প্রধান মেনু খুলুন

চিত্তুর জেলা

অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের একটি জেলা

চিত্তুর জেলা (তেলুগু: చిత్తూరు జిల్లా, প্রতিবর্ণী. চিত্তূরু জিল্লা) (এই শব্দ সম্পর্কেpronunciation ) হল ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের রায়ালসীমা অঞ্চলের একটি জেলা। এই জেলার সদর শহর চিত্তুর। ২০১১ সালের জনগণনা অনুসারে, এই জেলার জনসংখ্যা ৪,১৭০,৪৬৮।[৩] চিত্তুর জেলায় অনেকগুলি বিখ্যাত মন্দির রয়েছে। এগুলির মধ্যে তিরুপতি, কানিপকমশ্রীকালহস্তী মন্দির উল্লেখযোগ্য। অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের সর্বদক্ষিণে পইনি নদী উপত্যকায় ৪ নং জাতীয় সড়কের চেন্নাই-বেঙ্গালুরু শাখায় এই জেলা অবস্থিত। চিত্তুর জেলা আম, খাদ্যশস্য, আখ ও মটরশুঁটির অন্যতম প্রধান বাজার।

চিত্তুর জেলা
చిత్తూరు జిల్లా
জেলা
চিত্তুর জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ১৮°২৫′ উত্তর ৮৪°০১′ পূর্ব / ১৮.৪১৭° উত্তর ৮৪.০১৭° পূর্ব / 18.417; 84.017স্থানাঙ্ক: ১৮°২৫′ উত্তর ৮৪°০১′ পূর্ব / ১৮.৪১৭° উত্তর ৮৪.০১৭° পূর্ব / 18.417; 84.017
দেশভারত
রাজ্যঅন্ধ্রপ্রদেশ
অঞ্চলরায়ালসীমা
আয়তন
 • মোট১৫৩৫৯ কিমি (৫৯৩০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৪১,৭০,৪৬৮[১]
ভাষা
 • সরকারিতেলুগু
সময় অঞ্চলভারতীয় প্রমাণ সময় (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডISO 3166-2:IN
সদরচিত্তুর
লিঙ্গানুপাতপুং-৫০%/স্ত্রী-৪০% /
সাক্ষরতার হার৭২.৯৬%
লোকসভা আসন
বিধানসভা আসন১৪
চিত্তুর জেলা অন্ধ্রপ্রদেশের রায়ালসীমা (নীল রঙে চিহ্নিত) অঞ্চলের অংশ।
তিরুমালা পর্বতের ঢাল। এই ঢালটি গরুড়ের মতো দেখতে।

নামকরণসম্পাদনা

চিত্তুর জেলার নাম এই জেলার সদর শহর চিত্তুরের নাম থেকে এসেছে।[৪]

ইতিহাসসম্পাদনা

১৯১১ সালের ১ এপ্রিল তদনীন্তন মাদ্রাজ রাজ্যের উত্তর আরকট জেলার চিত্তুর, পালামানেরু, চন্দ্রগিরি এবং কাডাপা থেকে মদনপল্লী, বয়ালপদু এবং স্থানীয় জমিদারিগুলি থেকে পুঙ্গানুর, শ্রীকালহস্তী, করবেতিনগর অঞ্চলগুলিকে একত্রিত করে চিত্তুর জেলা গঠন করা হয়। পরে ১৯৬০ সালের ১ এপ্রিল মা. পো. সি. প্রমুখ নেতৃবর্গের দাবি মেনে চিত্তুর জেলার ৩১৯টি গ্রাম তামিলনাড়ু রাজ্যের কাঞ্চীপুরম জেলাতিরুবল্লুর জেলার সঙ্গে যুক্ত করা হয়।

তিরুপতির শহরতলি অঞ্চলে অবস্থিত চন্দ্রগিরি ছিল বিজয়নগর সাম্রাজ্যের চতুর্থ রাজধানী।

ভূগোলসম্পাদনা

 
অন্ধ্রপ্রদেশের জেলাসমূহ।

চিত্তুর জেলা অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের রায়ালসীমা অঞ্চলের অংশ।[৫] এই জেলার আয়তন ১৫,৩৫৯ বর্গকিলোমিটার (৫,৯৩০ মা)।[৬][৭] চিত্তুর জেলার উত্তরপশ্চিমে অনন্তপুর জেলা, উত্তরে কাডাপা জেলা, উত্তরপূর্বে নেল্লোর জেলা এবং দক্ষিণ দিকে তামিলনাড়ু রাজ্যের কৃষ্ণগিরি জেলা, ভেল্লোর জেলাতিরুবল্লুর জেলা এবং পশ্চিম দিকে কর্ণাটক রাজ্যের কোলার জেলা অবস্থিত। চিত্তুর জেলা অন্ধ্রপ্রদেশের সর্বদক্ষিণে ১২°৩৭′ - ১৪°৮′ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৭৮°৩′ - ৭৯°৫৫′ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। এই জেলার ৩০% অঞ্চল অরণ্যাবৃত।[৮] চিত্তুর শহরের চারপাশে আম ও তেঁতুল গাছের বন দেখা যায়। পশুপালন এই জেলার অধিবাসীদের অন্যতম পেশা। এই জেলার মাটির ৫৭% লাল দো-আঁশ মাটি, ৩৪% লাল বেলে মাটি এবং বাকি ৯% কালো দো-আঁশ মাটি, কালো বেলে ও লাল মাটি। [৮] চিত্তুর শহরটি চেন্নাই থেকে ১৬০ কিলোমিটার, বেঙ্গালুরু থেকে ১৮০ কিলোমিটার এবং হাদ্রাবাদ থেকে ৫৯০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

নদনদীসম্পাদনা

চিত্তুর জেলার গুরুত্বপূর্ণ নদীগুলি হল পোন্নাই ও স্বর্ণমুখী। এই নদীদুটির উৎস পূর্বঘাট পর্বতমালা। অন্যান্য নদনদীগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য কুশস্থলী, বীমা, বহুদা, পিঞ্চা, কল্যাণী, আরানিয়ার ও পেদ্দেরু। এই নদীগুলিতে সারা বছর জল থাকে না। জেলার প্রধান নদীগুলির মধ্যে স্বর্ণমুখী, কলঙ্গী, পাপঘ্নী, কৌণ্ডিণ্য, পেলেরু, অরণি, পিঞ্চচা, চেয়েরু, নীভা ও কুশস্থলীর নাম করা যায়।

জলবায়ুসম্পাদনা

চিত্তুর জেলার পশ্চিমাঞ্চলের পুঙ্গানুর, মদনপল্লীহর্সলে পর্বত অঞ্চলের তাপমাত্রা জেলার পূর্বাঞ্চলের তুলনায় অপেক্ষাকৃত কম। এর কারণ হল, জেলার পশ্চিমাঞ্চলের উচ্চতা পূর্বাঞ্চলের তুলনায় বেশি। পূর্বাঞ্চলে গ্রীষ্মকালে তাপমাত্রা ৪৬° সেন্টিগ্রেড স্পর্শ করে। অন্যদিকে এই সময় পশ্চিমাঞ্চলের তাপমাত্রা ৩৬° থেকে ৩৮° সেন্টিগ্রেডের মধ্যে থেকে। একই ভাবে শীতকালে পশ্চিমাঞ্চলে তাপমাত্রা অপেক্ষাকৃত কম থাকে। শীতকালে এই অঞ্চলের তাপমাত্রা থাকে ১২° থেকে ১৪° সেন্টিগ্রেড এবং পূর্বাঞ্চলের তাপমাত্রা থাকে ১৬° থেকে ১৮° সেন্টিগ্রেড।[৯]

চিত্তুর জেলার বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ৯১৮.১ মিলিমিটার। দক্ষিণপশ্চিম মৌসুমি বায়ু ও উত্তরপূর্ব মৌসুমি বায়ু এই জেলায় বৃষ্টিপাতের প্রধান উৎস। দক্ষিণপশ্চিম মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে এই জেলায় গড়ে ৪৩৮.০ মিলিমিটার (জুন থেকে সেপ্টেম্বর) এবং উত্তরপূর্ব মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে এখানে গড়ে ৩৯৬.০ মিলিমিটার (অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর) বৃষ্টিপাত হয়। ২০০২ ও ২০০৩ সালে এই জেলায় যথাক্রমে গড়ে ৯৮৪.২ মিলিমিটার ও ৯৩৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছিল।[১০]

জনপরিসংখ্যানসম্পাদনা

২০১১ সালের জনগণনা অনুসারে, চিত্তুর জেলার জনসংখ্যা ৪,১৭০,৪৬৮।[১১][১২][১৩] জনসংখ্যার হিসেবে ভারতের ৬৪০টি জেলার মধ্যে এই জেলার স্থান ৪৭তম।[১১] এই জেলার জনঘনত্ব ২৭৫ জন প্রতি বর্গকিলোমিটার (৭১০ জন/বর্গমাইল)।[১১] ২০০১-২০১১ দশকে এই জেলার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ১১.৩৩%।[১১] চিত্তুরের লিঙ্গানুপাতের পার প্রতি ১০০০ পুরুষে ১০০২ জন মহিলা[১১] এবং সাক্ষরতার হার ৭২.৩৬%।[১১]

২০০৭-২০০৮ সালে ইন্টারন্যাশানাল ইনস্টিটিউট ফর পপুলেশন সায়েন্সেস এই জেলার ৩৮টি গ্রামের ১০১০ জন গৃহস্থের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে।[১৪] এই সাক্ষাৎকার থেকে জানা যায়, ৯২.৭% বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ আছে, ৯৯.৬% বাড়িতে পানীয় জল সরবরাহের ব্যবস্থা আছে, এবং ৫৩.৮% বাড়িই পাকা বাড়ি।[১৪] এই জেল্র ২৯.৩% বালিকার বিবাহ হয়ে যায় বিবাহযোগ্য বয়সে (১৮ বছর বয়স) পৌঁছানোর আগেই।[১৫] ৮৮.২% ব্যক্তির একটি বিপিএল রেশন কার্ড আছে।[১৪]

তেলুগু এই জেলার স্থানীয় তথা সরকারি ভাষা। তামিলনাড়ু রাজ্যের নিকটবর্তী হওয়ায় তামিল ভাষাও এই জেলায় চলে। জেলার ৩০% জনসংখ্যার মাতৃভাষা তামিল।[১৬][১৭] জেলার পশ্চিম দিকে কর্ণাটক-সীমান্তবর্তী অঞ্চলে প্রচুর কন্নড়-ভাষীও বাস করেন।

প্রশাসনিক বিভাগসম্পাদনা

 
চিত্তুর জেলার মণ্ডল মানচিত্র
 
চিত্তুর জেলার রাজস্ব বিভাগসমূহ

চিত্তুর জেলায় ৩টি রাজস্ব বিভাগ আছে। এগুলি হল: চিত্তুর, তিরুপতিমদনপল্লী[১৮] প্রতিটি রাজস্ব বিভাগ আবার মণ্ডলে বিভক্ত। এই জেলায় মোট ৬৬টি মণ্ডল রয়েছে।[১৯] চিত্তুর জেলায় দুটি পৌরসংস্থা আছে। এগুলি হল: চিত্তুরতিরুপতি। এছাড়া এই জেলায় ৬টি পুরসভাও আছে। এগুলি হল: মদনপল্লী, পুঙ্গানুর, পালামনের, নাগরী, শ্রীকালহস্তীপুত্তুর[২০]

  1. বি. কোতাকোটা
  2. বাইরেড্ডিপল্লী
  3. বঙ্গারুপালেম
  4. বুচিনাইডু খন্ডরিগা
  5. চন্দ্রগিরি
  6. চিন্নাগোট্টিগোল্লু
  7. চিত্তুর
  8. চৌদেপল্লী
  9. গঙ্গাধর নেল্লোর
  10. গঙ্গাবরম
  11. গুডিপালা
  12. গুডুপল্লী
  13. গুররামকোন্ডা
  14. ইরালা
  15. কে ভি বি পুরম
  16. কলাকডা
  17. কালিকিরি
  18. কম্ভমবরিপল্লী
  19. করবেতিনগর
  20. কুপ্পম
  21. কুরাবালাকোটা
  22. মদনপল্লী
  23. মূলকালচেরুভু
  24. নাগলপুরম
  25. নাগরী
  26. নারায়ণবনম্‌
  27. নিমমনপল্লী
  28. নিন্দ্রা
  29. পাকালা
  30. পালামানের
  31. পালসমুদ্রম্‌
  32. পেদ্দামন্দ্যম্‌
  33. পেদ্দাপঞ্জনি
  34. পেদ্দাতিপ্পাসমুদ্রম্‌
  35. পেনুমুরু
  36. পিলেরু
  37. পিৎচাতুর
  38. পুলিচেরলা
  39. পুঙ্গানুর
  40. পুতালাপত্তু
  41. পুত্তুর
  42. রামচন্দ্রপুরম
  43. রামকুপ্পম্‌
  44. রামসমুদ্রম্‌
  45. রেনিগুন্টা
  46. রোমপিচেরলা
  47. শান্তিপুরম্‌
  48. সত্যবেদু
  49. সোদাম
  50. সোমালা
  51. শ্রীকালহস্তী
  52. শ্রীরঙ্গরাজপুরম্‌
  53. তাম্বল্লপল্লী
  54. তবনমপল্লী
  55. তোট্টামবেদু
  56. তিরুপতি (গ্রামীণ)
  57. তিরুপতি (নগর)
  58. বদমালাপেটা
  59. বাল্মীকিপুরম্‌
  60. বরদাইয়াহপালেম
  61. বেদুরুকুপ্পম্‌
  62. বেঙ্কটগিরিকোটা
  63. বিজয়পুরম্‌
  64. যদমারি
  65. যেরপেদু
  66. যেররাবরপালেম

রাজনীতিসম্পাদনা

অন্ধ্রপ্রদেশ বিধানসভার ১৪টি কেন্দ্র চিত্তুর জেলায় অবস্থিত।[২১]

অর্থনীতিসম্পাদনা

২০০৬ সালে ভারত সরকার দেশের ২৫০টি সর্বাধিক অনগ্রসর জেলার তালিকায় চিত্তুর জেলার নাম নথিভুক্ত করে।[২২] অন্ধ্রপ্রদেশের যে ১৩টি জেলা অনগ্রসর অঞ্চল অনুদান তহবিল কর্মসূচির অধীনে অনুদান পায়, চিত্তুর জেলা তার মধ্যে অন্যতম।[২২]

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বসম্পাদনা

শিক্ষাসম্পাদনা

তিরুপতিতে একাধিক উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। শ্রীবেঙ্কটেশ্বর বিশ্ববিদ্যালয়, অন্ধ্রপ্রদেশের প্রথম মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় শ্রীপদ্মাবতী মহিলা বিশ্ববিদ্যালয়ম্‌, রাষ্ট্রীয় সংস্কৃত বিদ্যাপীঠ তিরুপতি শহরে অবস্থিত। এছাড়াও তিরুপতি নগর অঞ্চলে অনেক কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। কুপ্পমে দ্রাবিড়ীয় বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থিত।[২৩] চিত্তুর জেলায় ন্যাশানাল অ্যাটমোস্ফেরিক রিসার্চ ল্যাবোরেটরি অবস্থিত। এটি মহাকাশ মন্ত্রকের অধীনস্থ। এখানে বায়ুমণ্ডল ও মহাকাশ বিজ্ঞান নিয়ে মৌলিক ও ফলিত গবেষণা চলে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Chittoor district profile"। Andhra Pradesh State Portal। ১৫ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৬ 
  2. "District - Chittoor"। Andhra Pradesh Online Portal। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ আগস্ট ২০১৪ 
  3. "Census of India 2011" (PDF)http://censusindia.gov.in।  |প্রকাশক= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  4. Biju, [editor], M.R. (২০০৯)। Democratic political process। New Delhi, India: Mittal Publications। পৃষ্ঠা 235। আইএসবিএন 978-81-8324-237-0। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৫ 
  5. "The District Of Seven Hills - Tirumala"। ২১ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৬ 
  6. Srivastava, Dayawanti et al. (ed.) (২০১০)। "States and Union Territories: Andhra Pradesh: Government"। India 2010: A Reference Annual (54th সংস্করণ)। New Delhi, India: Additional Director General, Publications Division, Ministry of Information and Broadcasting (India), Government of India। পৃষ্ঠা 1111–1112। আইএসবিএন 978-81-230-1617-7 
  7. "Island Directory Tables: Islands by Land Area"United Nations Environment Program। ১৯৯৮-০২-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-১১Nordaustlandet 14,467 
  8. "National Informatics Center, Chittoor"। Chittoor.nic.in। ২০০৫-০৬-২৮। ২০১২-০৫-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১২  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "http://chittoor.nic.in/history.htm" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  9. "Chittoor district"। Atmachittoor.com। ২০১২-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১১-০৪ 
  10. "Irrigation"। Irrigation.cgg.gov.in। ২০০৮-০৮-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১১-০৪ 
  11. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  12. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০১Lebanon 4,143,101 July 2011 est.  line feed character in |উক্তি= at position 8 (সাহায্য)
  13. "2010 Resident Population Data"। U. S. Census Bureau। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০Kentucky 4,339,367  line feed character in |উক্তি= at position 9 (সাহায্য)
  14. "District Level Household and Facility Survey (DLHS-3), 2007-08: India. Andhra Prades" (PDF)International Institute for Population Sciences and Ministry of Health and Family Welfare। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০৩ 
  15. "How Do I? : Obtain Marriage Certificate"। National Portal Content Management Team, National Informatics Centre। ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০৩To be eligible for marriage, the minimum age limit is 21 for males and 18 for females. 
  16. "Languages of Andhra Pradesh"। India Network Foundation, Inc.। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৫ 
  17. "War against smugglers, not Tamils: Minister"। The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৫ 
  18. "Industrial Profile - Chittoor District" (PDF)। Commissionerate of Industries - Government of Andhra Pradesh। পৃষ্ঠা 4। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুন ২০১৫ 
  19. "Mandals in Chittoor district"। AP State Portal। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০১৪ 
  20. "Municipalities of Andhra Pradesh"C&DMA Web Site of Government of Andhra Pradesh। Commissioner & Director of Municipal Administration। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৪ 
  21. "District-wise Assembly-Constituencies in Andhra Pradesh"। Ceoandhra.nic.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১১-০৪ 
  22. Ministry of Panchayati Raj (সেপ্টেম্বর ৮, ২০০৯)। "A Note on the Backward Regions Grant Fund Programme" (PDF)। National Institute of Rural Development। ৫ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১১ 
  23. "Dravidian University Kuppam"grotal.com 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা