খাসিয়া

বাংলাদেশ ও ভারতের একটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী

খাসিয়া উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয়ের একটি জাতিগত গোষ্ঠী, যার সীমান্তবর্তী রাজ্য আসাম এবং বাংলাদেশের কিছু অংশে উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যা রয়েছে। মেঘালয়ের পূর্বাঞ্চলের খাসি পাহাড়ে জনসংখ্যার সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ খাসি জনগণ, এই অঞ্চলের জনসংখ্যার ৭৮.৩% এবং মেঘালয়ের জনসংখ্যার প্রায় ৪৮% সহ রাজ্যের বৃহত্তম সম্প্রদায়।[৯] তারা দক্ষিণ এশিয়ার কয়েকটি অস্ট্রো এশিয়াটিক-ভাষী মানুষের মধ্যে রয়েছে। খাসি উপজাতি বিশ্বের কয়েকটি অবশিষ্ট মাতৃতান্ত্রিক উপজাতির মধ্যে একটি হওয়ার বিশিষ্টতা রাখে।[১০] ভারতের সংবিধানের অধীনে খাসিদের তফসিলি উপজাতির মর্যাদা দেওয়া হয়েছে।

খাসিয়া
ঐতিহ্যবাহী পোশাকে নারীরা
মোট জনসংখ্যা
১৫,১২,৮৩১
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
 ভারত১৪,২৭,৭১১[১]
              মেঘালয়, ভারত১৩,৮২,২৭৮[২]
              আসাম, ভারত৩৪,৫৫৮[৩]
 বাংলাদেশ৮৫,১২০
ভাষা
খাসি
ধর্ম
সংখ্যাগরিষ্ঠ: খ্রিস্টান[৪]
সংখ্যালঘু: কা নিয়াম খাসি,[৫] হিন্দুধর্ম,[৬] বৌদ্ধধর্ম[৭] এবং ইসলাম[৮]
সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠী
খমের, জয়ন্তিয়া, পালাং এবং অন্যান্য

ইতিহাস

সম্পাদনা

বাংলাদেশে খাসি

সম্পাদনা

তারা বাংলাদেশে অন্যান্য আদিবাসীর মতো একটি প্রাচীন সম্প্রদায় হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে সম্প্রীতি বজায় রেখে বসবাস করে আসছে। পাহাড়ের পাদদেশে বিভিন্ন টিলা এলাকায় তাদের বসবাস। দারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করলেও তারা অত্যন্ত নিরীহ প্রকৃতির। সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর, বিশ্বম্ভরপুর, দোয়ারাবাজার ও সদর উপজেলার সীমান্ত এলাকায় তারা বসবাস করছে। সুনামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২৫০টি খাসিয়া পরিবার বসবাস করছে।

ভৌগলিক বন্টন এবং উপ-গোষ্ঠী

সম্পাদনা
খাসি রাজ্য, 1947

অনেক খাসি সমাজবিজ্ঞানী খাসি উপজাতিকে নিম্নলিখিত সাতটি উপ-উপজাতিতে শ্রেণীবদ্ধ করেছেন, যেগুলি সম্মিলিতভাবে সাত কুঁড়েঘরের শিশু নামেও পরিচিত :

  • খইনরিয়াম (বা নংফ্লাং ): পূর্ব খাসি পাহাড়ি জেলার উচ্চভূমিতে বসবাস করে ।
  • Pnar (বা Synteng ) জৈন্তিয়া পার্বত্য জেলার উচ্চভূমিতে বাস করে ।
  • ভোইরা রি -ভোই জেলার একটি বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার দিকে খাসি এবং জৈন্তিয়া পাহাড়ের উত্তর ও উত্তর-পূর্বে নিম্ন পাহাড়ে বাস করে ।
  • ওয়ার -জৈন্তিয়া এবং ওয়ার-খিনরিয়াম উপজাতিতে বিভক্ত যুদ্ধগুলি বাংলাদেশের দিকে নিয়ে যাওয়া খাসি পাহাড়ের খাড়া দক্ষিণ ঢালে বাস করে।
  • পশ্চিম খাসি পার্বত্য জেলার মধ্যাঞ্চলের উচ্চভূমিতে মারাম বাস করে ।
  • গারো পাহাড়ের সীমান্তবর্তী পশ্চিম খাসি পার্বত্য জেলার পশ্চিম অংশে লিংগাম বসবাস করে যা ভাষাগত ও সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে যা তাদের পূর্বে খাসি এবং পশ্চিমে গারো উভয়ের প্রভাব দেখায়।
  • ডিকো হল বিলুপ্ত গোষ্ঠী যারা একসময় পশ্চিম খাসি পার্বত্য জেলার নিম্নভূমিতে বাস করত।

ভারতের ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে, মেঘালয়ে পূর্ব খাসি পাহাড়, পশ্চিম খাসি পাহাড়, দক্ষিণ পশ্চিম খাসি পাহাড়, পূর্ব পশ্চিম খাসি পাহাড়, রি-ভোই, পশ্চিম জৈন্তিয়া পাহাড় এবং পূর্ব জয়ন্তিয়া পাহাড়ের জেলাগুলিতে ১.৪১ মিলিয়নেরও বেশি খাসি বাস করত। মেঘালয়ের খাসি এবং জৈন্তিয়া পার্বত্য অঞ্চলের পূর্ব অংশ গঠিত । আসামে তাদের জনসংখ্যা ৩৫ হাজারে পৌঁছেছে।  বাংলাদেশের সিলেট বিভাগে বিশেষ করে জাফলংয়ে প্রায় ৮৫ হাজার খাসি বসবাস করে।

 
খাসি শিশু, ১৯৪৪

খাসি মেয়েরা কাজম-পিং নামক ব্লাউজ ও লুঙ্গি পরে এবং ছেলেরা পকেট ছারা শাট পরে যার নাম ফুং-মারুং


খাসিদের মধ্যে ধর্ম (২০১১ সালের আদমশুমারি) [১১]
ধর্ম জনসংখ্যা %
খ্রিস্টান ( ) 1,173,693 83.14%
নিয়াম খাসি 217,488 15.41%
হিন্দু ( ) 10,302 0.73%
বৌদ্ধ ( ) 1,803 0.12%
মুসলমান ( ) 1,689 0.11%
নাস্তিক ( ) ৬,৮০০ 0.49%
মোট 1,411,775 100%

খ্রিস্টান ধর্মপ্রচারকদের আগমনের আগে এবং ধর্মান্তরিত হওয়ার আগে, প্রায় সব খাসি মানুষই একটি প্রাচীন ভারতীয় ধর্ম পালন করত।[১২][১৩]

সমাজ ব্যবস্থা

সম্পাদনা

খাসিদের রয়েছে নিজস্ব নিয়ম-কানুন। তাদের মধ্যে মাতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় পরিচালিত। তাদের সমাজ ব্যবস্থায় কোনো পুরুষ সম্পত্তির মালিক হয় না। পুরুষদের বিয়ে হলে তারা শ্বশুরবাড়ি গিয়ে ওঠে। তাদের ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানগুলো খুব আকর্ষণীয়। তাদের ভাষায় রচিত গানগুলোও হৃদয়ছোঁয়া।

আরো দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "A-11 Individual Scheduled Tribe Primary Census Abstract Data and its Appendix"censusindia.gov.in। Government of India। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  2. "C-16 Population By Mother Tongue - Meghalaya"census.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০২০ 
  3. "C-16 Population By Mother Tongue - Assam"census.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০২০ 
  4. Ghosh, Paramita (১৬ অক্টোবর ২০২১)। "Missionary is not a popular word in India. But in the Khasi hills, it holds a different meaning"ThePrint। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০২২ 
  5. Khasi, in Dizionario di storia, Istituto dell'Enciclopedia Italiana, 2010
  6. "Religion Data of Census 2011: XXX ST Meghalaya"। ২৫ অক্টোবর ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০২৩ 
  7. "Religion Data of Census 2011: XXX ST Meghalaya"। ২৫ অক্টোবর ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০২৩ 
  8. Langstieh, Banrida Theresa (২০০১)। "Demographic structure of the Khasi-Muslims of Shillong, Meghalaya"। Journal of Human Ecology12 (2): 121–125। এসটুসিআইডি 134712439ডিওআই:10.1080/09709274.2001.11907591 
  9. ORGI। "C-16: Population by Mother Tongue"www.censusindia.gov.in। Office of the Registrar General & Census Commissioner, India। ১৫ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৮ 
  10. Hasnain 2021, পৃ. 127।
  11. "Religion Data of Census 2011: XXX ST Meghalaya"। ২৫ অক্টোবর ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০২৩ 
  12. Iarington Kharkongngor (1973), The Preparation for the Gospel in Traditional Khasi Belief. I. Kharkongngor. pp. 19-26.
  13. Gurdon, P.R.T. The Khasis.

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা