কার্বন মনোক্সাইড

রাসায়নিক যৌগ

কার্বন মনোক্সাইড (CO) হচ্ছে বর্ণহীন, গন্ধহীন, স্বাদহীন গ্যাস যা বাতাসের তুলনায় হালকা। মানুষ সহ সকল মেরুদন্ডী ও অমেরুদণ্ডী হিমোগ্লোবিক প্রানীর জন্য বিষাক্ত।

কার্বন মনোক্সাইড
Wireframe model of carbon monoxide
Ball-and-stick model of carbon monoxide
Spacefill model of carbon monoxide
নামসমূহ
পছন্দসই ইউপ্যাক নাম
Carbon monoxide
অন্যান্য নাম
কার্বন মনোঅক্সাইড
কার্বনাস অক্সাইড
কার্বন (২) অক্সাইড
কার্বোনিল
শনাক্তকারী
ত্রিমাত্রিক মডেল (জেমল)
বেইলস্টেইন রেফারেন্স 3587264
সিএইচইবিআই
কেমস্পাইডার
ইসিএইচএ ইনফোকার্ড ১০০.০১০.১১৮
ইসি-নম্বর
মেলিন রেফারেন্স 421
কেইজিজি
এমইএসএইচ Carbon+monoxide
আরটিইসিএস নম্বর
  • FG3500000
ইউএনআইআই
ইউএন নম্বর 1016
বৈশিষ্ট্য
CO
আণবিক ভর 28.010 g/mol
বর্ণ বর্ণহীন গ্যাস
গন্ধ গন্ধহীন
ঘনত্ব 789 kg/m3, liquid
1.250 kg/m3 at 0 °C, 1 atm
1.145 kg/m3 at 25 °C, 1 atm
গলনাঙ্ক −২০৫.০২ °সে (−৩৩৭.০৪ °ফা; ৬৮.১৩ K)
স্ফুটনাঙ্ক −১৯১.৫ °সে (−৩১২.৭ °ফা; ৮১.৬ K)
27.6 mg/1 L (25 °C)
দ্রাব্যতা ক্লোরোফর্ম, এসিটিক এসিড, ইথিল এসিটেট, ইথানল, অ্যামোনিয়াম হাইড্রোক্সাইড, বেনজিন প্রভৃতিতে দ্রবীভূত।
কেএইচ 1.04 atm-m3/mol
প্রতিসরাঙ্ক (nD) 1.0003364
ডায়াপল মুহূর্ত 0.122 D
তাপ রসায়নবিদ্যা
তাপ ধারকত্ব, C 29.1 J/K mol
স্ট্যন্ডার্ড মোলার
এন্ট্রোফি
এস২৯৮
197.7 J·mol−1·K−1
গঠনে প্রমান এনথ্যাল্পির পরিবর্তন ΔfHo২৯৮ −110.5 kJ·mol−1
দহনে প্রমান এনথ্যাল্পির পরিবর্তন ΔcHo298 −283.4 kJ/mol
ঝুঁকি প্রবণতা
অত্যন্ত দাহ্য F অতি বিষাক্ত T+
আর-বাক্যাংশ আর৬১ আর১২ আর২৬ আর৪৮/২৩
এস-বাক্যাংশ এস৫৩ এস৪৫
এনএফপিএ ৭০৪
ফ্ল্যাশ পয়েন্ট −১৯১ °সে (−৩১১.৮ °ফা; ৮২.১ K)
বিস্ফোরক সীমা 12.5–74.2%
সম্পর্কিত যৌগ
সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করা ছাড়া, পদার্থসমূহের সকল তথ্য-উপাত্তসমূহ তাদের প্রমাণ অবস্থা (২৫ °সে (৭৭ °ফা), ১০০ kPa) অনুসারে দেওয়া হয়েছে।
YesY যাচাই করুন (এটি কি YesY☒না ?)
তথ্যছক তথ্যসূত্র

পরিচিতিসম্পাদনা

কার্বন মনোক্সাইড ইংরেজিতে Carbon Monoxide (রাসায়নিক সংকেত: CO) হল একপ্রকার রঙ,গন্ধ এবং স্বাদহীন গ্যাস, যার ঘনত্ব বাতাসের তুলনায় কিছুটা কম। এক পরমাণু কার্বন ও এক পরমাণু অক্সিজেন যুক্ত হয়ে এক অণু কার্বন মনোক্সাইড গঠন করে। আন্তর্জাতিকভাবে এটি বিষাক্ত গ্যাস হিসেবে চিহ্নিত।

প্রস্তুতিসম্পাদনা

সাধারণত স্বল্প পরিমাণ অক্সিজেন (O) এর উপস্থিতিতে কার্বন (C) জাতীয় পদার্থ যেমনঃ কাঠ, কয়লা ইত্যাদি পোড়ালে কার্বন মনোক্সাইড গ্যাস উৎপন্ন হয়।

বিপদসম্পাদনা

কার্বন মনোক্সাইড একটি বিপজ্জনক গ্যাস। এটি অত্যধিক মাত্রায় কেউ নিশ্বাসের সাথে গ্রহণ করলে সে দ্রুত অজ্ঞান হয়ে পড়বে এবং সাথে সাথে চিকিৎসা করা না হলে রোগীর মৃত্যু ঘটে। পাশ্চাত্য দেশ সমূহে কার্বন মনোক্সাইড আত্মহত্যার একটি অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম। তাদের মতে এটা মৃত্যুর সবচেয়ে কম কষ্টদায়ক উপায়।

সতর্কতাসম্পাদনা

এই গ্যাসের যেকোনো অনুনমোদিত ব্যবহার আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। গবেষণাগারে ব্যবহার করার সময় দস্তানা, নিরাপত্তা চশমা ও গ্যাস মাস্ক ব্যবহার করা আবশ্যক।

★কার্বন মনোক্সাইডকে নীরব ঘাতক বলা হয় কেন?

উত্তরঃ কার্বন মনোক্সাইড মানুষের অজান্তেই খুব সহজেই শ্বাসের সাথে ফুসফুসে চলে যায়। সেখানে গিয়ে ব্যাপন প্রক্রিয়ায় রক্তে প্রবেশ করে এবং রক্তের হিমোগ্লোবিনের সাথে একটি জটিল যৌগ তৈরি করে।

যৌগঃ- Hb + CO ---> Hb(CO)

যার ফলে অক্সিজেন বহুরূপে কাজ করতে পারে না, শ্বাসকষ্ট হয় এবং হৃদরোগে আক্রান্ত মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই কার্বন মনোক্সাইডকে নীরব ঘাতক বলা হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা