অসীম দাসগুপ্ত

ভারতীয় রাজনীতিবিদ

অসীম কুমার দাসগুপ্ত হলেন একজন ভারতীয় অর্থনীতিবিদ এবং রাজনীতিবিদ। তিনি ভারতীয় রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের বামফ্রন্ট মন্ত্রীসভার অর্থ ও আবগারি দপ্তরের মন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন।[১] তিনি ১৩ মে ২০১১ পর্যন্ত চব্বিশ বছর খড়দহ বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন। তিনি ২০১১ সালের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে ২৬,১৫৪ ভোটে এফআইসিসিআইয়ের সেক্রেটারি জেনারেল অমিত মিত্রের কাছে পরাজিত হন।[২] বামফ্রন্ট সরকারের নেতৃত্বাধীন ২৬ জন মন্ত্রীর মধ্যে একজন যিনি তার আসন হারালেন ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির ঐতিহাসিক পরাজয়।


অসীম দাসগুপ্ত
Asim Dasgupta.jpg
আবগারি এবং অর্থমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
৫ জুন ১৯৮৭ – ১৩ মে ২০১১
পূর্বসূরীঅশোক মিত্র
উত্তরসূরীঅমিত মিত্র
সংসদীয় এলাকাখড়দহ
এমএলএ
কাজের মেয়াদ
১৯৮৭ – ২০১১
পূর্বসূরীকমল সরকার
উত্তরসূরীঅমিত মিত্র
সংসদীয় এলাকাখড়দহ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1945-10-30) ৩০ অক্টোবর ১৯৪৫ (বয়স ৭৪)
ক্যালকাটা, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
জাতীয়তাভারতীয়
রাজনৈতিক দলভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীকলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়
ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
জীবিকারাজনীতিবিদ
অর্থনীতিবিদ

শিক্ষা এবং প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

তিনি স্কুল জীবন শুরু করেন মালদা জিলা স্কুল এবং তারপরে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপরে তিনি ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি থেকে অর্থনীতিতে ডক্টরেট (পিএইচডি) অর্জন করেন। তিনি কলেজের অধ্যাপক হিসাবে তার কর্মজীবন শুরু করেছিলেন এবং রাজনীতিতে ক্যারিয়ারে যাওয়ার আগে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক হিসাবে যোগদান করেছিলেন।[৩]

মন্ত্রীর ভূমিকাসম্পাদনা

১৯৮৭ সালে অশোক মিত্রের কাছ থেকে অর্থ এবং আবগারি দপ্তরের মন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পরে, তিনি শূন্য ঘাটতি বাজেট পেশ করার জন্য কঠোর সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছিলেন। ১৯৯০ সালে উদারীকরণের প্রথম দিনগুলিতে মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু অসীম দাসগুপ্তকে বলেন, "আমার মার্কিন প্রশিক্ষিত অর্থমন্ত্রী যিনি আপনাদের নতুন পরিকল্পনা শোনেন" তাকে চেম্বার্স অব কমার্সের কাছে সুপারিশ করতেন।[৪]

মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) সম্পর্কিত এমপাওয়ার কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবে তিনি ২০তম শতাব্দীর প্রথম দিকে ভ্যাট প্রবর্তন করে ব্রিটিশদের দ্বারা প্রথম শিল্প এবং বাণিজ্য করের সূচনা হওয়ার পরে ভারতীয় ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ভূমিকা কর সংস্কারের মাস্টারমাইন্ড তৈরি করেছিলেন। ২০০২ সালে এনডিএ সরকার তাঁকে জিএসটি কাউন্সিলের চেয়ারম্যান করে দিয়েছিলেন। দাশগুপ্ত একটি সাক্ষাৎকারে স্বীকার করেছেন যে জিএসটি কাউন্সিল তাঁর আমলে ৮০% পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছিল।[৫] তিনি ২০১১ সালে সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন। অবশেষে ১ জুলাই ২০১৭ সালে জিএসটি কার্যকর করা হয়েছিল। তাঁকে ভারতের জিএসটির স্রষ্টা হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[৪]

রাজনৈতিক জীবনসম্পাদনা

তিনি ১৯৮৭, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ এবং ২০০৬ সালে পশ্চিমবঙ্গের খড়দহ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন।[৬] ২০১১ সালে তিনি খড়দহ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে অমিত মিত্রের কাছে হেরে যান।[৭]

২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি পশ্চিমবঙ্গের দমদম লোকসভা কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন তবে তৃণমূল কংগ্রেসের সৌগত রায়ের কাছে হেরে গিয়েছিলেন।[৮]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "List of All Ministers"। Government of West Bengal। ২৩ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৯ 
  2. "Political greenhorns emerge giant killers in Bengal"। Sify News। ১৫ মে ২০১১। ১৯ আগস্ট ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৯ 
  3. Prodeep Gooptu (১৪ জুন ২০১৩)। "Newsmaker: Asim Dasgupta"Business Standard। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৯ 
  4. "GST: A 17-year-old dream, 17 phases towards creating history"India Today। ২৯ জুন ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৯ 
  5. "134 - Khardah Assembly Constituency"Partywise Comparison Since 1977। Election Commission of India। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০১০ 
  6. "Khardaha"Assembly Elections May 2011 Results। Election Commission of India। ১৬ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মে ২০১১ 
  7. "Loksabha 2014"। My Neta। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা