প্রধান মেনু খুলুন

সুরুল

ভারতের একটি গ্রাম

সুরুল পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার বোলপুর মহকুমার একটি গ্রাম এবং পর্যটন কেন্দ্র। গ্রামটি শান্তিনিকেতন থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটি শান্তিনিকেতন আশ্রমেরই একটি অংশ।[১] সুরুল কুঠিতে বসে রবীন্দ্রনাথ অনেক গান ও কবিতা রচনা করেছিলেন।

সুরুল
সুরুল
স্থানাঙ্ক: ২৩°৪২′ উত্তর ৮৭°৪২′ পূর্ব / ২৩.৭° উত্তর ৮৭.৭° পূর্ব / 23.7; 87.7
ওয়েবসাইটbirbhum.gov.in/

ইতিহাসসম্পাদনা

সুরুল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রতিষ্ঠিত বিশ্বভারতীর লাগোয়া একটি গ্রাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিরাট অংশ সুরুল মৌজার মধ্যে অবস্থিত। গ্রামটি তার ঐতিহ্য ও সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ এবং ঐতিহাসিক কারণে বিখ্যাত। সুরুলের অধিবাসীরা মূলত বাগদি, বাউড়ি, হাড়িডোম বর্ণভুক্ত। এছাড়া এখানে কয়েকঘর তাঁতিও বাস করেন। পরবর্তীকালে গ্রামের জমিদারেরা এখানে ব্রাহ্মণ নিয়ে এসে বসত করান।[২]

ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির আমলে গ্রামটি জন চিপের অধীনে একটি কমার্সিয়াল রেসিডেন্সি ছিল। ১৮৩৫ সালে কোম্পানি এখানে ব্যবসাবাণিজ্য বন্ধ করে দিলে, রেসিডেন্সিটি পরিত্যক্ত। এখন এর কোনো চিহ্নই আর অবশিষ্ট নেই।[৩]

সংস্কৃতিসম্পাদনা

সুরুল গ্রামের টেরাকোটা মন্দিরগুলি বিশেষ শিল্পগুণ সমন্বিত। বর্তমানে এগুলি সুসংরক্ষিত। ১৮৩০ সাল নাগাদ জন চিপের মৃত্যুর কয়েক বছরের মধ্যে গ্রামের পুরনো মন্দিরগুলি নির্মিত হয়। অধিকাংশ মন্দিরই শিব মন্দির। একটি মনসা ও একটি পঞ্চরত্ন লক্ষ্মী-জনার্দন মন্দিরও আছে। মন্দিরের দেওয়ালে রামায়ণের ছবি যেমন খোদিত হয়েছে, তেমনই খোদিত হয়েছে এখানে এক সময়ে ব্যবসাবাণিজ্য চালানো ইউরোপীয়দের ছবিও।[২] ১৯৪০-এর দশকে মুকুল দে সুরুল গ্রামের মন্দির শিল্পের প্রচুর ছবি তুলে ফটো-ডকুমেন্টরি তৈরি করেন। এটি ১৯৫৯ সালে নতুন দিল্লির ললিত কলা অকাদেমি থেকে বীরভূম টেরাকোটাস নামে প্রকাশিত হয়।

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. "Santiniketan-Bolpur"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৩-০৫ 
  2. Ghosh, Binoy, Paschim Banger Sanskriti, (in Bengali), part I, 1976 edition, pp. 304-308, Prakash Bhaban
  3. O’Malley, L.S.S., ICS, Birbhum, Bengal District Gazetteers, p. 145, first published 1910, 1996 reprint, Government of West Bengal