লিগ্যাসি টাওয়ার (পূর্বাচল, ঢাকা)

লিগ্যাসি টাওয়ার হচ্ছে একটি প্রস্তাবিত ৪৬৫ মিটার (১,৫২৬ ফু) ১৪২তলা বিশিষ্ট আকাশচুম্বী ভবন, যা নির্মিত হবে পূর্বাচল নতুন শহর, ১৯ নম্বর সেক্টর, বাংলাদেশে।[৪] এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এটি এই অঞ্চলের ব্যবসায় বাণিজ্যের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলবে এবং একে ঘিরে আরো কয়েকটি বাণিজ্যিক ভবন লিবারেশন টাওয়ার, ল্যাঙ্গুয়েজ টাওয়ার নির্মিত হবে। এর নির্মাণের জন্য ২০১৬ সালে একটি আন্তর্জাতিক দরপত্র আহব্বান করা হয়েছে।

লিগ্যাসি টাওয়ার
পূর্বচল আবাসিক মডেল টাউনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু ট্রাই টাওয়ারস এর লিগ্যাসি টাওয়ার(মাঝে) এর অবস্থান
মানচিত্র
সাধারণ তথ্য
অবস্থানির্মাণাধীন[১]
ধরনবাণিজ্যিক
স্থাপত্য রীতিনব্য-আধুনিকতাবাদ
অবস্থানসেন্ট্রাল বিসনেস ডিস্ট্রিক্ট, সেক্টর ১৯
শহরঢাকা
দেশবাংলাদেশ
স্থানাঙ্ক২৩°৫১′২৮″ উত্তর ৯০°৩০′৫৯″ পূর্ব / ২৩.৮৫৭৭৮° উত্তর ৯০.৫১৬৩৯° পূর্ব / 23.85778; 90.51639
নির্মাণকাজের আরম্ভ উদযাপন২০১৯
নির্মাণকাজের আরম্ভ২০২০
নির্মাণকাজের প্রাক্কলিত সমাপ্তি২০২৭
উচ্চতা
স্থাপত্যগত৪৬৫ মি (১,৫২৬ ফু)[২]
শীর্ষবিন্দু পর্যন্ত৪৭৩ মি (১,৫৫২ ফু)
কারিগরী বিবরণ
তলার সংখ্যা১১১
নকশা এবং নির্মাণ
স্থপতি প্রতিষ্ঠানহেরিম আর্কিটেক্টস এন্ড প্ল্যানারস
নির্মাতাপাওয়ার-প্যাক হোল্ডিংস লিমিটেড
তথ্যসূত্র

ভৌগোলিক অবস্থান

সম্পাদনা

ভৌগোলিক স্থানাঙ্কে আইকনিক টাওয়ারের অবস্থান ২৩°৫১′০০″ উত্তর ৯০°৩০′৪৬″ পূর্ব / ২৩.৮৪৯৯১৬৩° উত্তর ৯০.৫১২৮২২৬° পূর্ব / 23.8499163; 90.5128226

সার্বিক দিক

সম্পাদনা

বিল্ডিংটি নির্মাণের প্রথম প্রস্তাবনা করে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক আবাসন নির্মাণ কোম্পানি কেপিসি গ্রুপ,প্রতিষ্ঠাতা কালী পি. চৌধুরী।[৫][৬] কোম্পানীটি প্রথমে ১০০ একর জায়গার প্রস্তাবনা করে, পরে তা কমিয়ে ৬০ একরে আনা হয়। [৭] মে ২০১৬ তে জমিটি নিলামে উঠানোর প্রস্তাবনা করা হয়েছিল কিন্তু কোনো কোম্পানী দর হাকায় নি। [৮] সেপ্টেম্বর ২০১৬-এ গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী মোশাররফ হোসেন বলেন পরবর্তী দুইমাসে দরপত্র আহ্বান শেষ হয়ে যাবে।[৯]

প্রকল্পটি তিন ভাগে বিভক্ত,প্রথম পর্বে আইকনিক টাওয়ার নির্মাণ শেষ হবে। দ্বিতীয় পর্বে ভবনটিকে ঘিরে আরো অনেক বাণিজ্যিক ভবন নির্মিত হবে। তৃতীয় পর্বে থাকবে কৃত্রিম লেক,মেগা শপিং মল, ৫ তারকা মানের আন্তজার্তিক হোটেল, ৭০ হাজার সিটের একটি ক্রীড়া কেন্দ্র থাকবে এটির নাম হবে পূর্বাচল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট আরেনা। প্রকল্পটি ঢাকার একটি নতুন জেলা হবে এবং দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ ব্যবসায় জেলা হবে। বুয়েটের গবেষণা বিভাগ,টেস্টিং,পরামর্শ বিভাগ এবং রাজউক হবে প্রকল্পটির প্রধান পরামর্শক।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "বঙ্গবন্ধু ট্রাই-টাওয়ার নির্মাণের কাজ চলছে পি ..."unb.com.bd (English ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০২০ 
  2. "Legacy Tower - The Skyscraper Center"www.skyscrapercenter.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৫ 
  3. "Legacy Tower - The Skyscraper Center"www.skyscrapercenter.com। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১৯ 
  4. http://www.kalerkantho.com/print-edition/last-page/2018/02/06/598695
  5. Rahman, Md Mahfuzur (১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "পূর্বাঞ্চলে ১০০ তলা বিশিষ্ট কনভেনশন সেন্টার"RisingBD। সংগ্রহের তারিখ ১ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  6. "কালী চৌধুরী কেপিসি গ্রুপের চেয়ারম্যান"The KPC Group। ১৯ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৯ 
  7. Hasan, Mahamudul (১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। "আকাশচুম্ভী ভবন নির্মাণের অনুমোদন দিল রাজউক"New Age। Dhaka। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  8. "পূর্বাঞ্চলে ১৩০ তলা ভবন নির্মাণে কোন কোম্পানি আগ্রহ দেখায়নি"New Age। Dhaka। ২৬ মে ২০১৬। ২৭ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  9. "২০১৮ এ পূর্বাঞ্চল শেষ করতে হবে রাজউককে"The Financial Express। Dhaka। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা