শামলী জেলা

উত্তর প্রদেশের একটি জেলা

শামলী ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের একটি জেলা। এই জেলাটি ২০১১ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মুজাফফরনগর জেলাকে ভেঙে প্রভূদনগর নামে গঠন করা এবং ২০১২ সালের জুলাইয়ে পুনরায় শামলী নামে নামকরণ করা হয়। শামলী এই জেলার সদর দফতর। শামলী জেলা দিল্লি – শাহারানপুর (জাতীয় মহাসড়ক - ৭০৯ বি), মীরাট-কর্ণাল (জাতীয় মহাসড়ক - ৭০৯ এ) এবং পানিপথ-খতিমা (জাতীয় মহাসড়ক - ৭০৯ এডি) মহাসড়কের পাশে অবস্থিত। শামলী জেলা ভারতের জাতীয় রাজধানী অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত।[১]

শামলী জেলা
উত্তরপ্রদেশের জেলা
উত্তরপ্রদেশের মানচিত্রে শামলী জেলার অবস্থান
উত্তরপ্রদেশের মানচিত্রে শামলী জেলার অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যউত্তরপ্রদেশ
বিভাগশাহারানপুর
প্রতিষ্ঠা২০১১
সদরদপ্তরশামলী
তহশিল
সরকার
 • বিধানসভার আসনশামলী, থানাভবন এবং কাইরানা
আয়তন
 • সম্পূর্ণ১,০৬৩ বর্গকিমি (৪১০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • সম্পূর্ণ১২,৭৪,৮১৫
 • জনঘনত্ব১,২০০/বর্গকিমি (৩,১০০/বর্গমাইল)
জনমিতিক
 • সাক্ষরতা৮১.৯৭
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
প্রধান মহাসড়ক(৭০৯বি), (৭০৯এ), (৭০৯এডি)

অবস্থান ও আয়তনসম্পাদনা

এই জেলাটির আয়তন ১,১৬৭.৫৮ বর্গ কিলোমিটার|[২] এর উত্তরে শাহারানপুর জেলা; দক্ষিণে বাগপাত জেলা; পূর্বে মুজাফফরনগর জেলা এবং পশ্চিমে হরিয়ানা জেলা অবস্থিত। এটি দিল্লি-শামলী জাতীয় মহাসড়কের পাশে অবস্থিত; যা দিল্লি থেকে ১০০ কিলোমিটার, সাহারানপুর থেকে ৬৫ কিলোমিটার, মুজাফফরনগর থেকে ৩৮ কিলোমিটার এবং পানিপথ থেকে ৩৮ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।[৩]

ইতিহাসসম্পাদনা

পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে দ্বাপর যুগে হস্তিনাপুর হতে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে যাবার সময় শ্রীকৃষ্ণ এই পথে গমন করেন এবং এখানকার কুয়া হতে মিষ্টজল গ্রহণ করেন; আবার কারো কারো মতে এই নগরের স্থপতি কুন্তির সন্তান ভীম সেন[৩] ভারতীয় সংষ্কৃতির অন্যতম সূতিকাগার হিসাবে এই জেলাটির গুরুত্ব অপরিসীম। প্রাপ্ত তথ্য মতে এই জেলাটি মারাঠা যোদ্ধাদের একটি সামরিক এলাকা হিসাবে গড়ে তোলা হয় এবং তখন থেকেই এখানে বসবাসের শুরু।[৩] এটি ভারতের মহাবিদ্রোহের স্মৃতি বিজরিত একটি স্থান যেখানে ১৮৫৭ সালের সিপাহী বিপ্লবের সময় সৈন্যরা বিদ্রোহ করে এবং রড়াই করে নিজেদের জীবন উত্‌সর্গ করে দেশের স্বাধীনতার জন্য।[৩] ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে এই জেলাটি মুজাফফরনগর জেলাকে ভেঙে গঠন করা হয়েছিল এবং এর নামকরণ করা হয় প্রভুদনগর।[৩] মুজাফফরনগরের শামলী ও কাইরানা তহসিল নিয়ে এই নতুন জেলাটি গঠন কর হয়। উত্তর প্রদেশ সরকার ২০১২ সালের জুলাই মাসে এর নাম পরিবর্তন করে শামলী করে।[৪]

ভূগোলসম্পাদনা

জনমিতিক উপাত্তসম্পাদনা

এখানকার মোট জনসংখ্যা ১৩,১৩,৬৫০ জন; যার মধ্যে পুরুষ ৬,৯৯,৩৯০ জন এবং নারী ৬,১৪,২৬০ জন।[২]

২০১৩'র দাঙ্গাসম্পাদনা

যদিও এখানে ধর্মীয় সহনশীলতা দেখা যায় তবুও উত্তর প্রদেশের পশ্চিমাংশের অন্যান্য জেলাগুলির মতো শামলীও ২০১৩ সালে মুজফ্ফরনগরের দাঙ্গার সময় আক্রমণের শিকার হয়েছিল।[৫][৬] ইন্ডিয়া টুডেতে ২০১৫ সালের মে মাসের একটি প্রতিবেদনে বলা হয় যে, ২০১৩ সালের আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসের সহিংস দাঙ্গার পর থেকেই শামলি ও মুজাফফরনগর জেলাগুলি "সংবেদনশীল এলাকা" হিসাবে বিবেচিত হয়।[৭]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "UP's Shamli district included in NCR"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  2. "At a Glance"। ১০ আগস্ট ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০১৯ 
  3. "About District"। ২৭ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০১৯ 
  4. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৪ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৯ 
  5. "In Riot-Hit Muzaffarnagar, a Beacon for Female Victims of Violence"। The Wire। ২১ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  6. "Thread Bared"। Outlook। ২১ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  7. "Western Uttar Pradesh tense after communal violence in Shamli"। India Today। ৪ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা