এন এম জিয়াউল আলম

বাংলাদেশী সরকারী কর্মকর্তা

এন এম জিয়াউল আলম একজন বাংলাদেশী উচ্চপদস্থ সরকারী কর্মকর্তা যিনি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৮ সালে কারিগরি ক্ষেত্রে দলগত শ্রেণিতে জনপ্রশাসন পদকে ভূষিত হন। এর আগে তিনি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। [১][২]

এন এম জিয়াউল আলম
জাতীয়তাবাংলাদেশী
মাতৃশিক্ষায়তনচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাসরকারি কর্মকর্তা

শিক্ষাজীবনসম্পাদনা

এন এম জিয়াউল আলম চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ থেকে বিএসসি (অনার্স) এবং এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ২০০৬ সালে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গভর্নেন্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট থেকে ২য়বার মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। [৩]

কর্মজীবনসম্পাদনা

৩০ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ হতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। তিনি বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, সিলেট বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার, খুলনা জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সহ বাংলাদেশ সরকারের একাধিক মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৮৬ সালে সহকারী কমিশনার হিসাবে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) ক্যাডারে ১৯৮৪ ব্যাচে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট, সহকারী কমিশনার (ভূমি), উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে মাঠ প্রশাসনে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি সিনিয়র সহকারী সচিব, উপসচিব, যুগ্মসচিব হিসেবে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় / বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন। আলম ২০০৭ সালে বাংলাদেশ থেকে পোশাক রফতানির বিষয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরকরণে কাজ করেন। [৩]

সম্মাননাসম্পাদনা

২০১২ সালে সিলেট বিভাগের ডিজিটালাইজেশন কার্যক্রমে অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে 'ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ড' নামে জাতীয় পুরষ্কার ও ২০১৩ সালে তিনি জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয় থেকে জনপ্রশাসন পদকে ভূষিত করে।[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "আইসিটি সচিব হলেন এন এম জিয়াউল আলম"দৈনিক ইত্তেফাক। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-১৫ 
  2. "আইসিটি বিভাগের সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করলেন জিয়াউল আলম"প্রিয়.কম। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৯ 
  3. "জনাব এন এম জিয়াউল আলম পিএএসিনিয়র সচি"তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০২০