উইলিয়াম ওয়াটস

উইলিয়াম ওয়াটস (১৭২২- ৪ আগস্ট ১৭৬৪) ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির একজন ব্রিটিশ কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি বাংলার শেষ স্বতন্ত্র শাসকের উত্থানের সাথে জড়িত ছিলেন এবং সরাসরি ভারতে কোম্পানির শাসন একীকরণ এবং তাঁর নিজস্ব ব্যক্তিগত সমৃদ্ধির দিকে পরিচালিত করেছিলেন। তাঁর স্ত্রী বেগম জনসনের মাধ্যমে তিনি যুক্তরাজ্যের একজন প্রধানমন্ত্রী সহ উল্লেখযোগ্য বংশধর রেখে গিয়েছিলেন।

উইলিয়াম ওয়াটস
William Watts
জন্ম
ওয়াটস

১৭২২
লন্ডন
মৃত্যু১৭৬৪
জাতীয়তাইংরেজ
পেশারাজনীতিবিদ চাকুরীজীবী
কর্মজীবন১৭২২ - ১৭৬৪
প্রতিষ্ঠানইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি
সন্তানকন্যাঃ আমেলিয়া জর্জ

কন্যাঃ সোফিয়া জ্যামাইকার

পুত্রঃ চার্লস মিলনার রিকিটস

প্রথম জীবন এবং বিবাহসম্পাদনা

উইলিয়াম ওয়াটস ১৭২২ সালে লন্ডনে জন্মগ্রহণ করেন। উইলিয়াম ওয়াটসের এক ছেলে, তার প্রথম জিবনে তিনি ছিলেন একাডেমিক মাস্টার (শিক্ষক) এবং তাঁর প্রথম স্ত্রী মেরি হিলস।[১]

২৪ মার্চ ১৭৪৯ সালে কলকাতায় উইলিয়াম বিধবা নারী ফ্রান্সী আলথামকে বিয়ে করেছিলেন। তিনি ইতিহাসে বেগম জনসন নামে পরিচিত এবং তাঁর বেশিরভাগ উল্লেখযোগ্য সময় কলকাতায় কাটিয়েছিলেন, যা ১৭৭২ সালে ব্রিটিশ ভারতের ডি-প্রকৃত রাজধানীতে পরিণত হয়েছিল। এটি উইলিয়াম ওয়াটস, ফোর্ট সেন্ট ডেভিড এবং কলকাতার গভর্নরের সাথে সংযুক্ত হয়েছিল।

পেশাসম্পাদনা

উইলিয়াম ওয়াটস ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাসিমবাজার কারখানার প্রধান ছিলেন।[২] রবার্ট ক্লাইভ ওয়াটসকে মুর্শিদাবাদে নবাবের দরবারের প্রতিনিধি করেছিলেন। এবং ওয়াটসকে সিরাজ উদ দৌলার চূড়ান্ত উৎখাতের জন্য একটি গোপন পরিকল্পনা তৈরি করা এবং তার পরিবর্তে একটি অনুকূল শাসক বসানোর জন্য নিযুক্ত করেছিলেন।

উইলিয়ম ওয়াটস দীর্ঘকাল বাংলায় বসবাস করার ফলে তিনি বাংলা, হিন্দিফারসি ভাষায় বেশ দক্ষতা অর্জন করেন। তিনি বেনিয়াগোষ্ঠী এবং দেশের অপরাপর লোকদের সঙ্গে দীর্ঘকাল কাজ করার কারণে স্থানীয় রীতিনীতি, আচার-আচরণ সম্পর্কে বেশ জ্ঞানলাভ করেন। ব্যবসার খাতিরে তিনি তৎকালীন নামকরা সম্ভ্রান্ত ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপনে সফল হন। 'জগৎ শেঠ পরিবারের প্রধান, খাজা ওয়াজিদ এবং উমিচাঁদ ছিলেন তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু। উইলিয়াম ওয়াটস এইভাবে মীর জাফর, রায় দুর্লভ এবং ইয়ার লুতুফ খান সহ মুর্শিদাবাদ দরবারের অসন্তুষ্ট আমিরদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে। সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে বিরাট ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার এবং পরিণামে তাঁর সম্পূর্ণ উৎখাতের ক্ষেত্রে উইলিয়ম ওয়াটস সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল। ১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দের ৫ জুন তিনি মীর জাফরের সাথে দেখা করে তাঁর আনুগত্যের শপথ গ্রহণ করেন।

তার পরিষেবাগুলির স্বীকৃতি স্বরুপ, ওয়াটসকে নবাবের কোষাগার থেকে ১১৪,০০০ ডলার দেওয়া হয়েছিল। এবং ১৭৫৮ সালের ২২ জুন রজার ড্রেক-এর স্থলে তাকে ফোর্ট উইলিয়মের গভর্নর নিযুক্ত করা হয়। মাত্র চার দিনের মাথায় রবার্ট ক্লাইভকে এ পদ ছেড়ে দিতে হয়।[৩]

পরবর্তী জীবন এবং মৃত্যুসম্পাদনা

ইংল্যান্ডে ফিরে তিনি বার্কশায়ারের ব্র্যাকনেলের দক্ষিণে অবস্থিত সাউথ হিল পার্কের মেনশনটি নির্মাণ করেছিলেন; সে বিল্ডিং এখন একটি শিল্প কেন্দ্র । ১৭৬৪ সালের জুনে, তিনি বাকিংহামশায়ারের হ্যানস্লোপ পার্ক কেনার প্রক্রিয়া চালিয়ে গিয়েছিলেন, কিন্তু সে আগস্টে তিনি মারা যান। পরে তার ছেলে এডওয়ার্ড সম্পন্ন করেছিলেন, যিনি মনোরের লর্ড হয়েছিলেন।

ওয়াটস ১৭৬৪ সালের আগস্টে মারা যায় এবং হ্যানস্লোপ প্যারিশ গির্জার ওয়াটস ভল্টে তাকে দাফন করা হয়। তাঁর মৃত্যুর বছরে বাংলায় তাঁর স্মৃতিচারণ প্রকাশিত হয়েছিল।

পরিবারসম্পাদনা

তাঁর তিনটি বাচ্চা সন্তান ছিল (একটি শিশু শৈশবে মারা গিয়েছিল)। এঁরাও ছিলেন ফ্রান্সেসের একমাত্র জীবিত বাচ্চা। রাজনীতি ও সাম্রাজ্য-বিনির্মাণে সকলেরই উল্লেখযোগ্য অবদান ছিল।

তাদের মেয়ে আমেলিয়া জর্জ তৃতীয়ের ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টা চার্লস জেনকিনসনকে বিয়ে করেছিলেন।[৪] তিনি যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হয়ে বেড়ে ওঠা রবার্টের জন্মের পরেই ১৯ বছর বয়সে মারা যান। [৫][৬]

তাদের মেয়ে সোফিয়া জ্যামাইকার মিডঘামের জর্জ পয়েঞ্জ রিক্টেটসকে হ্যাম্পশায়ারের নার্সিংয়ের গ্রোভ প্লেসে বিয়ে করেছিলেন। তিনি ১৭৯৩ সালে টোবাগো এবং তার পরের বছর বার্বাডোসের গভর্নর হন, তিনি ১৮০০ সাল তাঁর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। [৭]

তাদের পুত্র চার্লস মিলনার রিকিটস (১৭৭৬-১৮৬৭) ( স্যার উইলিয়াম মিলনারের নামে নামকরন হিসাবে ধারণা করা হয় , ২য় ব্যারনেট [৮] ) ভারতে তাঁর বেশিরভাগ কর্মজীবন সম্মানিত প্রশাসক হিসাবে কাটিয়েছেন, মাইকেল প্রেন্ডারগাস্ট (এমপি) এর এক বোনকে বিয়ে করেছিলেন এবং অবসর নেওয়ার পরে তিনি নিজে এমপি হন। [৯] তিনি ২রা মার্চ ১৭৭৮ সালে মাদ্রাজের এককালের গভর্নর আলেকজান্ডার উইঞ্চের কন্যা ফ্লোরেন্তিয়াকে বিয়ে করেছিলেন, যিনি লন্ডনের হারলে স্ট্রিটে অবসর নিয়েছিলেন। [১০][১১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Edward J. Davies, "Thomas Watts, M.P., and William Watts, Governor of Fort William and Grandfather of Lord Liverpool", Genealogists' Magazine, 32(2016-18):185-90.
  2. Sirajuddaullah and the East India Company, 1756-1757: Background to the Foundation of British Power in India (1962). By Brijen Kishore Gupta. Page 38.
  3. "ওয়াটস, উইলিয়ম"bn.banglapedia.org। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০২০ 
  4. "Philip Mould | Historical Portraits | | Item Details" 
  5. D. Leonard 2008 Nineteenth-Century British Premiers: Pitt to Rosebery. Palgrave Macmillan: p. 82.
  6. Gash, N. (2004-09-23). Jenkinson, Robert Banks, second earl of Liverpool (1770–1828), prime minister. Oxford Dictionary of National Biography. Retrieved 31 Jan. 2018, from http://www.oxforddnb.com/view/10.1093/ref:odnb/9780198614128.001.0001/odnb-9780198614128-e-14740.
  7. "Summary of Individual | Legacies of British Slave-ownership"www.ucl.ac.uk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  8. "Summary of Individual | Legacies of British Slave-ownership" 
  9. "RICKETTS, Charles Milner (1776-1867). | History of Parliament Online" 
  10. Love, Henry Davison (১৯৮৮)। Vestiges of Old Madras। পৃষ্ঠা 319। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ 
  11. Hamilton, A (১৭৭৮)। The Town and Country Magazine, Or, Universal Repository of Knowledge, Instruction, and Entertainment, Volume 10। পৃষ্ঠা 223। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা