ফারজানা আসলাম একজন পাকিস্তানী পদার্থবিদ এবং জ্যোতির্বিদ। তিনি কভেন্ট্রি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত, পদার্থবিজ্ঞান এবং জ্যোতির্বিজ্ঞানের অধ্যাপক।[১] তিনি এর আগে পাকিস্তানের করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ স্পেস অ্যান্ড প্ল্যানেটারি অ্যাস্ট্রোফিজিক্সের পদার্থবিজ্ঞান এবং জ্যোতির্বিজ্ঞানের অধ্যাপক ছিলেন।

ফারজানা আসলাম
فرزانہ اسلم
জন্মরাওয়ালপিন্ডি, ইসলামাবাদ, পাকিস্তান
জাতীয়তাপাকিস্তানী
মাতৃশিক্ষায়তন
পেশা
কর্মজীবন২০০৫-বর্তমান

জীবনীসম্পাদনা

ফারজানা শান্ত পরিবেশ ও সর্বোচ্চ সাক্ষরতার হারের জন্য বিখ্যাত একটি ছোট শহর রাওয়ালপিন্ডিতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ওয়াহ স্কুল অফ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা করেছেন। পরে তিনি পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তরিত হন এবং পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতক (বিএসসি) ডিগ্রি অর্জন করেন। তারপরে তিনি ইসলামাবাদে চলে আসেন, সেখানে তিনি কয়েদ-ই-আজম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন, যেখানে তিনি পদার্থবিদ্যায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন।

স্নাতকোত্তর ডিগ্রির পরে, তিনি একই প্রতিষ্ঠান থেকে কোয়ান্টাম এবং লেজার পদার্থবিজ্ঞানে মাস্টার্স অফ ফিলোসফি (এমফিল) অর্জন করেন। এরপরে আসলাম ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিতে যুক্তরাজ্যে আসেন। ২০০৫ সালে তিনি ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অফ ফিজিক্স অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোনমি থেকে পদার্থবিজ্ঞান এবং জ্যোতির্বিদ্যায় ডাবল ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৫ সালে, তিনি স্কুল অফ ফিজিক্স অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোনমিতে সক্রিয় "ফোটোনিক ফিজিক্স গ্রুপ"-এ যোগ দেন, যেখানে তিনি টু-ফোটন পদার্থবিজ্ঞান এবং লেজার ফোটোনিকে বিশেষীকরণ করেছিলেন।[২] ২০০৫ সালে তিনি লেজার পদার্থবিজ্ঞানে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

পদার্থবিদ্যায় অগ্রগতিসম্পাদনা

পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পরে, আসলাম পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক হিসাবে যোগদান করেন ও স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর কোর্সে পদার্থবিজ্ঞান পড়ান।[৩]

ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকে তিনি ডাটা স্টোরেজ এবং প্রসেসিং অ্যাপ্লিকেশনগুলির জন্য প্রয়োজনীয় উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন এবং অর্ধপরিবাহী ন্যানো পার্টিকেলের সাথে সংবেদনশীল পলিমারিক সংমিশ্রণ ক্ষেত্রে নিজেকে গুরুত্বপূর্ণ গবেষক হিসেবে দাড় করান। কলেজের শিক্ষার্থীদের তিনি গ্রেড-লেভেল গণিতও শিখিয়েছেন।[৪]

এছাড়াও, তিনি ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল ও পদার্থবিজ্ঞানের প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ বাড়াতে ওগডেন টিচিং ফেলোশিপের মাধ্যমে জনপ্রিয় বিজ্ঞান প্রোগ্রামে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। এই বৃত্তির উদ্দেশ্য হ'ল ব্রিটিশ পাবলিক স্কুলগুলিতে শিশুদের জন্য রোল মডেল হিসাবে কর্মরত বিজ্ঞানীদের জড়িত করেন, যাতে তরুণ প্রজন্মকে বিজ্ঞান এবং প্রকৌশল পড়তে উৎসাহিত করা যায়। তার অবদানের কারণে, তিনি গ্লাসগোর ইনস্টিটিউট অফ ফিজিক্স আয়োজিত সেপ্টেম্বর ২০০৪-এর ফোটন সম্মেলনে একটি পুরস্কার পেয়েছিলেন।

পাকিস্তানি মহিলাদের নিয়ে দৃষ্টিসম্পাদনা

আসলাম দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে পাকিস্তানী নারীদের যে কোনও পেশায় অংশ নেওয়ার দুর্দান্ত বুদ্ধি এবং সম্ভাবনা রয়েছে। তারা সমাজের উন্নয়নে ইতিবাচক অবদান রাখতে পারে এবং এটি আরও সুস্থ ও শক্তিশালী ভিত্তি গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। তাদের অবশ্যই জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে বিশেষত ব্যক্তিগত, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে তাদের পূর্ণ সম্ভাবনা উপলব্ধি করতে হবে এবং তাদের অবশ্যই বুঝতে হবে যে তারা তাদের ইসলামী মূল্যবোধ বজায় রেখে এটি করতে পারে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Dr. Farzana Aslam, The Staff। "Dr Farzana Aslam"Coventry University। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  2. "Archived copy"। ৭ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০১৭ 
  3. See Farzana Aslam (4 ফেব্রুয়ারি 2010)। "Former Ogden Trust Teaching Fellows at Manchester"। The Ogden Trust। 27 ফেব্রুয়ারি 2012 তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ 2010  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  4. Unknown। "Lay out: Postgraduate Brochure 2005/06" (PDF)School of Engineering and Physical SciencesManchester University। ১৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল (pdf) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮