দেলোয়ার জাহান ঝন্টু

দেলোয়ার জাহান ঝন্টু হচ্ছেন একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, গীতিকবি, সুরকার, চিত্রনাট্যকার, কাহিনীকার, চলচ্চিত্র সম্পাদক, চিত্রগ্রাহক, সঙ্গীত পরিচালক এবং একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা[১][২] তিনি লিডার চলচ্চিত্র পরিচালনার মাধ্যমে পরিচালনায় আত্মপ্রকাশ করেন, পাশাপাশি এটি প্রযোজনাও করেছেন তিনি। তার পরিচালিত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র বন্দুক, এবং এটি মুক্তি পায় ১৯৭৮ সালে। মার্চ ২০২১-এর হিসাব অনুযায়ী, চার দশকেরও বেশি কর্মময় জীবনে তিনি ৭৬টি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছেন, যা বাংলাদেশী চলচ্চিত্রে কোনো একক পরিচালকের সর্বাধিক চলচ্চিত্র পরিচালনা এবং সাড়ে তিন শতাধিক চলচ্চিত্রের জন্য চিত্রনাট্য লিখেছেন।[১][২][৩] তার সর্বশেষ পরিচালিত চলচ্চিত্র তুমি আছো তুৃমি নেই, যা ২০২১ সালে মুক্তি পায়।

দেলোয়ার জাহান ঝন্টু
জন্ম
অন্যান্য নামঝন্টু
মাতৃশিক্ষায়তনপাক-জার্মান টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট
পেশাপরিচালক, প্রযোজক, চিত্রনাট্যকার, কাহিনীকার
কর্মজীবন১৯৭৮–বর্তমান
উল্লেখযোগ্য কর্ম
নিচে দেখুন
শৈলীলৌকিক, কাল্পনিক, বিজ্ঞাননির্ভর
আত্মীয়সারোয়ার জাহান (ভাই)

কর্মজীবনসম্পাদনা

দেলোয়ার জাহান ঝন্টু লিডার চলচ্চিত্র পরিচালনার মাধ্যমে পরিচালনায় আত্মপ্রকাশ করেন তিনি, এটি প্রযোজনাও করেন তিনি। তার পরিচালিত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র বন্দুক, যা মুক্তি পায় ১৯৭৮ সালে। তার পরিচালিত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র শিমুল পারুল, প্রেমগীত, হারানো প্রেম, ঝিনুকমালার প্রেম, বউমা, সকাল-সন্ধ্যা, পালকি, জজ ব্যারিস্টার, মুজাহিদ, হাতি আমার সাথী, কন্যাদান, রূপসী নাগিন, নাচে নাগিন, রূপের রানী গানের রাজা, বিষে ভরা নাগিন, হেডমাস্টার, সবাই তো ভালবাসা চায় প্রভৃতি। তার পরিচালিত সর্বশেষ চলচ্চিত্র আকাশ মহল, যা ২০১৯ সালের ২ আগস্ট মুক্তি পায়।[৪] তিনি গরিবের রাজা চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।

এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

নির্বাচিত চলচ্চিত্রসম্পাদনা

  • লিডার
  • বন্দুক (১৯৭৮)
  • মহেশখালীর বাঁকে (১৯৭৮)
  • প্রেমগীত
  • হারানো প্রেম
  • ঝিনুকমালার প্রেম
  • বউমা
  • সকাল-সন্ধ্যা
  • নাজমা (১৯৮৩) (কাহিনী)
  • মাটির কোলে (১৯৮৬)
  • হাতি আমার সাথী (৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৭)
  • শশি পুন্নু (৩ জুলাই ১৯৮৭)
  • শিমুল পারুল (১৯৮৭)
  • পালকি
  • জজ ব্যারিস্টার
  • মুজাহিদ
  • কন্যাদান (১৯৯৫) (কাহিনী, চিত্রনাট্য, সংলাপ, গীত ও পরিচালনা)
  • ফাইভ রাইফেল (১৯৯৭)
  • রাজা বাংলাদেশী (১৯৯৮)
  • রূপসী নাগিন
  • নাচে নাগিন
  • রূপের রানী গানের রাজা
  • বিষে ভরা নাগিন (২০০০)
  • বাপবেটির যোদ্ধ (২০০১)
  • বীর সৈনিক (২০০৩) (কাহিনী, সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা)
  • বকুল ফুলের মালা (২০০৬)
  • সবাই তো ভালবাসা চায় (২০০৯)[৫] (চিত্রনাট্য, সংলাপ ও পরিচালনা)
  • সাথী হারা নাগিন (২০১১)
  • জজ ব্যারিস্টার পুলিশ কমিশনার (২০১৩) (কাহিনী)
  • হেডমাস্টার (২০১৪)
  • এপার ওপার (২০১৫)
  • আকাশ মহল (২০১৯)
  • তুমি আছো তুমি নেই (২০২১)

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "ঝন্টু তাঁহার নাম | কালের কণ্ঠ"কালের কন্ঠ। ১৩ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২০ 
  2. "চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব দেলোয়ার জাহান ঝন্টু"মাছরাঙা টিভি। ১৩ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২০ 
  3. "ঝন্টুর ৭৫ | কালের কণ্ঠ"কালের কন্ঠ। ৩০ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২০ 
  4. খান, মারুফ (২ আগস্ট ২০১৯)। "মুক্তি পেয়েছে 'আকাশ মহল'"রাইজিং বিডি.কম। ১৩ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২০ 
  5. বিনোদন (২০১০)। "'সবাই তো ভালোবাসা চায়' দেলোয়ার জাহান ঝন্টু"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১২ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা