পাকিস্তান মুসলিম লীগ (জেড)

পাকিস্তানের একটি রাজনৈতিক দল

পাকিস্তান মুসলিম লীগ (জিয়া-উল-হক শহীদ) (উর্দু: پاکستان مسلم لیگ (ض)‎‎) হচ্ছে ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তানের একটি রাজনৈতিক দল। ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত প্রায় ১০ বছর ধরে পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি থাকা জেনারেল জিয়া-উল-হকের নামে দলটির নামকরণ করা হয়। ২০০২ সালের পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে এই দল থেকে জেনারেল জিয়া-উল-হকের পুত্র ইজাজ-উল-হক জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। পারভেজ মুশাররফের সমর্থিত পাকিস্তান মুসলিম লীগ (কিউ)-এর সাথে একীভূত হন।[১] এর ফলস্বরূপ তিনি পাকিস্তানের 'ধর্ম এবং আন্তঃধর্মীয় সংস্কৃতি' বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রিত্ব লাভ করেন। ২০০৮ সালের পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে পিএমএল (কিউ)-এর পরাজয়ের ফলে ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে পিএমএল-জেড পিএমএল (কিউ)-এর নেতৃত্বাধীন বৃহত্তর দল (জোট) থেকে বেরিয়ে যায়।

পাকিস্তান মুসলিম লীগ
(জিয়া-উল-হক শহীদ)

پاکستان مسلم لیگ (ض)
নেতাইজাজ-উল-হক
প্রতিষ্ঠাঅক্টোবর ২০০২ (2002-10)
বিভক্তিপাকিস্তান মুসলিম লীগ
সদর দপ্তরভাওয়ালনগর, পাঞ্জাব, পাকিস্তান
মতাদর্শপাকিস্তানি জাতীয়তাবাদ
রক্ষণশীলতা
রাজনৈতিক অবস্থানঅতি ডানপন্থী
সিনেট
০ / ১০৪
জাতীয় পরিষদ
০ / ৩৪২
পাঞ্জাব পরিষদ
০ / ৩৭১
ওয়েবসাইট
www.pmlzia.com
পাকিস্তানের রাজনীতি

২০১০ সালের মার্চ মাসে পিএমএল-জিয়া বাহাওয়ালনগরের [[পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদ|পাঞ্জাব প্রাদেশিক আসনে অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে সফলভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পাকিস্তান পিপলস পার্টিকে যথেষ্ট বিচলিত করেছিল।[২] ২০১০ সালের বন্যার সময় দলটি দক্ষিণ পাঞ্জাবের বন্যাদুর্গত স্থানে লক্ষ লক্ষ টাকার ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের জন্য জাতীয় মনোযোগে এসেছিল।[৩]

৯ অক্টোবর ২০১১ সালে, পিএমএল-জিয়া একমাত্র দল হিসেবে পিএমএল-এনের প্রদত্ত হুমকিকে সমর্থন জানায়; হুমকিগুলি ছিল পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদ ভেঙে দেওয়া হবে এবং ২০১২ সালের সিনেট নির্বাচনে পাকিস্তান পিপলস পার্টির প্রত্যাশিত বিজয়কে রোধ করা হবে।[৪]

২০১৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে, পিএমএল-জেড দুটি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জাতীয় পরিষদের এনএ-১৯১ বাহওয়ালনগর এবং পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদের দুটি আসন থেকে পুনরায় জয়লাভ করে।

ইজাজ-উল-হকের নির্বাচনী এলাকা এনএ-১৯১ আসনে (বাহাওয়ালপুর) ২০১৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে দেশে সবচেয়ে বেশি ভোটার উপস্থিতির রেকর্ড হয়েছে।[৫]

নির্বাচনী ইতিহাসসম্পাদনা

জাতীয় পরিষদের নির্বাচনসম্পাদনা

জাতীয় পরিষদ
নির্বাচন প্রাপ্ত ভোট ভোটের হার (%) আসন সংখ্যা +/–
২০০২ 78,798 0.27%
১ / ৩৪২
  1
২০১৩ 128,510 0.28%
১ / ৩৪২
  1
২০১৮ 1,406 0.00%
০ / ৩৪২
  1

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Parties to inform EC about merger with PML"Dawn। মে ২০, ২০০৪। 
  2. "PML-N wins NA-123, PP-82 slots"PakTribune। মার্চ ১১, ২০১০। 
  3. "PML-Z to distribute relief goods"Pakistan Daily। সেপ্টেম্বর ১১, ২০১০। মার্চ ২২, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "PML-N threatens to dissolve Punjab Assembly"Express Tribune। অক্টোবর ৯, ২০১১। 
  5. "Pakistan elections 2013 total voter turnout: 55%"Express Tribune। মে ২১, ২০১৩।