যুদ্ধরত অবস্থায় মৃত্যু

কিলড ইন অ্যাকশন (কেআইএ) হল একটি হতাহত শ্রেণিবিন্যাস যা সাধারণত সামরিক বাহিনী শত্রু বাহিনীর হাতে তাদের নিজস্ব যোদ্ধাদের মৃত্যু বর্ণনা করতে ব্যবহার করা হয়।[১]উদাহরণস্বরূপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগ বলছে, যে যুদ্ধ অবস্থায় মৃত্যু বলতে তাদের অস্ত্র গুলি খেয়ে মৃত্যুর প্রয়োজন নেই, হতে পারে শুধুমাত্র প্রতিকূল আক্রমণের কারণে নিহত হয়েছে।কিলড ইন এ্যাকশন যুদ্ধের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ আগুনে নিহত ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত করে, কিন্তু দুর্ঘটনাজনিত যানবাহন দুর্ঘটনা, হত্যা বা অন্যান্য অ-প্রতিকূল ঘটনা বা সন্ত্রাসবাদের মতো ঘটনা অন্তর্ভুক্ত করেনা।KIA ফ্রন্ট-লাইন কমব্যাট ট্রুপস এবং নৌ, এয়ার এবং সাপোর্ট ট্রুপস উভয় ক্ষেত্রেই প্রয়োগ করা যেতে পারে।যে ব্যক্তি একটি নির্দিষ্ট ঘটনার সময় যুদ্ধাবস্থায় নিহত হন, সেই ঘটনা বা ঘটনাতে তাদের মৃত্যুকে বোঝাতে তাদের নামের পাশে {{{text}}} (খঞ্জর) দিয়ে চিহ্নিত করা হয়।

নর্মান্ডি আমেরিকান কবরস্থান এবং স্মৃতিসৌধ, ফ্রান্সের কোলেভিল-সুর-মের কাছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ইউরোপে মারা যাওয়া আমেরিকান সৈন্যদের সম্মান জানায়।

আরও, যুদ্ধাবস্থায় মৃত্যু একজন ব্যক্তিকে যুদ্ধক্ষেত্রে কর্মে নিহত হওয়াকে নির্দেশ করে। এছাড়াও ক্ষতজনিত মৃত্যু নির্দেশ করে এমন ঘটনার, যখন চিকিৎসা সুবিধায় পৌঁছানোর জন্য কোন ব্যক্তি বেঁচে গিয়েছিল।এছাড়াও উত্তর আটলান্টিক চুক্তি সংস্থা (ন্যাটো) DOW এর পরিবর্তে DWRIA ব্যবহার করে এর অর্থ " যুদ্ধে আঘাতপ্রাপ্ত ক্ষত থেকে মারা গেছে" এমন কোন ব্যক্তি।যাইহোক, ঐতিহাসিকভাবে সামরিক এবং ইতিহাসবিদরা পূর্বের সংক্ষিপ্ত রূপটি ব্যবহার করেছেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

পিকেআইএ মানে অ্যাকশনে নিহত হওয়া ব্যক্তি।এই শব্দটি ব্যবহার করা হয় যখন কর্মীরা যুদ্ধে হেরে যায়, এদেরকে প্রাথমিকভাবে মিসিং ইন অ্যাকশন তালিকাভুক্ত করা হয়, কিন্তু খুঁজে না পাওয়ার পরে, পরে অনুমান করা হয় যে তারা বেঁচে নেই।[২]এটি অন্যান্য প্রতিকূল পরিবেশে নৌ যুদ্ধ বা ব্যস্ততার ক্ষেত্রে বলা কঠিন, যেখানে মৃতদেহ উদ্ধার করা কঠিন।প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অনেক বড় সংখ্যক সৈন্য নিহত হয়েছিল, যেমনঃ ব্রিটিশ কবি রুডইয়ার্ড কিপলিং- এর ছেলে, তখন কমনওয়েলথ ওয়ার গ্রেভস কমিশন এই ব্যপারটি নিয়ে প্রচারণা করেছিলো।[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "U.S. Department of Defense Dictionary: killed in action"। ২০১২-০৯-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০২-০৪ 
  2. "USS Milius — Named in honor of Navy pilot Captain Paul L. Milius"public.navy.milUS Navy। ১২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৮ 
  3. Brown, Jonathan (২৮ আগস্ট ২০০৬)। "The Great War and its aftermath: The son who haunted Kipling"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৮