যখন তার উপলব্ধ জিনিসপত্র ফুরিয়ে যায়, তখন তিনি তাদের কাছে ক্ষমা চাওয়ার করার জন্য তাদের কাছে যান। তবে একজন ইহুদি তাকে শোধ না করা পর্যন্ত তাকে ক্ষমা করতে অস্বীকৃতি জানায় এবং ফুজাইলকে তার ঋণ পরিশোধের জন্য তার বাড়ির সামনে ময়লার স্তূপ সরানোর নির্দেশ দেয়। বেশ কয়েকদিন কাজ করার পর, একটি ঝড় ময়লার স্তূপ উড়িয়ে দিয়েছিল এবং ফুজাইল ইহুদিকে ব্যাখ্যা করেছিল যে, আল্লাহ তাকে সাহায্য করেছেন। ইহুদী তখন তার বিছানায় ময়লার একটি থলি রাখল ও ফুজাইলকে তা তার কাছে আনতে বলল এবং ময়লা সোনায় পরিণত হয়েছে তা আবিষ্কার করার পর মন্তব্য করল যে, সে এখন ফুজাইলের ধর্মে বিশ্বাস করে এবং মুসলমান হতে চায়।[৭][৮] 

পরবর্তী জীবনসম্পাদনা

পৃথিবীটা একটা আশ্রয়ের মত আর এর বন্দীরা পাগলের মত। পাগলদের সব সময় বন্দী করে রাখা হয়।

—ফুজাইল ইবনে আয়াজ[২]

তার ভাবান্তর হওয়ার পর ফুজাইল আধুনিক ইরাকের কুফায় চলে যান এবং জাফর সাদিকআব্দুল ওয়াহিদ বিন জায়েদের অধীনে অধ্যয়ন করেন।[৯] এবং ইব্রাহিম ইবনে আদহাম, বিশর হাফীছিররিউ সাকতীকে শিক্ষাদান করেন।[৯] যখন ফুজাইল মক্কায় হজ করার সিদ্ধান্ত নেন, তখন তিনি তার স্ত্রীর কাছে যান এবং তাকে বলেছিলেন যে, তাকে দীর্ঘ এবং বিপজ্জনক যাত্রায় চলে যেতে হবে, তবে তিনি যদি তার অনুপস্থিতিতে পুনরায় বিয়ে করতে চান তবে তিনি তাকে তালাক দিতে ইচ্ছুক। তিনি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন এবং বলেছিলেন যে তিনি ভ্রমণে তার সাথে যেতে ইচ্ছুক। তিনি দীর্ঘকাল মক্কায় অবস্থান করেন এবং আবু হানিফার অধীনে অধ্যয়ন করেন।[২] তার অন্তত একটি পুত্র ছিল, যার নাম ছিল আলী এবং দুটি কন্যাও ছিল।[২]

ফুজাইল তার সামাজিক প্রকৃতির জন্য বিখ্যাত ছিল এবং এর অনেক উদাহরণ রয়েছে। যখন তাকে দেখার সুযোগের জন্য ভিড় তার মক্কার বাড়ির চারপাশে জড়ো হতে শুরু করে তখন তিনি প্রায়শই তাদের নিরুৎসাহিত করতেন, এক সময় তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানাতে তার বাড়ির ছাদে দাঁড়ান এবং তাদের বলেন যে, তিনি দোয়া করেছিলেন যেন আল্লাহ তাদের এ সময়ের জন্য তাদের উত্তম প্রতিদান দেন। বরং তিনি নির্জনতার জন্য তার পছন্দের কারণে সুপরিচিত ছিলেন, এক পর্যায়ে তিনি বলেছিলেন যে, তিনি অসুস্থ হয়ে পড়বেন যাতে তিনি মানুষের সাথে দেখা করতে না পারেন এবং জনসাধারণের প্রার্থনায় যাওয়া এড়াতে পারেন।[২] তার থেকে বেঁচে থাকা আরেকটি উদ্ধৃতি হল "আমি এমন একজন ব্যক্তির প্রতি কৃতজ্ঞ যে আমাকে দেখলে সালাম দেয় না এবং অসুস্থ অবস্থায় আমাকে দেখতে আসে না"।[২]

ফুজাইলের ছেলে মূত্রনালীর সংক্রমণে ভুগছিল, যেটি নিরাময় হয়েছিল যখন ফুজাইল শুধুমাত্র প্রার্থনা ও বিশ্বাসের উপর নির্ভর করেছিলেন।[১০]

যখন ফুজাইল বুঝতে পারলেন যে তার মৃত্যু সন্নিকটে, তখন তিনি তার স্ত্রীকে তার কন্যাদেরকে মক্কায় আবু কায়েস পাহাড়ে নিয়ে যেতে বললেন এবং আল্লাহর কাছে বললেন যে, ফুজাইল সারাজীবন তাদের যত্ন করেছিল এবং এখন তারা আল্লাহর সোপর্দে।

তিনি ১৮৭ হিজরির ৭ মহররম নামাজের সময় মারা যান, কিছু পণ্ডিতের মতে, এটি ছিল রবিউল আউয়াল মাসের তৃতীয় দিন।[১১] 

তার ইচ্ছানুসারে, তার বিধবা স্ত্রী তাদের দুই কন্যাকে আবু কায়েস পাহাড়ে নিয়ে যায়, সেখানে ইয়েমেনের একজন নেতা তাদের অভ্যর্থনা জানান, যিনি তার দুই ছেলের সাথে ভ্রমণ করছিলেন এবং এইভাবে দুটি বিবাহের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।[২]

বাগদাদে তার সম্মানে একটি মাজার নির্মিত হয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

আরও দেখুনসম্পাদনা

  • সুফিদের তালিকা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Siddiqi, Iqtidar Husain (২০১০)। Indo-Persian historiography up to the thirteenth century। Primus Books। আইএসবিএন 978-81-908918-0-6 
  2. :: Hazrat Abdul Fuḍayl Ibn Iyad (rahmatullah alayh) :: ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৪ জুলাই ২০১৭ তারিখে[সন্দেহপূর্ণ ][dubious ]
  3. ":: Hazrat Abdul Fuḍayl Ibn Iyad (rahmatullah alayh) ::"। ১৪ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০২২ 
  4. :: Hazrat Abdul Fuḍayl Ibn Iyad (rahmatullah alayh) :: ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৪ জুলাই ২০১৭ তারিখে[সন্দেহপূর্ণ ]
  5. Muwaqif Mushriqah fi Hayatis Salaf
  6. How to Win Your Wife's Heart. Ibrahim Ibn Saaleh al-Mahmud
  7. Siddiqi, Iqtidar Husain (২০১০)। Indo-Persian historiography up to the thirteenth century। Primus Books। আইএসবিএন 978-81-908918-0-6 
  8. Jawami'ut Hika'at, Volume I, Part I
  9. Beale, Thomas William (১৮৮১)। The Oriental Biographical Dictionary। Asiatic Society। 
  10. Dols, Michael Walters (১৯৯২)। Majnūn: the madman in medieval Islamic society। Clarendon Press। পৃষ্ঠা 228। আইএসবিএন 978-0-19-820221-9 
  11. Khan, K. D. (২০০৪)। Khwaja Moinuddin Chishti: social and educational relevance। Sarup & Sons। আইএসবিএন 978-81-7625-515-8 
  • তাজকিরাতুল আউলিয়া মূল: ফরিদ উদ্দিন আত্তার, অনুবাদ: আর্থার জন আরবেরি, মুসলিম সেন্টস অ্যান্ড মিস্টিকস: এপিসোডস ফ্রম দ্য তাজকিরাতুল আল-আউলিয়া, রাউটলেজ, ১৯৮৩ (পুনঃমুদ্রণ ২০০৭), পৃ.৫২।

টেমপ্লেট:সুফি