শুঁটকি ভর্তা একধরনের ভর্তা জাতীয় খাবার যার প্রধান উপাদান শুঁটকি মাছবাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিম বঙ্গের বাঙালিদের মধ্যে শুঁটকি ভর্তা খুবই জনপ্রিয়। প্রাথমিকভাবে সমুদ্র উপকূলবর্তী মানুষের মধ্যে শুটকি মাছ খাওয়া প্রচলিত হলেও এটা এখন সমগ্র অঞ্চলেই ব্যপ্তি পেয়েছে।

শুঁটকি ভর্তা
Shutki vorta 2.jpg
শুঁটকি ভর্তা
প্রকারভাতের সংগে খাওয়া হয়
উৎপত্তিস্থলবাংলাদেশ
প্রধান উপকরণশুঁটকি মাছ, সরিষার তেল, সয়াবিন তেল, পেঁয়াজ, মরিচ, লবন।
রন্ধনপ্রণালী: শুঁটকি ভর্তা  মিডিয়া: শুঁটকি ভর্তা

উপকরণসম্পাদনা

শুঁটকি মাছ, তেল, পেঁয়াজ, শুকনো অথবা কাঁচা মরিচ, লবন। যদিও ব্যক্তি পছন্দ ভেদে এর সংগে অন্যান্য উপকরণ যেমন ধনিয়া পাতা, বিট লবন ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়।

প্রক্রিয়াসম্পাদনা

অঞ্চল বা বাড়ি ভেদে শুটকি ভর্তার স্বাদ আলাদা হয়। এটা উপকরণ সমূহের তারতম্য কিংবা বাবুর্চির দক্ষতা ও নিপুনতার উপর নির্ভর করে। সব ধরনের শুটকি দিয়ে ভর্তা করা যায় তবে তুলনামূলক ভাবে নরম এবং ছোট মাছের শুটকি দিয়ে সহজে ভর্তা তৈরী করা যায়। প্রথমে মাছগুলো পানিতে ধুয়ে তেলে ভেজে নেওয়া হয়। অতঃপর পাটায় বেটে শুকনো মাছের গুড়ো বা পেস্ট তৈরী করা হয়। এর সংগে পরিমান মত লবন, পেঁয়াজ, ভাজা শুকনো মরিচ অথবা কাঁচা মরিচ সরিষার তেল দিয়ে মাখানো হয়[১]

শুটকি ভর্তা গরম ভাতের সংগে খাওয়া হয়।

ঐতিহ্যেসম্পাদনা

বাংলাদেশে শুঁটকি ভর্তা খাওয়ার সুদীর্ঘকালের ইতিহাস রয়েছে। বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে পহেলা বৈশাখকে উৎযাপন করতে ঘটা করে পান্তা ভাতইলিশ মাছ ভাজা খাওয়া হয় এবং এর সাথে অনুষঙ্গ হিসেবে থাকে শুঁটকি মাছ ভর্তা।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা