খাদিম আলি পাশা

উসমানীয় উজিরে আজম

খাদিম আলি পাশা (তুর্কি:Hadım Ali Paşa; মৃত্যু জুলাই ১৫১১), আতিক আলী পাশা (তুর্কি:Atik Ali Paşa) নামেও পরিচিত, ছিলেন বসনীয় বংশোদ্ভূত একজন উসমানীয় রাজনীতিবিদ এবং নপুংসক[১] (তুর্কি ভাষায় হাদিম বা খাদিম মানে "নপুংসক")। তিনি রুমেলির গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং ১৪৮৫-১৪৯১ সালের উসমানীয়-মামলুক যুদ্ধে উসমানীয় সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব দেন, কিন্তু ১৪৮৮ সালে আদানায় পরাজিত হন। তারপর ১৫০১ থেকে ১৫০৩ পর্যন্ত এবং আবার ১৫০৯ থেকে ১৫১১ পর্যন্ত তাকে গ্র্যান্ড ভিজিয়ার দেওয়া হয়েছিল। তার শেষের মেয়াদে, তিনি আলেভি-নেতৃত্বাধীন শাহকুলু বিদ্রোহ দমনের নেতৃত্ব দেন, কিন্তু বিদ্রোহী নেতা শাহকুলুর সাথে সিভাসের কাছে যুদ্ধে মারা যান।

খাদিম

আলি

২২তম উসমানীয় সাম্রাজ্যের উজিরে আজম
কাজের মেয়াদ
১৫০৬ – ১৫১১
সার্বভৌম শাসকদ্বিতীয় বায়েজিদ
পূর্বসূরীহেরসেকজাদা আহমাদ পাশা
উত্তরসূরীহেরসেকজাদা আহমাদ পাশা
কাজের মেয়াদ
১৫০১ – ১৫০৩
সার্বভৌম শাসকদ্বিতীয় বায়েজিদ
পূর্বসূরীমসিহ পাশা
উত্তরসূরীহেরসেকজাদা আহমাদ পাশা
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মদ্রোজগোমেতভা, বসনিয়া
মৃত্যুজুলাই ১৫১১
চুভুকোভা, কায়সেরিসিভাসের মাঝামাঝি, উসমানীয় সাম্রাজ্য
জাতীয়তাউসমানীয়
গুরুত্বপূর্ণ পরিবারঅস্তোয়া বা অস্তোজা
সামরিক পরিষেবা
যুদ্ধশাহকুলু বিদ্রোহ 

জীবনসম্পাদনা

তিনি বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার দ্রোজগোমেতভা গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।[২]

তিনি রুমেলির গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং ১৪৮৫-১৪৯১ সালের উসমানীয়-মামলুক যুদ্ধে উসমানীয় সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব দেন, কিন্তু ১৪৮৮ সালে আদানায় পরাজিত হন। এরপর তিনি ১৫০১-১৫০৩ সালে এবং আবার ১৫০৯-১৫১১ সালে উজিরে আজম নিযুক্ত হন। তার শেষের মেয়াদে তিনি শিয়া-নেতৃত্বাধীন শাহকুলু বিদ্রোহ দমনের নেতৃত্ব দেন, কিন্তু ১৫১১ সালের জুলাই মাসে বিদ্রোহী নেতা শাহকুলুর সাথে সিভাসের কাছে যুদ্ধে নিহত হন।[৩][৪]

উত্তরাধিকারসম্পাদনা

ইস্তাম্বুলের ফাতিহ জেলায় তার নামে দুটি মসজিদ নির্মিত হয়েছিল। একটি হল চেম্বেরলিতাশ পাড়ায় গাজি আতিক আলি পাশা মসজিদ (১৪৯৮ সালে সম্পন্ন) এবং অন্যটি কারাগুমরুক পাড়ায় ভাসাত আতিক আলি পাশা মসজিদ (১৫১২ সালে সম্পন্ন)।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Peirce, Leslie P. (১৯৯৩)। The Imperial Harem Women and Sovereignty in the Ottoman EmpireOxford University Press। পৃষ্ঠা 304। আইএসবিএন 9780195086775 
  2. Islam Encyclopaedia (তুর্কি ভাষায়)
  3. Finkel, Caroline (২০০৬)। Osman's Dream: The Story of the Ottoman Empire 1300–1923। John Murray। পৃষ্ঠা 91–92, 99–101। আইএসবিএন 978-0-7195-6112-2 
  4. Prof. Yaşar Yüce-Prof. Ali Sevim: Türkiye tarihi Cilt II, AKDTYKTTK Yayınları, İstanbul, 1991 pp. 225–226