অজৈব রসায়ন, অজৈব যৌগের বৈশিষ্ট্য এবং আচরণের সাথে সম্পর্কিত, যার মধ্যে রয়েছে ধাতু, খনিজ এবং অর্গানমেটালিক যৌগ।

অজৈব যৌগ সাধারণত একটি রাসায়নিক যৌগ যাতে কার্বনহাইড্রোজেন বন্ধন থাকে না, অর্থাৎ এটি একটি যৌগ যা কোনও জৈব যৌগ নয়। তবে, এই পার্থক্য যেমন সুস্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত হয়নি তেমনি একমতও হওয়া যায়নি। অনেক কর্তৃপক্ষের এই বিষয়ে বিভিন্ন মতামত রয়েছে।[১][২][৩] অজৈব যৌগের অধ্যয়ন অজৈব রসায়ন হিসাবে পরিচিত।

পৃথিবীর ভূত্বকের বেশিরভাগটাই অজৈব যৌগ নিয়ে গঠিত। যদিও পৃথিবীর ভূগর্ভের অভ্যন্তরের উপাদান নিয়ে নানান অনুসন্ধান চলছে।[৪]

কার্বনযুক্ত কিছু সাধারণ যৌগকে প্রায়শই অজৈব যৌগ হিসাবে ধরা হয়। উদাহরণস্বরূপ কার্বন মনোক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড, কার্বনেটস্, কার্বাইডস্, সায়ানাইডসস, সায়ানেটস্ এবং থায়োকায়ানেটস্-এর নাম উল্লেখ করা যেতে পারে। এর মধ্যে বেশিরভাগই জৈব শ্রেণীর বা জীব সম্বন্ধযুক্ত। কোনও রাসায়নিককে অজৈব হিসাবে বর্ণনা করার অর্থ এই নয় যে এটি সজীব পদার্থের মধ্যে ঘটে না।

অজৈব যৌগগুলি খনিজ বা ভূতাত্ত্বিক-ভিত্তিক যৌগ হয়ে থাকে যেগুলিতে কার্বন-হাইড্রোজেন বন্ধন থাকে না। সব নয়, তবে বেশিরভাগ অজৈব যৌগে একটি ধাতু থাকে। অজৈব রাজ্যের অধীনে অগণিত যৌগ আছে। প্রকৃতপক্ষে, এই মহাবিশ্বের সমস্ত যৌগগুলির বেশিরভাগই অজৈব প্রকৃতির। এই কারণে, অজৈব যৌগগুলির বাস্তব জগতে প্রচুর পরিমাণে প্রয়োগ এবং ব্যবহারিক ব্যবহার রয়েছে। যেহেতু এই বিশ্বের বেশিরভাগ যৌগগুলি অজৈব, তাই এই যৌগগুলি অনেকগুলি রূপ ধারণ করতে পারে এবং বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হতে পারে।

ইতিহাসসম্পাদনা

১৮২৮ সালে ফ্রিয়েদ্রিচ হোলারের অ্যামোনিয়াম সায়ানেট থেকে ইউরিয়া আবিষ্কারের সালটিকে প্রায়শই আধুনিক জৈব রসায়নের সূচনা হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[৫][৬][৭] হোলারের যুগে, প্রচলিত বিশ্বাস ছিল যে জৈব যৌগকে অজৈব যৌগ থেকে প্রস্তুত করা কখনই সম্ভব নয়। অনেকেই মনে করতেন জৈব পদার্থ শুধু মাত্র জীবজগৎ থেকেই তৈরি করা সম্ভব। কৃত্রিমভাবে জৈব পদার্থ তৈরি করা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। বিজ্ঞানী হোলার এই বদ্ধ ধারনাকে সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছিলেন।

যদিও জৈব রসায়নে প্রায় ১৯০ লক্ষ পরিচিত কার্বন যৌগ পাওয়া গেছে, অজৈব রসায়নে মাত্র ৫ লক্ষ পরিচিত যৌগ রয়েছে। যাইহোক, অজৈব যৌগ দ্বারা প্রধান অর্থনৈতিক সুবিধা প্রদান করা হয়।

আধুনিক ব্যবহারসম্পাদনা

‌অজৈব ক্রিস্টাল স্ট্রাকচার ডাটাবেস (ICSD) তার "অজৈব" কার্বন যৌগের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে যে, এই ধরনের যৌগগুলিতে C-H বা C-C বন্ধন থাকতে পারে, কিন্তু দুটোই এক সঙ্গে নয়।[৮]

‌বই সিরিজ অজৈব সংশ্লেষণ, অজৈব যৌগ সংজ্ঞায়িত করে না। এর বেশিরভাগ বিষয়বস্তু জৈব লিগ্যান্ডের ধাতব কমপ্লেক্স নিয়ে কাজ করে। [9]

‌আইইউপিএসি "অজৈব" বা "অজৈব যৌগ" এর সংজ্ঞা দেয় না কিন্তু অজৈব পলিমারকে ",কঙ্কালের গঠন( যাতে কার্বন পরমাণু অন্তর্ভুক্ত নয়") হিসেবে সংজ্ঞায়িত করে।[10]

বৈশিষ্ট্যসম্পাদনা

যেহেতু অনেক অজৈব যৌগে কিছু ধরনের ধাতু থাকে (ক্ষার, ক্ষার, ট্রানজিশন, ইত্যাদি), তারা বিদ্যুৎ সঞ্চালন করতে সক্ষম হয়। উদাহরণস্বরূপ, কঠিন অবস্থায় থাকাকালীন, অজৈব যৌগগুলি বিদ্যুতের দুর্বল পরিবাহী। যাইহোক, তরল পর্যায়ে, অজৈব যৌগগুলি অত্যন্ত পরিবাহী। এই পর্যায়ে, অজৈব যৌগের ইলেকট্রনগুলি খুব অবাধে চলাচল করতে সক্ষম হয় এবং ইলেকট্রনের এই নড়াচড়াটি বিদ্যুৎ হিসাবে উল্লেখ করা হয়।• • • সাধারণত অজৈব যৌগগুলিতে পাওয়া আয়নিক বন্ধনের কারণে, এগুলি খুব শক্তভাবে একত্রিত হয় এবং অত্যন্ত উচ্চ গলন এবং ফুটন্ত পয়েন্টের অধিকারী হয়।

অজৈব যৌগের আরেকটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য হল তাদের রঙ। ট্রানজিশন মেটাল অজৈব যৌগগুলি, সাধারণত উচ্চ রঙের হয়, এবং এটি আবার, 'ডি-ব্লক' ইলেকট্রনের কনফিগারেশনের কারণে। আতশবাজি বিস্ফোরিত হলে যে উজ্জ্বল এবং সুন্দর রঙগুলি দেখা যায় তা যৌগটিতে উপস্থিত অজৈব ধাতু (সাধারণত একটি ক্ষার বা ক্ষারীয়) কারণে হয়। যেহেতু অজৈব যৌগগুলি পোড়ানোর সময় একটি অনন্য রঙ প্রদর্শন করে, এটি জড়িত ধাতু সনাক্ত করতে একটি 'মার্কার' হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

এছাড়াও, অজৈব যৌগগুলি সাধারণত জলে অত্যন্ত দ্রবণীয়। অর্থাৎ, পানিতে রাখলে তারা 'অদৃশ্য' হতে পারে কারণ তারা দ্রবীভূত হবে। • • • • • অজৈব যৌগের আরেকটি প্রকাশক বৈশিষ্ট্য হল তাদের স্ফটিক গঠনের ক্ষমতা। অজৈব যৌগের মধ্যে পাওয়া বন্ধনের প্রকৃতি তাদের স্যাচুরেটেড দ্রবণে স্ফটিক বৃদ্ধি করতে সক্ষম করে।

ব্যবহারসম্পাদনা

অজৈব যৌগগুলি অনুঘটক, রঙ্গক, আবরণ, সার্ফ্যাক্ট্যান্ট, ওষুধ, জ্বালানী এবং আরও অনেক কিছু হিসাবে ব্যবহৃত হয়। তাদের প্রায়শই উচ্চ গলনাঙ্ক এবং নির্দিষ্ট উচ্চ বা নিম্ন বৈদ্যুতিক পরিবাহিতা বৈশিষ্ট্য থাকে, যা তাদের নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে উপযোগী করে তোলে। উদাহরণ স্বরূপ:

অ্যামোনিয়া সারের নাইট্রোজেনের উৎস। এটি নাইলন, ফাইবার, প্লাস্টিক, পলিউরেথেন, হাইড্রাজিন (জেট এবং রকেট জ্বালানিতে ব্যবহৃত) এবং বিস্ফোরক উত্পাদনে ব্যবহৃত প্রধান অজৈব রাসায়নিকগুলির মধ্যে একটি।

ক্লোরিন পলিভিনাইল ক্লোরাইড (পাইপ, পোশাক, আসবাবপত্র ইত্যাদির জন্য ব্যবহৃত), কৃষি রাসায়নিক (যেমন, সার, কীটনাশক, বা মাটি চিকিত্সা), ফার্মাসিউটিক্যালস, এবং জল চিকিত্সা এবং জীবাণুমুক্ত করার জন্য রাসায়নিক তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

টাইটানিয়াম ডাই অক্সাইড হল টাইটানিয়ামের প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন অক্সাইড, যা রঙ, আবরণ, প্লাস্টিক, কাগজ, কালি, ফাইবার, খাদ্য এবং প্রসাধনীতে সাদা পাউডার রঙ্গক হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটির ভাল অতিবেগুনী আলো প্রতিরোধের বৈশিষ্ট্যও রয়েছে এবং ফটোক্যাটালিস্টগুলিতে এটির ব্যবহারের জন্য একটি ক্রমবর্ধমান চাহিদা রয়েছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Some major textbooks on inorganic chemistry decline to define inorganic compounds: Holleman, A. F.; Wiberg, E. Inorganic Chemistry Academic Press: San Francisco, 2001. আইএসবিএন ০-১২-৩৫২৬৫১-৫; Greenwood, N. N.; Earnshaw, A. (১৯৯৭)। Chemistry of the Elements (2nd সংস্করণ)। Butterworth-Heinemannআইএসবিএন 0080379419 , টেমপ্লেট:Cotton&Wilkinson5th
  2. J. J. Berzelius "Lehrbuch der Chemie," 1st ed., Arnoldischen Buchhandlung, Dresden and Leipzig, 1827. আইএসবিএন ১-১৪৮-৯৯৯৫৩-১. Brief English commentary in English can be found in Bent Soren Jorgensen "More on Berzelius and the vital force" J. Chem. Educ., 1965, vol. 42, p 394. ডিওআই:10.1021/ed042p394
  3. Dan Berger, Bluffton College, analysis of varying inappropriate definitions of the inorganic-organic distinction: Otherwise consistent linked material differing from current article in downplaying the carbon present vs carbon absent distinctive: [১]
  4. Newman, D. K.; Banfield, J. F. (২০০২)। "Geomicrobiology: How Molecular-Scale Interactions Underpin Biogeochemical Systems"। Science296 (5570): 1071–1077। ডিওআই:10.1126/science.1010716পিএমআইডি 12004119বিবকোড:2002Sci...296.1071N 
  5. May, Paul। "Urea"Molecules in Motion। Imperial College London। ২০১৫-০৩-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. Cohen, Paul S.; Cohen, Stephen M. (১৯৯৬)। "Wöhler's Synthesis of Urea: How do the Textbooks Report It?"Journal of Chemical Education73 (9): 883। ডিওআই:10.1021/ed073p883 
  7. Ramberg, Peter J. (২০০০)। "The Death of Vitalism and the Birth of Organic Chemistry: Wohler's Urea Synthesis and the Disciplinary Identity of Organic Chemistry"। Ambix47 (3): 170–195। ডিওআই:10.1179/amb.2000.47.3.170পিএমআইডি 11640223 
  8. "Inorganic Crystal Structure Database" (PDF)। ২০১৭-০৮-৩০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৩