উইকিপিডিয়া আলোচনা:বাংলা ভাষায় বিদেশি শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ

সক্রিয় আলোচনা

বিশ্ববিদ্যালয়সম্পাদনা

এটা আলোচনার একটা জায়গা থাকলে ভাল হয়। এই নির্দিষ্ট প্রসঙ্গে আমার বক্তব্য বিশ্ববিদ্যালয় সর্বত্র প্রচলিত, ইন্স্টিটিউটের বাংলা হিসেবে কোনকিছু তেমন প্রচলিত নয়, কাজেই দুটির মধ্যে তুলনা খুব সাহায্য করেনা। আরেকটি বিষয় হল, ঢাকা ও ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় দ্বয় কি তাহলে মৌলিক ভাবে ভিন্ন (একটি বিশ্ববিদ্যালয়, অন্যটি ইউনিভার্সিটি)?--তারপরিতাপ 02:25, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)

আমিও একমত যে, প্রতিবর্ণীকরণ সংক্রান্ত একটা আলোচনা পাতায় সবকিছু নিষ্পন্ন হওয়া দরকার। কারন শুধু university না, আরো অনেক শব্দই আছে, যার বাংলা প্রচলিত, আবার হয়তো ইংরেজিটাও বাংলা ভাষায় ব্যাপক ভাবে প্রচলিত। কিন্তু তার পরও আমার একটু খট্‌কা থেকে যাচ্ছে, যেমন University of Illinois কে ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয় বলাটা বেখাপ্পা শোনাবে, আর এই নামটা প্রচলিতও নয়। ইয়েল / কর্নেল এর ক্ষেত্রে মেনে নিলাম, ও গুলো ইয়েল / কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবেই খ্যাত, কিন্তু University of California at Berkeley, অথবা University of Wisconsin এর বাংলা করতে গিয়ে ক্যালিফোর্নিয়া/উইস্কন্সিন বিশ্ববিদ্যালয় বলাটা অবশ্যই খাপছাড়া শোনায়। --Ragib 03:13, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
ইলিনয় ও বার্কলের ক্ষেত্রে আমি একরকম একমত, কারণ সঠিক অনুবাদটি দাঁড়াবে আরবানায় ইলিনয়ের বিশ্ববিদ্যালয়, যা বেমানান। ইয়েল, হার্ভার্ড-এর ক্ষেত্রে তাদের প্রথম নামটিই পরিচায়ক, বিশ্ববিদ্যালয় সেকেন্ডারি। কিন্তু উইসকনসিন বলতে কেই ইউ উইসকনসিন বুঝবেনা, তাই পুরোটাকেই "প্রপার নেম" ধরা যেতে পারে। যাহোক, আশা করি একটা আলোচনা পাতা অচিরেই তৈরি হবে। --তারপরিতাপ 19:43, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
University of Dhaka -কে বাংলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বলা হয় (ঢাকার বিশ্ববিদ্যালয় নয়); University of Engineering and Technology-কে বলা হয় প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয (প্রকৌশলের বিশ্ববিদ্যালয নয়)। কেউ এটাকে বেখাপ্পা মনে করে না। একই নীতি যদি University of <Some Place>-এর উপর প্রয়োগ করি, তবে বেখাপ্পা লাগবে কেন? আমার মতে ক্যালিফোর্নিয়া/উইস্কন্সিন বিশ্ববিদ্যালয় is fine. ---অর্ণব 21:27, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম "ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়"। এর বাংলা নামই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার বাংলা নাম নেই। আমরা এটাকে বাংলা করতে গেলে অনেক কিছুরই বাংলা করার কথা আসবে। যেমন নিউ ইয়র্ক শহরকে নিশ্চয়ই "নতুন ইয়র্ক" বলাটা আমাদের উচিত না। সেরকম প্যারিসে যে আছে École Polytechnique, তার বাংলা জোর করে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় করাটা অবশ্যই বেখাপ্পা। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় একটা proper name এর অর্ধেকের বাংলা করার কোনো প্রয়োজন আমি দেখছিনা। আর এরকম নামকরণটা প্রচলিতও না , আর অন্য সমস্যাও রয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ বলতে পারি, ইলিনয়ে Illinois State University, University of Illinois at Urbana-Champaign, University of Illinois at Chicago, University of Illinois at Springfield, ইত্যাদি রয়েছে। আমরা যদি সবটারই বাংলা করতে যাই, তাহলে কী লিখবো? ইলিনয় সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়, আর্বানা-শ্যাম্পেইনে ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়, শিকাগোতে ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়, স্প্রিংফিল্ডে ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়? এটা অনেকটা জোর করে লেখা অম্লজান, উদযান এর মতো দাঁড়াবে, আর মানুষের বিভ্রান্তিও বাড়বে। তাই আমার মতে,নিবন্ধের নামকরণের সময় proper name ব্যবহার করা উচিত। ভিতরে সব খানে অবশ্যই বাংলা শব্দ ব্যবহার করব, যেমন, uiuc এর ক্ষেত্রে লিখতে পারি, "ইউনিভার্সিটি অফ ইলিনয় এট আর্বানা-শ্যাম্পেইন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় অঙ্গরাজ্যের আর্বানা ও শ্যাম্পেইনে অবস্থিত একটি বিশ্ববিদ্যালয়।"ধন্যবাদ। --Ragib 21:54, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
খানিকটা imagination ব্যবহার করেই বাংলার মাধ্যমেই এ সমস্যার সমাধান সম্ভব। Illinois State University = ইলিনয় সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়, University of Illinois at Urbana-Champaign = ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়, আর্বানা-শ্যাম্পেইন University of Illinois at Chicago = ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়, শিকাগো, University of Illinois at Springfield = ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয, স্প্রিংফিল্ড। অম্লজান, উদযান-এর মত extreme example-এর সাথে তুলনাটা মনে হয় এখানে প্রযোজ্য নয়। ইউনিভার্সিটি অফ ইলিনয় অ্যাট আর্বানা-শ্যাম্পেইন-কে ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়, আর্বানা-শ্যাম্পেইন-এ redirect করে যেতে পারে। তবে ফরাশি উদাহরণটা interesting...আমি হয়ত এক্ষেত্রে একোল পোলিতেকনিক-ই লিখব। হয়তো প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় নামে একটি disambiguation পাতা থাকবে, যেখানে একোল পোলিতেকনিক-এর সংযোগ থাকবে। এটা অনেকটা নির্ভর করবে আমরা বাংলাকে কতখানি গুরুত্ব দিতে চাই বা চাই না। --- অর্ণব 22:16, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
এখানেই একটা সমস্যা, ফরাসী ভাষার বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকে কেনো বাংলা করবোনা, কিন্তু ইংরেজী ভাষারটাকে করবো? একোল পোলিতেকনিক লিখলে কেনো আমরা ইয়েল ইউনিভার্সিটি লিখবোনা? ইংরেজী উইকিপিডিয়াতেও আমি এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি, কোনো কিছুর proper name যদি থেকে থাকে, তাহলে সেটাকে ভাষান্তর করার দরকার অতটা নাই। ইংরেজী উইকিপিডিয়াতে বাংলাদেশের নির্বাচন সংক্রান্ত একটি নিবন্ধে একজন আওয়ামী লীগের ইংরেজী people's league করেছিলো। Technically, সেটা সঠিক, কিন্তু আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগ নামেই পরিচিত, তাই তার নামের অনুবাদ করার কোনো কারণ নেই। সেরকমই বিশ্ববিদ্যালয়, বা অন্য কোনো কিছুর proper name এর বাংলা করাটা উচিত না। আরেকটা উদাহরণ হল, Republican party। আমরা যদি এরও বাংলা করে প্রজাতন্ত্রী দল করি, technically, সেটা সঠিক, কিন্তু অপ্রচলিত। আমি যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম বলেছি, সেগুলো, যেমন ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া এট বার্কলে এর বাংলা ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, বার্কলে করলে ঐ "প্রজাতন্ত্রী দল" এর সাথে তার কী পার্থক্য থাকবে? কাজেই, proper name এর বাংলাটা আমরা প্রবন্ধের মধ্যে বন্ধনীর ভিতরে দিয়ে দিতে পারি, কিন্তু প্রবন্ধের নাম proper name অনুযায়ী হওয়া উচিত। এখানে বাংলাকে কম গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে তা না, কিন্তু নামের তো আর বাংলা হয় না। --Ragib 22:56, ১১ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
proper noun-এর বাংলা হয় না একথা পুরোপুরি ঠিক নয়। করলেই হয়, আর না করলে হয় না। আর তার প্রচলন নির্ভর করে authority-র শক্তির ওপর। যেমন – United States এর প্রচলিত বাংলা নাম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউনাইটেড স্টেটস নয়। যুক্তরাজ্যের বেলাতেও তাই।
তবে আমি একমত, নিবন্ধের শিরোনাম proper noun -এর বাংলা প্রতিবর্ণীকৃত রূপে রাখাই সহজ সমাধান। এ ক্ষেত্রে বিদেশী প্রতিষ্ঠানের নামের সরাসরি বাংলা অনুবাদের দরকার নেই। তবে, প্রতিষ্ঠানটির বিবরণ দেওয়ার সময় যেসব common noun terms ব্যবহার করব, সেগুলো বাংলায় হবে । যেমন - ইয়েল ইউনিভার্সিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কানেটিকাট রাষ্ট্রে অবস্থিত একটি বিশ্ববিদ্যালয়। --- অর্ণব 05:47, ১২ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
হ্যাঁ, এটাই আমার মত, নিবন্ধের ভিতরে বর্ননা দেওয়ার সময় সম্পূর্ণ ভাবে বাংলা ব্যবহার করা। বিভিন্ন শব্দ যা বাংলাতে অনুদিত আকারে বহুল প্রচলিতে, সেগুলোর ক্ষেত্রে বাংলা শব্দ, আর অন্যান্য ক্ষেত্রে প্রবন্ধের নামে সংশ্লিষ্ট ভাষার নাম, এভাবেই ভালো হবে। যেমন, united nations এর বাংলা যেহেতু জাতিসংঘ প্রচলিত, কাজেই সেটাই ব্যবহার করা। আর UNESCO বা FBI এর ক্ষেত্রে যেহেতু বাংলা নামগুলো এখনো বহুল প্রচলিত না, কাজেই proper name গুলোই ব্যবহার করা। পরবর্তীতে যদি বাংলা শব্দ বহুল ভাবে প্রচলিত হয়ে যায়, সেই ক্ষেত্রে দরকার হলে প্রবন্ধের নাম পালটানো যাবে। ধন্যবাদ। --Ragib 06:07, ১২ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)

Ragib এর মূল ধারণার সাথে একমত পোষণ করেও আমার মনে হয় বিশ্ববিদ্যালয় একটা গ্রহণযোগ্য অনুবাদ। এখানে একটা case by case ভিত্তিতেই এগোতে হবে। হার্ভার্ড এর ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় গ্রহণযোগ্য, কিন্তু এমআইটি অপরিবর্তিত থাকা উচিত। মনে রাখতে হবে, ইংরেজী উইকিপিডিয়ায় তারা ভুল ইংরেজী নামও বজায় রাখতে উদগ্রীব। যদিও তাদের সাথে ঝগড়া করে কোন ব্যবস্থা নেয়ার কোন কারণ নেই, মূলনীতিটি গুরুত্বপূর্ণ, বাংলা পাঠককে কোনটি বেশি সাহায্য করবে। আমার মতে বাংলা পাঠকের জন্য এমআইটি, একোলে পলিটেকনিক এবং টোকিও বিশ্ববিদ্যলয় সুবিধাজনক।--তারপরিতাপ 21:37, ১৩ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)

another issueসম্পাদনা

একটা প্রশ্ন। nt প্রতিবর্ণীকরণের দুটি পদ্ধতি আছে, ণ্ট(ণ) বা ন্ট(ন)। বাংলা ব্যাকরণ মতে ট এর সঙ্গে ণ যায়। কিন্তু প্রতিবর্ণীকরণের ক্ষেত্রে কোনটি বাঞ্ছনীয়?--তারপরিতাপ 20:36, ১৪ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)

বিদেশী শব্দে সাধারণত ণ-ত্ব বিধান খাটবে না। --- অর্ণব 20:46, ১৪ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
অর্ণবের সাথে একমত ... কোন বিদেশী শব্দে ণ হবে না। --ইমাম তাশদীদ উল আলম 11:45, ১৬ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)
ঠিক আছে। --তারপরিতাপ 04:20, ১৭ এপ্রিল ২০০৬ (UTC)

ণ/ষসম্পাদনা

So I know that we're basically doing away with "ণ" in the সহজবোধ্য বাংলা রূপ, since it has merged with "ন" in normal Bengali phonology... so that foreign words with [n]/[ɳ] will be carried over into the সহজবোধ্য বাংলা রূপ as "ন" and not "ণ", even creating conjuncts like "ন্ট" and not "ণ্ট"...

BUT, does the same go for ষ? Sure, "ষ" and "শ" have merged in normal Bengali phonology, so that foreign words with [ʃ], [ɕ], or [ʂ] will be represented by "শ" and not "ষ" in the সহজবোধ্য বাংলা রূপ... but what about when it combines with "ট"? There is no attractive combination of "শ" and "ট" in the set of possible যুক্তাক্ষর - so do we have to settle for হসন্তs in words like "শ্‌টুট্‌গার্ট্‌", "লিশ্‌টেন্‌শ্‌টাইন", etc.? I have to say, it looks horrible, especially at the beginning of the word. Would it be really horrible to use "ষ্ট" as in "ষ্টুট্‌গার্ট্‌" and "লিষ্টেন্‌ষ্টাইন"? I know this breaks our rules about the use of "ষ". Is there any precedent in print we could look to? --সামীরুদ্দৌলা ০৮:১১, ৬ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

Current Bangla usage manuals recommend using ষ only in Sanskrit/totshomo words. And শ for [ʃ], [ɕ], or [ʂ] in foreign words. This seems to be the overriding principle. However, off the top of my head, this advice is violated at least on one occasion, and in a funny way. Australia is spelled in Bangla newspapers as অষ্ট্রেলিয়া, with a মুর্ধন্য ষ। Why? I have no clue. IMO, it's doubly wrong. First, it is denoting a "sh" sound instead of a "s" sound. The second error, which flwos quite naturally from the first one, it is using a ষ, instead of শ, (most probably for the reason you mentioned above: the lack of a nice looking conjunct) violating the no ষ in foreign words rule. The ill effect of this spelling is some people, through no fault of their own, are pronouncing Australia as Au"sh"tralia! I know, it's stupid and chaotic.
There's also the example of words containing [ŋj], which are always spelled ঞ + জ = ঞ্জ, not ন+ জ, because there's no actual consonant conjunct in vogue denoting ন+ জ (even though our unicode fonts somehow allow this completely alien conjunct; Avro phonetic seems to auto-correct ন+ জ to ঞ্জ though). --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ২২:১৩, ৬ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)


Yes in fact I have even seen "store", "street", and "master" written "ষ্টোর", "ষ্ট্রিট", and "মাষ্টার" on signs in Dhaka. I would assume that these hand-painted signs would not be subject to the same restrictions on old Bengali fonts, many of which probably can't write স্ট due to its lack of use in native Bengali words and Sanskrit borrowings. Most people don't seem to reliably know which "sh" goes in what word, so I can imagine that lots of people just choose the form that has the best-looking যুক্তাক্ষর. Anyhow, you bring up a good point. Since there is no ন+চ / ন+জ যুক্তাক্ষর, it seems like all foreign words with [ntʃ] / [ndʒ] are borrowed as ঞ্চ / ঞ্জ, even if ঞ is largely obsolete on its own. Given this exception to the rule, it seems like ষ্ট would serve the same purpose (making a neat, easily-recognizable যুক্তাক্ষর, even when it uses an obsolete letter). Maybe we can make this exception for [ʃt]? Let's see what others say. --সামীরুদ্দৌলা ২২:৪৯, ৬ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

"ষ্টোর", "ষ্ট্রিট", and "মাষ্টার" are indeed common examples, but more recent street signs show signs of correcting the original error and use signs like "স্টোর", "স্ট্রিট", etc. I believe you are right, and I find it ironic, that if an average Bangali store-owner has to transliterate from a foreign word containing [ʃt], he would probably go for the nearest example, and use ষ্ট, even though he just used the same conjunct for [st] as well. PS. I need to know my IPA. grr.... --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ২২:৫৮, ৬ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

Speaking of which, I really need to get back to adding to those আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালা articles! I'm so slow with them. --সামীরুদ্দৌলা ০৪:৫০, ৭ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)


Looking through the Deutsche Welle Bangla articles, I've found instances of ষ্ট in names like Frank-Walter Steinmeier ফ্রাংক-ভাল্টার ষ্টাইনমায়ার. I'd say if no one has any objections, I'd like to apply this to other German words with the same "st" [ʃt] cluster. --সামীরুদ্দৌলা ০৩:২৫, ১২ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

Well, I have doubts about this one. I don't know who is writing these DW aritcles, but he/she is clearly not aware of the spelling practice that Bangla Academy or any Bengali linguist that I know of adhere to. They almost never use ষ in foreign words. IMO, it creates an unnecessary application of ষ in a context where it is not supposed to be applied at all, i.e., in non-Totshomo words.--অর্ণব (আলাপ | অবদান) ০৪:৪৬, ১২ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

ষ-ত্ব বিধান অনুযায়ী বিদেশী শব্দে ষ হবে না। যথা- পোস্ট, মাস্টার, ফটোস্ট্যাট, টেস্ট ইত্যাদি। বাংলাদেশের বিভিন্ন সাইনবোর্ডে যে খিচুড়ীমার্কা বাানান দেখায় তা অজ্ঞানতাবশত। বিধানটি দেশের যে কোন পাঠ্য বই থেকে দেখে নেয়া যেতে পারে। এ্যাত বিতর্ক না করে ১০ম শ্রেণীতে পাঠ্য মুনির হোসেন সম্পাদিত (সম্ভবত) টেক্সটবুক বোর্ডের বইটি দেখা যেতে পারে। এই মূহুর্তে দেশে অবস্থানকারী কোন ব্যক্তিকে দিয়ে যাচাই করে দেখুন।--শামীম ১৩:২৩, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ (UTC)

ষ-ত্ব বিধান অনুযায়ী নয়, বরং বলা উচিত ষ-ত্ব বিধানটি বিদেশী শব্দের জন্য তৈরী করা হয়নি, তৎসম শব্দের জন্য করা হয়েছে। আর আসলে আমাদের আলোচনার ব্যাপারটা একটু আলাদা। জার্মান ভাষায় অনেক সময় st, sp, ইত্যাদিতে s বাংলা তালব্য শ বা মূর্ধন্য ষ-এর মতই উচ্চারিত হয়। এক্ষেত্রে আমরা দুইভাবে প্রতিবর্ণীকরণ করতে পারি। আমরা শ-য়ে হসন্ত দিয়ে লিখতে পারি যেমন-শ্‌প, শ্‌ট কিংবা আমাদের যে যুক্তবর্ণগুলি ইতিমধ্যেই আছে, অর্থাৎ ষ্প, ষ্ট, ইত্যাদি সেগুলো ব্যবহার করতে পারি। এখানে ঠিক ষ-ত্ব বিধানের ব্যাপারটা আসছে না। --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১৩:৩৪, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ (UTC)
BTW, মুনির হোসেন নয়, ভাষাবিজ্ঞানী মুনীর চৌধুরী দশম শ্রেণীতে পাঠ্য বাংলা ব্যাকরণ বইয়ের সম্পাদক ছিলেন। --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১৩:৩৮, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ (UTC)

জ়সম্পাদনা

Is the letter জ় for the z sound (as in has) or the ge sound (as in garage) acceptable as friendly Bengali? Because

  1. If the user knows what জ় is, that is fine, but
  2. If the user is not familiar with জ়, at least he/she will recognise it as জ.

Would it be used in the first or second instance? --Docwho (চিনাৎসু) ১৪:০২, ১০ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

For clarification, is it জ + something, or simply জ? --রাগিব (আলাপ | অবদান) ১৪:৩৯, ১০ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)
It is জ + ় (I think it's called নুকতা or বিন্দু). What do you think about this suggestion? -- Docwho (চিনাৎসু) ১৫:১০, ১০ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)
But the problem is, there is no such character combination/compound character in Bangla. Therefore, it is highly unlikely that anyone will understand the meaning of this. :( --রাগিব (আলাপ | অবদান) ১৫:১৩, ১০ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

I've seen this in more than one dictionary - in particular, in my English -> Bengali dictionary, all English words are transcribed in Bengali with these "phonetic" characters to differentiate certain ambiguous letters. In this case, borgio-jô with bindu makes a [z] out of a [dʒ]. I actually don't remember how this phonetic Bengali script shows the [ʒ] of "gara[ge]", but I'll find out. Since this is only for use in the italicized Phonetic Bangla version (version 2) of each foreign word, and not in the main bold Bangla-friendly version (version 1), I figured it's okay if we use some unfamiliar characters if it's just to help those who are interested in the native (non-Bengali) pronunciations of words. --সামীরুদ্দৌলা ২১:৪১, ১০ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

Which dictionary is it? I'm quite curious, because this would be the first time I'd see accents added to Bangla letters. Is there a standard for it? --রাগিব (আলাপ | অবদান) ০১:৫৪, ১১ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

The dictionary I have in mind is the Bangla Academy (Dhaka) English-Bengali Dictionary (1993). They actually have a lot of linguistic terms translated (e.g. for "IPA" they say "আন্তর্জাতিক ধ্বনিলিপি"). Here is their transliteration scheme for English->"Phonetic Bangla":

Vowels স্বরধ্বনি

  • /iː/ ঈ
  • /ɪ/ ই
  • /eɪ/ এই
  • /ɛ/ এ
  • /æ/ অ্যা
  • /aː/ আঃ
  • /aʊ/ আ
  • /aɪ/ আ
  • /ʌ/ আ
  • /ə/
  • /ɜː/ আঃ
  • /ɒ/ অ
  • /ɔː/ ওo
  • /ɔɪ/ অয়
  • /əʊ/ ঔ
  • /ʊ/ উ
  • /uː/ ঊ

Consonants ব্যঞ্জনধ্বনি

  • /f/ ফ়
  • /v/ ভ়
  • /θ/ থ়
  • /ð/ দ়
  • /z/ জ়
  • /ʒ/ জ়় (I can't accurately write this using this font. They use two dots under the জ to represent this sound)

We really don't have to be THIS technical in distinguishing English vowels. For example, all the superscripted vowels can be done away with. Still, it makes for a very nice precedent for transcribing at least the English phonemes in Bengali. --সামীরুদ্দৌলা ০৬:০৫, ১১ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

জ়, etc. really belong in the slightly-difficult Bangla transliteration scheme, the "বাংলা বর্ণে বিদেশী শব্দের উচ্চারণ" part, not in the সহজবোধ্য বাংলা রূপ. --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১৩:০২, ১১ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

Of course; I wouldn't imagine this to be at all acceptable for the সহজবোধ্য বাংলা রূপ. It's not সহজ at all for everyday readers. --সামীরুদ্দৌলা ১৯:০২, ১১ নভেম্বর ২০০৬ (UTC)

বিদেশী কেন???সম্পাদনা

আমি শিরোনামে বিদেশী শব্দটার বিরোধিতা করছি। বাংলাভাষীদের একটা বিরাট অংশের কাছে অন্যান্য ভারতীয় ভাষাগুলি বিদেশী ভাষা নয়। তাই অন্য কোনো নামে এই পাতাটি চিহ্নিত হোক। বরং নামকরণ বাংলা ভাষায় অন্যান্য ভাষার শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ বা ওই জাতীয় কিছু করা যেতে পারে। নামটা বড় হয়ে যাবে। কিন্তু অন্যান্য ভারতীয় ভাষাকে বিদেশী ভাষা বললে তাতে ভারতীয় বাঙালিদের আবেগে আঘাত লাগতে পারে। --অর্ণব দত্ত ১২:১৯, ২২ আগস্ট ২০০৯ (UTC)

অর্ণব দত্তের বিদেশী শব্দটার বিরোধীতাকে আংশিক সমর্থন করছি৷ কেননা, ভারত উপমহাদেশের (ভারত দেশের নয়) বাইরেও আরো দেশ আছে যাকে আমরা বিদেশী বা পরদেশী বলবো ভাষায় ব্যবহৃত শব্দের ক্ষেত্রে৷ তবে ভারত উপমহাদেশের কোন ভাষার ক্ষেত্রেই শব্দটা বিদেশী বা পরদেশী বলা বাঞ্ছনীয় হবে না৷ হোক মালায়ালাম বা দক্ষিণ ভারতের অন্যান্য ভাষা সমূহ বা উর্দু সহ অন্য এমন সব ভাষা যা ফার্সিয়ান বর্ণে লেখা হয়ে থাকে৷ আমি এ কথা এই জন্য বলছি যে, ভারতীয় উপমহাদেশের ভাষা সমূহ, এক কথায় সব কটি ভাষার উৎপত্তি হয়েছে আর্য ভাষা সংস্কৃত থেকে আর তার সাথে মিশেছে প্রাচিন কিছু অনার্য শব্দ৷ সুতরাং ভারতীয় উপমহাদেশের সবকটি ভাষার সম্পর্ক হচ্ছে মা-সন্তান বা পিতা-সন্তান বা ভাই-ভাই বা বোন-বোন বা ভাই-বোন, এরকমের৷ সুতরাং ভারতীয় ভিন্ন ভাষার শব্দ সমূহকে বিদেশী শব্দ না বলে এমন একটি শব্দে পরিচিত করা উচিত যাতে সহজে অনুভব করা যায় এসব ভাষা একই পরিবারভুক্ত৷ --Taher Almahdi (আলাপ) ০১:২৬, ১ সেপ্টেম্বর ২০১২ (ইউটিসি)তাহের আলমাহদী ৪:২৪, ৯/১/২০১২[]

বিদেশী কথাটার বদলে বিভাষিক করা যেতে পারে। --অর্ণব দত্ত ১২:৪১, ২২ আগস্ট ২০০৯ (UTC)

আমার মতে এটা মাত্রাতিরিক্ত সংবেদনশীল হয়ে যায়। "বিদেশী" বলতে এখানে বাংলা বাদে অন্য ভাষা বোঝানো হয়েছে। ভাষার তো আর জাতীয়তা হয় না। বিদেশী বলতে কী বোঝানো হয়েছে, এটা কমন সেন্সের ব্যাপার। --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১৬:৩৮, ২২ আগস্ট ২০০৯ (UTC)
যেমন একটা কথা শুধু তর্কের খাতিরে জিজ্ঞাসা করি। উর্দু ভাষাকে কি ভারতীয় বাঙালিরা দেশী ভাষা হিসেবে মনে করেন, নাকি বিদেশী? --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১৬:৪৯, ২২ আগস্ট ২০০৯ (UTC)

উর্দু আমাদের দেশীয় ভাষা। ভারতে তো বটেই খোদ কলকাতারই জনসংখ্যার একটা বড়ো অংশ উর্দুভাষী। এঁরা কয়েক শতাব্দী কলকাতায় বাস করছেন। তাই কলকাতাতে এঁদের আর অভিবাসী মনে করা হয় না। তাছাড়া উর্দু ভারতের সরকারি ভাষা, জম্মু ও কাশ্মীরের রাজভাষা এবং বিহার ও উত্তর প্রদেশের দ্বিতীয় রাজভাষা। প্রশ্নটা জাতীয়তার নয়। আর কমন সেন্স ব্যবহার করলে বলতে হয়। ইংরেজি, ফরাসি, জার্মান ইত্যাদিকে যে অর্থে ভাষাতাত্ত্বিকরা বিদেশী ভাষা বলেন, হিন্দি, মারাঠি, তামিল সেই অর্থে বিদেশী ভাষা নয়। রামেশ্বর শ'র সাধারণ ভাষাবিজ্ঞান ও বাংলা ভাষা বইটা দেখতে পারেন। সেখানে বাংলা শব্দভাণ্ডার আলোচনা কালে কৃতঋণ শব্দগুলিকে দুইভাগে ভাগ করে আলোচনাহয়েছে। বিদেশী (ইংরেজি, ফরাসি, জার্মান ইত্যাদি) ও দেশী (হিন্দি, মারাঠি, দ্রাবিড় ইত্যাদি)। আমার মনে হয় সংগত কারণেই তা করা হয়েছে। বিদেশী কথাটার অর্থ যা বিদেশের। বাংলাদেশী বাঙালি বন্ধুরা কাছে উর্দুকে সহজেই বিদেশী ভাষা বলতে পারবেন। কিন্তু ভারতের একটি সরকারি ভাষাকে বিদেশী ভাষা বলে চিহ্নিত করাটা একজন ভারতীয়ের পক্ষে অনৈতিক। এটা সংবেদনশীলতার ব্যাপার নয়। বিতর্কের। ভাষাতাত্ত্বিকরা যেখানে অন্যান্য দেশীয় ভাষাকে বিদেশী ভাষা বলেন না সেখানে কেন উইকিপিডিয়ায় অন্যান্য ভারতীয় ভাষাকে বিদেশী ভাষা বলা হচ্ছে সে নিয়ে রাজনীতি হতে পারে, বা সংবিধানের অমর্যাদার প্রশ্নও উঠতে পারে। উইকিপিডিয়ার পক্ষে যা পরিহার করাই কর্তব্য। আমার মনে হয় ভাষাবৈজ্ঞানিক কারণটিও মাথায় রাখা দরকার। --অর্ণব দত্ত ০৩:২৪, ২৩ আগস্ট ২০০৯ (UTC)

আপনি যেহেতু এতটাই সংবেদনশীল, তাহলে ঠিক আছে। তবে বিভাষিক (কিংবা বিজাতীয়, ইত্যাদি) এত কটমটে শব্দ ব্যবহার না করে "বাংলা ভাষায় অন্য ভাষার শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ" লেখা যায়। আমার কোন সমস্যা নেই। কিন্তু এক্ষেত্রে আপনার দায়িত্ব আছে। যেসমস্ত প্রতিবর্ণীকরণ নীতি পাতায় "বিদেশী" লেখা হয়েছে , সেগুলি সবগুলিতে আপনাকে সম্পাদনা করে পরিবর্তন করে দিতে হবে। এবং দ্রুত। --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ০৩:৪৬, ২৩ আগস্ট ২০০৯ (UTC)
বাংলা ব্যকরণ বইতে শব্দের প্রকারভেদ যা পড়েছি, তাতে তৎসম-তদ্ভবের পাশাপাশি "দেশী শব্দ", "বিদেশী শব্দ"ও রয়েছে। বাংলা বাদে অন্য সব ভাষাকে বিদেশী ভাষা বোঝানো হয়েছে। আমি জানি না, পশ্চিমবঙ্গে প্রকাশিত বাংলা ব্যকরণ বইতে কী লেখা রয়েছে। আমার পড়া বেশ কিছু ব্যকরণ বইয়ের আদি সংস্করণ সম্ভবত ৪৭ এর আগের, তাই তখনো এই শব্দাবলীর ব্যবহার প্রচলিত ছিলো বলেই মনে হয়।
খোদ ঢাকারই পুরানো এলাকায় বাসকরা অনেকে উর্দুতে কথা বলতেন। কাজেই এই দিক থেকে কলকাতা অদ্বিতীয় নয়। "বিদেশী" শব্দটিকে আক্ষরিক অর্থে না নিয়ে ভাষাবিজ্ঞানের context থেকে দেখার অনুরোধ করি। যদি অধিকাংশ ভাষাবিজ্ঞানী বাংলা বাদে অন্য ভাষাকে "বিদেশী" ভাষা বলে থাকেন, তাহলে শব্দের শ্রেণীবিভাগের স্বার্থে এই শব্দটির ব্যবহারে সমস্যা দেখিনা। --রাগিব (আলাপ | অবদান) ০৩:৫১, ২৩ আগস্ট ২০০৯ (UTC)

রাগিব সাহেব যা বললেন তাতে একমত হতে পারলাম না৷ কারণ, আপনি ভাষাবিজ্ঞানীদের যে সকল ব্যাকরণ গ্রন্থের উদারণ দিলেন সে গুলোতেই লক্ষ্য কররেন, বর্ণ, অক্ষর বা শব্দ কী অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে৷ বর্ণ কী?, অক্ষর কী? শব্দ কী? আপনি ভিন্ন ভিন্ন ব্যাকরণ গ্রন্থে ভিন্ন ভিন্ন সংজ্ঞা পাবেন যে গুলো শুধু মাত্র শব্দে নয়, অর্থেও বিপরীত৷ আর আপনি যখন ভাষা বিজ্ঞানী বললেন, তাই বলি ভাই, বিজ্ঞান প্রতি নিয়ত পরিবর্তনশীল৷ কারণ আজকের সত্য আগামী কাল মিথ্যা বা মহাসত্য হয়ে যেতে পারে৷ আমাদের সঠিক পরিভাষা সমূহ তৈরি করা দরকার অনেক ভেবে চিন্তে৷--Taher Almahdi (আলাপ) ০১:৪০, ১ সেপ্টেম্বর ২০১২ (ইউটিসি)তাহের আলমাহদী ৪:৪০, ৯-১-২০১২[]

জাহীন ভাইকে বলি, বিষয়টি সংবদেনশীলতার সঙ্গে বিচার করার জন্য ধন্যবাদ। যে পরিবর্তনের অনুরোধ আপনি করেছেন, তা করতে আমি সর্বপ্রযত্নে সাহায্য করব। আপনি মূল নিবন্ধের নামটি শুধু নির্ধারণ করে দিন। অন্য ভাষা কথাটিতে আপত্তি নেই।

রাগিব ভাইকে বলি, শব্দের প্রকারভেদ সংক্রান্ত ব্যাপারটি আমি আমার আগের লেখায় তথ্যসূত্রসহ উল্লেখ করেছি। ’৪৭ সুদূর অতীত। তারপর আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে ভাষাবিজ্ঞানচর্চারও অনেক উন্নতি ঘটেছে। স্কুল বাংলা ব্যাকরণ বইতে শব্দভাণ্ডার অধ্যায়ে দেশী ও বিদেশী শব্দের আলাদা শ্রেণীবিভাগ দেখেছি। সেই সময় পড়েছি বাংলা শব্দভাণ্ডারে পাঁচ প্রকার শব্দ আছে তৎসম, তদ্ভব, দেশী, বিদেশী ও নবগঠিত। বিশ্ববিদ্যালয় স্তরে উঠে পড়েছি শব্দ তিনপ্রকার – মৌলিক (যার উপপর্যায় হল তৎসম, অর্ধতৎসম ও তদ্ভব), আগন্তুক বা কৃতঋণ (উপপর্যায় দেশী ও বিদেশী) এবং নবগঠিত (উপপর্যায় মিশ্র ও অবিমিশ্র)। (তথ্যসূত্র: সাধারণ ভাষাবিজ্ঞান ও বাংলা ভাষা, ড রামেশ্বর শ’, পুস্তকবিপণী, কলকাতা, ১৪০৩ সংস্করণ, পৃষ্ঠা ৬৭৫)। ড সুকুমার সেন ও ড সুভদ্রকুমার সেন লিখিত বাঙালীর ভাষা গ্রন্থে বাংলা শব্দভাণ্ডারে বিদেশী ও সংস্কৃত শব্দ সংক্রান্ত একটি অধ্যায় রয়েছে। সেখানে সকল অন্যান্য ভারতীয় ভাষাগুলিকে বিদেশী ভাষা বলা হয়নি। (বাঙালীর ভাষা, সুকুমার সেন ও সুভদ্রকুমার সেন, পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমি, ১৯৯৪ সংস্করণ, পৃষ্ঠা ৪৩-৪৬) আমার মনে হয়, এই বিভাজনটি ’৪৭-উত্তর রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সতর্ক ভাবেই করা হয়। আর এই ’৪৭-উত্তর রাজনৈতিক পরিস্থিতি র্যাডক্লিফ লাইনের দুই পারে দুই রকম। বিতর্কটা সেই কারণেই উঠতে পারে। বাংলাদেশের অধিকাংশ ভাষাবিজ্ঞানী যদি উর্দু, হিন্দি, তামিল, তেলুগু ইত্যাদিকে বিদেশী ভাষা বললে ভুল বলবেন না; আর পশ্চিমবঙ্গের অধিকাংশ ভাষাবিজ্ঞানী উর্দুকে দেশী ভাষা বললেও ভুল বললেন না। এই জন্যই আমাদের দেশী-বিদেশী সংক্রান্ত বিতর্ক এড়িয়ে চলা উচিত বলে বিবেচনা করছি। --অর্ণব দত্ত ০৬:২৪, ২৩ আগস্ট ২০০৯ (UTC)

উইকিপিডিয়া:বাংলা ভাষায় বিদেশী শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ শিরোনামার প্রস্তাবণাটিতে এক জায়গায় লক্ষ্য করলাম বাংলা খ বর্ণের জন্য ইংলিশ kh বা x লিখার প্রস্তাব করা হয়েছে৷ আমি মনে করি খ এর জন্য kh লেখাই বাঞ্ছনীয়, কেননা x লিখবো ক্ষ (ক+ষ) যুক্ত বর্ণটির জন্য৷ দ্বিতীয় তো আমরা সচরাচর বলে থাকি ইংরেজী বা ইংরাজী৷ মূলত ইংরাজ থেকে ইংরাজী হয়েছে, যা বিকৃত হয়ে হয়েছে ইংরেজী৷ ব্রিটিশরা আমাদের দেশে রাজত্ব করেছে বলে তাদের শাসনকে আমরা ইংরাজ অর্থাৎ ইংলিশের রাজত্ব বলতে পারি৷ কিন্তু তাই বলে ইংলিশ জাতির নাম, ভাষার নাম ইংরাজী বা ইংরেজী হওয়া কতটা যুক্তি যুক্ত হতে পারে? এটা আমার বুঝে আসে না৷ আবার আমরা গ্যাগরিয়ান সালকেও বলি ইংরেজি বা ইংরাজী৷ ইংলিশ জাতি চলে গেছে আমাদের দেশ ছেড়ে কিন্তু তাদের ভুত মনে হয় এখনো আমাদের কাদে, মেজাজে মর্জিতে রয়ে গেছে৷ আমি তো বলি, আবার তোরা বাঙালী হ৷ আবার তোরা মানুষ হ৷ আমার প্রস্তাবণায় ইংরাজী বা ইংরেজী নয় আমরা ইংলিশ বলবো৷ আবার ক্যালেন্ডারকেও ইংরাজী বা ইংরেজী বা ইংলিশ বলবো না, সারা বিশ্বের মানুষ যেভাবে বলে, আমরাও ঠিক সে ভাবেই বলবো, গ্যাগরিয়ান ক্যালেন্ডার৷ অবশ্যই আমরা খ্রিস্টাব্দও বলতে পারি, যেহেতু এই ক্যালেন্ডারটির সাথে খ্রিস্টের যোগসূত্র আছে৷ অথবা আরাবিয়ানদের মতো ঈসায়ী বলতে পারি, যেহেতু খ্রিস্ট হচ্ছেন ঈসা৷ কেউ কেউ আবার মিলাদী বলেন, ঈসার বা খ্রিস্টের জন্মসূত্রের কারণে৷ এটাও এতোটা ভালো লাগে না৷ আমাদের ঈসায়ী বা খ্রিস্টাব্দ এই দুটোর মধ্যে একটি বেচে নিতে হবে৷ বাংলাদেশ বা বাংলা ভাষী মুসলিস হিন্দু হওয়ার কারণে খ্রিস্টাব্দ বলা ভালো৷ তার চেয়ে আরো ভালো গ্যাগরিয়ান বলা, একে বারে ধর্ম নিরপেক্ষ শব্দ৷ আমরা তো আবার পানি বা জল, মাংশ বা গোশত নিয়েও তর্ক করি৷— Taher Almahdi (আলাপঅবদান) এই স্বাক্ষরহীন মন্তব্যটি যোগ করেছেন।

"বাংলা ভাষায় বিদেশি শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ" প্রকল্প পাতায় ফিরুন।