উপজেলা নির্বাহী অফিসার

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (সংক্ষেপে ইউএনও) হলেন উপজেলার মুখ্য কার্যনির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা পর্যায়ে কেন্দ্রীয় সরকারের অন্যতম প্রতিনিধি এবং বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস প্রশাসন ক্যাডার) এর একজন সদস্য। সাধারণভাবে ইউএনও বাংলাদেশের পদমর্যাদা ক্রম অনুসারে সিনিয়র সহকারী সচিব পদমর্যাদার একটি পদ।[১]

ইতিহাসসম্পাদনা

সামরিক শাসক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের আমলে স্থানীয় সরকার (উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা পুণর্গঠন) অধ্যাদেশের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পদ সৃষ্টি করা হয়। ১৯৮২ সালে, এরশাদ সরকার প্রশাসনিক পুনর্গঠন ও সংস্কার কমিটি গঠন করে, যার কাজ হল জনগণের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত একজন চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদ নামে একটি প্রতিনিধিত্বশীল স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা চালু করা। সরকার শহর এলাকার বাইরে প্রতিটি থানাকে উপজেলায় উন্নীত করে এবং প্রথমে থানা নির্বাহী অফিসারের পদ সৃষ্টি করে, যা পর্বতীতে থানা নির্বাহী অফিসার থেকে নাম পরিবর্তন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার করা হয়।

দায়িত্বসম্পাদনা

  1. উপজেলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করা এবং উপজেলা পরিষদের নীতি ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে চেয়ারম্যানকে সহায়তা দান।
  2. সমন্বিত উপজেলা উন্নয়ন পরিকল্পনাসহ উপজেলা পর্যায়ে সকল উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তত্ত্বাবধানে চেয়ারম্যানকে সাহায্য করা।
  3. ফৌজদারি কার্যবিধি ১৮৯৮ এর ১৪৪ ধারার অধীনে ক্ষমতা প্রয়োগ এবং সার্বিকভাবে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্ব পালন।
  4. প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর জরুরি ত্রাণতৎপরতায় অংশগ্রহণ
  5. রাজস্ব ও বাজেট তত্ত্বাবধান
  6. উপজেলাতে সকল সরকারি নির্দেশাবলির অনুসরণ নিশ্চিতকরণ
  7. উপজেলা পর্যায়ে সকল প্রশিক্ষণ কর্মকাণ্ড সমন্বয়
  8. তার অধীনস্থ কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন গ্রহণ ও বণ্টন
  9. অধীনস্থ কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কার্যাদি তত্ত্বাবধান
  10. প্রটোকল সম্পর্কিত দায়িত্ব পালন
  11. সরকার অথবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কর্তৃক তার উপর ন্যস্ত অন্যান্য দায়িত্ব সম্পাদন।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "উপজেলা নির্বাহী অফিসার"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৭ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা