শাহিনদখত মোলাভার্দি

শাহিনদখত মোলাভার্দি (জন্ম ২৩ অক্টোবর ১৯৬৫) একজন ইরানি শিক্ষাবিদ, নারীবাদী কর্মী, আইনবিদ, পণ্ডিত এবং ইরানের রাষ্ট্রপতির একজন সহকারী ছিলেন। তিনি ইরানের রাষ্ট্রপতি হাসান রুহানির প্রথম মন্ত্রিসভায় (২০১৩–১৭) নারী ও পারিবারিক বিষয়ক উপ-রাষ্ট্রপতি ছিলেন।[৫] তিনি ২০১৭ সালে রুহানির দ্বিতীয় মন্ত্রিসভায় নাগরিক অধিকারের জন্য তার বিশেষ সহকারী হয়েছিলেন।[৫][৬][৭] ২০২০ সালে “দেশের গোয়েন্দা, নিরাপত্তা এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থা” তার বিরুদ্ধে তথ্য ফাঁস, দুর্নীতি ও পতিতাবৃত্তিকে উৎসাহিত করা ও ইসলামী শাসনের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রচার চালানোর অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করে। এতে মোলাভার্দিকে ৩০ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।[৮] তিনি রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেও কোন ফল পাননি।[৯] অনেক সমালোচক বলেন, একজন শিক্ষাবিদ এবং নারীর অধিকার রক্ষাকারীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগগুলি কীভাবে প্রমাণিত হতে পারে? তা স্পষ্ট নয়। কিন্তু ইরানে যারা সাধারণভাবে সংস্কার ও পরিবর্তনের দাবি করে তাদের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ আনা এবং তাদের আইনানুগ প্রক্রিয়া ছাড়াই বন্ধ দরজায় বিচারের সাজা দেওয়া স্বাভাবিক ব্যাপার।” ৫৭ বছর বয়সী এই আইনজীবী ইসলামী প্রজাতন্ত্রের নারী ও মানবাধিকারের একজন সোচ্চার সমর্থক। তিনি পুরুষদের ক্রীড়া ইভেন্টে মহিলাদের অধিকারের কথা বলে বিভিন্ন বিতর্কে পড়েন। তিনি প্রেসিডেন্ট রুহানীর সমালোচনা করে বলেন, সে নারীর অধিকার ও তাদের সমস্যা সমাধানে ব্যর্থ হয়েছে। গত ছয় বছরে রুহানির প্রশাসন নারীদের অধিকার সংক্রান্ত একটি বিলও সংসদে (মজলিস) উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হয়েছে।

শাহিনদখত মোলাভার্দি
شهیندخت مولاوردی
Shahindokht Molaverdi 2018.jpg
মোলাভার্দি ২০১৮
নাগরিকত্বের অধিকারের জন্য রাষ্ট্রপতির বিশেষ সহকারী
কাজের মেয়াদ
৯ আগস্ট ২০১৭ – ২৪ নভেম্বর ২০১৮[১]
রাষ্ট্রপতিহাসান রুহানী
পূর্বসূরীএলহাম আমিনজাদে
ইরানের উপরাষ্ট্রপতি
মহিলা এবং পারিবারিক বিষয়
কাজের মেয়াদ
৮ অক্টোবর ২০১৩ – ৯ আগষ্ট ২০১৭
রাষ্ট্রপতিহাসান রুহানী
পূর্বসূরীমরিয়ম মোজতাহেদজাদেহ
উত্তরসূরীমাসুমে এবতেকার
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1965-10-23) ২৩ অক্টোবর ১৯৬৫ (বয়স ৫৬)
খোয়, পশ্চিম আজারবাইজান, ইরান[২]
রাজনৈতিক দলসোসাইটি ফর সাপোর্ট অব উইমেন রাইটস[৩]
অন্যান্য
রাজনৈতিক দল
ইসলামী ইরান পার্টিসিপেশন ফ্রন্ট
দাম্পত্য সঙ্গীহামিদ আয়াতি[৪]
সন্তান
প্রাক্তন শিক্ষার্থী
জীবিকাআইনজীবী

কর্মজীবনসম্পাদনা

তিনি চার বছর ধরে ইরানের মহিলা বিষয়ক উপরাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি এক বছরের জন্য রুহানির "নাগরিক অধিকার বিষয়ক বিশেষ সহায়ক" হিসেবে নিযুক্ত হন। কিন্তু সরকারি পদে অবসরপ্রাপ্তদের চাকরি নিষিদ্ধ করার আইন বাস্তবায়নের পর ২০১৮ সালের নভেম্বরে পদত্যাগ করেন। শিয়া-অধ্যুষিত দেশে নারীর অধিকার উন্নয়নে তার প্রচেষ্টার জন্য ইরানের কট্টরপন্থীরা বারবার সমালোচনার ঝড় তুলে মোলাভেরদিকে খাটো করে। তিনি অনলাইনে সমকামি কাজে উৎসাহ দেয়ার জন্যও অভিযুক্ত হন। তবে এ অপরাধের জন্য ক্ষমা চান এবং পোস্টটি সরায়ে ফেলেন। বর্তামানে তিনি অবসর জীবনযাপন করছেন। অবসর গ্রহণের পর তার প্রথম সাক্ষাৎকারে সরকারি সংবাদ সংস্থা (আইআরএনএ) কে বলেন, “ইরানে মহিলাদের মর্যদার উন্নতির জন্য যে কোন রক্ষণশীলদের দ্বারা পরিত্যাগ করা হয়। গৃহ সহিংসতা থেকে নারীদের বাঁচানোর প্রচেষ্টা বা তাদের দত্তক নেওয়া কন্যাদের বিয়েতে সৎ বাবার নিষেধাজ্ঞাসহ তার ব্যর্থতার একটি তালিকা উপস্থাপন করে। ইরানের ইসলামী সংবিধান অনুযায়ী নারীদের সীমিত অধিকার রয়েছে। সব মহিলারই আইনগত হেফাজতকারী থাকে। তারা স্বামী, বাবা অথবা পরিবারের অন্য পুরুষ সদস্যের অধীন থাকে। তারা জিম্মাদারদের সিদ্ধান্ত বা কর্মের বিরুদ্ধে খুব কমই অভিযোগ করতে পারে।”[১০]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "10 officials left the Presidential Administration" (ফার্সি ভাষায়)। Iranian Students News Agency। ২৪ নভেম্বর ২০১৮। 
  2. "زندگینامه: شهیندخت مولاوردی (۱۳۴۴ -)"hamshahrionline.ir। ৮ অক্টোবর ২০১৩। 
  3. Sadr-ol-odabaee, Maryam; Hassan-Miri, Fahimeh (১ মে ২০১৩)। "دبیر کل جمعیت حمایت از حقوق بشر زنان: می گویند زنان تجربه مدیریتی ندارند؛ این تجربه باید ازکجا شروع شود؟" (ফার্সি ভাষায়)। Khabar Online। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  4. همسر حمید آیتی تعادل جنسیتی در بازار کار را رها نمی کند!
  5. Gambrell, Jon (১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮)। "AP Interview: Adviser says Iran failed detained US resident"। AP News। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৯ 
  6. "شهیندخت مولاوردی، معاون حسن روحانی در امور زنان شد"Persian Deutsche Welle। ১৩ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৩ 
  7. "Ms Molaverdi appointed as vice president for women, family Affairs"President of Iran Website। ১৩ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৩ 
  8. "Iran: Former vice president sentenced to 30 months in prison | DW | 05.12.2020" 
  9. Welle (www.dw.com), Deutsche। "Iran: Former vice president sentenced to 30 months in prison | DW | 05.12.2020"DW.COM (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-২৬ 
  10. "Rouhani's Former Aide Reportedly Indicted On Trumped-Up Charges"RFE/RL (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-২৬