লিসা হ্যালিডে

মার্কিন লেখক ও ঔপন্যাসিক

লিসা হ্যালিডে (ইংরেজি: Lisa Halliday, জন্ম ১৯৭৬) একজন মার্কিন লেখিকা এবং ঔপন্যাসিক। তিনি তার উপন্যাস আসিমেট্রি এর জন্য সর্বাধিক জনপ্রিয়, যার জন্য তিনি ২০১৭ সালে হোয়াইটিং পুরস্কার পান।[১][২][৩]

লিসা হ্যালিডে
Lisa Halliday
MJK63702 Lisa Halliday (Frankfurt Book Fair 2018).jpg
ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা ২০১৮-তে লিসা হ্যালিডে
জন্ম (1976-07-12) ১২ জুলাই ১৯৭৬ (বয়স ৪৬)
মেডফিল্ড, ম্যাসাচুসেটস
মাতৃশিক্ষায়তনহার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়
পেশালেখক
কর্মজীবন১৯৯৭-বর্তমান
উল্লেখযোগ্য কর্ম
আসিমেট্রি
দাম্পত্য সঙ্গীথিও (বি. ২০০৯)
সন্তান
পুরস্কারহোয়াইটিং পুরস্কার

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

লিসা হ্যালিডে মেডফিল্ড, ম্যাসাচুসেটস এ একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে ১৯৭৬ সালের ১৬ই জুলাই জন্ম গ্রহণ করেন। তার পূর্বপুরুষেরা ইতালির ক্যাম্পানিয়ার। ১৯৮১ সালে, মাত্র ৫ বছর বয়সেই তার বাবা-মা-র বিবাহবিচ্ছেদ হয়।[৪] তিনি তার ছোট বোন ও মা, এবং মায়ের তৎকালীন বন্ধু এর সাথে বসবাস করতে লাগেন, পরবর্তীতে তার মা এবং তার বন্ধু বিবাহে আবদ্ধিত হয়।[৫] হ্যালিডে স্কুল দক্ষতার সাথে পাস করেছিলেন, এবং পরবর্তিতে হার্ভার্ড-এ পড়াশোনা করেন। হার্ভার্ডে আর্ট হিস্ট্রি অধ্যয়ন করার সময়, তিনি কেমব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস এবং সোমারভিল শহরে থাকতেন।[৬] ১৯৯8 সালে স্নাতকোত্তর হওয়ার পরে, তিনি ম্যানহাটনে চলে আসেন এবং দ্য ওয়াইলি এজেন্সিতে সহকারী সাহিত্যিক হিসাবে কাজ পেয়েছিলেন এবং পরে পদোন্নতি পান।[৭] তিনি সেখানে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বসবাস করেছিলেন। তিনি অ্যাজেন্সিতে ফিলিপ রথ-এর সাথে দেখা করেছিলেন এবং তাঁর সাথে একটি সম্পর্ক বাড়িয়েছিলেন, যা আজও বন্ধুত্ব হিসাবে টিকে আছে।[৮][৯][১০]

২০০৬ সালে, তিনি সংস্থাটি ছেড়ে দেন এবং সাহিত্যের দিকে মনোনিবেশ করতে শুরু করেছিলেন। নিজেকে আর্থিকভাবে সহায়তা করার জন্য তিনি কিছু মুক্ত সম্পাদনা এবং গোস্ট রাইটিং করেছিলেন। ২০০৯ সালে তিনি ব্রিটিশ সম্পাদক এবং অনুবাদক থিওকে বিয়ে করেন, যার সাথে তিনি একই সাহিত্য সংস্থায় কাজ করতেন। ২০১১ সালে, তিনি তার স্বামীর সাথে মিলানে চলে আসেন। ২০১৭ সালে তাদের একটি কন্যা হয়।[৬]

কর্মজীবনসম্পাদনা

১৯৯০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে হ্যালিডে শৌখিন ছোট গল্প এবং বই লিখতে শুরু করেছিলেন। ১৯৯৭  সালে, হার্ভার্ডে অধ্যয়নকালে, তিনি দ্য আনফিশিয়াল গাইড টু লাইফ অ্যাট হার্ভার্ড ১৯৯৭-১৯৯৮ লিখেন। ২০০৫ সালে, তার ছোট গল্প স্টাম্প লুই প্যারিস রিভিউ ম্যাগাজিনে ছাপা হয়।[১১] ২০১৮ সালে হ্যালিডে তার প্রথম উপন্যাস "আসিমেট্রি" প্রকাশ করেন, যার জন্য তিনি সাহিত্য বিভাগে একটি হোয়াইটিং পুরস্কার লাভ করেন।[১২] বইটি সাইমন এন্ড শুস্টার প্রকাশ করেছিল। দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস,[১৩] দ্য নিউ ইয়র্কার, টাইম ম্যাগাজিন সহ বেশ কয়েকটি প্রকাশনা তাদের ২০১৮ এর শীর্ষ ১০ বইয়ের তালিকায় বইটিকে স্থান দেয়। বারাক ওবামা তার ২০১৮ সালের সেরা বইগুলির তালিকায় বইটি অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন।[১৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Lisa Halliday - Events - Harvard Book Store"www.harvard.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  2. Krüger, Karen। "Schriftstellerin Lisa Halliday: Das ganze Buch war angsteinflößend!"FAZ.NET (জার্মান ভাষায়)। আইএসএসএন 0174-4909। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  3. "Asymmetry review: A novel that puts a refreshing trust in its readers"The Irish Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  4. "Meet the new faces of fiction for 2018"the Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০১-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  5. Alter, Alexandra (২০১৮-০২-০২)। "Lisa Halliday's Debut Novel Is Drawing Comparisons to Philip Roth. Though Not for the Reasons You Might Think."The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  6. "A Conversation with Lisa Halliday, an American Writer in Milan | Easy Milano" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২১-০১-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  7. Lorentzen, Christian (২০১৮-০২-০৭)। "Lisa Halliday's Tremendous New Experiment of a Novel"Vulture (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  8. Alter, Alexandra (২০১৮-০৩-৩০)। "Lisa Halliday's controversial first novel mines her affair with Philip Roth"The Sydney Morning Herald (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  9. Paskin, Willa (২০১৮-০৫-২৩)। "Eulogies for Philip Roth Don't Get Much More Loving Than Lisa Halliday's Novel"Slate Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  10. Nast, Condé। "Philip Roth in the #MeToo Era"The New Yorker (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  11. Halliday, Lisa (২০০৫)। "Stump Louie" (ইংরেজি ভাষায়)। Summer 2005 (174)। আইএসএসএন 0031-2037। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  12. "Lisa Halliday"www.whiting.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  13. Gregory, Alice (২০১৮-০২-১২)। "Three Lives, and the Tenuous Ties That Bind Them"The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 
  14. Caron, Christina (২০১৮-১২-২৮)। "Barack Obama's Favorite Book of 2018 Was 'Becoming.' Here's What Else He Liked."The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা