ইসলামাবাদ

পাকিস্তানের রাজধানী

ইসলামাবাদ (উর্দু: اسلام آباد‎‎) পাকিস্তানের রাজধানী, এবং এর অংশ হিসাবে ফেডারেলভাবে পরিচালিত হয় ইসলামাবাদ রাজধানী অঞ্চল। ইসলামাবাদ হল পাকিস্তানের নবম বৃহত্তম শহর, যদিও এর চেয়ে বড় ইসলামাবাদ-রাওয়ালপিন্ডি মহানগর এলাকা প্রায় ০.৪৮ মিলিয়ন জনসংখ্যার সাথে দেশের চতুর্থ বৃহত্তম শহর।

ইসলামাবাদ
اسلام آباد
রাজধানী
Faisal Masjid From Damn e koh.jpg
Long Exposure of Blue Area Islamabad.JPG
Parliament House, Islamabad by Usman Ghani.jpg
Trail 3 Margalla Hills Islamabad.jpg
Islamabad, Pakistan Monument.jpg
Faisal Mosque, Islamabad III.jpg
ডাকনাম: ইসলু, সবুজ শহর, দ্য গ্রিন সিটি[১]
ইসলামাবাদ পাকিস্তান-এ অবস্থিত
ইসলামাবাদ
ইসলামাবাদ
ইসলামাবাদ এশিয়া-এ অবস্থিত
ইসলামাবাদ
ইসলামাবাদ
ইসলামাবাদ পৃথিবী-এ অবস্থিত
ইসলামাবাদ
ইসলামাবাদ
স্থানাঙ্ক: ৩৩°৪১′৩৫″ উত্তর ৭৩°০৩′৫০″ পূর্ব / ৩৩.৬৯৩০৬° উত্তর ৭৩.০৬৩৮৯° পূর্ব / 33.69306; 73.06389
দেশপাকিস্তান
প্রশাসনিক অঞ্চলইসলামাবাদ রাজধানী অঞ্চল
নির্মিত১৯৬০
প্রতিষ্ঠিত১৪ আগস্ট ১৯৬৭; ৫৪ বছর আগে (1967-08-14)[২]
সংসদীয় আসনএনএ-৫২, এনএ-৫৩, এনএ-৫৪
সরকার
 • ধরনমেট্রোপলিটন কর্পোরেশন
 • মেয়রপির আদিল শাহ গিলানি[৩]
 • ডেপুটি মেয়রসৈয়দ জিশান আলি নকভি[৪]
আয়তন[৫]
 • মহানগর২২০ বর্গকিমি (৮০ বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা২২০ বর্গকিমি (৮০ বর্গমাইল)
 • মহানগর৯০৬.৫ বর্গকিমি (৩৫০.০ বর্গমাইল)
সর্বোচ্চ উচ্চতা১,৫৮৪ মিটার (৫,১৯৬ ফুট)
সর্বনিন্ম উচ্চতা৪৯০ মিটার (১,৬১০ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১৭)[৭]
 • মহানগর১০,১৪,৮২৫
 • ক্রম৯ম (পাকিস্তান)
 • জনঘনত্ব২,০৮৯/বর্গকিমি (৫,৪১০/বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা১০,১৪,৮২৫
 • পৌর এলাকার জনঘনত্ব৪,৬০৯/বর্গকিমি (১১,৯৪০/বর্গমাইল)
 • গ্রামীণ৯,৯১,৭৪৭
 • মহানগর৭৪,১২,২০৫[৬]
 • ক্রম, মেট্রোপলিটন৩য় (পাকিস্তান)
বিশেষণইসলামাবাদি
সময় অঞ্চলপিকেটি (ইউটিসি+৫)
পোস্টকোড৪৪০০০
এলাকা কোড০৫১
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৯)বৃদ্ধি ০.৬৭৭
এইচডিআই শ্রেণিমধ্যম
উল্লেখযোগ্য ক্রীড়াদলইসলামাবাদ ইউনাইটেড, ইসলামাবাদ জিন্নস
ওয়েবসাইটwww.islamabad.gov.pk

করাচীকে পাকিস্তানের রাজধানী হিসাবে প্রতিস্থাপনের জন্য ১৯৬০-এর দশকে পরিকল্পিত শহর হিসাবে নির্মিত, ইসলামাবাদের উচ্চমানের জীবনযাত্রার জন্য খ্যাত, শহরটি পাকিস্তানের রাজনৈতিক আসন এবং স্থানীয় সরকার সেটআপ পরিচালনা করে ইসলামাবাদ মেট্রোপলিটন কর্পোরেশন, মূলধন উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ দ্বারা সমর্থিত (সিডিএ)। ইসলামাবাদ দেশের উত্তর-পূর্ব অংশে পোটোহার মালভূমিরাওয়ালপিন্ডি জেলা এর মধ্যে অবস্থিত উত্তরে মার্গলা পাহাড় জাতীয় উদ্যান অঞ্চলটি ইতিহাসিকভাবে এর চৌরাস্তাগুলির একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে পাঞ্জাব এবং খাইবার পাখতুনখোয়া দুটি অঞ্চলের মধ্যে প্রবেশদ্বার হিসাবে অভিনয় করে মার্গালা পাস

গ্রীক স্থপতি কন্সটান্টিন ডক্সিয়াডেস দ্বারা ডিজাইন করা শহরের মাস্টার-প্ল্যান, শহরটি প্রশাসনিক, কূটনৈতিক ছিটমহল, আবাসিক অঞ্চল, শিক্ষামূলক ক্ষেত্র, শিল্প খাত, বাণিজ্যিক অঞ্চল এবং গ্রামীণ ও সবুজ অঞ্চল সহ আটটি জোনে বিভক্ত করে। শহরটি বেশ কয়েকজনের উপস্থিতির জন্য পরিচিত উদ্যান এবং বন, সহ মার্গলা পাহাড় জাতীয় উদ্যানশকরপরিয়ান পার্ক এই শহরে ফয়সাল মসজিদ সহ একাধিক নিদর্শন রয়েছে বৃহত্তম মসজিদ দক্ষিণ এশিয়ার এবং বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম

ইতিহাসসম্পাদনা

১৯৬০ সালে পাকিস্তানের নতুন রাজধানী প্রতিষ্ঠার জন্য পাঞ্জাব প্রদেশের রাওয়ালপিন্ডি জেলা থেকে জমি স্থানান্তর করা হয়েছিল। ১৯৬০ সালের প্রধান পরিকল্পনা অনুসারে রাজধানী অঞ্চলটিতে রাওয়ালপিন্ডি অন্তর্ভুক্ত ছিল এবং এটি নিম্নলিখিত অংশগুলির সমন্বয়ে গঠিত:

(১) রাওয়ালপিন্ডি, ২৫৯ বর্গ কিলোমিটার (১০০ বর্গ মাইল)

(২) ইসলামাবাদ, ২২০.১৫ বর্গ কিলোমিটার (৮৫ বর্গ মাইল)

(৩) মার্গালা পাহাড়, ২২০.১৫ বর্গ কিলোমিটার (৮৫ বর্গ মাইল)

(৪) ইসলামাবাদ পল্লী, ৪৪৬.২০ বর্গ কিলোমিটার (১৭২.২৮ বর্গ মাইল)

রাওয়ালপিন্ডি শেষ পর্যন্ত ১৯৮০ এর দশকে ইসলামাবাদ মাস্টার প্ল্যান থেকে বাদ পড়েছিল।

প্রশাসনসম্পাদনা

ইসলামাবাদ পাঁচটি অঞ্চলে বিভক্ত:

প্রথম অঞ্চল: নগর উন্নয়ন এবং সরকারী ফেডারেল সংস্থার জন্য মনোনীত

দ্বিতীয় অঞ্চল: নগর উন্নয়নের জন্য মনোনীত

তৃতীয় অঞ্চল: গ্রামীণ উন্নয়নের জন্য মনোনীত

চতুর্থ অঞ্চল: গ্রামীণ উন্নয়নের জন্য মনোনীত

পঞ্চম অঞ্চল: গ্রামীণ উন্নয়নের জন্য মনোনীত

ইউনিয়ন পরিষদসম্পাদনা

ইসলামাবাদ রাজধানী অঞ্চলটি শহুরে এবং গ্রামীণ অঞ্চল নিয়ে গঠিত। ১৩৩ গ্রামাঞ্চল নিয়ে ২৩ টি ইউনিয়ন পরিষদ, আর শহরে ২৭ টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে।

ইসলামাবাদ রাজধানী অঞ্চল এর ইউনিয়ন পরিষদ এবং এর এখতিয়ারের মধ্যে প্রধান স্থানীয় এলাকা সমূহ:

(১) সৈয়দপুর, সৈয়দপুর, গোকিনা, তালহার

(২) নূরপুর শাহান, নূরপুর শাহান, রত্ত হুটার

(৩) মাল পুর, মাল পুর, রোমালি, নারিয়াস, ফাদু, শাহদ্রাহ খুরদ, শাহদ্রাহ কালান, মন্ডালা, জাং বেগিয়াল, সাববান সৈয়দান, ম্যানগিয়াল, কায়েদ-ই-আজম বিশ্ববিদ্যালয়

(৪) কোট হাতিয়াল (শামাল), কোট হাতিয়াল, ভর কাহু, নয়ায়াবাদী, মুহল্লাহ আল্নূর, মহল্লা বান, মুহল্লাহ মালকান

(৫) কোট হাতিয়াল (জানুব), কোট হাতিয়াল, নৈনসুখ, বারাকাহু, বেহরা সৈয়দান, মুহল্লাহ ঘোসিয়া, শারক-ই-মদীনা, মুহল্লাহ মালেকাবাদ

(৬) ফুলগ্রান, ফুলগ্রান, ফুল গরণ, আব্বাসিয়াবাদ, মহল্লা কাঙ্গার, মহল্লা রঞ্জপুরান, শাহপুর, ববরী, কার্লোত চত্ত্বর, মোহরা রাজপুতা, মুহল্লা সুম্বুল, বানী গালা

(৭) পিন্ড বেগওয়াল, পিন্ড বেগওয়াল, বেনালা, মাইরা বিগুওয়াল, আটল, সিহালি, জনডালা, সিমলি

(৮) তুমির তুমাইর, পাইহন্ট, চাকতান, দার্কালাম, কাঞ্জনা

(৯) চরাচ, চরাহ, কিণী,হাভেলি

(১০) কিরপা, কিরপা, লাধিয়ট সৈয়দান, পিন্ড মালিকান, ভীম্বর তারার, মহল্লা হাভেলি রাজগান, মেহফোজবাদ, ছানিওল, মহল্লা চৌধুরী, আরা, গোরা মাস্ত, জোগিয়ান হারনু, চৌত্রা সোগ্রান

(১১) মুঘল, মুঘল, হার্ডো’র, কঙ্গোটা গুজজরান সিহালা, হন্ডামিয়াল, নারা সৈয়দান, ছুঁচাল চাকিয়ান, চক কামদার

(১২) রাওয়াত, রাওয়াত, ভাঙ্গরিয়াল কালান, বান্নি শরণ, মোহরা নাগিয়াল, সাওয়ান

(১৩) হুমক, হুমাক, কানিয়াল, গোরা সৈয়দান, নিয়াজিয়ান

(১৪) সিহালা, সিহালা খুরদ, মাইরা দাখলি, ভান্ডার সিহালা, জারকি সিহালা, গাগরী সিহালা, ঝুন্দলা, কঙ্গোটা সৈয়দান, গুরা মিস্ত্রিযান

(১৫) লোহি ভাই, লোহি ভর, শাহরাক-ই-কোরং, বাঘ-এ-সাওয়ান, শাহরাক-ই-পাকিস্তান

(১৬) দারওয়ালা, দারওয়ালা, পানওয়াল, চুচা শেখিয়ান, ভাইর, কাঙার, শের ঘামিয়াল, কাভগর, কাঠিয়াল, চুচা, কাশিমিরিয়া

(১৭) কোরাল, কোরাল, তারলাই খুরদ, গাঙ্গাল, চাকলালা, শরিফাবাদ, গোহরা সরদার, তারলাই

(১৮) খানা ডাক, খানা ডাক, জব্বা, পিনডোরিয়ান, শাহরাক-ই-বিলাল, শাহরাক-এ-বারমা, শাহরাক-ই-মদীনা, মুহল্লাহ ওয়াহিদ আবাদ, শাহরাক-এ-মসিহ

(১৯) তারলাই কালান, তারলাই কালান, ইরফানাবাদ, চাঁপার মীর খানাল, সাহানা

(২০) আলী পুর, আলী পুর, আলিপুর, খড়াপাড়, ফরাশ

(২১) সোহান, সোহান, দেহতি, খানা কাক, শাকরিয়াল, শাকরিয়াল (শার্কি)

(২২) চক শাহজাদ, চক শাহজাদ, চক বিহরা শিঘ, জাবা তেলি, সোহানা, পান্ডোরি, ছত্তা বখতাওয়ার, বোহান, মুজুহান

(২৩) কুড়ি, কুড়ি, মালোট, রাখ বানী গালা, রিহারা, মোহরা জুজন

(২৪) শাহরাক-ই-রাওয়াল, শাহরাক-ই-রাওয়াল, শাহরাক-ই-মারগালা, সুম্বাল কোরখ, পুনা ফকিরান, মোহরিয়ান

(২৫) সেক্টর এফ-৬, এফ-৬/১, এফ-৬/২, এফ-৬/৩, এফ-৬/৪, ফারুকী বাজার, মদনী মসজিদ, ধোবি গ্যাট

(২৬) সেক্টর জি-৬/১

(২৭) সেক্টর জি-৬, সেক্টর জি-৬/২, সেক্টর জি-৬/৩ এবং সেক্টর জি-৬/৪

(২৮) সেক্টর এফ-৭, এফ-৮, এফ-৯

(২৯) সেক্টর এফ-১০, এফ-১১

(৩০) সেক্টর জি-৭/৩, জি-৭/৪

(৩১) সেক্টর জি-৭/১, জি-৭/২

(৩২) সেক্টর জি-৮, জি-৮/৩, জি-৮/৪

(৩৩) সেক্টর জি-৮/১, জি-৮/২

(৩৪) সেক্টর জি-৯, সেক্টর জি-৯/১, জি-৯/৩, জি-৯/৪

(৩৫) সেক্টর জি-৯/২

(৩৬) সেক্টর জি-১০/৩, জি-১০/৪

(৩৭) সেক্টর জি-১০/১, জি-১০/২

(৩৮) সেক্টর জি-১১, সেক্টর জি-১১/১, জি-১১/২, জি-১১/৩, জি-১১/৪

(৩৯) মাইরা সুম্বল জাফর, মাইরা সুম্বাল জাফর, গোলরা শরীফ, বদিয়া রুসমত খান, মাইরা আক্কু, ধরিক মোহরী, শাহরাক-ই-এফাক

(৪০) সেক্টর আই-৮, সেক্টর আই-৮/১, আই-৮/২, আই-৮/৩, আই-৮/৪

(৪১) সেক্টর আই-৯

(৪২) সেক্টর আই-১০/১

(৪৩) সেক্টর আই-১০, সেক্টর আই-১০/২, আই-১০/৩, আই-১০/৪

(৪৪) বোকরা, বোকরা, হাজী কমপ্লেক্স, সোরিয়া হারবোজা, মৌজা সৌরেন, পীর ওয়াদাই, শাহরাক-ই-ইকবাল

(৪৫) জানগী সায়েদান

(৪৬) বাদনা কালান

(৪৭) তারনো

(৪৮) সরাই খারবুজা

(৪৯) শাহ আল্লাহ

(৫০) গোলরা শরীফ

আবহাওয়াসম্পাদনা

ইসলামাবাদের জলবায়ুতে আর্দ্র উপনিরক্ষীয় জলবায়ু রয়েছে। পাঁচটি ঋতু, শীতকালীন (নভেম্বর-ফেব্রুয়ারি), বসন্ত (মার্চ এবং এপ্রিল), গ্রীষ্ম (মে এবং জুন), বর্ষা (জুলাই ও আগস্ট) এবং শরত্কাল (সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর)। উষ্ণতম মাস জুন, যেখানে গড় উচ্চতা নিয়মিত ৩৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (১০০.৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট) থেকে বেশি। সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত, বজ্রপাত এবং বন্যার সম্ভাবনা সহ মাসটি হলো জুলাই। শীতলতম মাস জানুয়ারী। ইসলামাবাদের জলবায়ু তিনটি কৃত্রিম জলাধার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত: রাওয়াল, সিমলি এবং খানপুর বাঁধ। শেষটি ইসলামাবাদ থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার (২৫ মাইল) খানপুর শহরের কাছে হারো নদীর তীরে অবস্থিত। সিমলি বাঁধটি ইসলামাবাদ থেকে ৩০ কিলোমিটার (১৯ মাইল) উত্তরে। শহরের ২২০ একর (৮৯ হেক্টর) মার্গালা পাহাড় জাতীয় উদ্যান নিয়ে গঠিত। লোই ভেড় ফরেস্ট ইসলামাবাদ হাইওয়ের পাশেই অবস্থিত এবং এর আয়তন ১০৮৭ একর (৪৪০ হেক্টর) জুড়ে বিস্তৃত। ১৯৯৫ সালের জুলাই মাসে সর্বোচ্চ ৭৪৩.৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত (২৯.২৬ ইঞ্চি) রেকর্ড করা হয়েছিল। শীতকালে সাধারণত সকালে রোদ এবং দুপুরে ঘন কুয়াশা থাকে। নগরীতে, তাপমাত্রা হালকা থাকে, নিকটবর্তী পার্বত্য স্টেশনগুলিতে উচ্চতর উঁচু পয়েন্টগুলিতে তুষারপাত সহ উল্লেখযোগ্যভাবে মুড়ি এবং নাথিয়া গালী রয়েছে। তাপমাত্রা জানুয়ারীতে ১৩° সেলসিয়াস (৫৫° ফারেনহাইট) থেকে জুন মাসে ৩৮° সেলসিয়াস (১০০° ফারেনহাইট) পর্যন্ত থাকে। ২৩ শে জুন ২০০৫ সালে সর্বাধিক রেকর্ড করা তাপমাত্রা ছিল ৪৬.৬ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (১১৫.৯ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১ জানুয়ারী ১৯৬৭ সালে -৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস (২১.২ ডিগ্রি ফারেনহাইট)। সেদিন শহরে তুষারপাত "রেকর্ড" হয়েছিল। ২৩ শে জুলাই ২০০১ এ ইসলামাবাদে মাত্র ১০ ঘণ্টার মধ্যে ৬২০ মিলিমিটার (২৪ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত হয়েছিল। এটি গত ১০০ বছরে ইসলামাবাদের সবচেয়ে ভারী বৃষ্টিপাত এবং ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত ছিল।

নগর প্রশাসনসম্পাদনা

নগরীর প্রধান প্রশাসনিক কর্তব্য হলো ইসলামাবাদ রাজধানী অঞ্চল, অঞ্চল প্রশাসন, মহানগর কর্পোরেশন, ইসলামাবাদ এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) সহায়তা করা। যা শহরের পরিকল্পনা, উন্নয়ন, নির্মাণ, এবং প্রশাসনের তদারকি করে। ইসলামাবাদ রাজধানী অঞ্চলটি আটটি অঞ্চলে বিভক্ত: প্রশাসনিক অঞ্চল, বাণিজ্যিক জেলা, শিক্ষামূলক ক্ষেত্র, শিল্পক্ষেত্র, কূটনৈতিক ছিটমহল, আবাসিক অঞ্চল, গ্রামীণ অঞ্চল এবং সবুজ অঞ্চল। ইসলামাবাদ শহরটি পাঁচটি প্রধান অঞ্চলে বিভক্ত: প্রথম জোন, দ্বিতীয় জোন, তৃতীয় জোন, চতুর্থ জোন এবং পঞ্চম জোন। এর মধ্যে চতুর্থ অঞ্চল বৃহত্তম। ঘোরি শহরের সমস্ত সেক্টর (১, ২, ৩, ভিআইপি, ৪-এ, ৪-বি, ৪-সি, ৫-এ, ৫-বি এবং সেক্টর ৭) এই অঞ্চলে অবস্থিত। মূলত প্রথম অঞ্চলটি বিকাশযুক্ত আবাসিক ক্ষেত্রের সমন্বয়ে গঠিত হয় এবং দ্বিতীয় অঞ্চলটি নিচু-উন্নত আবাসিক ক্ষেত্রগুলি নিয়ে গঠিত। প্রতিটি আবাসিক ক্ষেত্র বর্ণমালা এবং একটি সংখ্যার দ্বারা চিহ্নিত করা হয় এবং প্রায় ৪ বর্গকিলোমিটার এলাকা জুড়ে সেটি বিস্তৃত থাকে। খাতগুলি এ থেকে আই পর্যন্ত চিঠিয়ে দেওয়া হয় এবং প্রতিটি সেক্টরকে চারটি সংখ্যক সাব-সেক্টরে বিভক্ত করা হয়। সিরিজ এ, বি এবং সি এখনও অনুন্নত। ডি সিরিজের সাতটি সেক্টর রয়েছে (ডি-১১ থেকে ডি-১৭), যার মধ্যে কেবলমাত্র সেক্টর ডি-১২ সম্পূর্ণরূপে বিকাশিত। এই সিরিজটি মার্গালা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত। ই সেক্টরগুলির নাম ই-৭ থেকে ই-১৭ এ রাখা হয়েছে। এই সেক্টরে অনেক বিদেশী এবং কূটনৈতিক কর্মী রাখা হয়। নগরীর সংশোধিত মাস্টার প্ল্যানে সিডিএ সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে ই-১৪ সেক্টরের ফাতেমা জিন্নাহ পার্কের আদলে একটি পার্ক গড়ে তোলা হবে। ই-৮ এবং ই-৯ বিভাগে বাহরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, এয়ার বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস রয়েছে। এফ এবং জি সিরিজে সর্বাধিক উন্নত খাত রয়েছে। এফ সিরিজে এফ-৫ থেকে এফ-১৭ সেক্টর রয়েছে; কিছু সেক্টর এখনও স্বল্প-উন্নত। এফ-৭ ইসলামাবাদের সফ্টওয়্যার শিল্পের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র, কারণ এখানে দুটি সফ্টওয়্যার প্রযুক্তি উদ্যান অবস্থিত। পুরো এফ-৯ সেক্টরটি ফাতেমা জিন্নাহ পার্কের আওতায় রাখা হয়েছে। সেন্টাউরাস কমপ্লেক্সটি এফ-৮ খাতের অন্যতম প্রধান লক্ষ হবে বলে আশা করা যায়। জি সেক্টরগুলি জি-৫ এর মাধ্যমে নম্বরযুক্ত। কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গার মধ্যে রয়েছে জি-৫ জিন্নাহ কনভেনশন সেন্টার এবং সেরেনা হোটেল, জি-৬ এর লাল মসজিদ এবং জি-৮ এ অবস্থিত রাজধানীর বৃহত্তম মেডিকেল কমপ্লেক্স, পাকিস্তান ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস। এইচ সেক্টর এইচ-১ এর মাধ্যমে এইচ-৮ পর্যন্ত নম্বরযুক্ত। এইচ সেক্টর বেশিরভাগই শিক্ষা ও স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের জন্য নিবেদিত। জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এইচ-১২ সেক্টরের একটি বড় অংশ জুড়ে বিস্তৃত এবং আই সেক্টরগুলি আই-৮ থেকে আই-১৮ পর্যন্ত নম্বরযুক্ত। আই-৮ ব্যতীত, যা একটি উন্নত আবাসিক অঞ্চল, এই খাতগুলি প্রাথমিকভাবে শিল্প অঞ্চলের অংশ। আই-৯ এর দুটি উপ-সেক্টর এবং আই-১০ এর একটি উপ-সেক্টর শিল্প অঞ্চল হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। সিডিএ সেক্টর আই-১৮ এ ইসলামাবাদ রেল স্টেশন এবং আই-১৭ সেক্টরে শিল্প নগরী স্থাপনের পরিকল্পনা করছে। তৃতীয় অঞ্চলটি মূলত মার্গলা পাহাড় এবং মার্গলা পাহাড় জাতীয় উদ্যান নিয়ে গঠিত। এই অঞ্চলে রাওয়াল হ্রদ রয়েছে। চতুর্থ জোন এবং পঞ্চম জোনের মধ্যে ইসলামাবাদ পার্ক এবং শহরের গ্রামীণ অঞ্চল রয়েছে। সোন নদীটি পঞ্চম জোনের মধ্য দিয়ে শহরে প্রবাহিত হয়েছে।

অর্থনীতিসম্পাদনা

 
জারাই তারাকিয়াতি ব্যাংক লিমিটেড, ইসলামাবাদ, পাকিস্তান

পাকিস্তানের অর্থনীতিতে ইসলামাবাদ অত্যন্ত জরুরি একটি অঞ্চল, যদিও দেশের জনসংখ্যার মাত্র ০.৮% দেশের জিডিপিতে ১% অবদান রাখে। ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত ইসলামাবাদ স্টক এক্সচেঞ্জটি করাচি স্টক এক্সচেঞ্জ এবং লাহোর স্টক এক্সচেঞ্জের পরে পাকিস্তানের তৃতীয় বৃহত্তম স্টক এক্সচেঞ্জ। এক্সচেঞ্জের ১১৪ সদস্য রয়েছে। যার মধ্যে ১০৪ কর্পোরেট সংস্থার সাথে এবং ১৮ স্বতন্ত্র সদস্যের সাথে। স্টক এক্সচেঞ্জের গড় দৈনিক টার্নওভারটি ১ মিলিয়ন শেয়ারেরও বেশি, ২০১২ অবধি, ইসলামাবাদ এলটিইউ (বৃহত্তর শুল্ক ইউনিট) কর আয়ের ৩৭১ বিলিয়ন রুপির জন্য দায়বদ্ধ ছিল, যা ফেডারেল বোর্ড অফ রাজস্ব দ্বারা সংগৃহীত সমস্ত রাজস্বের ২০%। ইসলামাবাদ দুটি জাতীয় এবং বিদেশী প্রযুক্তির মাধ্যমে তথ্য প্রযুক্তি সংস্থার সমন্বিত দুটি সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের সাথে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রসার ঘটিয়েছে। টেক পার্কগুলি এভ্যাকুই ট্রাস্ট কমপ্লেক্স এবং আওয়ামী মার্কাজে অবস্থিত। আওয়ামী মার্কাজের ৩৬ টি এবং ইভাউকি ট্রাস্টের ২৯ টি সংস্থা রয়েছে। বিদেশী সংস্থাগুলির কল সেন্টারগুলিকে প্রবৃদ্ধির আরও একটি উল্লেখযোগ্য ক্ষেত্র হিসাবে টার্গেট করা হয়েছে, সরকার তথ্য প্রযুক্তি খাতে বিদেশী বিনিয়োগকে উত্সাহিত করার জন্য ১০ শতাংশেরও বেশি কর হ্রাসের প্রচেষ্টা চালিয়েছে। পাকিস্তানের বেশিরভাগ রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি যেমন পিআইএ, পিটিভি, পিটিসিএল, ওজিডিসিএল, এবং জারাই তারাকিয়াটি ব্যাংক লিমিটেড ইসলামাবাদে অবস্থিত। সমস্ত বড় টেলিযোগাযোগ অপারেটরগুলির সদর দফতর যেমন পিটিসিএল, মবিলিংক, টেলিনোর, ইউফোন, এবং চায়না মোবাইল ইসলামাবাদে অবস্থিত।

চলাচল ব্যবস্থাসম্পাদনা

(১) বিমানবন্দর: ইসলামাবাদ বেনজির ভুট্টো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, যা আগে ইসলামাবাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসাবে পরিচিত ছিল। বিশ্বের প্রধান স্থানগুলির সাথে সংযুক্ত বিমানবন্দরটি পাকিস্তানের তৃতীয় বৃহত্তম এবং রাওয়ালপিন্ডির চাকলালায় ইসলামাবাদের বাইরে অবস্থিত। ২০০৪-২০০৫ অর্থবছরে, বেনজির ভুট্টো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ব্যবহার করে ২,৮৮৮ মিলিয়ন যাত্রী এবং ২৩,৩৬৬ বিমান চলাচল নিবন্ধিত হয়েছে। ক্রমবর্ধমান যাত্রীদের সংকট মোকাবেলায় ইসলামাবাদ গান্ধার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি ফতেহ জংয়ে চলছে। সমাপ্ত হলে, বিমানবন্দরটি পাকিস্তানের বৃহত্তম বিমানবন্দর হবে। বিমানবন্দরটি ৪০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে নির্মিত হবে এবং ২০১৭ সালের মধ্যে এটি সম্পূর্ণ কার্যকর হবে বলে আশা করা হচ্ছে। পাকিস্তানের এটি প্রথম সবুজ ক্ষেত্র বিমানবন্দর হবে ৩,৬০০ একর (১৫ বর্গ কিলোমিটার) এলাকা নিয়ে।

(২) রাওয়ালপিন্ডি-ইসলামাবাদ মেট্রোবাস: এটি ২৪ কিলোমিটার (১৪.৯ মাইল) বাসের দ্রুত ট্রানজিট সিস্টেম যা পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডি এবং ইসলামাবাদের দুটি শহরগুলিতে পরিষেবা দেয়। এটি ২৪ টি বাস স্টেশনকে কভার করে সমস্ত রুটের জন্য ডেডিকেটেড বাস লেন ব্যবহার করে। ইসলামাবাদ গাড়ি ভাড়া পরিষেবা যেমন আলভী ট্রান্সপোর্ট নেটওয়ার্ক এবং পাকিস্তান গাড়ি ভাড়াগুলির মাধ্যমে দেশের অন্যান্য অংশের সাথে সুসংযুক্ত।

সমস্ত বড় শহরগুলি নিয়মিত ট্রেন এবং বাস সার্ভিসের মাধ্যমে বেশিরভাগ প্রতিবেশী শহর রাওয়ালপিন্ডি থেকে  লাহোর ও পেশোয়ার মোটরওয়ের একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ইসলামাবাদের সাথে যুক্ত, যা এই শহরগুলির মধ্যে ভ্রমণের সময় উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করেছে। এম-২ মোটরওয়েটি ৩৬৭ কিলোমিটার (২২৮ মাইল) দীর্ঘ এবং ইসলামাবাদ ও লাহোরকে সংযুক্ত করেছে। এম-১ মোটরওয়ে ইসলামাবাদকে পেশোয়ারের সাথে সংযুক্ত করেছে এবং এটি ১৫৫ কিলোমিটার (৯৬ মাইল) দীর্ঘ । ইসলামাবাদ-ফয়জাবাদ ইন্টারচেঞ্জের মাধ্যমে রাওয়ালপিন্ডির সাথে সংযুক্ত রয়েছে, যার দৈনিক ট্রাফিক পরিমাণ প্রায় ৪৮,০০০ যানবাহন।

শিক্ষা ব্যবস্থাসম্পাদনা

ইসলামাবাদে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ সাক্ষরতার হার ৯৫%। কায়েদ-ই-আজম বিশ্ববিদ্যালয়, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং পাকিস্তান প্রকৌশল ও ফলিত বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটসহ পাকিস্তানের কয়েকটি বড় বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ইসলামাবাদে। বেসরকারী স্কুল নেটওয়ার্ক ইসলামাবাদ বেসরকারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষে কাজ করছে। পিএসএন এর সভাপতি হলেন ডাঃ মুহাম্মদ আফজাল বাবুর। পিএসএন ইসলামাবাদে আটটি জোনে বিভক্ত। তারলাই জোনের চৌধুরী ফয়সাল একাডেমী থেকে ফয়সাল আলী হোন পিএসএন-এর জোনাল জেনারেল সেকরেটারি। কায়েদ-ই-আজম বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকটি অনুষদ রয়েছে। ইনস্টিটিউটটি সচিবালয়ের ভবনের পূর্বে এবং মার্গলা পাহাড়ের গোড়ার নিকটে একটি অর্ধ-পাহাড়ি অঞ্চলে অবস্থিত। এই স্নাতকোত্তর প্রতিষ্ঠানটি ১,৭০৫ একর (৬.৯০ বর্গ কিলোমিটার) জুড়ে বিস্তৃত। ক্যাম্পাসের নিউক্লিয়াসটি একটি পাঠাগার সহ কেন্দ্র হিসাবে একটি অক্ষীয় মেরুদণ্ড হিসাবে নকশা করা হয়েছে। অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলির মধ্যে নিম্নলিখিতগুলি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে:

  • বাহরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়
  • এয়ার বিশ্ববিদ্যালয়
  • কায়েদ-ই-আজম বিশ্ববিদ্যালয়
  • আল্লামা ইকবাল উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (এআইইউউ)
  • আলকৌথার ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়
  • তথ্য প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট (সিআইআইটি)
  • মূলধন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (আনুষ্ঠানিকভাবে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামাবাদ ক্যাম্পাস)
  • কলা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেডারেল উর্দু বিশ্ববিদ্যালয়
  • জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
  • জাতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামাবাদ (এনডিইউ)
  • আধুনিক ভাষা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
  • ইনস্টিটিউট অফ স্পেস টেকনোলজি
  • আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামাবাদ
  • ইনস্টিটিউট অফ কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অফ পাকিস্তান (আইসিএমএপি)
  • পাকিস্তান উন্নয়ন অর্থনীতি ইনস্টিটিউট (পিআইডিই)
  • পাকিস্তান প্রকৌশল ও ফলিত বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট (পিআইইএএস)
  • শিফা কলেজ অফ মেডিসিন
  • ফাউন্ডেশন বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামাবাদ (এফইউআই)
  • জাতীয় কম্পিউটার ও উদীয়মান বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়
  • রিফাহ আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়
  • লাহোর বিশ্ববিদ্যালয়
  • প্রকৌশল বিভাগে উন্নত স্টাডিজ কেন্দ্র
  • প্রেস্টন বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামাবাদ ক্যাম্পাস
  • ইকরা বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামাবাদ ক্যাম্পাস
  • শহীদ জুলফিকার আলী ভুট্টো বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট (জ্যাবিআইএসটি)
  • হামদার্ড বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামাবাদ ক্যাম্পাস

খেলাধুলাসম্পাদনা

ইসলামাবাদ ইউনাইটেড ২০১৬ সালে পাকিস্তান সুপার লিগ জিতে প্রথম দল হিসেবে। আর এখন ফেডারেল দল পাকিস্তান কাপে অংশ নিচ্ছে। দলটি পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হকের নেতৃত্বে রয়েছে, ইসলামাবাদ ইউনাইটেডও মিসবাহের অধীনে ছিল।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Capital Facts for Islamabad, Pakistan"ওয়ার্ল্ডস’স ক্যাপিটাল সিটিস (ইংরেজি ভাষায়)। ১৬ জুন ২০২০। ৫ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০২০  অজানা প্যারামিটার |ইউআরএলের-অবস্থা= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  2. ম্যাকগার, পল (২০১৩)। দ্য কোল্ড ওয়ার ইন সাউথ এশিয়া: ব্রিটেন, দি ইউনাইটেড স্টেটস অ্যামড দি ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট, ১৯৪৫–১৯৬৫। ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। আইএসবিএন 9781107008151 
  3. "PML-N candidate elected as first-ever mayor of Islamabad"দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউন (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  4. "Islamabad deputy mayor distributes ration" (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ এপ্রিল ২০২০। 
  5. "CDA Facts & Figures" 
  6. "DISTRICT WISE CENSUS RESULTS CENSUS 2017" (PDF)। পাকিস্তান পরিসংখ্যান ব্যুরোর শুমারি। ২৯ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭  অজানা প্যারামিটার |ইউআরএলের-অবস্থা= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  7. "PROVISIONAL SUMMARY RESULTS OF 6TH POPULATION AND HOUSING CENSUS-2017"পাকিস্তান পরিসংখ্যান ব্যুরো (ইংরেজি ভাষায়)। ১০ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা