কস্তুরবা গান্ধী বালিকা বিদ্যালয়

কস্তুরবা গান্ধী বালিকা বিদ্যালয় বা কেজিবিভি হল একটি আবাসিক মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়। এর পরিচালক হলো ভারত সরকার, ভারতের পিছিয়ে পড়া মেয়েদের জন্য এই বিদ্যালয়ের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

কস্তুরবা গান্ধী বালিকা বিদ্যালয়
দেশভারত
মন্ত্রণালয়ভারত সরকার
উদ্বোধনজুলাই ২০০৪

ইতিহাস

সম্পাদনা

২০০৪ সালের আগস্ট মাসে ভারত সরকার এই পরিকল্পনাটি চালু করেছিল। তফসিলি জাতি, তফসিলি উপজাতি, অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণী, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় এবং শিক্ষাগতভাবে অনগ্রসর ব্লকের দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকা পরিবারগুলিকে শিক্ষাগত সুবিধা প্রদানের জন্য এটি সর্বশিক্ষা অভিযান কর্মসূচিতে একীভূত হয়।[১]

উদ্দেশ্য

সম্পাদনা

গ্রামীণ এলাকায় এবং সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর মধ্যে এখনও লিঙ্গ বৈষম্য রয়ে গেছে। তালিকাভুক্তির প্রবণতা দেখলে বোঝা যায়, প্রাথমিক স্তরে, বিশেষ করে উচ্চ প্রাথমিক স্তরে, ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য তফাৎ রয়ে গেছে। কেজিবিভি-এর উদ্দেশ্য হল সমাজের সুবিধাবঞ্চিত গোষ্ঠীর মেয়েদের জন্য মানসম্পন্ন শিক্ষাকে সম্ভব এবং সুগম করে তোলা। এই উদ্দেশ্যে প্রাথমিক স্তরে আহারের ব্যবস্থার সুবিধা সহ আবাসিক স্কুল স্থাপন করা হয়েছে।[১]

যোগ্যতা

সম্পাদনা

২০০৪ সালে, শুরু হওয়ার পর থেকেই এই পরিকল্পনাটি প্রযোজ্য হয়েছে। শিক্ষাগতভাবে অনগ্রসর ব্লকগুলিতে (ইবিবি), যেখানে গ্রামীণ মহিলা সাক্ষরতা জাতীয় গড় (৪৬.১৩%: জনগণনা ২০০১) -এর নিচে এবং সাক্ষরতার লিঙ্গ ব্যবধান জাতীয় গড় (২১.৫৯%: (জনগণনা ২০০১)) থেকে বেশি সেইসব অঞ্চলে এই বিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল।[২] এই ব্লকগুলির মধ্যে, এমন এলাকায় স্কুল স্থাপন করা যেতে পারে, যেখানে:

  1. উপজাতীয় জনসংখ্যার ঘনত্ব বেশি, কম মহিলা সাক্ষরতা এবং / অথবা অনেক মেয়ে স্কুলে যায়না
  2. এসসি, এসটি, ওবিসি এবং সংখ্যালঘু জনসংখ্যার ঘনত্ব বেশি, কম মহিলা সাক্ষরতা এবং / অথবা অনেক মেয়ে স্কুলে যায়না
  3. নারী শিক্ষার হার কম
  4. অনেক ছোট, বিক্ষিপ্ত বাসস্থান সহ এলাকা যা স্কুলের জন্য যোগ্য নয়

নিম্নলিখিতগুলি অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ২০০৮ সালের ১লা এপ্রিল থেকে যোগ্য ব্লকের মানদণ্ড সংশোধন করা হয়েছে:

  • অতিরিক্ত ৩১৬টি শিক্ষাগতভাবে পিছিয়ে পড়া ব্লক, যাদের গ্রামীণ মহিলা সাক্ষরতা ৩০% এর নিচে।
  • ৯৪টি শহরতলি / শহরে সংখ্যালঘুদের ঘনত্ব বেশি রয়েছে (সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রকের দ্বারা চিহ্নিত তালিকা অনুযায়ী) যেখানে মহিলা সাক্ষরতার হার জাতীয় গড় থেকে কম (৫৩.৬৭%: জনগণনা ২০০১)।

অন্তর্ভুক্ত এলাকা

সম্পাদনা
 
কস্তুরবা গান্ধী বালিকা বিদ্যালয়, নয়াগাঁও, বিহার, সোনপুর

প্রকল্পটি ২৮টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বাস্তবায়িত হয়েছে:

আসাম, অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, অরুণাচল প্রদেশ, বিহার , ছত্তিশগড়, দাদরা ও নগর হাভেলি, দিল্লি, গুজরাট, হরিয়ানা, হিমাচল প্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর , ঝাড়খণ্ড, কর্ণাটক, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, মণিপুর, মেঘালয়, নাগাদি, মিলাল্যান্ড, পাঞ্জাব, রাজস্থান, তামিলনাড়ু, ত্রিপুরা, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড এবং পশ্চিমবঙ্গ[৩]

ভারত সরকার ২,৫৭৮টি কেজিবিভি-এর অনুমোদন দিয়েছিল।[৪] এর মধ্যে, মুসলিম ঘনত্ব ব্লকে ৪২৭টি, এসটি ব্লকে ৬১২টি, এসসি ব্লকে ৬৮৮টি কেজিবিভি-র অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। শিক্ষাগত অনগ্রসর ব্লকে মোট ৭৫০টি আবাসিক স্কুল খোলা হয়েছে। যার মধ্যে ৭৫% তালিকাভুক্তি এসসি, এসটি, ওবিসি এবং সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মেয়েদের জন্য এবং বাকি ২৫% দারিদ্র্যসীমার নীচের পরিবারের মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. Revised Guidelines for Implementation of Kasturba Gandhi Balika Vidyalaya (KGBVs) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১২-০৪-১৯ তারিখে
  2. "KASTURBA GANDHI BALIKA VIDYALAYA"JEPC। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ 
  3. Kasturba Gandhi Balika Vidhayalaya (KGBV) Scheme detail
  4. 2013

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা

টেমপ্লেট:Government Schemes in India