২০০৬-০৮ বাংলাদেশী রাজনৈতিক সংকট

২০০৬-০৮ বাংলাদেশি রাজনৈতিক সংকটের শুরু হয়েছিল ২০০৬ সালের অক্টোবরের শেষের দিকে যখন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-এর সরকারের মেয়াদ শেষে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করে। তৎকালীন সংবিধান অনুসারে, কোন দল ক্ষমতা হস্তান্তরের ৯০ দিন পর জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এবং মধ্যবর্তী ৯০ দিন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় থেকে নির্বাচনী প্রক্রিয়া তদারকি করবে ও এর অধীনেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। রাজনৈতিক সংকট শুরু হয় তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদকে তত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগের মাধ্যমে কারণ রাজনৈতিক দলগুলো অন্য পাঁচজন প্রার্থীর ব্যাপারে একমত হতে পারেনি। এই অন্তর্বর্তী সরকারের সূচনা হয় সহিংস বিক্ষোভের মধ্য দিয়ে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ লগি বৈঠা আন্দোলন নামক বিক্ষোভ শুরু করে এবং প্রথম মাসেই ৪০ জন নিহত হয়[১] ও শতশত আহত হয়। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলেরও এই প্রক্রিয়া ও বিরোধীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল।

তত্বাবধায়ক সরকার, ব্যাপক আলোচনার পর দেশের সব রাজনৈতিক দলগুলোকে এক টেবিলে আলোচনায় আনতে সমর্থ হয় এবং ৩ই জানুয়ারি ২০০৭ সালে জাতীয় নির্বাচনের তারিখ ঠিক করা হয়। আওয়ামী লীগ থেকে ঘোষণা করা হয়, তারা নিজে ও এর সাথে যুক্ত ছোটদলগুলো ২২শে জানুয়ারি ২০০৭ সালে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া সাধারণ নির্বাচন বর্জন করবে। তারা ভোটার তালিকা সঠিকভাবে প্রণয়ন করা হয়নি বলে অভিযোগ উত্থাপন করে। পরবর্তীতে এটাকে কেন্দ্র করে দেশে আরো সহিংস পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।[১]

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যকার তিক্ত রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব দুই দশক ধরে জাতিকে প্রভাবিত করছে যদিও তাদের রাজনৈতিক অবস্থান খুব একটা অভিন্ন নয়।[১] দুটি দলই নারী কর্তৃক পরিচালিত এবং তারা দুজনই নিহত নেতার প্রতিনিধিত্ব করেন। আওয়ামী লীগের প্রধান হলেন শেখ হাসিনা যিনি শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা; ১৯৮১ সাল থেকে আওয়ামী লীগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের জাতির জনক ও তিনি ১৯৭৫ সালে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে তাকে হত্যা করা হয়। খালেদা জিয়া, বিএনপির প্রধান; তিনি বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের স্ত্রী। জিয়াউর রহমান ১৯৭৮ সালে বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেন; ১৯৮১ সালে তাকে হত্যা করা হয়।

২০০৭ সালের ১১ই জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিনকে সমর্থন করে সেনাবাহিনী তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় হস্তক্ষেপ করে, এর পূর্বেই দেশে জরুরি অবস্থা জারি ছিল। ইয়াজউদ্দিন আহমেদ তার প্রায় সকল উপদেষ্টার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেন এবং তিনি নিজেও প্রধান উপদেষ্টার পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ১২ই জানুয়ারি ফখরুদ্দীন আহমদ তার স্থলাভিষিক্ত হন, যিনি বিশ্ব ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। নতুন গঠিত সরকার দেশে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে সকল প্রকার রাজনৈতিক কার্যক্রমের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। পরবর্তীতে সরকার দুর্নীতি মামলাগুলোর উপর কাজ শুরু করে; রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ীসহ ১৬০ জনের বিরুদ্ধে ১৯৯০-এর দশকে করা কার্যক্রমের উপর চার্জশিট দাখিল করে ও তদন্ত শুরু করে। ইতিপূর্বে বাংলাদেশের উভয় রাজনৈতিক দলের বিপক্ষে বিভিন্ন সময় দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। উপরন্তু কিছু পর্যবেক্ষক মনে করেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার দেশের স্থিতিশীলতা ও রাজনৈতিক মেরুকরণ কমাতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে স্বেচ্ছা নির্বাসনে পাঠাতে বাধ্য করার চেষ্টা করেছিলেন। তত্বাবধায়ক সরকার, ২০০৬-এর ২৮ শে অক্টোবর শেখ হাসিনার ডাকা লগি বইঠা আন্দোলন নামক বিক্ষোভের সময় ৪জন ব্যক্তিকে হত্যার দায়ে শেখ হাসিনাকে অভিযুক্ত করে। সর্বোচ্চ আদালত রায় প্রদান করেন, জরুরি অবস্থার অধীনে খালেদা জিয়া জরুরি অবস্থা জারির পূর্বের কোন ঘটনায় অভিযুক্ত হবেন না কিন্তু ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বরে করা একটি আপিলে সর্বোচ্চ আদালত মামলা পরিচালনার রায় প্রদান করেন। ২০০৮ এর শেষ দিকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার সাধারণ নির্বাচনের ব্যবস্থা করে এবং ডিসেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও মহাজোট দুই তৃতীয়াংশ ভোটে জয় লাভ করে ও ২০০৯-এ সরকার গঠন করে।

২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে প্রদেয় ভোট যে কোনো স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচনের চেয়ে রহস্যজনকভাবে বেশি ছিল। পক্ষান্তরে ২০০৯ সালের উপজেলা নির্বাচন, যা জাতীয় নির্বাচনের পরপরই অনুষ্ঠিত হয়, সে নির্বাচনে ভোট প্রদানের হার অনেক কম ছিল। ফলে এই সংখ্যাতাত্ত্বিক হিসাব দেশের মানুষের ভোটাধিকার প্রয়োগ আচরণের সঙ্গে গরমিলের ছিল।[২]

পটভূমিসম্পাদনা

বাংলাদেশের স্বতন্ত্র ব্যবস্থা অনুসারে, তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে নির্বাচন প্রক্রিয়া তত্ত্বাবধান করার এবং অন্তর্বর্তী সময়ে পরিচালনা করার দায়িত্ব দিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময়, সংসদ ভেঙে দেওয়ার নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে হয়। প্রথম অনানুষ্ঠানিক উপায়ে প্রতিষ্ঠিত পন্থাটি সিটিজি বিধান মোতাবেক ১৯৯৬ সালে সংবিধানে সংশোধনীর মাধ্যমে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এতে বলা হয় যে প্রধান উপদেষ্টা পদটি (প্রধানমন্ত্রীর মর্যাদা সম্পন্ন) সুপ্রিম কোর্টের সর্বশেষ অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির নিয়োগের মাধ্যমে পূরণ করা হয়। তিনি সরকার পরিচালনায় সহায়তার জন্য সর্বোচ্চ দশজন উপদেষ্টা (মন্ত্রীর মর্যাদা সম্পন্ন) নিয়োগ করতে পারেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার দেশব্যাপী সংসদ নির্বাচন পরিচালনা সহ ৯০ দিনের অন্তর্বর্তীকালীন সময়ে রাষ্ট্রের সমস্ত বিষয় পরিচালনা করবে। এই অন্তর্বর্তী সময়ে, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির কাছে হস্তান্তর করা হবে, যিনি সর্বোচ্চ পর্যায়ের ভূমিকা গ্রহণ করবেন।

প্রতিবাদসম্পাদনা

তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Rahman, Waliur (২০০৭-০১-০৮)। "Is Bangladesh heading towards disaster?"BBC। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০১-১১ 
  2. হিটো, জাহেদুল আলম (২৮ জানুয়ারি ২০২৩)। "ভোটাধিকার আদায়ে 'হাপর' হতে হবে"। দৈনিক সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০২৩ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

আরও পড়ুনসম্পাদনা