ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড আদর্শ বিদ্যা নিকেতন

ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড আদর্শ বিদ্যা নিকেতন বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের ঢাকা সেনানিবাস এলাকায় অবস্থিত সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর পরিচালিত একটি মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বিদ্যালয়টি মূলত সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সন্তানদের জন্য হলেও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গের সন্তানরাও এখানে পড়াশোনা করতে পারে।[১][২]

ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড আদর্শ বিদ্যা নিকেতন, মানিকদী
ঠিকানা
মানিকদি (সিগনাল ব্যাটালিয়ন )



তথ্য
ধরনস্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান
নীতিবাক্য"পড় তোমার প্রভুর নামে যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন"
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৭৯ (1979)
বিদ্যালয় বোর্ডমাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা
বিদ্যালয় জেলাঢাকা
কর্তৃপক্ষসামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়
বিদ্যালয় নম্বর১০৭৮৪৯
চেয়ারম্যানব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ সেলিম মাহমুদ, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি
প্রধান শিক্ষকআব্দুল মালেক
লিঙ্গছেলে ও মেয়ে
বয়সসীমা০৬-১৮
ভর্তি২,৫০০+
গড় শ্রেণীর আকারশিশু - দশম
ভাষার মাধ্যমবাংলা এবং ইংরেজি
শিক্ষায়তন৩ একর
ক্যাম্পাসের ধরনশহুরে
ঘরশের-ই বাংলা, হাজী মহসিন, কবি নজরুল ও শহীদ তীতুমীর হাউজ
ক্রীড়াফুটবল, ক্রিকেট, বাস্কেটবল, ভলিবল, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, হ্যান্ডবল
ডাকনামDCBABN
বার্ষিক ম্যাগাজিনহিল্লোল
ওয়েবসাইট

বিংশ শতাব্দীর বিশ্বমান শিক্ষা বিস্তার, সুপ্ত প্রতিভার কালোত্তীর্ণ বিকাশন, জ্ঞানানুশীলন ও মানবিক মানব গড়ার লক্ষ্যে এক দল বিদ্যানুরাগী ১৯৭৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের উত্তর পশ্চিম প্রান্তের এস এন্ড টি ইউনিট এবং শহীদ মোস্তফা কামাল লাইনের সীমানা প্রাচীর সংলগ্ন মানিকদী, মাটিকাটা, বালুঘাট, বারনটেক ও বাউনিয়াসহ বিভিন্ন এলাকার প্রবেশদ্বারে ৩ একর জমিতে আধুনিক এবং নান্দনিক এই শিক্ষাঙ্গনটি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮১ সালে বিদ্যালয়টি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড, ঢাকা এর স্বীকৃতি লাভ করে। সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ১৯৯১ সালে বিদ্যালয়টি অধিগ্রহণ করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিদ্যালয়টি মুক্ত জ্ঞানের অবিরাম ধারা প্রবাহে আলোকিত সমাজ ও জাতি গঠনে অসামান্য অবদান রেখে চলেছে। প্রতিবছরই বিদ্যালয় থেকে শত শত শিক্ষার্থী মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা সম্পন্ন করে দেশের বিভিন্ন খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করছে। সেখান থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে বর্তমানে তারা প্রজাতন্ত্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদ অলংকৃত করে দেশসেবায় অনন্য ভূমিকা পালন করছে।

বিদ্যালয়টিতে বর্তমানে প্রভাতী ও দিবা নামে দু’টি শিফটে শিক্ষা কার্যক্রম চালু আছে এবং শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৫০০ জন। বিদ্যালয়টির পিইসি, জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল খুবই সন্তোষজনক। পাবলিক পরীক্ষাগুলোতে বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যাও কম নয়। জাতীয় ও আঞ্চলিক বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা , বিএনসিসি, গার্ল গাইড, স্কাউটসহ বিভিন্ন সহশিক্ষা কার্যক্রমে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন রূপায়ণে সরকারের গৃহীত যুগান্তকারী পদক্ষেপের সাথে তাল মিলিয়ে উন্নয়নে অবদান রাখতে সক্ষম ও সুদক্ষ জনসম্পদ গঠনের লক্ষ্যে বিদ্যালয়ে কর্মরত প্রত্যেকেই নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। অত্র বিদ্যালয়ের একদল সুযোগ্য, নিরলস পরিশ্রমী ও তারুণ্যদীপ্ত শিক্ষক-শিক্ষিকার সার্বিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি উত্তরোত্তর সাফল্যের স্বর্ণ শিখর পানে সুদৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে চলেছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Dhaka Cantonment Board Adarsha Bidyaniketon"dcbabn.edu.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-৩০ 
  2. "সেনাবাহিনী প্রধানের পক্ষ থেকে দরিদ্র পরিবারের মাঝে ঈদ শুভেচ্ছা উপহার বিতরণ | জাতীয়"Noyashotabdi। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-৩০