গোলকধাঁধা (Maze / Labyrinth / ভুলভুলাইয়া) একটি বা একাধিক রাস্তার সমষ্টি যার এক বা একাধিক প্রবেশ পথ এবং প্রস্থানের পথ আছে। গোলকধাঁধার বিশেষত্ব হল যে এতে প্রবেশ করার পর বের হয়ে আশা কঠিন কারণ এর মধ্যের রাস্তাগুলি ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত ভাবে ঘোরানো পেঁচানো থাকে। গোলকধাঁধায় প্রবেশকারীর লক্ষ্য হল এটির সমাধান করে সেখান থেকে বের হয়ে আসা। ইচ্ছাকৃত ভাবে তৈরি গোলকধাঁধা পৃথিবীর অনেক জায়গায় আছে যেগুলো খুব বড় পর্যটনের আকর্ষণ।

এতে মাত্র একটি প্রবেশ পথ এবং একটি বের হওয়ার রাস্তা আছে।

গোলকধাঁধা নির্মাণসম্পাদনা

গোলকধাঁধা নির্মাণ করতে হলে আবশ্যক হল দেওয়াল বা প্রাচীর তৈরি যা সম্পূর্ণভাবে অস্বচ্ছ। বিভিন্ন রকম উপাদান দিয়ে এই দেওয়াল তৈরি করা যায়। সবথেকে জনপ্রিয় কৌশলগুলি হল - ইট, পাথর, কাঠ, ঘন ঝোপের তৈরি বেড়া, আখ বা ভুট্টার কৃষিক্ষেত্র, ইত্যাদি। এছাড়াও কাগজে হাতে আঁকা বা ছাপানো গোলকধাঁধাও তৈরি করা যায়।

গোলকধাঁধার সমাধানসম্পাদনা

গোলকধাঁধার উপযোগিতাসম্পাদনা

গোলকধাঁধা বর্তমানে বিনোদন এবং বুদ্ধির খেলায় সবথেকে বেশি ব্যবহৃত হয়।

ছোট বাচ্চাদের বইতে বা ধাঁধার বইতে ছাপানো গোলকধাঁধা থাকে যেগুলোর সমাধানের মাধ্যমে বাচ্চাদের বুদ্ধির বিকাশ হয়।

এছাড়া পৃথিবীর বহু স্থানে মানুষের তৈরি গোলকধাঁধা পর্যটকদের বিনোদনের জন্য ব্যবহার করা হয়। এদের অনেকগুলোই আগে ব্যক্তিমালিকানাধীন সম্পত্তি ছিলো যা এখন রাষ্ট্রায়ত্ত বা কোনো ট্রাস্ট এর মাধ্যমে আয় করার জন্যে জনসাধারণের জন্যে খোলা।

আবার অনেকে শখের জন্যে বাড়ির বাগানে ঘন উঁচু ঝোপের বেড়া দিয়েও গোলকধাঁধা তৈরি করে থাকেন।

 
লখনৌ এর বিখ্যাত ভুলভুলাইয়া। এটি অযোদ্ধার নবাব অসফ-উদ-দৌলার তৈরি বড় ইমামবাড়ার ভেতরে অবস্থিত। কিংবদন্তী অনুসারে এখানে তিনি তার রানীদের সঙ্গে লুকোচুরি খেলতেন[১]। সত্যজিৎ রায়ের বিখ্যাত গোয়েন্দা চরিত্র ফেলুদার শুরুর দিকের রহস্য 'বাদশাহি আংটি' তে এটির একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Lucknow: where history meets architecture"Sangbad Pratidin (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-১১-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৫ 
  2. "Badshahi Angti (novel)"Wikipedia (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৭-৩১।