প্রধান মেনু খুলুন

গ্লেন ক্লোজ

মার্কিন অভিনেত্রী

গ্লেন ক্লোজ (ইংরেজি: Glenn Close; জন্ম: ১৯ মার্চ ১৯৪৭) হলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী, গায়িকা ও প্রযোজক। তিনি একাধিক পুরস্কার ও সম্মাননা অর্জন করেছেন, তন্মধ্যে তিনটি টনি পুরস্কার, তিনটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার ও তিনটি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার। তিনি সাতটি একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেছেন, এবং তিনি কোন পুরস্কার জয় না করে সর্বাধিক মনোনয়নের অধিকারী।[১] ২০১৬ সালে আমেরিকান থিয়েটার হল অব ফেমে তার নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

গ্লেন ক্লোজ
Glenn Close - Guardians of the Galaxy premiere - July 2014 (cropped).jpg
২০১৪ সালের জুলাই মাসে ক্লোজ
স্থানীয় নাম
Glenn Close
জন্ম (1947-03-19) ১৯ মার্চ ১৯৪৭ (বয়স ৭২)
বাসস্থানবেডফোর্ড হিলস, নিউ ইয়র্ক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
যেখানের শিক্ষার্থীউইলিয়াম অ্যান্ড ম্যারি কলেজ
পেশাঅভিনেত্রী, গায়িকা, প্রযোজক
কার্যকাল১৯৭৪-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীক্যাবট ওয়েড
(বি. ১৯৬৯; বিচ্ছেদ. ১৯৭১)

জেমস ম্যারলাস
(বি. ১৯৮৪; বিচ্ছেদ. ১৯৮৭)

ডেভিড ইভান্স শ
(বি. ২০০৬; বিচ্ছেদ. ১০১৫)
সঙ্গীজন স্টার্ক (১৯৮৭-১৯৯১)
সন্তানঅ্যানি স্টার্ক

কানেটিকাটের গ্রিনউইচে জন্মগ্রহণকারী ক্লোজ উইলিয়াম অ্যান্ড ম্যারি কলেজ থেকে থিয়েটার ও নৃবিজ্ঞানে স্নাতক সম্পন্ন করেন। তিনি ১৯৭৪ সালে লাভ ফর লাভ মঞ্চনাটক দিয়ে পেশাদার অভিনয় জীবন শুরু করেন এবং ১৯৮০-এর দশকের শুরুর দিক পর্যন্ত নিউ ইয়র্ক মঞ্চে অভিনয় করেছেন। ব্রডওয়ে মঞ্চে তার অভিনীত কাজের মধ্যে রয়েছে বারনুম (১৯৮০) ও দ্য রিয়াল থিং (১৯৮৩), দ্বিতীয় কাজটির জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে টনি পুরস্কার অর্জন করেন। তার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে দ্য ওয়ার্ল্ড অ্যাকর্ডিং টু গার্প (১৯৮২) ছবি দিয়ে, এবং পরবর্তী কালে তিনি দ্য বিগ চিল (১৯৮৩) ও দ্য ন্যাচারাল (১৯৮৪)-এ পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেন, এই তিনটি ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। ক্লোজ ১৯৮০-এর দশকের শেষভাগে নিজেকে প্রধান অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন এবং ফ্যাটাল অ্যাট্রাকশন (১৯৮৭) ও ডেঞ্জারাস লিয়াজোঁ (১৯৮৮) চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

ক্লোজ আরও দুটি টনি পুরস্কার অর্জন করেন ডেথ অ্যান্ড দ্য মেইডেন (১৯৯২) ও সানসেট বুলেভার (১৯৯৫) মঞ্চনাটকে অভিনয় করে। তিনি তার প্রথম প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার অর্জন করেন ১৯৯৫ সালে টেলিভিশন চলচ্চিত্র সার্ভিং ইন সাইলেন্স: দ্য মার্গারেট ক্যামারমেয়ার স্টোরি-এ অভিনয় করে। ১৯৯০-এর দশক জুড়ে তিনি রিভার্সাল অব ফরচুন (১৯৯০), ওয়ান হানড্রেড ওয়ান ডালমাশিয়ান্স (১৯৯৬), ও এয়ার ফোর্স ওয়ান (১৯৯৭) চলচ্চিত্রে অভিনয় করে হলিউডে সফলতা অর্জন করেন। ২০০৩ সালে তিনি টেলিভিশন চলচ্চিত্র দ্য লায়ন ইন উইন্টার-এ এলিনয় চরিত্রে অভিনয় করে একটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার অর্জন করেন। ২০০৭ থেকে ২০১২ সালে ক্লোজ নাট্যধর্মী ধারাবাহিক ড্যামেজেস-এ প্যাটি হিউস চরিত্রে অভিনয় করে একটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার ও দুটি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার অর্জন করেন। ২০১৪ সালে তিনি ব্রডওয়ে মঞ্চে ফিরেন আ ডেলিকেট ব্যালেন্স-এ পুনরুজ্জীবিতকরণ নাটক দিয়ে। ২০১০-এর দশকে তিনি অ্যালবার্ট নবস (২০১১) ও দ্য ওয়াইফ (২০১৭) চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে আরও দুটি একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন[২] এবং দ্বিতীয় চলচ্চিত্রের জন্য সেরা নাট্য চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার অর্জন করেন।[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "তাঁরা অস্কার পাননি!"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১৯ 
  2. "এক নজরে এবারের অস্কার মনোনয়ন"দ্য ডেইলি স্টার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১৯ 
  3. "গ্লোন্ডেন গ্লোব সেরা রামি মালেক ও গ্লেন ক্লোজ"দৈনিক যুগান্তর। ১০ জানুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা