জেনিফার জেসন লেই

মার্কিন অভিনেত্রী

জেনিফার জেসন লেই (ইংরেজি: Jennifer Jason Leigh; জন্ম: জেনিফার লেই মোরো, ৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৬২) হলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী, পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার। তিনি ১৯৭০-এর দশকে টেলিভিশনে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার কর্মজীবন শুরু করেন। ফাস্ট টাইমস অ্যাট রিজমন্ট হাই (১৯৮২) চলচ্চিত্রে স্টেসি হ্যামিলটন চরিত্রে অভিনয় দিয়ে তিনি পরিচিতি লাভ করেন। তিনি মায়ামি ব্লুজ (১৯৯০), লাস্ট এক্সিট টু ব্রুকলিন (১৯৯০), ব্যাকড্রাফট (১৯৯১), সিঙ্গল হোয়াইট ফিমেল (১৯৯২) ও শর্ট কাটস (১৯৯৩) ছবিতে অভিনয় করে সমাদৃত হন।

জেনিফার জেসন লেই
Jennifer Jason Leigh
Jennifer Jason Leigh by Gage Skidmore.jpg
২০১৫ সালের জুলাই মাসে লেই
জন্ম (1962-02-05) ৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৬২ (বয়স ৫৮)
পেশাঅভিনেত্রী, পরিচালক, চিত্রনাট্যকার
কার্যকাল১৯৭৬-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীনোয়া বমব্যাচ
(বি. ২০০৫; বিচ্ছেদ. ২০১৩)
সন্তান
পিতা-মাতাভিক মোরো (পিতা)
বারবারা টার্নার (মাতা)

লেই মিসেস পার্কার অ্যান্ড দ্য ভিসিয়াস সার্কেল (১৯৯৪)-এ ডরোথি পার্কার চরিত্রে অভিনয় করে গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। ১৯৯৫ সালে তিনি তার মা বারবারা টার্নারের লেখা জর্জিয়া চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ২০০১ সালে তিনি দ্য অ্যানিভার্সারি পার্টি চলচ্চিত্র রচনা ও অ্যালান কামিং-এর সাথে যৌথভাবে পরিচালনা করেন। লেই অপরাধমূলক নাট্যধর্মী রোড টু পার্ডিশন (২০০২) ও হাস্যরসাত্মক মার্গো অ্যাট দ্য ওয়েডিং (২০০৭) ছবিতে এবং শোটাইম চ্যানেলের হাস্যরসাত্মক নাট্যধর্মী ধারাবাহিক উইডস-এ জিল প্রাইস-গ্রে চরিত্রে অভিনয় করেন। ২০১৫ সালে তিনি চার্লি কফম্যানের আনোমালিসা-এ লিসা চরিত্রে কণ্ঠ প্রদান করে সমাদৃত হন এবং কোয়েন্টিন টারান্টিনোর দ্য হেটফুল এইট চলচ্চিত্রে ডেইজি ডোমার্গ চরিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে অস্কার,[১] গোল্ডেন গ্লোব,[২] বাফটাক্রিটিকস চয়েস চলচ্চিত্র পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

অফ-ব্রডওয়ে মঞ্চে তিনি মাইক লেইয়ের অ্যাবিগেল্‌স পার্টি মঞ্চনাটকে অভিনয় করে ড্রামা ডেস্ক পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। ১৯৯৮ সালে কাবারে নাটক দিয়ে তার ব্রডওয়ে মঞ্চে অভিষেক হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. আহমেদ, ফয়সাল (২৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। "অ্যান্ড দ্য অস্কার গোজ টু?"দৈনিক আমাদের সময়। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  2. "গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ডের মনোনয়ন পেলেন যারা"দৈনিক ভোরের কাগজ (ইংরেজি ভাষায়)। ১৩ ডিসেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা